আম্পান: শার্শায় বেশি ক্ষতি কৃষিতে

অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় আম্পানে যশোরের শার্শা উপজেলায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

আসাদুজ্জামান আসাদ, বেনাপোল প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 23 May 2020, 01:03 PM
Updated : 23 May 2020, 01:03 PM

অস্যংখ্য কাঁচা ও আধাপাকা বাড়ি, বিভিন্ন ধরনের গাছপালা ভেঙে গেছে; লিচু ও আমের প্রায় পুরোটাই নষ্ট হয়েছে।শত শত বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে গেছে; তার ছিঁড়েছে অসংখ্য স্থানে। বেনাপোল স্থলবন্দরও বিপুল ক্ষতি মুখে পড়েছে। 

বুধবার বিকালে এই ঘূর্ণিঝড় পশ্চিমবঙ্গে আঘাত করে এবং রাতে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। এরপর রাতে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম ও পশ্চিমের বিভিন্ন জেলার উপর তাণ্ডব চালিয়ে যায়।

বাংলাদেশে এসব অঞ্চলেই আমের চাষ হয় হয় সবচেয়ে বেশি। তাই আম পাড়ার ঠিক আগে আমের ব্যাপক ক্ষতি করে গেছে আম্পান।

পঁচিশ লাখ টাকা বিনিয়োগে ৫০ বিঘার ২৫টি আমবাগান কিনে বছর শেষে সাড়ে সাত থেকে আট লাখ টাকা লাভের স্বপ্ন দেখছিলেন বলে জামতলার আমচাষি গোলাম আজম জানান।

তিনি বলেন, “এ বছর আমাদের স্বপ্ন শ্যাষ। আম্পানে ২৫টি বাগানের সব আম পড়ে গেছে। এখন চোখি অন্ধকার দেখছি। ঘূর্ণিঝড় আমাদের পথে বসালো। ধারদেনা করে বাগানের পেছনে খরচ করেলাম। এখন ওদের টাকা দেব কী করে তাই ভাবছি।”

বাগআচড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইলিয়াছ কবীর বকুল বলেন, “এই ইউনিয়নের ১৪টি গ্রাম উলটপালট করে দিয়ে গেছে। কাঁচা ও আধাপাকা সব বাড়ি ভেঙে গেছে। কোনো গাছগাছালি আর ভালো নেই। দুই জন ঘর চাপা পড়ে মারা গেছে। কী পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তার পরিসংখ্যান পরে জানা যাবে।”

এই ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রীর খাদ্য সহায়তা হিসেবে শনিবার ৭৯০ পরিবারের মাঝে শুকনো খাবার ও অন্যান্য খাদ্য সামগ্রী (চাল, ডাল, আলু, তেল ইত্যাদি) বিতরণ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সৌতম কুমার শীল বলেন, “উপজেলায় কৃষিতে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে, যার পরিমাণ দেড়শত কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে। আমের ৮০ শতাংশ ঝরে পড়েছে। লিচুর পুরোটাই ঝরে গেছে। আম ও লিচুর ক্ষতির পরিমাণ অন্তত ৩০ কোটি টাকা। পেঁপে ও কলা বাগান সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে গেছে।”

যশোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির শার্শা জোনাল অফিসের ডিজিএম হাওলাদার রুহুল আমিন বলেন, “ঘূর্ণিঝড় আম্পানে উপজেলার বিদ্যুৎ সেক্টরে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতি তো আর টাকায় নিরুপন করা সম্ভব না। বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙেছে ধরেন দুইশর উপরে। আমরা এখনও অ্যাসেসমেন্ট করতে পারিনি। তার ছিঁড়েছে কয়েক হাজার জায়গায়।” 

বেনাপোল স্থলবন্দরের উপপরিচালক মামুন কবীর তরফদার বলেন, “ঝড়ে বন্দরের ১৫টি শেডের টিন উড়ে গেছে। ১৬টি গেইট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ১২০ ফুট সীমানা প্রাচীর পড়ে গেছে। ২৫টি বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে পড়েছে। বন্দরের আবাসিক এলাকার গাছগাছালির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত শেডগুলোর সংস্কার কাজ চলছে। প্রাথমিকভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ২১ লাখ টাকা হবে বলে মন্ত্রাণালয়কে জানিয়েছি।”

শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পুলক কুমার মন্ডল বলেন, ঘূর্ণিঝড়ে উপজেলার ১১টি ইউনিয়নই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে; তবে বাগআচড়া, কায়বা গোগা ও বেনাপোল ইউনিয়নের ক্ষতির পরিমাণ সবচেয়ে বেশি। পূর্ণাঙ্গ তালিকা এখনও পাওয়া যায়নি।

“বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখেছি; তাতে ৩০ হাজারের মতো কাঁচা ও আধাপাকা বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে প্রাথমিক ধারণা করছি।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক