কাজ না পেয়ে পরিচালক হচ্ছে: আলমগীর

পরিচালকদের অযোগ্যতাই চলচ্চিত্র শিল্পের দুর্দশার প্রধান কারণ বলে মনে করছেন বর্ষীয়ান অভিনেতা আলমগীর। আর এটাই অভিনয় থেকে তার দূরে সরে যাওয়ার বলেও জানালেন তিনি।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 Sept 2015, 11:35 AM
Updated : 3 Sept 2015, 11:35 AM

বাংলাদেশ-ভারত যৌথ প্রযোজনার চলচ্চিত্র ‘অঙ্গার’- এর মহরত অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি আলমগীর বললেন, “আমার মতে, চলচ্চিত্র পরিচালক হচ্ছেন ক্যাপ্টেন অফ শিপ। যখন দেখি, চলচ্চিত্র পরিচালকদের এই হাল, তখন বড় কষ্ট হয়। এই কষ্ট থেকেই আমি চলচ্চিত্রে অভিনয় আপাতত ছেড়ে দিয়েছি।”

“বেকার যুবকদের যখন কিছু করার থাকে না, তখন তার শুভাকাঙ্ক্ষীরা তাকে নানা উপায়ে অর্থোপার্জনের পরামর্শ দেয়। তখন নানা পথ ঘুরে যখন চলচ্চিত্র প্রসঙ্গটি আসে, তখন তারা সবচেয়ে সোজা উপায় হিসেবে খুঁজে নেয় চলচ্চিত্র পরিচালনাকে।”

অভিযোগ করে এই অভিনেতা বললেন, অনেকেই কিছু না শিখে চলচ্চিত্র পরিচালনায় আসছেন।

“অভিনেতা-অভিনেত্রী বা অন্যান্য সেক্টরের কলাকুশলী হতে গেলে তো শিখে আসতে হবে। এত কষ্ট তারা কেন করতে যাবে? তারা বুঝে গেছে, সবচেয়ে সোজা কাজ হচ্ছে চলচ্চিত্র পরিচালনা করা। তাদের মতে, চলচ্চিত্র পরিচালকদের কাজ হলো শুধু অ্যাকশন-কাট বলা।”

নিজের অভিজ্ঞতার কথা ‍তুলে ধরে এই বর্ষীয়ান অভিনেতা বলেন, “চলচ্চিত্রে অভিনয় করতে আসলে কোনো কিছু পাওয়ার আশা না করে আসাই উত্তম। চলচ্চিত্রে এলে কেবল দিতেই হবে, তা ভেবেই চলচ্চিত্রে আসতে হবে। চলচ্চিত্র থেকে ফিরে পাওয়ার আশা না করাই ভালো।”

১৯৭২ সালে আলমগীর কবির পরিচালিত ‘আমার জন্মভূমি’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে অভিষেক হওয়া আলমগীর দাপটের সঙ্গে কাজ করেছেন আশি ও নব্বইয়ের দশকে। ১৯৮৫ সালে  ‘মা ও ছেলে’ সিনেমাতে অভিনয়ের জন্য প্রথমবারের মতো জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জেতেন আলমগীর। এরপর আরও আটবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান তিনি।

এছাড়াও বেশ কিছু সিনেমার জন্য প্লেব্যাক করেছেন আলমগীর, যার মধ্যে রয়েছে ‘আগুনের আলো’ ‘কার পাপে’, ‘ঝুমকা’ ও ‘নির্দোষ’।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক