রিফাত হত্যা মামলা: বরগুনায় আদালত চত্বরে সংবাদকর্মী ‘লাঞ্ছিত’

বরগুনার আলোচিত রিফাত হত্যা মামলার আসামিদের ছবি তুলতে গিয়ে ‘লাঞ্ছিত’ হয়েছেন কয়েকজন সংবাদকর্মী।

মনির হোসেন কামাল বরগুনা প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 8 Jan 2020, 06:33 AM
Updated : 8 Jan 2020, 06:33 AM

বুধবার সকাল ৮টার দিকে বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের মূল ফটকে তিনটি টেলিভিশন চ্যানেলের ভিডিওগ্রাফার এ লাঞ্ছনা শিকার হন বলে তারা অভিযোগ তুলেছেন।

এনটিভির আরিফ হোসেন, সময় টিভির রিপন মালী ও নিউজ টোয়েন্টিফোরের সোহাগ হাফিজকে আসামিদের স্বজনরা লাঞ্ছিত করেছে বলেন তারা।

ভিডিওগ্রাফাররা জানান, রিফাত হত্যায় ব্যবহৃত রামদা সরবরাহকারী আসামি রিফাত হাওলাদার এবং অন্যতম আসামি রাব্বী আকনের স্বজনরা ছবি তুলতে গেলে তাদের ধাক্কা দেয় এবং ক্যামেরা কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা চালায়।

গত ২৬ জুন রিফাত শরীফকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যার ভিডিও ছড়ি পড়লে দেশে ব্যাপক আলোড়ন হয়। সকাল ৮টার দিকে এ মামলার ১৩ জন কিশোর আসামিসহ ২১ জন আসামিকে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে আনা হয়। চাঞ্চল্যকর এ মামলার আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠনের কথা রয়েছে।

গাড়ি থেকে নামিয়ে আসামিদের আদালতে নেওয়ার সময় সাংবাদিকরা ছবি তুলতে গেলে এ লাঞ্ছনার ঘটনা ঘটে বলে ওই সাংবাদিকরা জানাচ্ছেন।

নিহত রিফাত শরীফ

তবে হামলার কথা অস্বীকার করে আসামি রিফাত হাওলাদারের বড় ভাই রিয়াদ হাওলাদার বলেন, শিশু আইনে শিশু আসামিদের ছবি তোলার বিধান নাই। তাই আমরা মৌখিকভাবে ছবি তুলতে নিষেধ করেছি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে এনটিভির ভিডিওগ্রাফার আরিফ হোসেন জানান, বড় ও শিশু আসামিদের একই গাড়িতে আদালতে আনায় তাদের আলাদা করে ছবি তোলা সম্ভব নয়। সেজন্যই তারা ছবি তুলছিল।

বুধবার রিফাত হত্যা মামলার কিশোর আসামিদের শিশু-কিশোর আদালতে চার্জ গঠনের শুনানি হচ্ছে। অন্যদিকে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে রিফাত শরীফের বাবা দুলাল শরীফের স্বাক্ষ্যগ্রহণ করার কথা রয়েছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক