লড়াইটা এগিয়ে নেবে তোমরা, শিশু সাংবাদিকদের বললেন খালিদী

বড়রা তাদের মত করে চেষ্টা করে যাচ্ছেন; অনিয়ম-অবিচারের মুখোশ উন্মোচনে সৎ সাংবাদিকতার যে লড়াই চলছে, তাকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য ‘নির্ভীক ও উদ্যমী’ শিশু সাংবাদিকদেরও প্রস্তুতি নিতে বললেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান সম্পাদক তৌফিক ইমরোজ খালিদী।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 31 May 2022, 05:40 PM
Updated : 31 May 2022, 06:10 PM

তার ভাষায়, প্রযুক্তির বিকাশে মানুষের বহু কাজ সহজ হয়ে গেছে, কিন্তু কিছু ক্ষেত্রে ঘটেছে উল্টোটা।

“অনেক কিছু কঠিনও হয়ে গেছে। আগে অনেক কিছু অনেক সহজে করা যেত, লিখলে কেউ শুনতেন বা পড়তেন, সেটা নিয়ে কাজ হত।

“এখন অনেক ক্ষেত্রে কাজ হয় না। মানুষের, ওই যে বলে না, চামড়াটা মোটা হয়ে গেছে। বলেই যাচ্ছি কাজ হয় না। লড়াইটা চলছে, লড়াইটা চলবে। তোমরা এই লড়াইটা এগিয়ে নিয়ে যাবে।”

শিশু সাংবাদিকদের প্রথম সংবাদপত্র হ্যালোর নতুন ওয়েবসাইট উদ্বোধনের অনুষ্ঠানে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান সম্পাদক তৌফিক ইমরোজ খালিদী৷

মঙ্গলবার বিকালে ঢাকায় বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের সদরদপ্তরে দেশে শিশু সংবাদিকদের সবচেয়ে বড় মঞ্চ হ্যালোর নতুন-পুরনো সদস্যদের সঙ্গে মিলিত হয়েছিলেন তৌফিক ইমরোজ খালিদী। এ অনুষ্ঠানে তিনি উন্মোচন করেন হ্যালোর নতুন ওয়েবসাইট।

যাত্রা শুরুর নবম বর্ষে এসে শিশু সংবাদিকদের এই ইন্টারনেট সংবাদপত্র নতুন সজ্জা পেল, যা নিয়ে দারুণ উচ্ছ্বসিত শিশু সাংবাদিকরা।

ঢাকা ও ঢাকার বাইরে থেকে হ্যালোর সাবেক ও বর্তমান একদল শিশু সাংবাদিক এসেছিলেন অনুষ্ঠানে। ২০১৩ সালে পথচলা শুরুর পর থেকে বিভিন্ন সময়ে তারা হ্যালোর সঙ্গে যুক্ত ছিলেন বা আছেন। 

নতুন ওয়েবসাইট উন্মোচনের পর হ্যালোর সাবেক-বর্তমান শিশু সাংবাদিকদের নিয়ে কেক কেটে আনন্দ উদযাপন করেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান সম্পাদক। পড়াশোনার পাশাপাশি লেখালেখি ও সামাজিক কর্মকাণ্ডে শিশুদের আরও বেশি করে যুক্ত হওয়ার পরামর্শ দেন।

শিশুরা অনেক সময় বড়দের চেয়েও ‘ভালো কাজ করে’ মন্তব্য করে তিনি বলেন, “আমাদের থেকে ভালো কীভাবে… ওরা আমাদের চাইতে অনেক বেশি আন্তরিক, নির্ভীক, ভয়টা ঢোকে না।

“একটা সময় পর্যন্ত মানুষ ভয় পায় না। মানুষ যখন বেশি বুঝতে শেখে, তখন আস্তে আস্তে ভয় পাওয়া শুরু করে। ভয়ের জ্ঞানটা থাকে না আগে অনেক সময়, বোধটা থাকে না। সেটাও একটা ভালো দিক এক অর্থে। যে নির্ভীক থাকে।”

২০১৩ সালের ৩১ মার্চ দেশে প্রথমবারের মত শিশু সাংবাদিকতার ওয়েবসাইট ‘হ্যালো’ চালু করে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। এই যাত্রায় সঙ্গী হিসেবে রয়েছে জাতিসংঘ শিশু তহবিল-ইউনিসেফ।

হ্যালোর জন্য সংবাদ সংগ্রহ থেকে পরিবেশন পর্যন্ত সব কাজেই যুক্ত রয়েছে শিশু ও কিশোর সাংবাদিকরা। তাদের সহযোগিতা ও নিয়মিত পরিচর্যা করেন একদল দক্ষ সম্পাদক।

সারাদেশে বিপুল সংখ্যক কর্মশালার মাধ্যমে প্রতি বছর প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় হাজারো শিশুকে। সহজ ভাষায় শিশুরা যাতে সাংবাদিকতার খুঁটিনাটি শিখতে পারে, সেজন্য হ্যালো প্রকাশ করেছে ‘সাংবাদিকতার প্রথম পাঠ’ পুস্তিকা।

সাংবাদিকতার পাশাপাশি নৈতিকতার শিক্ষাও হ্যালোর মাধ্যমে শিশুদের দেওয়া হচ্ছে জানিয়ে তৌফিক ইমরোজ খালিদী বলেন, “সমাজে সর্বত্র যে অবক্ষয় হয়েছে, অসম্ভব অবক্ষয় হয়েছে, সেটা রাজনীতির ক্ষেত্রে… রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে, রাষ্ট্র পরিচালনার বিভিন্ন ক্ষেত্রে হয়েছে, সমাজে হয়েছে, অনেক ক্ষেত্রে পরিবারে হয়েছে।

“এই বিরুদ্ধ সময়ে নীতি-নৈতিকতা মেনে, সাংবাদিকতার ব্যাকরণ মেনে কাজগুলো শেখার চেষ্টা করা, কাজগুলো করা, এটা জটিল কাজ, একটা জটিল বিষয়। তোমরা অনেকে করো, অনেক উৎসাহ নিয়ে করো…।”

গত নয় বছর খবর প্রকাশের মাধ্যমে শিশু সাংবাদিকরা অনেক পরিবর্তনেও যে ভূমিকা রেখেছে, সে কথা অনুষ্ঠানে বলেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান সম্পাদক।

তিনি বলেন, “তোমরা অনেক ভালো কাজ করেছো। এবং আসলে কোনো কোনো ক্ষেত্রে আমি তোমাদের হিংসে করি। আমাদের কথা অনেক সময় কেউ শোনে না। আমি দেখেছি, হ্যালোতে লেখা ছাপা হয়েছে, কাজ হয়ে গেছে। মন্ত্রী ঠিকই সেই কাজটা করেছেন।

“অন্যায়-অবিচার চলেছে কোনো একটা জায়গায়, হ্যালোতে প্রতিবেদন ছাপা হয়েছে, খুব দ্রুত কাজ হয়েছে। সেই অন্যায়কারীরা পরাজিত হয়েছে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী বলেন, “সেই অন্যায়কারীরা, তাদেরকে অনেক ক্ষেত্রে অনেক শক্তিশালী প্রতিপক্ষ হারাতে পারেনি, কিন্তু হ্যালোতে প্রকাশিত লেখার জন্য তারা হেরে গেছে। হ্যালোর এমন এক অদ্ভুত ক্ষমতা আছে… হ্যালোর ক্ষমতা মানে তোমাদের, মানে শিশু সাংবাদিকদের।”

হ্যালোতে এখন ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের কাজ করার সুযোগ আছে। এখানে প্রশিক্ষিত শিশু সাংবাদিকদের অনেকে এখন কর্মজীবনে গেছেন; কেউ সাংবাদিকতা ধরে রেখেছেন, অনেকে ছড়িয়ে পড়েছেন নানা পেশায়।

হ্যালোর কাজের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সাবেক শিশু সাংবাদিকরা পরবর্তী জীবনে সাফল্যের স্বাক্ষর রাখছে জানিয়ে তৌফিক ইমরোজ খালিদী বলেন, “আমরা দেখেছি, আমাদের যারা শিশু সাংবাদিক, তারা বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে পড়েছে, তারা ভালো করেছে। এই যে, জ্ঞানটা- কোনটা খবর, কোনটা খবর না, কোনটা সত্য, কোনটা সত্য না, কোনটা সঠিক তথ্য, কোনটি সঠিক নয়- এই জ্ঞানটা এই সমাজে বেশি লোকের নেই।”

শৈশব বিদায় নিলেও হ্যালোর বাঁধনে তারা। হ্যালোর নতুন ওয়েবসাইট উদ্বোধনের ক্ষণটিতে তা্ই আনন্দের কমতি ছিল না সাবেক শিশু সাংবাদিকদেরও।

হ্যালোতে কাজ করার বয়সসীমা যারা পেরিয়ে গেছে, তারাও যাতে ইচ্ছা করলে চর্চা চালিয়ে যেতে পারে, সেজন্য আলাদা কোনো বিভাগ কিংবা আলাদা ওয়েবসাইট চালুর ভাবনার কথা অনুষ্ঠানে বলেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান সম্পাদক।

শিশুদের জন্য শুভকামনা জানিয়ে তিনি বলেন, “শৈশবের চেয়ে ভালো কিছু হয় না। শিশুর মত সরল, শিশুর মত আন্তরিক, শিশুর মত কর্মক্ষম, শিশুর মত প্রাণচঞ্চল এবং শিশুর মত উদ্যম সবার থাকে না। এই উদ্যমটা যেন জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত থাকে সবার।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক