ব্যাংক থেকে একশ কোটি টাকা ঋণ চাই

এম আর খায়রুল উমামএম আর খায়রুল উমাম
Published : 3 July 2021, 01:26 PM
Updated : 3 July 2021, 01:26 PM

বাংলাদেশের যেকোনও ব্যাংক থেকে একশ কোটি টাকা ঋণ নিতে চাই। এমন কোন ব্যাংক কি দেশে আছে যারা এ সামান্য টাকাটা ঋণ দেবে? ব্যাংকে গেলে ঋণের কথা শুনলে যেসব নিয়মকানুন, বিধিবিধান, সীমাবদ্ধতার কথা শুনতে হয়, তাতে আগামী একশ বছরের প্রচেষ্টায় সফল হওয়ার কোনও সুযোগ আছে বলে মনে হয় না। পত্রিকায় দেখি ব্যাংক ব্যক্তিকে হাজার হাজার কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে, লাখ-কোটি টাকা খেলাপী ঋণ পড়ে আছে, শত শত কোটি টাকা সুদ মওকুফ করছে, খেলাপী ঋণ গ্রহীতাদের আবার ঋণ দিচ্ছে। ব্যাংকগুলোর এ বিশাল ঋণ কার্যক্রমের মধ্যে একশ কোটি টাকা খুব বেশি টাকা কি? এ অংকের টাকা চাওয়া কি খুব অন্যায় হয়ে যাচ্ছে! 

সাধারণ বিবেচনায় অনেকের কাছে অন্যায় আবদার মনে হলেও বিশ্বাস করি ব্যাংকের কাছে এটি অন্যায় আবদার নয়। দেশের সরল বিশ্বাসে কোন কর্মকর্তা-কর্মচারী অন্যায় করলে তা অন্যায় হিসেবে বিবেচিত হয় না। ব্যাংকের প্রচলিত আইনের পরিপন্থি হলেও সরল বিশ্বাসে একশ কোটি টাকা ঋণ দিয়ে দিতে পারে, অবশ্যই পারে। 

সত্যিকার অর্থে টাকাটা খুব দরকার। একসময় দেশের প্রকৌশলীদের 'মিস্টার টেন পারসেন্ট' বলা হতো। পরিবেশ পরিস্থিতি দেখে বুঝতে পারি এখন কেউ আর 'টেন পারসেন্টে' আর আটকে নেই। ৩১ কোটি টাকার হাসপাতাল ধুমধাম করে ফিতে কাটার পর এখন যেভাবে ফাঁকা মাঠ হয়ে, গিয়েছে তাতে বিশ্বাস করতেই পারি বাংলাদেশ সব সম্ভবের দেশ। তাই ভরসা করতেই পারি ব্যাংক থেকে একশ কোটি টাকা ঋণ পাওয়া সম্ভব। তবে কথা দিতে পারি ঋণের টাকা হাতে পাওয়ার আগে সবরকমের চাহিদা মিটিয়ে তারপর বাকি টাকা নিয়ে বাড়ি ফিরবো। সবার চাহিদা পূরণের পর নিজের প্রয়োজন মেটাবো। ব্যাংক থেকে মানুষ হাজার হাজার কোটি টাকা নিচ্ছে। পি কে হালদার মহাশয় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা নিয়ে এখন কানাডায় বাতাস খাচ্ছেন। শস্য-শ্যামলা সোনার বাংলা ছেড়ে কোথাও যেতে মন চায় না, সে কারণেই শত শত কোটি টাকা, সহস্র কোটি টাকার প্রয়োজন আমার নেই। 

দেশের যে কোন ব্যাংক থেকে ঋণ পাওয়ার জন্য যেসব গুণাবলীর প্রয়োজন তার কিছুই আমার নেই। পৈত্রিক সম্পত্তি নেই, বিবাহসূত্রে সম্পদ প্রাপ্তির কোনও সুযোগ নেই, রাজনৈতিক কোনো পরিচয় নেই, প্রভাবশালী কোনো ব্যক্তি নই, প্রভাবশালী কোনো ব্যক্তির সুপারিশ পাওয়ার যোগ্যতা নেই, দখল করার সাহস নেই, দখল করে দেওয়ার কোনও লোক নেই, ব্যাংকে ন্যূনতম যোগাযোগ নেই, ব্যাংকের কোনও কর্মচারীর সাথে হৃদ্যতা নেই। ব্যাংক ঋণ প্রাপ্তির একমাত্র যোগ্যতা আমি এ দেশের একজন নাগরিক। এ নাগরিকত্বের মধ্যে কৃত্রিমতার লেশমাত্র নেই। কোনও সেকেন্ড হোম নেই, বিদেশে স্থায়ীভাবে বসবাস করার কোন বাসনাও নেই। জীবনের শেষদিনগুলো দেশের মাটিতে কাটাতে চাই। তাই ব্যাংক একশ কোটি টাকা ঋণ দিলে তা পাচারের সম্ভাবনা নেই বা বিদেশে পালিয়ে যাওয়ার কোন ইচ্ছাও নেই। ঋণটা খুব প্রয়োজন এবং দেশের চলমান পরিবেশ পরিস্থিতি ঋণ চাইতে সাহসী করে। 

দেশের ব্যাংকগুলোতে ঋণ প্রদানের অবস্থা দেখে ছোটবেলায় পড়া একটা গল্পের কথা মনে পড়ে যায়। শিয়াল পণ্ডিত আর কুমিরের গল্প। এক সকালে কুমির তার সাত বাচ্চা নিয়ে শিয়ালের বাড়িতে হাজির। লেখাপড়া না শিখলে তার বাচ্চার কি করে খাবে সে ভাবনায় অস্থির কুমির তাই ভাবে শিয়াল পণ্ডিত যদি কুমির ছানাদের একটু শিক্ষা দিয়ে দেয়। এদিকে খাবার বাড়ি এসে হাজির হওয়ার আনন্দে শিয়াল তৎক্ষণাৎ কুমিরের কথায় রাজি হয়ে গেল। কুমির ছানাগুলোকে পেয়ে শিয়ালের বাড়িতে ভোজ শুরু হয়ে গেল। প্রতিদিন একটা করে কুমির ছানা খায়। এদিকে প্রতিদিন সকালে কুমির আসে ছানাদের দেখতে আর শিয়াল তার গর্তের ভিতর থেকে একটা একটা করে ছানা এনে দেখায়। প্রথমদিন পাঁচটা ছানাকে একবার এবং শেষের ছানাকে দুবার দেখায়। তারপরেরদিন শেষের ছানাকে তিনবার দেখায়। কুমিরও তার ছানারা ভালো আছে দেখে ফেরৎ চলে যায়। দেশের ব্যাংকগুলো ঋণ প্রদানের ক্ষেত্রে বোধকরি একই ছানা বারবার দেখে। জীবকূলে মানুষ সবচেয়ে বুদ্ধিমান হওয়ার কারণে কার ছানা দেখছে তা ভাবার সময় পায় না। কুমির নিজের সন্তানদের চেনে কিন্তু আমাদের ব্যাংক তাও জানেনা। 

জাতীয় দৈনিক বণিকবার্তা ৬ এপ্রিল ২০২১ প্রধান খবর করেছিল এক জনপ্রতিনিধির ব্যাংক ঋণ নিয়ে। নির্বাচন কমিশনে দেওয়া তথ্য মতে, ২০০৮ সালের নির্বাচনের প্রাক্কালে আমিন বাজার এলাকায় তার সাড়ে তিন বিঘা জমি ছিল । ২০১৩ সালের নির্বাচনের হলফনামায় তিনি জমির পরিমাণ ১৪১ একরের বেশি দেখান। অপরদিকে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের প্রতিবেদনে, অভিযোগ তোলা হয়েছে ওই সংসদ সদস্য শুধু বুড়িগঙ্গা ও তুরাগ পাড়েরই জমি দখল করেছেন ৫৪ একরের বেশি। বিদ্যুৎ কেন্দ্র, রিয়েল এস্টেট কোম্পানি ও অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার নামে এ দখলকাজ করা হয়েছে। ব্যাংক এসব জমির উপর ঋণ দিয়েছে। শুধু তাই নয় বিশেষজ্ঞদের মতে, যেখানে ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণে ৩৫০-৪০০ কোটি টাকার প্রয়োজন পড়ে, সেখানে তার চারগুণ অর্থ ঋণ দেওয়া হয়েছে। একে জনগণের জমি তার উপর প্রয়োজনের চারগুণ অর্থ। এ প্রকল্প থেকে ঋণ আদায় সম্ভব নয় বলেই অনেকে মনে করেন এবং সেটাই হয়েছে। ঋণ ইতোমধ্যে খেলাপী হয়েছে এখন সুদ মওকুফ করে ও  আসলটা পাওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ। অথচ ব্যাংক শিয়াল পণ্ডিতের মতো কুমির ছানা দেখছে আর ঋণ দিয়ে চলেছে। উপরন্তু সেই আবার এবছরই এপ্রিলের ৪ তারিখে মারাও গেছেন।  

গ্রাম বাংলার একটা কথা আছে 'আশায় মরে চাষা'। ব্যাংক দখলকৃত জমির বিপরীতে ঋণ দিয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকে উদ্ধার অভিযান চলার পরও মামলা চলছে বলে ঋণ পরিশোধের আশায় ব্যাংক ঋণ পুনঃতফসিল করে চলেছে। ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনাকারীদের কত অসীম ক্ষমতা। এ ক্ষমতার জন্যই অনেকে বাংলাদেশকে সব সম্ভবের দেশ ভাবতে পারে। সে সম্ভাবনার কথা মাথায় রেখেই একশ কোটি টাকা ঋণ চাই। প্রজাতন্ত্রের মালিকানার অংশ হিসেবে একজন সাধারণ নাগরিক নিশ্চয়ই নিজে সম্পদহীন হয়েও ব্যাংক ঋণ পাওয়া যেতে পারে, যেখানে ব্যাংকের রয়েছে অসীম ক্ষমতা। সেখানে সামান্য অনুগ্রহ করলেই ঋণ প্রাপ্তি ঘটতে পারে, ব্যাংক কর্তৃপক্ষের শুধু ইচ্ছার প্রয়োজন। তারা একজন সাধারণ নাগরিকের প্রতি ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটালেই হয়। কুমিরের ছানা দেখে ঋণ দেওয়া আর সম্পদহীন, যোগ্যতাহীন জেনে ঋণ দেওয়ায় মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই। দেশের ব্যাংকগুলোতে সারা বছর সুদ মওকুফের যে খেলা চলে তার থেকে একশ কোটি টাকা ঋণ হিসেবে দেখালে ব্যাংকের আপাতদৃষ্টিতে কোনো ক্ষতি হবে না। দেশের ব্যাংকগুলোতে এখন এক লক্ষ হাজার কোটি টাকার উপরে খেলাপী ঋণ রয়েছে। প্রতিবছর ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন কলাকৌশল করে যে পরিমাণ খেলাপী ঋণ উদ্ধার করে তার থেকে বেশি পরিমাণ খেলাপী হয়ে যায়। সে কারণে প্রতি বছর খেলাপী ঋণের পরিমাণ বেড়েই চলেছে। ক্রমাগত বেড়ে চলা খেলাপী ঋণের সঙ্গে একশ কোটি টাকা যোগ হলে ব্যাংকের কী এমন ক্ষতি হয়ে যাবে? তাই পরিবেশ পরিস্থিতি বিবেচনায় একশ কোটি টাকার ঋণ চাওয়া যেতেই পারে এবং ব্যাংক কর্তৃপক্ষ দ্বিধাহীন চিত্তে এ টাকা দিয়েও দিতে পারে। 

বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষরা রাজার রাজা। সাংবিধানিকভাবে এরা কর্মচারী বলে আখ্যায়িত হলেও নিজেদের জন্য মর্যাদাবান হিসেবে কর্মকর্তা উপাধি নির্ধারণ করে নিয়েছেন। এ ক্ষমতাধরদের সালাম দিয়ে স্যার বলা না হলে তারা আন্দোলন করে তা আদায় করে নেন। চেয়ারে বসে থাকা অবস্থায় বিশ্বকে এরা একভাবে দেখেন আর চেয়ার থেকে নেমে সবকিছু অন্যভাবে দেখে থাকেন। এরা সরল বিশ্বাসে কোন কাজ করলে দেশের কোনো আইনে অন্যায় বা দুর্নীতি হয় না। তাই দেশের বোকা নাগরিক হিসেবে স্বীকৃত একজন নাগরিকের জন্য সরল বিশ্বাসে একশ কোটি টাকা ঋণ দেশের যে কোনো ব্যাংক কর্তৃপক্ষ পাস করে দিয়ে নিজেদের অসীম ক্ষমতার প্রকাশ ঘটাতে পারেন। বোকা নাগরিদের প্রতি সহানুভূতিশীল হলে কৃতজ্ঞ হব, বাধিত হব।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক