বেড়াতে গিয়ে কোষ্ঠকাঠিন্য হলে যা করতে হবে

ছুটির কাটাতে ভ্রমণে গিয়ে ঠিক মতো ‘বড় কাজ’টা না হলে অস্বস্তি নিয়েই ঘুরে বেড়াতে হয়। সমস্যা থেকে পরিত্রাণের রয়েছে উপায়।

লাইফস্টাইল ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 Dec 2018, 08:15 AM
Updated : 24 Dec 2018, 08:15 AM

সকালেঠিক মতো বাথরুম না হলে সারাটা দিন কাটে অস্বস্তিতে। আর ভ্রমণে গিয়ে এই সমস্যা হলে তোবেড়ানোটাই মাটি।

ভ্রমণেএই ধরনের সমস্যা হওয়ার কারণ ও প্রতিকার সম্পর্কে এখানে জানানো হল, স্বাস্থ্যবিষয়ক একটিওয়েবসাইটে এই বিষয়ের ওপর প্রকাশিত প্রতিবেদন অবলম্বনে।

হওয়ার কারণ: খাদ্যাভ্যাসঠিকঠাক থাকলেও অনেক সময় অন্ত্র শিথিল হয় না এবং জমে থাকা বর্জ্য অপসারণ করতে পারে না।আবার শরীরে থাকা ব্যাকটেরিয়াও বাগড়া দিতে পারে। যার ফলাফল হতে পারে দুতিন দিন মলত্যাগনা হওয়া, যা সমস্যার পূর্বাভাস।

ভ্রমণে কোষ্ঠকাঠিন্য: চিকিৎসা-বিজ্ঞানেএই সমস্যার নাম দেওয়া হয়েছে ‘ট্রাভল কনস্টিপেইশন’ বা ‘ভ্যাকেশন-ইনডিউস্ড কনস্টিপেইশন(ভিআইসি)’। যা একটি বাস্তবিক সমস্যা।

নতুনজায়গার খাবার পেটে সহ্য না হলে অনেকের ডায়রিয়া বা গ্যাসের সমস্যাও হয়। এই সমস্যাগুলোসরাসরি বেড়াতে যাওয়ার সঙ্গেই সম্পর্কিত।

অন্ত্রের অনীহা: অন্ত্রস্নায়ুর সঙ্গে সম্পর্ক যুক্ত। ভ্রমণের কারণে স্নায়ুর উপর চাপ পড়ায় এর স্বাভাবিক কার্যক্রমব্যহত হয়। এমনকি ভ্রমণের পরিকল্পনা থেকেও মল অপসারণের স্বাভাবিক প্রক্রিয়া ক্ষতিগ্রস্তহতে পারে। আবার বেড়াতে না গেলেও বাইরের খাবার খেলে অন্ত্রের সংবেদনশীল ব্যাকটেরিয়াহজমে সমস্যা তৈরি করতে পারে।

সময়সীমায় অমিল: দৈনন্দিনজীবনযাত্রায় আমাদের সকল কার্যকলাপ একটি নির্দিষ্ট রুটিনে বাঁধা পড়ে, মলত্যাগের সময়ওতার ব্যতিক্রম নয়। তবে বেড়াতে গেলে সবকিছুই উল্টাপাল্টা হয়ে যায়। ফলে শত চেষ্টার পরওমলত্যাগ হয় না।

শৌচাগার বিড়ম্বনা:জনসাধারণের শৌচাগার সাধারণত নোংরা হয়, ব্যক্তিগত শুচিবায়ুগ্রস্ততাও এখানে ভূমিকা পালনকরে। নিজস্ব শৌচাগার অন্যের সঙ্গে ভাগাভাগি করতে যাদের অনীহা আছে, তাদের ক্ষেত্রে এইসমস্যা বেশ প্রকট। আর বেড়াতে গেলে সবসময় পরিষ্কার শৌচাগার পাওয়া যায় না। এসব কারণেমলত্যাগের বেগ চেপে রাখলে স্বাস্থ্যগত জটিলতা দেখা দিতে পারে। 

পরিত্রাণের উপায়

*সহজ সমাধান হল প্রচুর পানি পান করা। বেড়াতে গিয়ে পানি পান করার কথা কার মনে থাকে। আরশরীরের আর্দ্রতা বজায় রাখার চেষ্টা যেন বিলাসিতা!

তবেগুরুত্বপূর্ণ এই বিষয়ের ওপর খেয়াল রাখা চাই। পানি শরীরের স্বাভাবিক কার্যক্রম অক্ষুণ্নরাখার জন্য জরুরি।

*যানবাহনে দীর্ঘক্ষণ থাকার ক্ষেত্রে যতটা সম্ভব নড়াচড়ার মধ্যে থাকা জরুরি। এক জায়গায়দীর্ঘক্ষণ বসে থাকা মল অপসারণের পথে অন্তরায়। তাই সম্ভব হলেই হাঁটাহাঁটি বা শরীর টানটানকরার চেষ্টা করতে হবে।

*বেড়াতে গিয়ে খাদ্যাভ্যাস নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন। তবে খেয়াল রাখতে হবে চা-কফি পান করারপরিমাণ যাতে বেশি না হয়। সম্ভব হলে দই, আঁশযুক্ত খাবার খাওয়ার চেষ্টা করতে হবে।

*মলত্যাগের দৈনন্দিন রুটিন মেনে চলার চেষ্টা করতে হবে। এতে শরীরের নিয়মমতো স্বাভাবিকপ্রক্রিয়ায় বাধা পড়বে না।

আরও পড়ুন

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক