খবর > কিডজ > ছড়ায় বর্ণমালায়

  • ৭১ এর চিঠি

    ৭১ এর চিঠি

  • হেমন্তের গান ও অন্যান্য ছড়া

    হেমন্তের গান ও অন্যান্য ছড়া

  • আমরা ছিলাম ছোট্ট তখন

    আমরা ছিলাম ছোট্ট তখন

  • খোকা-খুকুর স্বরবর্ণের ছড়া

    খোকা-খুকুর স্বরবর্ণের ছড়া খোকা ও খুকু সুমন মাহমুদ

  • বেবী মওদুদের ছড়া: পিঁপড়ে

    বেবী মওদুদের ছড়া: পিঁপড়ে

  • পরী

    পরী রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৬ তম জন্মদিনে কিডজের বন্ধুদের জন্য রইলো তার একটি গল্প। গল্পসল্প গ্রন্থের অন্তর্ভুক্ত এই গল্পটির নাম পরী।

  • দুধ-ভাত

    দুধ-ভাত ‘ছোট বন্ধু’ রাজনের এটা একটা বিরাট সমস্যা যে সবাই ওকে দুধ-ভাত মনে করে। এই বিষয়টা নিয়ে ও অনেক ভেবেছে খেলাধুলার সঙ্গে দুধ-ভাতের সম্পর্কটা কোথায়। আসলে ভাত খাওয়ার সময় তো শুধু দুধভাত কেউ খায় না। মাছ মাংস সবজি দিয়ে খায় আসল ভাত। তারপর স্বাদের জন্য খাওয়া হয় দুধভাত। দুধভাত খেলেও হয়, না খেলেও সমস্যা নেই।

  • গাছ

    গাছ রাকার জীবনে শোনা সবচেয়ে আজব কথা হচ্ছে, “গাছের জীবন আছে”। স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু নামে একজন বিজ্ঞানী নাকি কীসব পরীক্ষা করে দেখিয়েছেন গাছের জীবন আছে, তারা ব্যথা ট্যথা অনুভব করে। বকাঝকা করলে নাকি মাইন্ডও করে।

  • সুকুমার বড়ুয়ার দুটি ছড়া

    সুকুমার বড়ুয়ার দুটি ছড়া সুকুমার বড়ুয়ার দুটি ছড়া

  • মিউমিউ আর নতুন বাবুর গল্প

    মিউমিউ আর নতুন বাবুর গল্প মিউমিউয়ের মনটা খারাপ। মা আজ তাকে সারাদিন কোলে নেয়নি, আদর করেনি, চুমু দেয়নি। সকাল থেকেই তাই বড্ড কান্না পাচ্ছে মিউমিউয়ের। মায়ের ওপর অভিমানও হচ্ছে খুব। তাই নিজেই আর মায়ের কাছে ঘেষেনি। কিন্তু দুপ্পুর বেলা, খা খা রোদ যখন, তখন বারান্দায় রাখা বাক্স থেকে নেমে পায়ে পায়ে মায়ের ঘরে গেল মিউমিউ। নাহ, মায়ের গায়ের গন্ধ ছাড়া ঘুম আসে না তার। তাই গেল। গিয়ে দেখে মা বিছানায় শুয়ে আছে। চোখ দুটো বন্ধ। কী করবে ভেবে পায়না মিউমিউ। চুপচাপ দাঁড়িয়ে থাকে কিছুক্ষণ। তারপর আস্তে আস্তে মা’কে ডাকে।

  • টিফিন

    টিফিন রাজুর স্পষ্ট মনে আছে তাকে টিফিন দেওয়া হয়েছিল চাইনিজ ফ্রায়েড রাইস। এই ধরণের টিফিন প্রতিদিন তাকে দেওয়া হয় না। গতকাল রাতে রাজুদের মামার বাসায় দাওয়াত ছিল। মামা বাইরে খাওয়াতে নিয়ে গিয়েছিলেন। সেখানে অনেক কিছু ছিল। থাই সুপ, ফ্রাইড রাইস, চিকেন ফ্রাই আরও অনেক কিছু।

  • সায়ন্তনের মা যে রাতে বিদেশ গেল

    সায়ন্তনের মা যে রাতে বিদেশ গেল সায়ন্তনের বয়স যেদিন তিন বছর দশ মাস চব্বিশ দিন, ঐ দিন সন্ধ্যায় ওর মা অফিসের একটা কাজে বিদেশে গেলেন। চারদিন থাকবেন। এর আগে একটা রাতও সায়ন্তন আর তার মা আলাদা থাকেনি। প্রতি রাতেই টুনটুনির গল্প, রাজার নাক কাটার গল্প এসব শুনতে শুনতে মায়ের গায়ে সেঁটে থেকে ঘুমায় সায়ন্তন। সন্ধ্যায় মা যখন গাড়িতে চেপে বিদেশ যাবার জন্য এয়ারপোর্টের দিকে রওয়ানা হবার জন্য তৈরি তখন মা-ছেলে দু’জনেরই ভারি মন খারাপ। সায়ন্তন কাঁদে, আর মা-ও চোখ মুছে লুকিয়ে।

  • রাজকন্যার জন্মদিন

    রাজকন্যার জন্মদিন সকাল হতেই আদৃতা কেমন দাঁত বের করে হাসছে। আদৃতার ভাই আদন ওর পেটে গুঁতো মেরে জিজ্ঞেস করল, আদি তুমি হাসছো কেন? আদৃতাও একইভাবে আদনের পেটে গুঁতো মেরে বলল, কারণ আদু, আজ যে আমার জন্মদিন।