চুল ও ত্বকের যত্নে প্রাকৃতিক উপাদান

প্রসাধনী পণ্য কেনার উপায় নেই, পার্লার বন্ধ! তবে ত্বক পরিচর্যায় রয়েছে প্রাকৃতিক পন্থা।

লাইফস্টাইলডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 27 March 2020, 09:00 AM
Updated : 27 March 2020, 09:00 AM

প্রসাধনী পণ্য ব্যবহারে অনেক সময় পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার সম্ভাবনা থাকে। তবে প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে ত্বক ও চুল পরিচর্যায় সেই সম্ভাবনা থাকে না বললেই চলে।

রূপচর্চা-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে ত্বক ও চুলের যত্ন নেওয়ার উপায় সম্পর্কে জানানো হল।

হলুদ: হলুদ খুব শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও প্রদাহরোধী উপাদান সমৃদ্ধ। এটা ত্বক উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে, ত্বকের মলিনভাব দূর করে।

হলুদ, মধু ও দুধ মিশিয়ে মাস্ক তৈরি করে মুখে লাগান। হলুদের প্রাকৃতিক নির্যাস ত্বককে সুস্থ রেখে উজ্জ্বল করে তোলে।  

লেবুর রস: রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়তে খাদ্যাভ্যাসে ভিটামিন সি থাকা জরুরি। ঠাণ্ডা কাশি থেকে রক্ষা করার পাশাপাশি ভিটামিন সি ত্বকও সুরক্ষিত করে। সহজে ভিটামিন সি পাওয়ার ভালো উপায় হল লেবু।

একটা তুলার বলে লেবুর রস নিয়ে তা দিয়ে মুখ টোনারের মতো করে মুছে নিন। এটা সিরাম হিসেবেও কাজ করে। লেবুর রস অ্যাসিডিক হওয়ায় তা ত্বকে জ্বালাপোড়ার সৃষ্টি করতে পারে, তাই ব্যবহারের আগে ‘প্যাচ টেস্ট’ বা ত্বকে অল্প করে মেখে পরীক্ষা করে নিন।

মেথি বীজ: চুল ঘন ও উজ্জ্বল রাখতে সহায়তা করে মেথি। সারা রাত মেথি বীজ ভিজিয়ে রেখে পরদিন সকালে বেটে নারিকেল তেলের সঙ্গে মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে ব্যবহার করুন।

দুএক ঘন্টা অপেক্ষা করে ধুয়ে ফেলুন। চুল ও মাথার ত্বক সুস্থ থাকবে।

চালের পানি: রূপচর্চার চালের পানির ব্যবহার বেশ প্রাচীন। জাপানে এই পদ্ধতি বেশ প্রচলিত। এতে থাকে ‘ইনোসিটোল’ যা চুলের ক্ষয় দূর করে।

চালের পানি দিয়ে চুল সাধারণ ভাবে ধুয়ে নিলেই হয়। এটা চুল শক্ত করতে সাহায্য করে। এছাড়াও, চুল ফাটা, দুর্বল, পাতলা হয়ে যাওয়া ইত্যাদি সমস্যা সমাধানে চালের পানি চমৎকার কাজ করে।

ছবি: রয়টার্স।

আরও পড়ুন

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক