ঢাবির মান বাড়াতে গবেষণা বাড়ানোর আহ্বান শিক্ষা উপমন্ত্রীর

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘গুণগত মান বাড়াতে’ গবেষণা বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

যুক্তরাজ্য প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 July 2022, 02:51 AM
Updated : 6 July 2022, 02:58 AM

শনিবার যুক্তরাজ্যে বসবাসরত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাইদের সংগঠন ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব ইউকে’ আয়োজিত এক ভার্চুয়াল আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা দেন তিনি।

‘অক্সফোর্ড দ্য ইস্ট অ্যান্ড ওয়েস্ট’ শিরোনামে এ সভায় সরকারের অর্থের বাইরে অতিরিক্ত গবেষণার বরাদ্দ বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব আয় থেকে সংগ্রহের তাগিদ দেন মন্ত্রী।

তিনি বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা বাড়াতে অ্যালামনাইদের এগিয়ে আসতে হবে। পৃথিবীর যে সব বিশ্ববিদ্যালয়গুলো র্যাংকিং-এ ভালো করছে তাদের গবেষণা বরাদ্দ অনেক বেশি। উন্নত বিশ্বের অক্সফোর্ড, ক্যামব্রিজ বা হার্ভাডের বিলিয়ন পাউন্ডের এনডাউনমেন্ট ফান্ডের যোগানদাতা সেইসব বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালামনাইরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা বাড়াতে হলে এনডাউনমেন্ট ফান্ডের কোন বিকল্প নেই।”

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গুণগত মান বাড়াতে হলে যুগপোযোগী শিক্ষা পদ্ধতি চালু, শিক্ষকদের মূল্যায়ন, পাঠদান পদ্ধতির পরিবর্তন ও শিক্ষার্থীদের পাঠ্যাভ্যাস গড়ে তোলার বিকল্প নেই বলে মনে করেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

সভার বিশেষ অতিথি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক এএসএম মাকসুদ কামালের কাছে প্রশ্ন ছিলো শ্রেণিকক্ষে পাঠদানের পর শিক্ষার্থীদের দ্বারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের মূল্যায়ন পদ্ধতি কবে চালু হবে? জবাবে মাকসুদ কামাল আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে এ পদ্ধতি চালুর ব্যাপারে উদ্যোগী হবেন বলে আশ্বাস দেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নিজস্ব অর্থায়নে পিএইচডি ডিগ্রি প্রদানের সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে বলে জানান উপ-উপাচার্য। তবে গবেষকদের চার বছরের মধ্যে পিএইচডি সম্পন্ন করার বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হবে, সেই সঙ্গে কিউ-১, কিউ-২ ও কিউ-৩ জার্নালে কমপক্ষে দুটি লেখা প্রকাশ করার বিধান চালু করলে র্যাংকিং পেতে সহজ হবে বলে মত দেন তিনি। বিশ্ববিদ্যালয়ে মানসম্মত গবেষণা ও প্লেজারিজম ঠেকাতে ‘কঠোর উদ্যোগ’ নেওয়ার কথাও জানান উপ-উপাচার্য।

অনুষ্ঠানের চেয়ার থার্ড সেক্টর কনসালটেন্ট বিধান গোস্বামী সমাজে বৈষম্য দূর করতে হলে প্রাথমিক শিক্ষা থেকে একটি সমন্বিত শিক্ষা পদ্ধতি চালুর ব্যাপারে উপমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। সেইসঙ্গে বাংলাদেশে শিক্ষকদের উপর হামলা বন্ধে আইন করার দাবি জানান তিনি।

যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া ও কানাডায় কর্মরত শিক্ষক ও পেশাজীবী অ্যালামনাইদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে খণ্ডকালীন কাজের সুযোগ দিয়ে আন্তর্জাতিক মান বাড়াতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে প্রস্তাব দিয়েছিলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব ইউকে, সেই প্রস্তাব কার্যকর করায় অধ্যাপক মাকসুদ কামালকে ধন্যবাদ জানান অনুষ্ঠানের সঞ্চালক তানভীর আহমেদ।

আলোচনায় আরও অংশ নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব ইউকের উপদেষ্টা ও সাসেক্স বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক লেকচারার আবদুল হান্নান, মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মোজাম্মেল আলী, চৌধুরী হাফিজুর রহমান, ইউনিভার্সিটি অব লিংকনের সহযোগী অধ্যাপক মাহফুজ রহমান, প্রধানমন্ত্রী স্কলারশিপে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মিজানুর রহমান, নাদিরা নাজনিন রাখী, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক অমৃতা পন্ডিত, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক সৈয়দ মাসুদ রেজা, মিডলসেক্স ইউনির্ভসিটির লেকচারার মানজিদা আহাম্মেদ ও বাংলা ট্রিবিউনের হেড অব নিউজ মাসুদ কামাল।

প্রশ্নোত্তর পর্বে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অপ্রয়োজনীয় বিষয় বাদ দিয়ে যুগোপযুগী বিষয় অর্ন্তভূক্তি, মেধার মূল্যায়নের ক্ষেত্রে ভর্তি পদ্ধতির সংশোধন, বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সনদ গ্রহণের ব্যাপারে উদ্যোগ নেওয়া, অনলাইনে ফলাফল প্রকাশের ক্ষেত্রে কোর্স নম্বরের পাশাপাশি বিষয়ের নাম উল্লেখ করা, প্রত্যেক শিক্ষার্থীর জন্য লাইব্রেরিতে কম্পিউটার ব্যবহার নিশ্চিত করে নিজস্ব ই-মেইল আইডি দেওয়া, লাইব্রেরিকে শুধু বিসিএস এর প্রস্তুতির জন্য ব্যবহার না করে জ্ঞানচর্চার স্থান হিসেবে গড়ে তোলা ও বিষয়ভিত্তিক শিক্ষার সঙ্গে কর্মক্ষেত্রের যোগাযোগ বৃদ্ধির উপর জোর দেন আলোচকরা।

এ পর্বে অংশ নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবের ম্যানেজমেন্টের সদস্যদের মধ্যে কাজী আশিকুর রহমান, পলি জাহান ও মহসিন উদ্দীনসহ সিনিয়র অ্যালামনাইরা।

সভায় আগামী ১০ সেপ্টেম্বর অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদযাপনের ঘোষণা দেওয়া হয়।

প্রবাস পাতায় আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাস জীবনে আপনার ভ্রমণ,আড্ডা,আনন্দ বেদনার গল্প,ছোট ছোট অনুভূতি,দেশের স্মৃতিচারণ,রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক খবর আমাদের দিতে পারেন। লেখা পাঠানোর ঠিকানা probash@bdnews24.com। সাথে ছবি দিতে ভুলবেন না যেন!
তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক