উৎপীড়ক সহকর্মী থেকে সতর্ক থাকুন

গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিতে ভুলে যায়, গুজব ছড়িয়ে বেড়ায় কিংবা সকলের সামনে অপমান করে বসে এমন সহকর্মী বা কর্মকর্তা পুরো কর্মক্ষেত্রের পরিবেশ নষ্ট করার জন্য যথেষ্ট। কর্মক্ষেত্রে হুমকি, ষড়যন্ত্র ইত্যাদির শিকার হন অনেকেই। এমন অবস্থা পরিত্রাণের জন্য সাবধান থাকতে হয়।

লাইফস্টাইল ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 Oct 2017, 09:36 AM
Updated : 6 Oct 2017, 09:36 AM

‘ওয়ার্কপ্লেসবুলিইং ইনস্টিটিউট’য়ের সহ-প্রতিষ্ঠাতা এবং ‘দ্য বুলি-ফ্রি ওয়ার্কপ্লেস’ বইয়ের সহকারীলেখক, যুক্তরাষ্ট্রের মনোবিজ্ঞানী গ্যারি নেইমি বলেন, “এটি এক ধরনের কর্মক্ষেত্রে হয়রানিযা ভুক্তভোগীর উপর মারাত্বক কুপ্রভাব ফেলে। সহজ ভাষায় এটি নির্মমতা।”

মানসিকস্বাস্থ্যবিষয়কএকটি ওয়েবসাইটে এই বিষয়ের উপর প্রকাশিত প্রতিবেদনে নেইমি’র বইয়ের উদ্ধৃতি দিয়ে আরওজানানো হয়,

আক্রমণাত্মকএই আচরণ বিভিন্ন ধরনের হতে পারে। এই ব্যক্তি একজন নির্দিষ্ট সহকর্মীর উপর লক্ষ্যস্থিরকরতে পারেন, আবার কয়েকজন দল বেঁধে আরেকজন সহকর্মীকে একঘরে করে দিতে পারেন। আক্রমণাত্মকআচরণগুলো মুখোমুখি বেশি হয়। তবে কর্মক্ষেত্রে প্রযুক্তি নির্ভরতা যেহেতু বাড়ছে,তাই ইন্টারনেটভিত্তিক অসদাচরণও ক্রমেই বাড়ছে।

সহকর্মীরএরকম দুর্ব্যবহারের পেছনে বিভিন্ন কারণ থাকতে পারে। কেউ হয়ত চক্রান্তের মাধ্যমে সহকর্মীকেদমিয়ে কর্মক্ষেত্রে পদোন্নতি পেতে চাইছে, আবার কেউ হয়ত সহকর্মীকে নিজের বশে রাখতে চাইছে।কারণ যাই হোক, ফলাফল হয় কাজের মান ব্যহত হওয়া, অমনযোগিতা, পদত্যাগ। যার ভুক্তভোগী হয়অসদাচরণের শিকার সহকর্মীসহ পুরো প্রতিষ্ঠান।

নেইমিবলেন, “সহকর্মীর আক্রমণাত্মক আচরণ ভুক্তভোগীর উপর যে মানসিক চাপ ফেলে পরে সেটা রূপনেয় দুঃশ্চিন্তা, অস্বস্তি এবং আতঙ্কে। গবেষণা বলে, এমন ভুক্তভোগীদের ঘুমের সমস্যাদেখা দেয়। পরিস্থিতি বাড়াবাড়ি পর্যায়ে পৌঁছালে আত্মহত্যার দিকে পা বাড়াতে পারেন তারা।”

তিনিআরও বলেন, “সমস্যাটা শুধু কর্মক্ষেত্রের পরিবেশ বিপজ্জনক করে না, পাশাপাশি এটি একটিমারাত্মক জনস্বাস্থ্য সমস্যা।”

কী করা উচিত

‘জার্নালঅফ সাইকোলজি রিসার্চ অ্যান্ড বিহেইভিয়ার ম্যানেজমেন্ট’ শীর্ষক জার্নালে বলা হয়, কর্মক্ষেত্রেসহকর্মীদের সঙ্গে আক্রমণাত্মক কিংবা আপত্তিকর আচরণ না করা এবং কেউ করলে তাকে শক্ত হাতেপ্রতিহত করার প্রশিক্ষণ দেওয়া উচিত প্রতিটি কর্মীকে।

নেইমিরবিশ্বাস, কর্মক্ষেত্রে আক্রমণাত্মক আচরণের শিকারদের কাউন্সিলিং এবং দলবদ্ধ থেরাপিরমাধ্যমে আতঙ্ক থেকে বেরিয়ে আসতে সাহায্য করা সম্ভব। তাদেরকে বোঝাতে হবে, ভুক্তভোগীরাএকা নন, এর পেছনে তাদের কোনো দোষ ছিলনা এবং তারা অসহায় নন।

ওয়ার্কপ্লেস বুলিইং ইন্সটিটিউট জরিপ অনুযায়ী-

সহকর্মীদেরসঙ্গে আক্রমনাত্মক আচরণকারীদের মধ্যে ৫৬ শতাংশই উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা। সমমর্যাদার সহকর্মীরমাধ্যমে এমন আচরণের শিকার হন মাত্র ১৮ শতাংশ।

দোষীদেরমধ্যে ৬০ শতাংশই পুরুষ আর ভুক্তভোগীর ৬০ শতাংশই নারী।

২০১৪সালের এক জরিপ অনুযায়ী, দোষীদের ১১ শতাংশ অসদাচরণের শাস্তি পেলেও চাকরিচ্যুত হননি।অপরদিকে ভুক্তভোগীদের ১৫ শতাংশ হয় চাকরিচ্যুত হয়েছেন নয়ত পদত্যাগ করেছেন।

ছবি: রয়টার্স।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক