হতাশা দূর করার খাবার

মন খারাপের সময় প্রিয় কোনও খাবার খেলে মনের হতাশা কিছুটা হলেও কমে আসে। তবে মন খারাপ হলেই অতিরিক্ত খাবার খেলে মুটিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনাও বাড়ে।

লাইফস্টাইল ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 19 Oct 2014, 12:33 PM
Updated : 19 Oct 2014, 12:33 PM

মন খারাপ হলে পছন্দের জিনিস খাওয়া মন ভালো করার ভালো একটি উপায়। তবে খাওয়ার সময় ক্যালরিরবিষয়টিও মাথায় রাখতে হবে। কম ক্যালরিতে মজার খাবার খেলে হতাশাও কিছুটা কমবে আবারশরীরে বাড়তি ক্যালরিও এড়ানো যাবে।

মধু ও দারুচিনি দিয়ে ওটমিল

ওটমিল খাওয়ার ফলে শরীরে সেরোটোনিন নামক একটি হরমোনের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। এ হরমোন মন ভালো রাখার অনুভূতি জাগিয়ে তোলে। তাছাড়া কম ক্যালরিরখাবার হিসেবেও দারুণ ওটমিল। ওটমিলের স্বাদ বাড়াতে যোগ করা যায় খানিকটা মধু। এতেচিনির শর্করা এড়ানো যাবে আবার স্বাদও বজায় থাকবে। এরপর উপরে খানিকটা দারুচিনি গুঁড়া ছিটিয়ে দিলে খাবারের সুগন্ধ স্বাদ দুটিই বাড়বে।

 

ডার্ক চকোলেট ও কাজু বাদাম

চকোলেট প্রেমীদের জন্য সুখবর, শরীরে যে হরমোনের কারণে হতাশা জন্মায় তার প্রভাব কমাতে কার্যকরী একটি খাবার হল ডার্ক চকলেট। তাছাড়া উচ্চ রক্তচাপওঅনেকটাই কমিয়ে আনতে পারে ডার্ক চকলেট। অন্যদিকে কাজু বাদামের প্রোটিন শরীরের ক্লান্তিভাব দূর করে। আর ক্লান্তি দূর হলে মনফুরফুরে হয়ে ওঠে।

মিষ্টি আলু

রক্তে শর্করার পরিমাণ না বাড়িয়ে মিষ্টি কিছু খাবার ইচ্ছা পূরণ করতে মিষ্টি আলুর জুরিনেই। তাছাড়া এর পুষ্টি উপাদান শক্তি জোগায়। তাই মন খারাপ থাকলে যদি মিষ্টি কিছু খেতে ইচ্ছে করে তাহলে মিষ্টি আলুরতৈরি খাবার খাওয়াই যায়।

টক দই ও ফল

শরীরের বাড়তি মেদ কমাতে টক দই দারুণ জনপ্রিয়। তাছাড়া ঘন টকদই যে কোনো ফলের সঙ্গে মিশিয়ে সুস্বাদু সালাদও বানানো যায়। আর দই খাওয়ার ফলে শরীরে‘ফিল-গুড নিউরোট্রান্সমিটার’ বের হয়। অন্য দিকে ফলের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হতাশা কমায় ও ভিটামিন সি শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।

 

তরকারি

ভারতসহআমাদের এই অঞ্চলের তরকারিতে সাধারণত মরিচ ব্যবহার করা হয়।তাই দেশীয়ঘরানায় তৈরি সবজির তরকারি খেলে দুটি বিষয় ঘটে।প্রথমত মস্তিষ্কেমরিচের অণু সনাক্ত করা মাত্রই এনডরফিন বের হয় যা শান্ত করতেসহায়তা করে। আর কারি বা তরকারির মসলা মানসিক চাপের ঢাল হিসেবে কাজ করে।

এছাড়া সম্প্রতিএক গবেষণায় দেখা গেছে, তরকারিতে ম্যাগনেসিয়ামের পরিমাণ বাড়ায় পালংশাক যা মানসিক চাপ থেকে তৈরি মাথা ব্যাথায় আরাম দেয়।

গ্রিন টি

গ্রিন টি ওজন কমাতে কার্যকর। আর এর অ্যামাইনো এসিড মানসিক চাপ কমিয়ে আনতেও সাহায্য করে। তাই মন খারাপ থাকলেএবং হতাশার সময় গ্রিন টি পান করলে তাকমে আসতে পারে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক