আগা ফাটা চুলের যত্ন

পাশাপাশি দরকার প্রতিরোধ ব্যবস্থা।

মরিয়ম সেঁজুতিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 8 Oct 2015, 11:19 AM
Updated : 8 Oct 2015, 11:19 AM

এই বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেনআকাঙ্ক্ষা’স গ্ল্যামার ওয়ার্ল্ডের কর্ণধার অ্যারোমা থেরাপিস্ট জুলিয়া আজাদ।

চুলের আগা একবার ফেটে গেলে,তা স্বাভাবিক রূপে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয় না। তাই চুলের যে অংশটুকু ফেটে গেছে সেই অংশকেটে ফেলতে হয়। তারপর নিতে হয় প্রতিরোধ ব্যবস্থা।

চুলের আগা ফাটার সবচেয়ে কার্যকরসমাধার হল, তেল। তেল চুলে পুষ্টির জোগান দেয়। তাই নিয়মিত চুলে তেল দিতে হবে। এক্ষেত্রেআমরা সবাই সাধারণত নারিকেল তেল ব্যবহার করে থাকি। এছাড়াও জলপাই-তেল, বাদাম-তেল বা তিলের-তেলব্যবহার করা যায়।

এসময় তেল খুব ভালোভাবে মাথারত্বকে মালিশ করার পাশাপাশি চুলেও লাগাতে হবে। ভালো ফলাফল পেতে সপ্তাহে তিনদিন তেল লাগানোউচিত।

চুলের রুক্ষভাব কমাতে এবংআগা ফেটে যাওয়ার প্রবণতা রোধ করতে, প্রতিদিন শ্যাম্পু করা বাদ দিতে হবে। কারণ চুল ধোয়ারফলে, মাথার ত্বকের তেলও ধুয়ে যায়। তাই সপ্তাহে দুই থেকে তিনবারের বেশি শ্যাম্পু করাউচিত নয়।

শ্যাম্পুর রাসায়নিক উপাদানওচুলের ক্ষতির কারণ হতে পারে। আর শ্যাম্পু ব্যবহারের ক্ষেত্রে, শ্যাম্পুতে সালফেটেরপরিমাণ লক্ষ করতে হবে। সালফেট হল ডিটারজেন্ট তৈরির প্রধান একটি উপাদান যা প্রচুর ফেনাতৈরি করে।

সালফেট চুলের কিউটিকলের আদ্রর্তাকেড়ে নেয়। ফলে রুক্ষ ও নিষ্প্রাণ হয়ে চুলের আগা ফাটার পরিমাণও বেড়ে যায়। হারবাল শ্যাম্পুতেসাধারণত সালফেট থাকে না অথবা কম পরিমাণে থাকে। তাই চুল ধোয়ার জন্য হারবাল শ্যাম্পুবেছে নেওয়া ভালো।

মনে রাখতে হবে:

- বারবার শ্যাম্পু করলে চুলেরক্ষতি ছাড়া উপকার হয় না। চুলের সঠিক পরিচর্যা করার জন্য ভালো ব্র্যান্ডে আয়ুর্বেদিকশ্যাম্পু ব্যবহার করা ভালো।

- শ্যাম্পু করার পর যে পানিতেমাথা ধোয়া হয় তাও অনেক সময় ক্ষতি করে চুলের। বিশেষ করে পানির ক্লোরিন এর জন্য দায়ী।এই ক্লোরিন যুক্ত পানি প্রতিদিন ব্যবহারের ফলে চুলের ডগা ফেটে যায়। তাই এই পানি ব্যবহারেরআগে পানিকে যদি সম্ভব হয় ফুটিয়ে ঠাণ্ডা করে নেবেন। বাইরে বের হলে সূর্যের তাপ যেন চুলেরক্ষতি করতে না পারে সেজন্য সহজ সমাধান ছাতা ব্যবহার করা।

- চুলের আগা ফেটে গেলেই বুঝতেহবে চুলের প্রচণ্ড ক্ষতি হয়েছে। এক্ষেত্রে চুলের আগা কেটে ফেলার চেষ্টা করবেন। আগাকাটার একটি নির্দিষ্ট নিয়ম আছে এবং সেটা দক্ষ হাতেই করতে হবে। এ ধরনের হেয়ার কাটকেস্পিটেন্ট কাট বলে। এ হেয়ারকাটে চুল কখনই ছোট হবে না। শুধু মাত্র নির্দিষ্ট নিয়মেরমাধ্যমে চুলের ফাটা আগাগুলো আলাদা করে কেটে দেওয়া হয়। এই একটা কাটিং চুলের পুরানো উজ্জ্বলতাফিরিয়ে দিতে সক্ষম। এছাড়া চুলের রুক্ষতাও কমে যাবে এবং চুল পরার হাত থেকেও রেহাই পাওয়াযায়।

বাড়তি যত্ন

* নিয়মিত চুলে ব্রাশ করুন।ধীরে ধীরে চুল আঁচড়ান। খেয়াল রাখুন আঁচড়ানোর সময় চুল যেন না ছিড়ে।

* হেয়ার স্প্রে বেশি ব্যবহারকরবেন না।

* প্রচুর পরিমাণে প্রোটিনযুক্ত খাবার খান। খাদ্যে ভিটামিন বি কমপ্লেক্স ভিটামিস সি ভিটামিন ই যেন অবশ্যই থাকে।

* রুক্ষ চুলে শ্যাম্পু করারঅন্তত এক ঘণ্টা আগে তেল লাগান। শ্যাম্পু করার পর গোড়া বাদ দিয়ে কন্ডিশনিং করতে ভুলবেননা।

* চুল প্রতিদিন ৫০ থেকে ১০০বার ব্রাশ করুন। এতে রক্ত সঞ্চালন ভালো হবে ও চুল চকচকে হবে। শ্যাম্পু করার পর অবশ্যইব্যবহৃত ব্রাশ, চিরুনি পরিষ্কার করে নিন।

* অনেক বেশি জেল চুলের ক্ষতিকরে।

ঘরোয়া উপায়

প্রয়োজন হবে এক কাপ ঘন দুধ,দুটি ডিম, কয়েক ফোঁটা নারিকেল তেল।

দুধে ডিম মেশান। সাদা ফেনাবের হলে কয়েক ফোঁটা নারিকেল তেল মিশিয়ে চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত লাগিয়ে এক ঘণ্টারেখে শ্যাম্পু করুন। চাইলে একটু উষ্ণ গরম পানি দিয়ে প্রথমে ধুয়ে নিয়ে তারপর সাধারণতাপমাত্রার পানি দিয়ে শ্যাম্পু করে কন্ডিশনিং করুন।  

ধীরে ধীরে চুলের আগা ফাটারসমস্যা সমাধান হয়ে যাবে।

চুলের আগা ফাটা রোধ করতে একটিপ্যাকও ব্যবহার করা যায়। প্যাকটি তৈরি করতে, একটি ডিমের কুসুম, তিন টেবিল-চামচ অলিভঅয়েল এবং এক টেবিল-চামচ মধু মিশিয়ে চুলে লাগান।

একটি শাওয়ার ক্যাপ কিংবা কাপড়দিয়ে চুল ৩০ মিনিট ঢেকে রাখুন। এরপর মৃদু শ্যাম্পু করে চুল ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুতিনদিন ব্যবহার করুন এই মাস্ক। চুলে আগা ফাটা দূর হবে।

প্রতীকী ছবির মডেল: পাপড়ি। ছবি: আসাদুজ্জামান প্রামানিক।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক