কোভিড’য়ের অদ্ভুত পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া

করোনাভাইরাসে আক্রান্তের পর সুস্থ হলেও পুরুষের যৌনক্ষমতা কমে যেতে পারে।

লাইফস্টাইল ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 10 May 2022, 12:35 PM
Updated : 10 May 2022, 12:35 PM

মহামারীর শুরু থেকেই বিশেষজ্ঞরা বলে আসছেন যে, করোনাভাইরাস সংক্রমণ থেকে সুস্থ হয়ে গেলেও তার দীর্ঘমেয়াদি পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া থেকে যাবে। এরমধ্যে থাকবে অবসাদ, শ্বাসকষ্ট, স্নায়বিক বিভিন্ন সমস্যা ইত্যাদি।

তবে সম্প্রতি গবেষণায় অদ্ভুত একটি পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া খুঁজে পাওয়া গেছে। যা পুরুষের জন্য ভয়ানক খবর, তা হলো ‘ইরেক্টাইল ডিজফাংশন’ বা পুরুষাঙ্গ দৃঢ় না হওয়ার সমস্যা।

নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনের জানানো হয়, “ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা, ইজিপ্ট, তুর্কি, ইরান এবং থাইল্যান্ডের গবেষকরা দাবী করছেন, কোভিড আর পুরুষাঙ্গ দৃঢ় হওয়ার সমস্যার মধ্যে সম্পর্ক দেখা গেছে।”

‘ইউনিভার্সিটি অফ রোম টর ভরগাটা’র ‘এন্ডোক্রিনোলজি’ ও ‘মেডিকাল সেক্সোলজি’ বিভাগের অধ্যাপক ডা. ইমানুয়েল জানিনি বলেন, “পুরুষাঙ্গ দৃঢ় হওয়ার সমস্যা আর কোভিড-১৯’য়ের মধ্যে সম্পর্ক বেশ শক্ত। যে পুরুষ করোনাভাইরাস সংক্রমণের শিকার হয়েছেন তার এই সমস্যায় আক্রান্ত হওয়া আশঙ্কা ছয়গুন বেশি। আর এর সপক্ষের প্রমাণগুলো মোটেই অবহেলা করার মতো নয়।”

তবে ‘কোভিড-১৯’য়ের একজন মানুষের যৌনজীবনের ওপর যে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারে তা সাধারণ মানুষকে বোঝানো বেশ ‍দুষ্কর হবে।

নিউ ইয়র্ক টাইমস’য়ের প্রতিবেদনে জানানো হয়, “ইমেজিং স্ক্যান’ আর ‘বায়োপসি’ পরীক্ষার মাধ্যমে গবেষকরা দেখেছেন, করোনাভাইরাস পুরুষের প্রজননতন্ত্রের কোষেও সংক্রমণ ঘটায়। আর প্রাথমিক সংক্রমণের পর বহুদিন পর্যন্ত ভাইরাস ওই অঞ্চলে অবস্থান করতে সক্ষম, সক্রিয়ভাবে।”

শিকাগো ইলিনয়েস’য়ের ‘ইউরোলজিস্ট’ ও ‘মেল ইনফার্টিলিটি’ বিশেষজ্ঞ ডা. জাস্টিন দুবিন বলেন, “পুরুষের লিঙ্গ দৃঢ় হওয়ার পুরো প্রক্রিয়াটি বেশ জটিল। এর জন্য শরীরের ওই অঞ্চলে ভালো রক্তপ্রবাহ থাকতে হবে, স্নায়ুগুলো সক্রিয় হতে হবে, থাকতে হবে হরমোনের সঠিক মাত্রা, বিশেষত, ‘টেস্টোস্টেরন’। এতোকিছুর পর পুরুষটির মন মেজাজ ভালো থাকতে হবে এবং যৌন সঙ্গমের প্রতি আগ্রহও জাগ্রত হতে হবে। এদের মধ্যে কোনো একটি বিষয় অনুপস্থিত থাকলে লিঙ্গ দৃঢ় হতে সমস্যা দেখা দেবে।”

তিনি আরও বলেন, “কিছু বিশেষজ্ঞের ধারণা, করোনাভাইরাসের কারণে পুরুষাঙ্গ দৃঢ় হতে সমস্যা হওয়ার মূল কারণ এই ভাইরাস রক্তনালীর ক্ষতি করে। একই কারণে স্নায়বিক কিছু সমস্যা দেখা দেয়। যেমন- স্বাদ ও গন্ধের অনুভূতি হারানো।”

‘ব্রেইন ফগ’ বা মাথায় ঘোলাটেভাবও দেখা দেয়। যারা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন তাদের প্রায় সবার মাঝেই এই সমস্যাগুলো দেখা গেছে।

আরও পড়ুন

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক