সুন্দরবনের উদবিড়াল

বিশ্বের সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ অরণ্য সুন্দরবন ২৮৯ প্রজাতির স্থলজ ও ২১৯ প্রজাতির জলজ প্রাণীর আবাসস্থল, যার একটি হল উদবিড়াল বা ভোঁদড়। দিন দিন সংখ্যায় কমে আসা এই প্রজাতিকে রক্ষায় প্রতিবছর মে মাসে বিশ্বজুড়ে পালিত হয় বিশ্ব উদবিড়াল দিবস।
  • বিশ্ব উদবিড়াল দিবস পালিত হয় প্রতিবছর মে মাসের শেষ বুধবার। পরিবেশের জন্য এ প্রাণীর গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে এবং উদবিড়ালের বিলুপ্তি এড়াতেই এ দিবস পালনের উদ্যোগ।

    বিশ্ব উদবিড়াল দিবস পালিত হয় প্রতিবছর মে মাসের শেষ বুধবার। পরিবেশের জন্য এ প্রাণীর গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে এবং উদবিড়ালের বিলুপ্তি এড়াতেই এ দিবস পালনের উদ্যোগ।

  • বন্য প্রাণী বিশেষজ্ঞদের হিসাবে, পৃথিবীজুড়ে উদবিড়ালের মোট ১৩টি প্রজাতি আছে, যার মধ্যে সুন্দরবনে দেখা যায় দুটি প্রজাতি।

    বন্য প্রাণী বিশেষজ্ঞদের হিসাবে, পৃথিবীজুড়ে উদবিড়ালের মোট ১৩টি প্রজাতি আছে, যার মধ্যে সুন্দরবনে দেখা যায় দুটি প্রজাতি।

  • উদবিড়ালের এই প্রজাতির ইংরেজি নাম Asian clawed Otter, বাংলাদেশে এ স্তন্যপায়ী প্রাণীটি ভোঁদড়, ধাইড়া, ধেড়ে, ছোট উদ, উদবিলাই ইত্যাদি নামেও পরিচিত।

    উদবিড়ালের এই প্রজাতির ইংরেজি নাম Asian clawed Otter, বাংলাদেশে এ স্তন্যপায়ী প্রাণীটি ভোঁদড়, ধাইড়া, ধেড়ে, ছোট উদ, উদবিলাই ইত্যাদি নামেও পরিচিত।

  • বাংলাদেশে যে তিন প্রজাতির উদবিড়াল দেখা যায়, তার মধ্যে এরাই সবচেয়ে ছোট।

    বাংলাদেশে যে তিন প্রজাতির উদবিড়াল দেখা যায়, তার মধ্যে এরাই সবচেয়ে ছোট।

  • ‘ওরে ভোঁদড় ফিরে চা, খোকার নাচন দেখে যা’- এক সময় এই ছড়ার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের শিশুদের পরিচয় হত ভোঁদড় বা উদবিড়ালের সাথে। তবে আবাসভূমি ধ্বংস হওয়ায় বাংলাদেশে এ প্রাণীর সংখ্যা এখন কমে গেছে অনেক।

    ‘ওরে ভোঁদড় ফিরে চা, খোকার নাচন দেখে যা’- এক সময় এই ছড়ার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের শিশুদের পরিচয় হত ভোঁদড় বা উদবিড়ালের সাথে। তবে আবাসভূমি ধ্বংস হওয়ায় বাংলাদেশে এ প্রাণীর সংখ্যা এখন কমে গেছে অনেক।

  • সাধারণত অগভীর স্বাদুপানির নদী, উপকূলীয় অঞ্চল এবং বনের ছোট ছোট খালের পানিতে বিচরণ করে উদবিড়াল। বাংলাদেশে এখন সুন্দরবনেই এদের বেশি দেখা যায়।

    সাধারণত অগভীর স্বাদুপানির নদী, উপকূলীয় অঞ্চল এবং বনের ছোট ছোট খালের পানিতে বিচরণ করে উদবিড়াল। বাংলাদেশে এখন সুন্দরবনেই এদের বেশি দেখা যায়।

  • বনের ছায়াময় এলাকা উদবিড়ালের বসবাসের জন্য আদর্শ। সুন্দরবনের উদবিড়াল আকারে ২ ফুট পর্যন্ত দীর্ঘ হয়, এদের লেজও প্রায় এক ফুট দীর্ঘ।

    বনের ছায়াময় এলাকা উদবিড়ালের বসবাসের জন্য আদর্শ। সুন্দরবনের উদবিড়াল আকারে ২ ফুট পর্যন্ত দীর্ঘ হয়, এদের লেজও প্রায় এক ফুট দীর্ঘ।

  • উদবিড়াল সাধারণত জোড়ায় জোড়ায় কিংবা পারিবারিক দলে বিচরণ করে। এদের দৃষ্টিশক্তি বেশ প্রখর। পানির নিচেও এদের দৃষ্টি চলে বেশ ভালো।

    উদবিড়াল সাধারণত জোড়ায় জোড়ায় কিংবা পারিবারিক দলে বিচরণ করে। এদের দৃষ্টিশক্তি বেশ প্রখর। পানির নিচেও এদের দৃষ্টি চলে বেশ ভালো।

  • উদবিড়াল সাধাণত মাছ, কাঁকড়া, পোকামাকড় খেয়ে বেঁচে থাকে। একেকটি উদবিড়াল ক্ষেত্রবিশেষে ১২ থেকে ২০ বছর পর্যন্ত বাঁচে।

    উদবিড়াল সাধাণত মাছ, কাঁকড়া, পোকামাকড় খেয়ে বেঁচে থাকে। একেকটি উদবিড়াল ক্ষেত্রবিশেষে ১২ থেকে ২০ বছর পর্যন্ত বাঁচে।

  • বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে উদবিড়ালের এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত। আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘ বা আইইউসিএনের লাল তালিকায় Asian clawed Otter ‘বিপন্ন’ হিসেবে চিহ্নিত।

    বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে উদবিড়ালের এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত। আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘ বা আইইউসিএনের লাল তালিকায় Asian clawed Otter ‘বিপন্ন’ হিসেবে চিহ্নিত।

Print Friendly and PDF