খালেদাকে ‘স্বপ্রণোদিত’ হয়ে জামিন দেওয়ার আহ্বান

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠাতে উচ্চ আদালতকে ‘স্বপ্রণোদিত’ হয়ে জামিন দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন বিএনপিপন্থি একদল সাংবাদিক।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 Nov 2021, 10:13 AM
Updated : 3 Dec 2021, 10:49 AM

বিএনপি সমর্থিত ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) এবং ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) বিএনপিপন্থি অংশের সদস্যরা সোমবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করে এই আবেদন জানান।

দুর্নীতির দুই মামলায় দণ্ডিত খালেদা জিয়া সরকারি আদেশে মুক্ত আছেন। অসুস্থতার কারণে গত ১৩ নভেম্বর থেকে ঢাকার বসুন্ধরা এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি তিনি।

হাসপাতালের মেডিকেল বোর্ড রোববার জানিয়েছে, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত। তার যা অবস্থা, তাতে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য কিংবা জার্মানিতে নিলে চিকিৎসা সম্ভব।

পরিবার চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিতে চাইলেও সরকারের সায় না পাওয়ায় বিএনপি নেতারা বলছেন, সরকার তাদের নেত্রীকে ‘মৃত্যুর মুখোমুখি’ দাঁড় করে দিয়েছে।

মানববন্ধনে জাতীয় প্রেসক্লাব ও ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদ বলেন, “আমি উচ্চ আদালতের বিচারপতিদের প্রতি আহবান জানাচ্ছি, সরকারের প্রতিহিংসার বিপরীতে আপনারা বেগম খালেদা জিয়ার জন্য স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে জামিন দেন।

“কারণ আপনাদের জামিন না দেওয়ার নজির নেই, আপনারা জামিন দিয়েছেন অনেককে, অনেক মন্ত্রীকে জামিন দিয়েছেন।”

সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের আহবায়ক শওকত মাহমুদ বলেন, “আসুন, আমরা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া যিনি গণতন্ত্রের প্রতীক, তার পাশে দাঁড়াই এবং দেশনেত্রীকে সুস্থ করার সমস্ত দাবি নিয়ে আমরা প্রয়োজনে রাজপথে নামব- এটাই হচ্ছে আজকের সমাবেশে আমাদের অঙ্গীকার।”

বিএনপি চেয়ারপারসন দেশে ‘গণতন্ত্র পুনঃপ্রবর্তন’ এবং ‘সংসদীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা’ করেছেন বলে মানববন্ধনে দাবি করেন জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কবি হাসান হাফিজ।

তিনি বলেন, “একটা স্বাধীন দেশে এই ধরনের আচরণ মেনে নেওয়া যায় না। আমি বলব, এখনও সময় আছে, শাসকশ্রেণি, তারা যেন বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেন। আশা করি, তাদের বোধোদয় হবে।”

ফেইসবুকে কবি নির্মলেন্দু গুণ একটি পোস্টে অসুস্থ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি চেয়েছেন জানিয়ে সেজন্য তাকে ধন্যবাদ জানান হাসান হাফিজ।

তিনি বলেন, “নির্মলেন্দু গুণের সাহসের জন্য তাকে প্রশংসা জানাই, অভিনন্দন জানাই তাকে। এটা কিন্তু প্রতিধ্বনি, মানুষের বিবেক, মিনিমাম যাদের বিবেক আছে তারা যে, এই অমানবিক ও নিষ্ঠুর আচরণের সমর্থন করছেন না- সেটার একটা প্রতিফলন।”

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কাদের গণি চৌধুরী বলেন, “আইন হয় জীবন রক্ষার জন্য, শৃঙ্খলার জন্য, আইন হয় সভ্যতার জন্য, আইন খুনের জন্য হতে পারে না। আমি সাংবাদিক সমাজের পক্ষ থেকে আদালতের উদ্দেশে বলতে চাই, স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে বেগম খালেদা জিয়াকে রক্ষার উদ্যোগ আপনাদেরকে নিতে হবে।”

মানববন্ধনের সভাপতির বক্তব্যে বিএফইউজের সভাপতি এম আবদুল্লাহ বলেন, “আজকে সাংবাদিক সমাজের দাবি বেগম খালেদা জিয়াকে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে এবং তাকে এখনই বিদেশে পাঠিয়ে উন্নত চিকিতসার ব্যবস্থা করতে হবে।

“যদি এই দাবি না মানা হয় এই সংগ্রাম এই অবস্থায় থাকবে না। সারা দেশের সাংবাদিক সমাজকে সংগঠিত করে আগামী দিনে আরো কঠোর কর্মসূচির মধ্য দিয়ে এই নিষ্ঠুর স্বৈরশাসকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে।”

ডিইউজের সাংগঠনিক সম্পাদক দিদারুল আলমের পরিচালনায় মানবন্ধনে বিএফইউজের মহাসচিব নুরুল আমিন রোকন, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, ডিইউজের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রধানসহ সাংবাদিক ইউনিয়ন নেতারা বক্তব্য দেন।

আরও পড়ুন

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক