হেনা ও নুরজাহানরা জানেনই না নারী দিবস কি?

  • কেরানীগঞ্জের জাজিরার ইটভাটায় কাজ করছেন এক নারী। তারমত দিনমজুরি করে দিন চলে যাদের তাদের কাছে নারী দিবসের মতো বিশেষ দিবসে প্রশংসা বা শ্রদ্ধা পাওয়ার ভাবনা এখনও অনেক দূরের বিষয়। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    কেরানীগঞ্জের জাজিরার ইটভাটায় কাজ করছেন এক নারী। তারমত দিনমজুরি করে দিন চলে যাদের তাদের কাছে নারী দিবসের মতো বিশেষ দিবসে প্রশংসা বা শ্রদ্ধা পাওয়ার ভাবনা এখনও অনেক দূরের বিষয়। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • প্রতিদিন ১০০ টাকা মজুরির বিনিময়ে দিনভর ইটের ভাটায় কাজ করেন হেনা ও নুরজাহানরা। খাটতে হয় পুরুষদের সঙ্গে তাল মিলিয়েই; কিন্তু দিন শেষে পারিশ্রমিক পুরুষদের অর্ধেকও না। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    প্রতিদিন ১০০ টাকা মজুরির বিনিময়ে দিনভর ইটের ভাটায় কাজ করেন হেনা ও নুরজাহানরা। খাটতে হয় পুরুষদের সঙ্গে তাল মিলিয়েই; কিন্তু দিন শেষে পারিশ্রমিক পুরুষদের অর্ধেকও না। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • ইট ভাটায় কাজের তুলনায় ন্যায্য মজুরিই সেভাবে মেলে না। এমন পরিস্থিতিতে কাজের প্রশংসার বিষয়টি মাথাতেই আসে না দিনমজুর এসব নারীদের। তাই নারী দিবসে কাজের প্রশংসার কথা উঠলে ন্যায্য মজুরি পেলেই খুশি বলে জানান হেনা। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    ইট ভাটায় কাজের তুলনায় ন্যায্য মজুরিই সেভাবে মেলে না। এমন পরিস্থিতিতে কাজের প্রশংসার বিষয়টি মাথাতেই আসে না দিনমজুর এসব নারীদের। তাই নারী দিবসে কাজের প্রশংসার কথা উঠলে ন্যায্য মজুরি পেলেই খুশি বলে জানান হেনা। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • জাজিরার এ ইট ভাটায় কাজ করেন হেনা। পাশে খেলছে তার ছেলে। ভাটায় সারা বছরই কাজের চাপ থাকে বলে গ্রামের বাড়ি বরিশালে খুব একটা যাওয়া হয় না। থাকেন ভাটার পাশেই ভাড়া বাসায়। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    জাজিরার এ ইট ভাটায় কাজ করেন হেনা। পাশে খেলছে তার ছেলে। ভাটায় সারা বছরই কাজের চাপ থাকে বলে গ্রামের বাড়ি বরিশালে খুব একটা যাওয়া হয় না। থাকেন ভাটার পাশেই ভাড়া বাসায়। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • শীত বা গরম যাই হোক সকাল হলেই খোলা আকাশের নিচে দিনের সংগ্রাম শুরু হয় হেনা ও নুরজাহানদের। জীবিকার প্রয়োজনে সকাল থেকে সন্ধ্যা অবধি ইট ভাটায় কাজ করতে হয় তাদের। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    শীত বা গরম যাই হোক সকাল হলেই খোলা আকাশের নিচে দিনের সংগ্রাম শুরু হয় হেনা ও নুরজাহানদের। জীবিকার প্রয়োজনে সকাল থেকে সন্ধ্যা অবধি ইট ভাটায় কাজ করতে হয় তাদের। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • জাজিরার এ ইট ভাটায় কাজ করেন হেনা। পাশে খেলছে তার ছেলে। ভাটায় সারা বছরই কাজের চাপ থাকে বলে গ্রামের বাড়ি বরিশালে খুব একটা যাওয়া হয় না। থাকেন ভাটার পাশেই ভাড়া বাসায়। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    জাজিরার এ ইট ভাটায় কাজ করেন হেনা। পাশে খেলছে তার ছেলে। ভাটায় সারা বছরই কাজের চাপ থাকে বলে গ্রামের বাড়ি বরিশালে খুব একটা যাওয়া হয় না। থাকেন ভাটার পাশেই ভাড়া বাসায়। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • সকাল থেকে সন্ধ্যা দিনভর চলে ইটভাটায় কাজ; দিনে ১০০ টাকা মজুরির মধ্যে নেই খাওয়া দাওয়ার কোনো ব্যবস্থা। সপ্তাহের পারশ্রমিক দিয়েই চলে দিনভর খাওয়া দাওয়া এবং তাদের কারও কারও সংসার। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    সকাল থেকে সন্ধ্যা দিনভর চলে ইটভাটায় কাজ; দিনে ১০০ টাকা মজুরির মধ্যে নেই খাওয়া দাওয়ার কোনো ব্যবস্থা। সপ্তাহের পারশ্রমিক দিয়েই চলে দিনভর খাওয়া দাওয়া এবং তাদের কারও কারও সংসার। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • শীত বা গরম যাই হোক সকাল হলেই খোলা আকাশের নিচে দিনের সংগ্রাম শুরু হয় হেনা ও নুরজাহানদের। জীবিকার প্রয়োজনে সকাল থেকে সন্ধ্যা অবধি ইট ভাটায় কাজ করতে হয় তাদের। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    শীত বা গরম যাই হোক সকাল হলেই খোলা আকাশের নিচে দিনের সংগ্রাম শুরু হয় হেনা ও নুরজাহানদের। জীবিকার প্রয়োজনে সকাল থেকে সন্ধ্যা অবধি ইট ভাটায় কাজ করতে হয় তাদের। ছবি: মাহমুদ জামান অভি