হাসপাতালে ভর্তির জন্য রোগীদের অপেক্ষা

  • ঢাকার মুগদা হাসপাতালে ভর্তির জন্য শনিবার সকাল থেকেই ছিল করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চাপ। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    ঢাকার মুগদা হাসপাতালে ভর্তির জন্য শনিবার সকাল থেকেই ছিল করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চাপ। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • ঢাকার মুগদা হাসপাতালে ভর্তির জন্য শনিবার সকাল থেকেই ছিল করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চাপ। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    ঢাকার মুগদা হাসপাতালে ভর্তির জন্য শনিবার সকাল থেকেই ছিল করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চাপ। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • ঢাকার মুগদা হাসপাতালে শনিবার জরুরি বিভাগের সামনে থাকা তিনটি অ্যাম্বুলেন্সেই ছিল রোগী, হাসপাতালের শয্যা না হওয়ায় তাদের অপেক্ষা করতে হচ্ছিল বাইরে। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    ঢাকার মুগদা হাসপাতালে শনিবার জরুরি বিভাগের সামনে থাকা তিনটি অ্যাম্বুলেন্সেই ছিল রোগী, হাসপাতালের শয্যা না হওয়ায় তাদের অপেক্ষা করতে হচ্ছিল বাইরে। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • ঢাকার মুগদা হাসপাতালে শনিবার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ভর্তির জন্য আসা বেশিরভাগ রোগীই ছিল বয়স্ক। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    ঢাকার মুগদা হাসপাতালে শনিবার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ভর্তির জন্য আসা বেশিরভাগ রোগীই ছিল বয়স্ক। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • ঢাকার মুগদা জেনারেল হাসপাতালে শনিবার দুপুরে অ্যাম্বুলেন্স থেকে নামানো হচ্ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৭৭ বছর বয়সী আব্দুর রশিদকে। সকাল থেকে ঢাকার দুটি বেসরকারি হাসপাতালে ঘুরে ভর্তি করতে না পেরে তাকে নিয়ে আসা হয় এ হাসপাতালে। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    ঢাকার মুগদা জেনারেল হাসপাতালে শনিবার দুপুরে অ্যাম্বুলেন্স থেকে নামানো হচ্ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৭৭ বছর বয়সী আব্দুর রশিদকে। সকাল থেকে ঢাকার দুটি বেসরকারি হাসপাতালে ঘুরে ভর্তি করতে না পেরে তাকে নিয়ে আসা হয় এ হাসপাতালে। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • ঢাকার মুগদা জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে শনিবার দুপুরে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আব্দুর রশিদের মুখে অক্সিজেন মাস্ক ধরে আছেন তার নাতি। সকাল থেকে ঢাকার দুটি বেসরকারি হাসপাতালে ঘুরে ভর্তি করতে না পেরে তাকে নিয়ে আসা হয় এ হাসপাতালে। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    ঢাকার মুগদা জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে শনিবার দুপুরে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আব্দুর রশিদের মুখে অক্সিজেন মাস্ক ধরে আছেন তার নাতি। সকাল থেকে ঢাকার দুটি বেসরকারি হাসপাতালে ঘুরে ভর্তি করতে না পেরে তাকে নিয়ে আসা হয় এ হাসপাতালে। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • রাজধানীর মেরাদিয়া এলাকার বাসিন্দা গুরুচরণ সরকার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত তিন দিন ধরে চিকিৎসাধীন ছিলেন বনশ্রীর একটি বেরসরকারি হাসপাতালে। অবস্থার অবনতি হলে শনিবার দুপুরে তাকে নিয়ে আসা হয় মুগদা জেনারেল হাসপাতালে। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    রাজধানীর মেরাদিয়া এলাকার বাসিন্দা গুরুচরণ সরকার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত তিন দিন ধরে চিকিৎসাধীন ছিলেন বনশ্রীর একটি বেরসরকারি হাসপাতালে। অবস্থার অবনতি হলে শনিবার দুপুরে তাকে নিয়ে আসা হয় মুগদা জেনারেল হাসপাতালে। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • রাজধানীর মেরাদিয়া এলাকার বাসিন্দা গুরুচরণ সরকার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত তিন দিন ধরে চিকিৎসাধীন ছিলেন বনশ্রীর একটি বেরসরকারি হাসপাতালে। অবস্থার অবনতি হলে শনিবার দুপুরে তাকে নিয়ে আসা হয় মুগদা জেনারেল হাসপাতালে। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    রাজধানীর মেরাদিয়া এলাকার বাসিন্দা গুরুচরণ সরকার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত তিন দিন ধরে চিকিৎসাধীন ছিলেন বনশ্রীর একটি বেরসরকারি হাসপাতালে। অবস্থার অবনতি হলে শনিবার দুপুরে তাকে নিয়ে আসা হয় মুগদা জেনারেল হাসপাতালে। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • ঢাকার মুগদা হাসপাতালে শনিবার করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য নমুনা দিচ্ছিলেন এক ব্যক্তি। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    ঢাকার মুগদা হাসপাতালে শনিবার করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য নমুনা দিচ্ছিলেন এক ব্যক্তি। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • ঢাকার মুগদা হাসপাতালে শনিবার এই অপেক্ষা ছিল করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার জন্য। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    ঢাকার মুগদা হাসপাতালে শনিবার এই অপেক্ষা ছিল করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার জন্য। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

  • ঢাকার মুগদা হাসপাতালে শনিবার এই অপেক্ষা ছিল করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার জন্য। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

    ঢাকার মুগদা হাসপাতালে শনিবার এই অপেক্ষা ছিল করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার জন্য। ছবি: মাহমুদ জামান অভি