সেন্সরে যাচ্ছে ‘হরিবোল’

শিগগিরই সেন্সরে জমা পড়ছে সংখ্যালঘুদের উপর নির্মিত 'হরিবোল'।

গ্লিটজ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 13 Oct 2019, 04:09 PM
Updated : 13 Oct 2019, 04:17 PM

আনিসুজ্জামান নিবেদিত ও বলেশ্বর ফিল্মস প্রযোজনায় চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করেছেন কথাসাহিত্যিক ও নির্মাতা রেজা ঘটক। ছবির কাহিনী, সংলাপ ও চিত্রনাট্য করেছেন নির্মাতা নিজেই।

নির্মাতা জানান, ইতোমধ্যে ছবিটির নির্মাণযজ্ঞ শেষ হয়েছে; শিগগিরই ছবিটি সেন্সরবোর্ডে জমা দেওয়া হবে। সেন্সর ছাড়পত্র পাওয়া সাপেক্ষে আগামী নভেম্বর কিংবা ডিসেম্বরে চলচ্চিত্রটি মুক্তি দেওয়া হবে।

মুক্তিযুদ্ধের সময়ে নির্যাতিত এক নারীর সত্য ঘটনা অবলম্বনে একজন তরুণ নির্মাতা একটি সিনেমা নির্মাণ করতে বলেশ্বর জনপদের একটি গ্রামে যান। সেই গ্রামেই সন্ধান পান এই নিপীড়িত সংখ্যালঘু প্রান্তিক পরিবারের। এক গল্পের ভেতরে অন্য এক নতুন গল্প। মুক্তিযুদ্ধ এবং সংখ্যালঘু প্রান্তিক পরিবারকে ঘিরে এরকম এক সমান্তরাল আখ্যানকে উপজীব্য করেই নির্মিত হয়েছে চলচ্চিত্র ‘হরিবোল’।

রেজা ঘটক বলেন, “ছবিতে আমি দুটি গল্পকে সমান্তরালভাবে মার্চ করিয়েছি। মহান মুক্তিযুদ্ধের গল্পের সাথে স্বাধীনতার পঁয়ত্রিশ বছর পর একটি সংখ্যালঘু প্রান্তিক পরিবারের উপর নেমে আসা প্রচলিত সমাজের নিপীড়নের চিত্র এতে ধরা হয়েছে। বড় ক্যানভাসে 'হরিবোল' একটি জনপদকে রিপ্রেজেন্ট করে। বিশেষ করে মতুয়া সম্প্রদায়ের উপর 'হরিবোল' একটি বিশেষায়িত চলচ্চিত্র। 'হরিবোল' চলচ্চিত্রের কিছু বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো, এটি যেমন একটি নদী বিষয়ক চলচ্চিত্র, তেমনি এটি একটি পরিবেশ বিষয়ক চলচ্চিত্র। 'হরিবোল' চলচ্চিত্রে শেষপর্যন্ত চিরন্তন প্রেমেরই জয়গান করা হয়েছে।”

চলচ্চিত্রে মিউজিক কম্পোজ করেছেন অংশুমান। চলচ্চিত্রের জন্য তিনটি গান লিখেছেন ও সুর করেছেন অংশুমান। যার মধ্যে একটি গান গেয়েছেন বাউল সফি মণ্ডল, একটি গান গেয়েছেন অংশুমান নিজেই এবং অন্য গানটি গেয়েছেন অংশুমানের সাথে একঝাঁক তরুণ শিল্পী। একটি গান লালন সাঁইজির। লালন সাঁইজির গানটি গেয়েছেন নলীনি মণ্ডল। আর একটি গান ভবা পাগলার। ভবা পাগলার গানটির সংগীত আয়োজন করেছেন অংশুমান এবং গেয়েছেন সাত্যকি ব্যানার্জি।

সাউন্ড ডিজাইন করেছেন অরিজিৎ মিত্র। সাউন্ড মিক্সিং করেছেন সুজয় দাস। সাউন্ড ইফেক্ট করেছেন সুভারুন সেনগুপ্ত ও সোহাম সান্যাল। ফলি আর্টিস্ট ছিলেন যুগল বাগ। ফলি রেকর্ডিস্ট ছিলেন সৌরভ সাহা।

কালার করেছেন মোহাম্মদ আমির। ডিআই টেকনিসিয়ান ছিলেন কৃষ্ণপদ সর্দার। 'হরিবোল' চলচ্চিত্রের সিনেমাটোগ্রাফি করেছেন মোস্তাফিজ ইসলাম, সেলিম হায়দার, জাহিদ হাসান, প্রণব দাস ও রেজা ঘটক। স্থিরচিত্র ধারণ করেছেন দেবাশিষ গুপ্ত, চিন্ময় চক্রবর্তী ও জাহিদ রবি। আর 'হরিবোল' চলচ্চিত্রটি সম্পাদনা করেছেন প্রণব দাস।

টাইটেল ডিজাইন করেছেন শিল্পী সব্যসাচী হাজরা। গ্রাফিক্স করেছেন স্নেহাশিস ভৌমিক। সাব্টাইটেল করেছেন সম্বৃদ্ধি পাল ও রেজা ঘটক।

চলচ্চিত্রে মুক্তিযুদ্ধের উপর সিনেমা বানাতে আসা তরুণ নির্মাতা এসকে চৌধুরী'র চরিত্রে অভিনয় করেছেন কাজী ফয়সল। সংখ্যালঘু প্রান্তিক পরিবারের কর্তা নিতাই'র চরিত্রে অভিনয় করেছেন ইকতারুল ইসলাম। আর নিতাই'র বউয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন তৃপ্তি সরেন।

এছাড়া গ্রামে নিতাই'র প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বি রাঙা'র চরিত্রে অভিনয় করেছেন এমরান হোসেন। গ্রামের হরি চেয়ারম্যানের চরিত্রে অভিনয় করেছেন সেলিম হায়দার। পারু'র ভাই পলটু'র চরিত্রে অভিনয় করেছেন প্রণব দাস। নিতাই'র বন্ধু লখাই'র চরিত্রে অভিনয় করেছেন লিয়াকত লিকু। এসকে চৌধুরী'র এসিসট্যান্টের চরিত্রে অভিনয় করেছেন ইউসুফ ববি। ঝড়ু পাগলার চরিত্রে অভিনয় করেছেন জাহিদ হাসান। পঞ্চায়েত সভার সভাপতির চরিত্রে অভিনয় করেছেন চিন্ময় চক্রবর্তী।

এছাড়া গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন নলিনী মণ্ডল, রণজিৎ মণ্ডল, বিধান বিশ্বাস, এমদাদুল হক হাওলাদার, মনোজ মন্ডল, যতীন্দ্র নাথ নাগ, শুকুরঞ্জন মোলোঙ্গী, মুক্তি মণ্ডল, ইলিয়াস খান, গৌতম মিস্ত্রী, প্রেমানন্দ আকার্শন, অনাদী বালা, জাকির হোসেন হাওলাদার, স্বপন পাল, জীবন কৃষ্ণ ঘরামী, সুনীল কুমার মণ্ডল, আরিফুল ইসলাম শিপুল, আকাশ সিংহ, অনিক, চন্দন, উৎস, অমিত, শুভ, সৈকত, সোহাগ প্রমুখ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক