লাইভ: ট্রাম্পকে হারিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বাইডেন

# সর্বশেষ: বাইডেন ২৭৩-২১৪ ট্রাম্প # যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে ৫৩৮টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোটের অন্তত ২৭০টি পেতে হয়

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 Nov 2020, 07:13 AM
Updated : 22 Nov 2020, 03:51 AM

[যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন নিয়ে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের লাইভ আইয়োজন এখানেই শেষ হচ্ছে। সবাইকে ধন্যবাদ।]

***

রোববার সকাল ৮টা (বিডিএসটি)

‘ঐক্যের’ ডাক বাইডেনের

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর প্রথম ভাষণে জো বাইডেন বলেছেন, তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ‘আত্মা’কে ফিরিয়ে আনতে চান, দেশকে ‘বিভক্ত না করে ঐক্যবদ্ধ’ করতে চান।

যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় শনিবার রাতে ডেলাওয়ার রাজ্যের উইলমিংটনে নিজের নির্বাচনী প্রচার সদর দপ্তরে সমর্থকদের সামনে এসে বাইডেন বলেন, এখন যুক্তরাষ্ট্রকে ‘সারিয়ে তোলার’ সময়।

“আমি এমন একজন প্রেসিডেন্ট হওয়ার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি, যিনি বিভক্ত নয়, ঐক্যবদ্ধ করার চেষ্টা করবেন; যিনি লাল রাজ্য বা নীল রাজ্য দেখবেন না, শুধু যুক্তরাষ্ট্রকে দেখবেন।

“আমি চেয়েছিলাম আমেরিকার আত্মাকে ফিরিয়ে আনতে, এই জাতির মেরুদণ্ড মধ্যবিত্ত শ্রেণিকে পুনর্গঠন করতে এবং আমেরিকার প্রতি ফের পুরো বিশ্বের শ্রদ্ধা ফিরিয়ে আনতে, এখানে বাড়িতে আমাদের মধ্যে একতা ফিরিয়ে আনতে।”

নির্বাচনে যারা তাকে ভোট দেননি তাদের উদ্দেশ্যে বাইডেন বলেন, “এখন কর্কশ রাজনৈতিক বাগাড়ম্বর দূরে ঠেলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার সময়, আবার একে অপরের দিকে তাকান, ফের একে অপরের কথা শোনেন আর এগিয়ে যাওয়ার জন্য প্রতিপক্ষকে শত্রু হিসেবে বিবেচনা বন্ধ করুন।”

***

শনিবার রাত ১১টা ৪৪ (বিডিএসটি)

সবার প্রেসিডেন্ট হব: বাইডেন

যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ তাদের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত করায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন।

শনিবার রাতে ব্যাটলগ্রাউন্ড রাজ্য পেনসিলভেইনিয়ার ভোটের ফলাফলে প্রেসিডেন্ট হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক ইলোকটোরাল ভোট নিশ্চিত হওয়ার পরপরই টুইট করে তিনি বলেন, “আমেরিকা, মহান এই রাষ্ট্রের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য আমাকে বেছে নেওয়ায় আমি সম্মানিত।

“আমাদের সামনের যে কাজ রয়েছে, তা কঠিন হবে। তবে এই প্রতিশ্রুতি আমি আপনাদের দিচ্ছি, আপনি আমাকে ভোট দিন বা না দিন, আমি হব সব আমেরিকানের প্রেসিডেন্ট।

“আমার ওপর যে আস্থা আপনারা রেখেছেন, তার প্রতিদান আমি দেব।”

বাইডেনের রানিং মেট কমলা হ্যারিস প্রথম নারী, প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ এবং প্রথম ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন।

জয়ের পর টুইটে এসেছে তার সংক্ষিপ্ত প্রতিক্রিয়া- ‘আমরা পেরেছি, জো বাইডেন’।

***

দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান

শনিবার রাত ১০টা ৫৪ (বিডিএসটি)

 

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট কে হচ্ছেন সেই প্রশ্নের জবাবের জন্য এবার দীর্ঘ অপেক্ষায় থাকতে হয়েছে। মঙ্গলবার ভোট হওয়ার পর গত চারদিন সবার নজর ছিল ‘ব্যাটলগ্রাউন্ড’ হিসেবে বিবেচিত রাজ্য পেনসিলভেইনিয়া, জর্জিয়া, অ্যারিজোনা, নেভাডা ও নর্থ ক্যারোলাইনার দিকে।

শেষ পর্যন্ত বাইডেনের জয় এসেছে পেনসিলভেইনিয়ার ভোটের ফলের মধ্য দিয়ে। প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার জন্য দরকার হয় ২৭০ ইলেকটোরাল ভোট। পেনসিলভেইনিয়ার ফল আসার আগ পর্যন্ত বাইডেনের ইলেকটোরাল ভোট ছিল ২৫৩টি, আর বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের ২১৪টি।  

পেনসিলভেইনিয়ায় বাইডেন জয়ী হওয়ায় এ রাজ্যের ২০টি ইলেকটোরাল ভোট চলে আসে তার পক্ষে, ২৭৩টি ইলেকটোরাল ভোট নিশ্চিত হওয়ায় বাইডেনের হোয়াইট হাউজে যাওয়াও নিশ্চিত হয়ে যায়।

***

শনিবার রাত ১০টা ৩৯ (বিডিএসটি)

যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন

তুমুল লড়াই আর অনেক তিক্ততার পর ব্যাটলগ্রাউন্ড রাজ্য পেনসিলভেইনিয়ায় জয়ের মধ্য দিয়ে বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পকে হারিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন।

তার রানিং মেট কমলা হ্যারিস প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ ও প্রথম ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন।

***

শনিবার সন্ধ্য ৯টা ৪০ (বিডিএসটি)

ভোট জলিয়াতির প্রমাণ মেলেনি: নির্বাচন কমিশন

যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল নির্বাচন কমিশনার এলেন ওয়াইনট্রাব বলেছেন, এ বছরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জালায়িতর কোনো প্রমাণ মেলেনি।

শনিবার সিএনএনকে তিনি বলেছেন, “রাজ্যের ও স্থানীয় কর্মকর্তারা, সারা দেশের নির্বাচন কর্মীরা কাজ করে যাচ্ছেন। নির্বাচন যেভাবে হয়েছে তা নিয়ে খুব সামান্য কিছু অভিযোগ আমরা পেয়েছি।

“আমি বলতে চাই, ভোট জালিয়াতির কোনো ধরনের প্রমাণ কোথাও পাওয়া যায়নি। অবৈধভাবে ভোট দেওয়ার কোনো প্রমাণ নেই।

“এ বিষয়ে আমার কথা বিশ্বাস করতে হবে, এমন নয়। কারণ সারা দেশের মানুষ দেখেছে, নির্দলীয় পর্যবেক্ষকরা দেখেছেন, কীভাবে এ নির্বাচন হয়েছে।

“জালিয়াতির কোনো অভিযোগ কোথাও পাওয়া যায়নি। যেসব অভিযোগ করা হয়েছে, সেখানেও কোনো প্রমাণ দেওয়া হয়নি।”

সিএনএন

 

***

শনিবার সন্ধ্য ৯টা ১০ (বিডিএসটি)

১৬ লাখ ভোটেই তৃতীয় জোর্গেনসেন

 

সবার চোখ ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান পার্টির দুই হেভিওয়েট প্রার্থীর দিকে থাকলেও যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশ নেওয়া লিবার্টারিয়ান পার্টির একজন নারী প্রার্থীও বেশ কয়েকটি রাজ্যে তাক লাগানো ভোট পেয়েছেন।

এখন পর্যন্ত হওয়া গণনায় জো জোর্গেনসেনের বাক্সে ১৬ লাখের সামান্য বেশি ভোট পড়েছে বলে তার প্রচার শিবিরের বরাত দিয়ে জানিয়েছে সিএনবিসি।

ডেমোক্র্যাট জো বাইডেন ও রিপাবলিকান ডনাল্ড ট্রাম্পের পর এটাই এবারের নির্বাচনে কোনো প্রার্থীর পাওয়া সবচেয়ে বেশি ভোট। প্রধান দুই প্রার্থীর একেকজনের ভোট ৭ কোটির বেশি।

ভোটের হিসাবে জোর্গেনসেনের পরে আছে গ্রিন পার্টির হাউই হকিন্স; তার প্রাপ্ত ভোট ৩ লাখ ৩৯ হাজারের চেয়ে একটু বেশি।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের এবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে কেবল এই ক’জনই ছিলেন না। দেশটির নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য নিবন্ধন করা ব্যক্তির সংখ্যা ১২ শর বেশি। 

দুই সন্তানের মা, ক্লেমসন বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যেষ্ঠ প্রভাষক ও ইন্ডাস্ট্রিয়াল অ্যান্ড অর্গানাইজেশনাল সাইকোলজিতে পিএইচডি ডিগ্রিধারী জোর্গেনসেন লিবার্টারিয়ান পার্টির ইতিহাসে প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পাওয়া প্রথম নারী। 

গত শতকের আশির দশক থেকে লিবার্টারিয়ান পার্টির সঙ্গে যুক্ত জোর্গেনসেন ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে দলের হয়ে ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে লড়েছিলেন।

১৯৭১ সালে প্রতিষ্ঠিত লিবার্টারিয়ান পার্টির ওয়েবসাইট অনুযায়ী, দলটি মানুষের ব্যক্তিগত, পারিবারিক ও ব্যবসায়িক সিদ্ধান্তে সব ধরনের সরকারি হস্তক্ষেপের বিরোধী। দলটি নাগরিকের উপর নির্ধারিত বিভিন্ন ধরনের কর হ্রাস ও বিলুপ্ত করতেও আগ্রহী।  

এই একই কারণে জোর্গেনসেন এই কোভিড-১৯ মহামারীর মধ্যেও যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের বাধ্যতামূলক মাস্ক পরার নির্দেশনার বিরোধী।

***

শনিবার সন্ধ্য ৮টা ৩০ (বিডিএসটি)

ব্যটলগ্রাউন্ডের মানচিত্র

***

শনিবার সন্ধ্য ৭টা ৪৫ (বিডিএসটি)

ভোট গণনার সর্বশেষ

 

জো বাইডেন জর্জিয়া, অ্যারিজোনা, পেনসিলভেইনিয়া ও নেভাডায় ডনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে ভোটের ব্যবধান আরও বাড়িয়ে নিয়েছেন। গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যগুলোর মধ্যে শুধু নর্থ ক্যারোলাইনায় এগিয়ে আছেন ট্রাম্প।

ভোটের পর তিন দিন পেরিয়ে গেলেও গণনা শেষ না হওয়ায় জয়-পরাজয় নির্ধারিত হয়নি। তবে ভোটের মাঠের সর্বশেষ যে চিত্র পাওয়া যাচ্ছে, তাতে বাইডেনের জয় এখন কেবল সময়ের ব্যাপার।

পেনসিলভেইনিয়া: এই অঙ্গরাজ্যে রয়েছে ২০টি ইলেকটোরাল ভোট। ৯৬ শতাংশ ভোট গণনা শেষে দেখা যাচ্ছে, ২৮ হাজার ৮৩৩ ভোটে এগিয়ে রয়েছেন বাইডেন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তার চেয়ে শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ ভোট কম পেয়েছেন। ব্যবধান এর চেয়ে কম হলে তা পুনঃগণনার চক্করে পড়তে পারে। পেনসিলভেইনিয়ার নিয়ম অনুযায়ী, দুই প্রার্থীর ভোটের ব্যবধান শূন্য দশমিক ৫ শতাংশের কম হলে পুনঃগণনা করতে হয়। এই অঙ্গরাজ্যের সবচেয়ে বড় শহর ফিলাডেলফিয়ায় ভোট গণনার বেশ বাকি রয়েছে, যার প্রায় সবই পোস্টাল ব্যালট বা ডাক যোগে দেওয়া ভোট। সেই গণনা শেষ হতে আরও সময় লাগবে বলে স্থানীয় নির্বাচন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

জর্জিয়া: এই অঙ্গরাজ্যে ইলেকটোরাল ভোট আছে ১৬টি। ৯৯ শতাংশ ভোট গণনা হয়ে গেছে। বাইডেন এগিয়ে আছেন ৭ হাজার ২৪৮ ভোটে। জর্জিয়ায় রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাট প্রার্থীর ভোটের ব্যবধান এতই সামান্য যে সেখানে পুনঃগণনা হবে। তবে তা শেষ হতে ২০ নভেম্বর লেগে যেতে পারে।

অ্যারিজোনা: এই অঙ্গরাজ্যে ইলেকটোরাল ভোট ১১টি। ৯৭ শতাংশ ভোট গণনা হয়ে গেছে। বাইডেন এগিয়ে আছেন ২৯ হাজার ৮৬১ ভোটে। এখানে বাইডেন পেয়েছেন ৪৯ দশমিক ৬ শতাংশ ভোট, বিপরীতে বর্তমান প্রেসিডেন্টের প্রাপ্ত ভোটের হার ৪৮ দশমিক ৭ শতাংশ।

নেভাডা: এই অঙ্গরাজ্যে ইলেকটোরাল ভোট রয়েছে ৬টি। ৯৩ শতাংশ ভোট গণনা শেষে বাইডেন এগিয়ে আছেন ২২ হাজার ৬৫৭ ভোটে। তিনি পেয়েছেন ৪৯ দশমিক ৮ শতাংশ ভোট। অন্যদিকে ট্রাম্প পেয়েছেন ৪৮ শতাংশ। নির্বাচন কর্মকর্তারা বলছেন, রোববার নাগাদ তারা ভোট গণনা শেষ করতে পারবেন।

নর্থ ক্যারোলাইনা: ১৫ ইলেকটোরাল ভোটের এ অঙ্গরাজ্যেই শুধু এগিয়ে আছেন রিপাবলিকান প্রার্থী প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। ৯৮ শতাংশ ভোট গণনা শেষে দেখা যাচ্ছে, ট্রাম্প ৭৬ হাজার ৫১৫ ভোটে এগিয়ে রয়েছেন। তিনি পোয়েছেন ৫০ শতাংশ ভোট, বাইডেন ৪৮ দশমিক ৬ শতাংশ। নির্বাচন কর্মকর্তারা বলেছেন, গত মঙ্গলবার ভোটের দিন ডাকে পাঠানো পোস্টাল ব্যালট তারা রোববার পর্যন্ত নেবেন, তারপর হবে গণনা। অর্থাৎ, রবি-সোমবারের আগে এ রাজ্যেরা পূর্ণাঙ্গ ফল আসার সম্ভাবনা নেই।

এছাড়া তিনটি ইলেকটোরাল ভোটের রাজ্য আলাস্কায় ভোটের ফল পেতে বাকি রয়েছে। সেখানে ট্রাম্প বিশাল ব্যবধানে এগিয়ে থাকলেও তা জয়-পরাজয় নির্ধারণে কোনো প্রভাব ফেলতে পারছে না।

***

শনিবার বিকাল ৫টা (বিডিএসটি)

হার স্বীকারে ট্রাম্প নারাজ: সিএনএন

শুক্রবারের পর প্রকাশ্য না হওয়া প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প হার স্বীকার করতে চাইছেন না বলে সিএনএন জানিয়েছে। তিনি এখন আইনি লড়াই চালিয়ে যেতে বদ্ধপরিকর।

সিএনএন বলছে, ট্রাম্প এখনও পরাজয় মেনে নেওয়ার বক্তৃতা প্রস্তুত করেননি। কেবল তাই নয়, গত কয়েকদিন ধরে তিনি তার মিত্রদের সঙ্গে আলোচনাতেও নির্বাচনে পরাজয় মেনে নেওয়ার বিন্দুমাত্র ইচ্ছা নেই বলে জানিয়েছেন।

ট্রাম্পকে গোয়ার্তুমি ছাড়াতে এবং বাস্তব পরিস্থিতি বোঝাতে পারবে, এমন একজনের খোঁজ এখন চলছে।

শনিবার সকাল ১১টা (বিডিএসটি)

আমরা জিততে চলছি: বাইডেন

শুক্রবার রাতে ডেলাওয়ারের উইলমিংটনে সমর্থকদের উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে জো বাইডেন। ছবি: রয়টার্স

দৃশ্যত নিজের জয় ঘোষণা করে শুক্রবার রাতে ডেলাওয়ারের উইলমিংটনে সমর্থকদের উদ্দেশে ভাষণ দিয়েছেন জো বাইডেন। ৭ মিনিটের ভাষণে তিনি যুক্তরাষ্ট্রবাসীকে আহ্বান জানিয়েছেন ঐক্যবদ্ধ হয়ে তার পেছনে দাঁড়াতে; বলেছেন, ভোট ঘিরে তিক্ততা ভুলে সামনের দিকে তাকাতে।

বাইডেন বলেন, “সংখ্যাগুলো বলে দিচ্ছে .. এটা এখন স্পষ্ট এবং বলাই যায়, আমরা জিততে চলছি।

ব্যাটেলগ্রাউন্ড রাজ্যগুলোর সবশেষ ফল দেখিয়ে তিনি বলেন, “২৪ ঘণ্টা আগে আমরা পেনসিলভেইনিয়ায় পিছিয়ে ছিলাম আর এখন আমরা পেনসিলভেইনিয়া জয় করতে যাচ্ছি। আমরা অ্যারিজোনায় জয়ী হচ্ছি, নেভাডায় জয়ী হচ্ছি, নেভাডায় দ্বিগুণ ভোটে এগিয়ে গেছি আমরা।

“গতকাল থেকে কী ঘটেছে, শুধু তার দিকে তাকান। ২৪ ঘণ্টা ধরে জর্জিয়ায় আমরা পিছিয়ে ছিলাম, এখন আমরা এগিয়ে আর এই রাজ্য আমরা জয় পেতে যাচ্ছি।”

“আমরা ৩০০ ইলেকটোরাল ভোটের পথে আছি। আমরা সাত কোটি ৪০ লাখেরও বেশি ভোট পেয়েছি। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে যে কোনো প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর পাওয়া ভোটের চেয়েই এটি বেশি। জাতি আমাদের সঙ্গে আছে।

হোয়াইট হাউজে যাওয়ার প্রস্তুতির জন্য নিজের রানিং মেট কমলা হ্যারিসকে নিয়ে পরামর্শকদের সঙ্গে ইতোমধ্যে বৈঠক সেরে ফেলার কথাও জানিয়েছেন তিনি।

জাতির মধ্যে বিভেদ দেখা দিয়েছে স্বীকার করে নিয়ে ভোটের শেষে তিক্ত অতীত ভুলে সামনে তাকাতে যুক্তরাষ্ট্রবাসীকে আহ্বান জানিয়েছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী।

“কঠিন একটা নির্বাচনের পরও উত্তেজনা চলছে। তবে আমি বলব, রাগ-বিরাগ পেছনে ফেলে রাখতে। আমাদের সামনে বড় সমস্যা, এখন দলাদলির সময় নয়। আর আমরা প্রতিপক্ষ হতে পারি, তবে পরস্পরের শত্রু নই।”

***

শনিবার সকাল ৯টা ৪৫ (বিডিএসটি)

ব্যবধান আরও বাড়িয়েছেন বাইডেন

জর্জিয়া, অ্যারিজোনা, পেনসিলভেইনিয়া ও নেভাডায় ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেনের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বী ডনাল্ড ট্রাম্পের ভোটের ব্যবধান আরও বেড়েছে। গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যগুলোর মধ্যে শুধু নর্থ ক্যারোলাইনায় এগিয়ে আছেন ট্রাম্প।

ভোটের পর দুই দিন গড়িয়েছে, চূড়ান্ত ফল এখনও না এলেও রয়টার্স বাংলাদেশ সময় শনিবার সকাল ৬টা নাগাদ ভোটের সর্বশেষ যে অবস্থা জানিয়েছে, তাতে এটা স্পষ্ট যে বাইডেনের জয় এখন ঘোষণার অপেক্ষা মাত্র।

পেনসিলভেইনিয়া: এই অঙ্গরাজ্যে রয়েছে ২০টি ইলেকটোরাল ভোট। ৯৬ শতাংশ ভোট গণনা শেষে দেখা যাচ্ছে, বাইডেন ১৯ হাজার ৫৮৪ ভোটে এগিয়ে রয়েছেন। তার থেকে শূন্য দশমিক ৩ শতাংশ পয়েন্ট ভোট কম পেয়েছেন ট্রাম্প। ব্যবধান কম হওয়ায় এখানে ভোট পুনঃগণনার সম্ভাবনা রয়েছে। পেনসিলভেইনিয়ার নিয়ম অনুযায়ী, দুই প্রার্থীর ভোটের ব্যবধান শূন্য দশমিক ৫ শতাংশের কম হলে পুনঃগণনা করতে হয়। দৃশ্যত পরিস্থিতি সেদিকেই এগোচ্ছে। এই অঙ্গরাজ্যের সবচেয়ে বড় শহর ফিলাডেলফিয়ায় ভোট গণনার বেশ বাকি রয়েছে, যার প্রায় সবই পোস্টাল ব্যালট বা ডাক যোগে দেওয়া ভোট। সেই গণনা শেষ হতে আরও কয়েকদিন লেগে যাবে বলে স্থানীয় নির্বাচন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

জর্জিয়া: এই অঙ্গরাজ্যে ইলেকটোরাল ভোট আছে ১৬টি। ৯৯ শতাংশ ভোট গণনা হয়ে গেছে। বাইডেন এগিয়ে আছেন ৪ হাজার ২২ ভোটে।  জর্জিয়ায় রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাট প্রার্থীর ভোটের ব্যবধান এতই সামান্য যে সেখানে পুনঃগণনা হবে। তবে তা শেষ হতে ২০ নভেম্বর লেগে যেতে পারে।

অ্যারিজোনা: এই অঙ্গরাজ্যে ইলেকটোরাল ভোট ১১টি। ৯৪ শতাংশ ভোট গণনা হয়ে গেছে। বাইডেন এগিয়ে আছেন ৩৬ হাজার ৮৩৫ ভোটে। এখানে বাইডেন পেয়েছেন ৪৯ দশমিক ৮ শতাংশ ভোট, বিপরীতে বর্তমান প্রেসিডেন্টের প্রাপ্ত ভোটের হার ৪৮ দশমিক ৭ শতাংশ। রাজ্যটিতে আড়াই লাখের মতো ভোট গণনা এখনও বাকি।

নেভাডা: এই অঙ্গরাজ্যে ইলেকটোরাল ভোট রয়েছে ৬টি। ৯৩ শতাংশ ভোট গণনা শেষে বাইডেন এগিয়ে আছেন ২২ হাজার ৬৫৭ ভোটে। এখনও ১ দশমিক ৮ শতাংশ পয়েন্ট পিছিয়ে আছেন ট্রাম্প। নেভাডার নির্বাচন কর্মকর্তারা বলছেন, রোববার নাগাদ তারা ভোট গণনা শেষ করতে পারবেন।

নর্থ ক্যারোলাইনা: ১৫ ইলেকটোরাল ভোটের এই অঙ্গরাজ্যটিতেই শুধু এগিয়ে আছেন রিপাবলিকান প্রার্থী ট্রাম্প। ৯৮ শতাংশ ভোট গণনা শেষে দেখা যাচ্ছে, ট্রাম্প ৭৬ হাজার ৫২৬ ভোটে  এগিয়ে রয়েছেন। স্থানীয় কর্মকর্তারা বলছেন, রোব-সোমবারের আগে পূর্ণাঙ্গ ফল আসার সম্ভাবনা নেই।

এছাড়া তিনটি ইলেকটোরাল ভোটের রাজ্য আলাস্কায় ভোটের ফল পেতে বাকি রয়েছে। সেখানে ট্রাম্প বিশাল ব্যবধানে এগিয়ে থাকলেও তা জয়-পরাজয় নির্ধারণে কোনো প্রভাব ফেলতে পারছে না।

***

শুক্রবার রাত ২টা ০১ (বিডিএসটি)

সর্বশেষ কে কোথায়

 

নেভাডা: ডনাল্ড ট্রাম্পের চেয়ে ২০ হাজার ৫৫২ ভোটে এগিয়ে আছেন জো বাইডেন।

অ্যারিজোনা: বাইডেন এগিয়ে থাকলেও ট্রাম্পের সঙ্গে ব্যবধান কমেছে। বাইডেন এখন এগিয়ে আছেন ৪০ হাজার ৯৫৪ ভোটে।

পেনসিলভেইনিয়া: ট্রাম্পের সঙ্গে ব্যবধান আরও বাড়িয়ে ১৩ হাজার ৫৫ ভোটে এগিয়ে গেছেন বাইডেন।

জর্জিয়া: বাইডেন এগিয়ে আছেন ১ হাজার ৫৯৭ ভোটে। সেখানে ৪ হাজার ১৬৯টি ব্যালট গণনা বাকি। ব্যবধান খুব কম হওয়ায় ইতোমধ্যে পুনঃগণনার সিদ্ধান্ত হয়েছে।  

***

শুক্রবার রাত ১টা ২৫ (বিডিএসটি)

উইলমিংটনে উৎসবের প্রস্তুতি

 

ডেলাওয়ারের উইলমিংটন থেকে আনুষ্ঠানিক প্রচার শুরু করেছিলেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন; সেইখানেই তার সমর্থকরা নিচ্ছেন উৎসবের প্রস্তুতি।

শুক্রবার বাইডেনের সমর্থকদের দিন শুরু হয়েছিল কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যের চূড়ান্ত ফলের ভাবনা নিয়ে; বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে তা অনেকটা লাঘব হয়েছে।

এর মধ্যে ২০ ইলেকটোরাল ভোটের রাজ্য পেনসিলভেইনিয়ায় বিজয়ের চূড়ান্ত ঘোষণাই বাইডেনের হোয়াইট হাউজ নিশ্চিত করে দিতে পারে।

ভোট গণনা শেষ না হওয়ায় সেই ঘোষণা পেতে অপেক্ষা করতে হবে আরও; তবে উইলমিংটনে বাইডেনের বাড়ির কাছে ওয়েস্টিন হোটেলের বাইরে এরই মধ্যে সমর্থকদের উৎসব প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেছে।

সিকিউরিটি ব্যারিয়ার আর বাইডেন-হ্যারিস লেখা ক্যাম্পেইন সাইন বসিয়ে ইতোমধ্যে একটি জায়গা ঘিরে ফেলা হয়েছে, সেখানেই স্থানীয় সময় শুক্রবার সন্ধ্যায় ভাষণ দেওয়া কথা রয়েছে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেনের।

পার্কিং লটের বাইরে বহু মানুষ খবরের আশায় অপেক্ষা করছে। ইতোমধ্যে বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তার আয়োজন।

পতাকাসজ্জিত একটি মঞ্চ প্রস্তুত হয়ে আছে সেই মঙ্গলবার ভোটের দিন থেকে। এরপর বুধবার গেল, বৃহস্পতিবার গেল, সেই মঞ্চ এখনও চূড়ান্ত লগ্নের অপেক্ষায়।

***

শুক্রবার রাত ১২টা ২৮ (বিডিএসটি)

শান্তিপূর্ণভাবেই ক্ষমতা হস্তান্তর হবে: ট্রাম্পের উপদেষ্টা

হোয়াইট হাউজের অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ল্যারি কাডলো বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নির্বাচনে হেরে গেলে শান্তিপূর্ণভাবেই ক্ষমতা হস্তান্তর হবে বলে তিনি মনে করেন।

শুক্রবার গুরুত্বপূর্ণ দুই রাজ্য পেনসিলভেইনিয়া ও জার্জিয়ায় রিপাবলিকান ট্রাম্পকে পেছনে ফেলে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন এগিয়ে যাওয়ার পর কাডলোর পক্ষ থেকে এমন বক্তব্য এল।

ট্রাম্পের এই উপদেষ্টা বলেন, “এটি (যুক্তরাষ্ট্র) বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতন্ত্রের দেশ। আমরা আইনের শাসন মেনে চলি। আর তাই প্রেসিডেন্টও তা মানবেন।”

তবে এখনও কিছু বিষয় ‘স্পষ্ট হওয়া বাকি’ আছে মন্তব্য করে কাডলো বলেন, “এ ব্যাপারে আমি বিশেষজ্ঞ নই। আমি এটা প্রচারশিবিরের ওপরই ছেড়ে দিচ্ছি। কিন্তু হ্যাঁ, আমরা শান্তিপূর্ণভাবেই চলব, যেরকম আমরা সবসময়ই করি।”

***

শুক্রবার রাত ১২টা ০৭ (বিডিএসটি)

পেনসিলভেইনিয়ার ভোট গণনায় লাগতে পারে ‘কয়েক দিন’

 

পেনসিলভেইনিয়ার সবচেয়ে বড় শহর ফিলাডেলফিয়ার নির্বাচনী কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সেখানে ভোট গণনা শেষ হতে কয়েক দিনও লেগে যেতে পারে। 

কেবল ফিলাডেলফিয়াতেই ৪০ হাজারের মত ভোট গণনার অপেক্ষায় আছে, যেগুলোর বেশিরভাগই প্রভিশনাল, মিলিটারি ব্যালট।

সিএনএন জানিয়েছে, পুরো পেনসিলভেইনিয়া রাজ্যে ডাক যোগে আসা ১ লাখ ৭৫ হাজার ৮৮০টি ভোট গণনার অপেক্ষায় আছে।

২০ ইলেকটোরাল ভোটের রাজ্য পেনসিলভেইনিয়ায় এ পর্যন্ত ৯৬ শতাংশ ভোট গণনা হয়েছে, তাতে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন এখন রিপাবলিকান প্রার্থী প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের চেয়ে ১২ হাজার ৪৯৭ ভোটে এগিয়ে আছেন।

বাইডেন সেখানে পেয়েছেন ৪৯ দশমিক ৫ শতাংশ ভোট, আর ট্রাম্প পেয়েছেন ৪৯ দশমিক ৩ শতাংশ ভোট। এ রাজ্যে জয়ী হতে পারলেই জো বাইডেন নির্বাচিত হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক ইলোকটোরাল ভোট পেয়ে যাবেন।

রয়টার্স, গার্ডিয়ান

***

শুক্রবার রাত ১১টা ৫৫ (বিডিএসটি)

ভাষণ দিতে আসছেন বাইডেন

গুরুত্বপূর্ণ দুই রাজ্যে এগিয়ে যাওয়ার পর শুক্রবার সন্ধ্যায় ডেলাওয়ারের উইলমিংটনে সমর্থকদের সামনে আসছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন।

তার প্রচার শিবির জানিয়েছে, বাইডেনের ভাষণ হবে স্থানীয় সময় সন্ধ্যায়, বাংলাদেশের স্থানীয় সময় ধরলে তা হবে ভোর ৫টার দিকে।

বিজয়ী হতে প্রয়োজনীয় ইলেকটোরাল কলেজ ভোটের কাছাকাছি পৌঁছে গেছেন জো বাইডেন। গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যগুলোতে শেষ মুহূর্তের গণনায় প্রয়োজনীয় ভোট পেলেই তিনি নিজেকে বিজয়ী দাবি করতে পারেন। তাই যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা বিভাগ ইতোমধ্যে তার নিরাপত্তা জোরদার করেছে বলে খবর এসেছে।

বিবিসি

***

শুক্রবার রাত ১১টা ০২ (বিডিএসটি)

ব্যাটলগ্রাউন্ডের সর্বশেষ

 

নেভাডায় জো বাইডেন ব্যবধান আরও বাড়িয়ে নিয়েছেন। ডনাল্ড ট্রাম্পের চেয়ে ২২ হাজার ৭৬ ভোটে এগিয়ে আছেন তিনি। দুই প্রার্থীর ব্যবধান ০ দশমিক ৮ শতাংশ পয়েন্ট থেকে বেড়ে ১ দশমিক ৭ শতাংশ পয়েন্ট হয়েছে।

অ্যারিজোনায় বাইডেন এগিয়ে থাকলেও ট্রাম্পের সঙ্গে ব্যবধান আগের চেয়ে কমেছে। বাইডেন এখন এগিয়ে আছেন ৪৩ হাজার ৭৭৯ ভোটে, যা আগের আপডেটে ৪৭ হাজার ছিল।

পেনসিলভেইনিয়ায় ট্রাম্পের সঙ্গে ব্যবধান আরও বাড়িয়ে ৯ হাজার ২৭ ভোটে এগিয়ে গেছেন বাইডেন।

জর্জিয়ায় বাইডেন এগিয়ে আছেন ১ হাজার ৫৯৭ ভোটে। সেখানে ৪ হাজার ১৬৯টি ব্যালট গণনা বাকি। ব্যবধান খুব কম হওয়ায় ইতোমধ্যে পুনঃগণনার সিদ্ধান্ত হয়েছে।  

রয়টার্স

***

শুক্রবার রাত ১০টা ১২ (বিডিএসটি)

পুনঃগণনায় আটকাল জর্জিয়ার ভোটের ফল

 

গুরুত্বপূর্ণ রাজ্য জর্জিয়ায় প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পকে টপকে চূড়ান্ত জয়ের আশা বাড়িয়ে তুলেছিলেন জো বাইডেন; কিন্তু রাজ্যের একটি নিয়ম তার জন্য নিয়ে এসেছে দুঃসংবাদ।

জার্জিয়া রাজ্যের নিয়ম অনুযায়ী ভোটের ব্যবধান ০ দশমিক ৫ শতাংশের কম হলে প্রার্থীদের যে কেউ পুনঃগণনার আবেদন করতে পারেন। এক্ষেত্রেও তাই ঘটেছে।  

৯৯ শতাংশ ভোট গণনা শেষে এ রাজ্যে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাইডেন রিপাবলিকান ট্র্যাম্পের চেয়ে ১ হাজার ৫৭৯ ভোটে এগিয়ে আছেন। দুজনেই পেয়েছেন ৪৯ দশমিক ৪ শতাংশ ভোট। ফলে জর্জিয়ার ভোটের ভাগ্য পড়ে গেলে ওই নিয়মের চক্করে।

পুনঃগণনার বিষয়টি নিশ্চিত করে জর্জিয়ার সেক্রেটারি অব স্টেট ব্র্যাড র‌্যাফেনস্পের্জার শুক্রবার আটলান্টায় বলেন, পুরো স্বচ্ছতার সঙ্গেই কাজটি করা হবে।  

তিনি জানান, এখন পর্যন্ত ৪১৬৯ ভোট গণনা বাকি আছে এবং সেনাবাহিনীর সদস্যদের পাঠানো আরও আট হাজার ভোট ডাকযোগে পাঠানো হয়েছে, শুক্রবার পৌঁছালে সেগুলোর গণনা শুরু হবে।

কাউকে চূড়ান্তভাবে বিজয়ী ঘোষণা করার মত ভোট গণনা এখনও হয়নি। আর দুই প্রার্থীর ভোটের যে ব্যবধান, তাতে এ রাজ্যের আইন অনুযায়ী এখন পুনঃগণনা করতে হবে।” 

বিবিসি ও গার্ডিয়ান

***

শুক্রবার রাত ৯টা ৩৬ (বিডিএসটি)

নির্বাচন এখনও শেষ হয়নি, বলল ট্রাম্পের প্রচারশিবির

 

গুরুত্বপূর্ণ রাজ্য পেনসিলভেইনিয়ায় প্রতিপক্ষ জো বাইডেনকে এগিয়ে যেতে দেখেও ‘নির্বাচন এখনও শেষ হয়নি’ বলে মন্তব্য করেছেন ট্রাম্পের প্রচারশিবিরের আইনজীবী ম্যাট মরগ্যান।

এ রাজ্যে জয়ী হতে পারলেই জো বাইডেনের ইলোকটোরাল ভোট হয়ে যাবে ২৭৩, অর্থাৎ, তিনি পৌছে যাবেন হোয়াইট হাউজে।

এ পরিস্থিতিতে ট্রাম্প শিবিরের ম্যাট মরগ্যান বলেন, “চার রাজ্যের ফলের ওপর ভিত্তি করে বাইডেনের জয়ের এই মিথ্যা পূর্বাভাস চূড়ান্ত ফল থেকে অনেক দূরে আছে।”

তিনি অভিযোগ করেন, জর্জিয়ায় ব্যালট ‘ঠিকভাবে সংগ্রহ করা হয়নি’ এবং পেনসিলভেইনিয়ায় বিচারকের নির্দেশ থাকার পরও নির্বাচন পর্যবেক্ষকদেরকে ভোট গণনা প্রক্রিয়া ‘ঠিকমত দেখতে দেওয়া হয়নি’।

জর্জিয়ায় বাইডেনই জয় পাচ্ছেন বলে কয়েকটি নিউজ নেটওয়ার্কের পূর্বাভাসের সঙ্গেও দ্বিমত পোষণ করেন মরগ্যান।

বিবিসি

***

শুক্রবার রাত ৯টা ২১ (বিডিএসটি)

কে কোথায় দাঁড়িয়ে

 

***

শুক্রবার রাত ৮টা ০৮ (বিডিএসটি)

পেনসিলভেইনিয়াতেও এগিয়ে গেলেন বাইডেন

জর্জিয়ার পর এবার ২০ ইলেকটোরাল ভোটের গুরুত্পূর্ণ রাজ্য পেনসিলভেইনিয়াতেও রিপাবলিকান প্রার্থী প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের চেয়ে এগিয়ে গেছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন।

রয়টার্স জানিয়েছে, ৯৫ শতাংশ ভোট গণনা শেষে ট্রাম্পের চেয়ে ৫ হাজার ৫৮৭ ভোটে এগিয়ে গেছেন বাইডেন। ভোট গণনা এখনও চলছে।

এ রাজ্যে এ পর্যন্ত ৬৬ লাখ ভোট পড়েছে। গণনা হওয়া ভোটের ৪৯ দশমিক ৩ শতাংশ ট্রাম্প এবং ৪৯ দশমিক ৪ শতাংশ বাইডেন পেয়েছেন। গুরুত্বপূর্ণ এ রাজ্যে ভোট গণনা শুরুর পর থেকেই ট্রাম্প এগিয়ে ছিলেন।   

এ রাজ্যে জয়ী হতে পারলেই জো বাইডেনের ইলোকটোরাল ভোট হয়ে যাবে ২৭৩, অর্থাৎ, তিনি পৌছে যাবেন হোয়াইট হাউজে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে মোট ৫৩৮টি ইলেকটোরাল ভোটের মধ্যে অন্তত ২৭০টি নিশ্চিত করতে হয়।

এ পর্যন্ত ২১৪ ইলেকটোরাল ভোট নিয়ে ট্রাম্প সেই ‘ম্যাজিক নাম্বর’ থেকে ৫৬ ভোট পিছিয়ে আছেন। বাইডেন যত এগোচ্ছেন, ততই ফিকে হচ্ছে ট্রাম্পের হোয়াইট হাউজের দখল ধরে রাখার আশা।

***

শুক্রবার বিকাল ৫টা ৩১ (বিডিএসটি)

জর্জিয়ার সর্বশেষ

১৬ ইলেকটোরাল কলেজের গুরুত্বপূর্ণ রাজ্য জর্জিয়ায় শেষ ১ শতাংশ ভোট গণনার মধ্যে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পকে টপকে যাওয়া জো বাইডেন ব্যবধান আরও একটু বাড়িয়েছেন।  

বিবিসি জানিয়েছে, ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাইডেন এখন রিপাবলিকান ট্র্যাম্পের চেয়ে ১ হাজার ৯৬ ভোটে এগিয়ে আছেন। 

এ রাজ্যে ভোট পড়েছে ৪৯ লাখ ৫৮ হাজার ১৯১টি। তার মধ্যে ৯৯ শতাংশ ভোট ইতোমধ্যে গণনা করা হয়েছে। বাইডেন যদি শেষ পর্যন্ত জর্জিয়া জিতে নেন, তিনি হবেন ১৯৯২ সালে বিল ক্লিনটনের পর এ রাজ্যের সমর্থন পাওয়া প্রথম ডেমোক্র্যাট প্রার্থী।

সিবিএস জানিয়েছে, জর্জিয়ায় এখনও যা ভোট গণনা বাকি আছে তার অধিকাংশই গুইনেট ও ক্লেইটন কাউন্টিতে। গুইনেটে বাকি আছে ৪ হাজার ভোট আর ক্লেইটনে ২ হাজার।

ক্লেইটন কাউন্টি প্রয়াত ডেমোক্র্যাট কংগ্রেসম্যান ও নাগরিক অধিকার কর্মী জন লুয়িসের নিজের জেলা। এখানে এ পর্যন্ত বাইডেনের পাওয়া ১ হাজার ৬০২ ভোটের বিপরীতে ট্রাম্প পেয়েছেন ২২৩ ভোট।       

কিছু কাউন্টি তাদের নির্বাচনী কর্মীদের রাতে বাড়িতে পাঠিয়ে দিলেও ক্লেইটন সকাল পর্যন্ত ভোট গণনা চালিয়ে যায়। বাইডেন এ কাউন্টির ভোটেই ট্রাম্পকে পেছনে ফেলেছেন বলে জানিয়েছে নিউ ইয়র্ক টাইমস।

গুইনেট কাউন্টিতে ডাক যোগে আসা প্রচুর আগাম ভোটের গণনা বাকি। এসব ভোট নিয়ে ‘ফয়সালা’ করার ব্যাপার রয়েছে বলে সিএনএন জানিয়েছে।

এই ভোটের কোনো একটি নিয়ে কোনো জটিলতা তৈরি হলে পুরো ব্যাচের (২৫টি করে এক ব্যাচ) ভোট একপাশে সরিয়ে রেখে সেগুলোর ফয়সালা করতে হবে। সেক্ষেত্রে ভোট গণনা শেষ হতে আরও সময় লেগে যাবে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। 

***

শুক্রবার বিকাল ৫টা ৫৭ (বিডিএসটি)

অন্য দেশের গণমাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের ভোট

যুক্তরাষ্ট্রে মঙ্গলবারের নির্বাচনের পর ভোট গণনা এখনও চলছে। তার মধ্যেই প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের একের পর এক আইনি পদক্ষেপ এবং ‘ভিত্তিহীন’ অভিযোগ নিয়ে যে ‘বিশৃঙ্খলা’ সৃষ্টি হয়েছে, তা শিরোনাম হচ্ছে চীন, ইরান ও রাশিয়ার গণমাধ্যমগুলোতে।

চীনের রাষ্ট্রায়ত্ব ট্যাবলয়েড গ্লোবাল টাইমস বলছে, এই ভোট যুক্তরাষ্ট্রে ‘বিভাজন, সহিংসতা, দুর্ভোগ’ বয়ে এনেছে। চীনে এই নির্বাচন মূলত হাসি-ঠাট্টার বিষয় হয়ে উঠেছে।

ইরানের সম্প্রচারমাধ্যম যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে ভোট গণনা প্রক্রিয়া নিয়ে রাস্তায় রাস্তায় বিক্ষোভের খবর দিয়েছে। রেডিও ইরান (ভিআইআরআই) যুক্তরাষ্ট্রে বিশৃঙ্খলা বাড়তে থাকার মধ্যে নির্বাচনী ফলাফলের অস্পষ্টতা নিয়ে প্রতিবেদন করেছে।

রাশিয়ার ক্রেমলিনপন্থি টিভি চ্যানেলগুলো শুক্রবার সকালে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনকে আর শীর্ষ সংবাদ হিসাবে প্রচার না করলেও অন্যান্য সব চ্যানেলেই প্রাধান্য পেয়েছে ট্রাম্পের তোলা ‘ভোট চুরির’ অভিযোগ। তবে ট্রাম্পের এই অভিযোগের যে কোনও প্রমাণ নেই তা খবরে বলা হয়নি।

বিবিসি

শুক্রবার বিকাল ৪টা ৪৬ (বিডিএসটি)

‘ভোটে অনিয়মের কোনও প্রমাণ নেই’

যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে পোস্টাল ভোট গণনা চলার মধ্যে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প ‘অবৈধ’ ভোট গোনা হচ্ছে বলে অভিযোগ করলেও নির্বাচন পর্যবেক্ষকরা বলছেন, ভোটে অনিয়মের কোনও প্রমাণ নেই।
 
বিবিসি রেডিও ফাইভ-লাইভ আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক মিশন ‘দ্য অর্গানাইজেশন ফর সিকিউরিটি এন্ড কো-অপারেশন ইন ইউরোপ (ওএসসিই) এর মুখপাত্রের কাছে ট্রাম্পের অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন- অনিয়মের কোনও প্রমাণ নেই। 

শুক্রবার বিকাল ৩টা ৫৫ (বিডিএসটি)

জর্জিয়ায় ট্রাম্পকে টপকে গেলেন বাইডেন

 

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে নাটকীয় ভোটের লড়াই চলছে ব্যাটলগ্রাউন্ড হিসেবে চিহ্নিত গুরুত্বপূর্ণ রাজ্য জর্জিয়ায়, গণনার একেবারে শেষ পর্যায়ে এসে রিপাবলিকান প্রার্থী প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের চেয়ে এগিয়ে গেছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন।

সিএনএন বলছে, জর্জিয়ায় বাইডেন এখন ট্রাম্পের চেয়ে ৯১৭ ভোটে এগিয়ে আছেন। গণনার শুরু থেকেই এ রাজ্যে এগিয়ে ছিলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। বৃহস্পতিবার দিনের শুরুতে ট্রাম্প ১৮ হাজার ভোটে এগিয়ে ছিলেন । 

এ রাজ্যে ভোট পড়েছে ৪৯ লাখ ৫৮ হাজার ১৯১টি। তার মধ্যে ৯৯ শতাংশ ভোট ইতোমধ্যে গণনা করা হয়েছে। শতাংশের হিসাবে দুজনেই এখন পর্যন্ত পেয়েছেছন ৪৯ দশমিক ৪ শতাংশ করে ভোট। 

যুক্তরাষ্ট্রের সব রাজ্য মিলিয়ে ৫৩৮টি ইলেকটোরাল ভোটের মধ্যে ২৫৩টি পেয়েছেন বাইডেন। চূড়ান্ত জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ২৭০টি ইলেকটোরাল ভোট থেকে মাত্র ১৭ ভোট দূরত্বে আছেন তিনি।

জর্জিয়ায় ইলেকটোরাল ভোট আছে ১৬টি। ফলে এ রাজ্যে জয় পেলে বাইডেন পৌঁছে যাবেন বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে।

অন্যদিকে রিপাবলিকান প্রার্থী প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প এখন পর্যন্ত জিতেছেন ২১৪ ইলেকটোরাল ভোট; চূড়ান্ত জয় পেতে হলে তার চাই আরও ৫৬ ভোট।

জর্জিয়ার পাশাপাশি নেভাডা, পেনসিলভেইনিয়া ও অ্যারিজোনা ও নর্থ ক্যারোলাইনায় এখনও ভোট গণনা চলছে। এসব রাজ্যের ফলাফলই নির্ধারণ করে দেবে দুই প্রার্থীর ভাগ্য।  

বাইডেন যদি জার্জিয়ায় জিতে যান, আর বাকি চার রাজ্যের মধ্যে যে কোনো একটিতে জয় নিশ্চিত করতে পারেন, তাহলেই তার হোয়াইট হাউজে যাওয়া নিশ্চিত।

বাইডেন যদি জর্জিয়া জিতে নেন, তাহলে তার ইলেকটোরাল ভোট হবে ২৬৯, অর্থাৎ মোট ভোটের অর্ধেক। সেক্ষেত্রে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের আর ২৭০ ভোট পাওয়ার সুযোগ থাকবে না। তখন বাকি সব রাজ্যে ট্রাম্প জয় পেলেও ফল হবে রোমাঞ্চকর টাই।

হোয়াইট হাউজের দখল ধরে রাখতে হলে ট্রাম্পকে জর্জিয়ায় হারলে চলবে না। সেই সঙ্গে পেনসিলভেইনিয়া এবং আরও অন্তত দুটি রাজ্যে জিততে হবে।  

আর যদি নজিরবিহীন ঘটনা ঘটেই যায়, মানে দুই প্রার্থীর ইলেকটোরাল কলেজ ভোট যদি সমান সমান হয়েই যায়, তখন মার্কিন কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদে ভোটাভুটিতে সিদ্ধান্ত হবে, কে হবেন প্রেসিডেন্ট।

***

শুক্রবার বিকাল ৩টা ৪৭ (বিডিএসটি)

নেভাডাতেও মামলা করেছে ট্রাম্প শিবির

যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ব্যাটলগ্রাউন্ড রাজ্যে একই ধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার পর এবার নেভাডা রাজ্যেও মামলা করেছে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের প্রচার শিবির।
 
এবিসি নিউজ বলছে, অভিযোগগুলোর মধ্যে ভোট গণনা স্থগিত করাসহ আরও কিছু অভিযোগ আছে যেগুলো এরই মধ্যে অন্যান্য আদালতে উপস্থাপন করে সফল হতে পারেনি ট্রাম্প শিবির।

কোনও প্রমাণ না দিয়েই মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, ক্লার্ক কাউন্টির নির্বাচনে ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে। তার মধ্যে ৩ হাজারের বেশি অযোগ্য মেইল ইন ভোট ছিল এবং ডাকযোগের ব্যালটের সত্যতা যাচাই পক্রিয়াতেও ঘাটতি ছিল।

যেসব রাজ্যে বাইডেন এগিয়ে আছেন বা বাইডেনের সঙ্গে ট্রাম্পের এগিয়ে থাকার ব্যবধান কমে গেছে, সেসব রাজ্যে বার বার নির্বাচনে জালিয়াতি এবং অনিয়মের অভিযোগ তুলেছেন ট্রাম্প।

***

শুক্রবার বিকাল ৩টা ০৯ (বিডিএসটি)

বাইডেনের ‘নিরাপত্তা জোরদার হচ্ছে’

 

বিজয়ী হতে প্রয়োজনীয় ইলেকটোরাল কলেজ ভোটের কাছাকাছি পৌঁছে গেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন। গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যগুলোতে শেষ মুহূর্তের গণনায় প্রয়োজনীয় ভোট পেলেই তিনি নিজেকে বিজয়ী দাবি করতে পারেন। তাই যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা বিভাগ ইতোমধ্যে তার নিরাপত্তা জোরদার করেছে বলে খবর এসেছে।

ওয়াশিংটন পোস্ট জানিয়েছে, শুক্রবার দিনের শুরুতে (বাংলাদেশ সময় রাত) বাইডেন বক্তৃতা দিতে পারেন বলে তার প্রচার শিবির থেকে গোয়েন্দা সংস্থাকে জানানো হয়েছে। তারপরই বাইডেনের নিরাপত্তা জোরদার করার কাজ শুরু হয়েছে।

ডেলাওয়ারের উইলমিংটনে একটি কনভেনশন সেন্টারে থেকে এবার নির্বাচনী প্রচার এবং ভোট পর্যবেক্ষণ করছেন বাইডেন ও তার দল। সেখানেই শুক্রবার ভাষণ দেয়ার সম্ভাবনা আছে বাইডেনের।

***

শুক্রবার দুপুর ২টা ৩২ (বিডিএসটি)

হার স্বীকারের সুশীল রীতি

“সিনেটর জোনস আমাকে জানালেন, ভোটের ফল আপনার জয়ের দিকেই ইংগিত করছে। তাই আমিও আপনাকে অভিনন্দন জানাতে চাই। আমরা তো ভোটের ফয়সালা আমেরিকার জনগণের ওপর ছেড়ে দিয়েছিলাম, আর তাদের ইচ্ছাই তো আইন।”

১৯৯৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী উইলিয়াম জেনিংস ব্রায়ান ভোটের দুদিন পর সংক্ষিপ্ত এই টেলিগ্রাম পাঠিয়েছিলেন তার প্রতিদ্বন্দ্বী উইলিয়াম ম্যাকিনলিকে।

আসলে সেদিন তিনি একটি নজির গড়েছিলেন, যার অনুসরণে নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থীর হার মেনে নেওয়ার সুশীল রীতির সূচনা হয়।

যত তিক্ততা আর বৈরিতাই থাকুক, যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী সব নির্বাচনেই পরাজিত প্রার্থীরা ওই রীতি ধরে রেখেছেন। আর তা ঘটেছে ভোট শেষ হওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে।  

হার মেনে নেওয়ার কোনো আইনি বা সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা নেই। কেউ তা করতে না চাইলে আদালতে যেতে পারেন, তাতে জনমনে বিভ্রান্তি আর বিভক্তিও বাড়তে পরে।

২০০০ সালে ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থী আল গোর নির্বাচনে জর্জ ডব্লিউ বুশের কাছে হার মেনে নিয়েও পরে তা প্রত্যাহার করেছিলেন নিজের বেশি পপুলার ভোট পাওয়ার বিষয়ে নিশ্চিত হওয়ার পর। অবশ্য সুপ্রিম কোর্ট শেষ পর্যন্ত বুশের পক্ষেই রায় দিয়েছিল।

এ বছরের নির্বাচন ইতোমধ্যে সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের তকমা পেয়ে গেছে। রিপাবলিকান প্রার্থী প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের চেয়ে এগিয়ে আছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন। তবে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যের ভোট গণনা শেষ না হওয়ায় এখনই শেষ কথা বলা যাচ্ছে না।

মঙ্গলবার ভোটের পর তিন দিন ধরে চলছে চূড়ান্ত ঘোষণার অপক্ষা, আগের নির্বাচনগুলোতে পরাজিত প্রার্থীদের হার মেনে নেওয়ার ঘোষণা আর ভিডিও ক্লিপ অনেকে শেয়ার করছেন ইন্টারনেটে। 

বিবিসি

 

***

শুক্রবার দুপুর ১টা ৪৬ (বিডিএসটি)

করোনাভাইরাস: টানা দ্বিতীয় দিনের মত রেকর্ড রোগী শনাক্ত

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ডামাডোলের মধ্যে টানা দ্বিতীয় দিনের মত রেকর্ড কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে।

রয়টার্সের টালি বলছে, বৃহস্পতিবার সব মিলিয়ে ১ লাখ ২০ হাজার ২৭৬ জনের দেহে নতুন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে, যা মহামারি শুরুর পর যুক্তরাষ্ট্রে এক দিনের সর্বোচ্চ।

মঙ্গলবার ভোটের পরদিন বুধবার গণনার মধ্যেই রেকর্ড ১ লাখ ২ হাজার ৫১৯ জন নতুন রোগী শনাক্তের খবর এসেছিল, বৃহস্পতিবারের হিসাব সেই সংখ্যাকেও ছাপিয়ে গেল।

নির্বাচন ঘিরে উত্তেজনায় করোনাভাইরাস সঙ্কট গত কিছুদিন ধরে অনেকটা আড়ালে পড়ে গিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রে। তবে ভোটের জমায়েত যে এ রোগের বিস্তার আরও বাড়িয়ে দিতে পারে, সে আশঙ্কা আগে থেকেই ছিল।

জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের হালনাগাদ তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৯৬ লাখ ৬৯ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৩৪ হাজারের বেশি মানুষের।

শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ও মৃত্যু- দুদিক দিয়েই বিশ্বে অন্য সব দেশের চেয়ে অনেক এগিয়ে যুক্তরাষ্ট্র।

রয়টার্স

***

শুক্রবার দুপুর ১২টা ৩২ (বিডিএসটি)

চূড়ান্ত জয়ে কার কী চাই

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে মোট ৫৩৮টি ইলেকটোরাল ভোটের মধ্যে অন্তত ২৭০টি নিশ্চিত করতে হবে।

সেখানে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন ২৫৩টি ইলেকটোরাল ভোট জিতে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য থেকে মাত্র ১৭ ভোট দূরত্বে আছেন।

অন্যদিকে রিপাবলিকান প্রার্থী প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প এখন পর্যন্ত জিতেছেন ২১৪ ইলেকটোরাল ভোট; চূড়ান্ত জয় পেতে হলে তার চাই আরও ৫৬ ভোট।

জর্জিয়া, নেভাডা, পেনসিলভেইনিয়া ও অ্যারিজোনা ও নর্থ ক্যারোলাইনায় এখনও ভোট গণনা চলছে। এসব রাজ্যের ফলাফলই নির্ধারণ করে দেবে দুই প্রার্থীর ভাগ্য।  

বাইডেন যদি ২০ ইলেকটোরাল ভোটের রাজ্য পেনসিলভেইনিয়ায় জিতে যান, অথবা বাকি চার রাজ্যের মধ্যে যে কোনো দুটিতে জয় নিশ্চিত করতে পারেন, তাহলেই তার হোয়াইট হাউজে যাওয়া নিশ্চিত।

অন্যদিকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে হোয়াইট হাউজের দখল ধরে রাখতে হলে পেনসিলভেইনিয়ার সঙ্গে আরও অন্তত তিনটি রাজ্যে জিততে হবে।  

***

শুক্রবার দুপুর ১১টা ৫৩ (বিডিএসটি)

মামলায় হার ট্রাম্প শিবিরের

 

হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের চার রাজ্যে ভোট গণনা বন্ধের দাবিতে আদালতে মামরা করেছিল প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রচার শিবির। পেনসিলভেইনিয়া, জার্জিয়া ও মিশিগান রাজ্যের আদালত তাতে সাড়া দেয়নি।

এর মধ্যে মিশিগান আগেই জিতে নিয়েছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন। পেনসিলভেইনিয়ায় এগিয়ে থাকা রিপাবলিকান প্রার্থী প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে ব্যবধানও কমিয়ে এনেছেন অনেকটা। জর্জিয়ায় দুজনের অবস্থান প্রায় সমানে সমান।

বিবিসি, রয়টার্স

***

শুক্রবার সকাল ১০টা ৪১ (বিডিএসটি)

বাইডেনের জবাব

ভোট গণনা বন্ধের জন্য প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের মামলার পাল্টায় বেশ কিছু টুইট করে প্রতিটি ভোট গোণার দাবি জানিয়েছেন জো বাইডেন। সমর্থকদের তিনি শান্ত থেকে চূড়ান্ত বিজয়ের জন্য অপেক্ষা করতে বলেছেন।   

 
 

***

শুক্রবার সকাল ৯টা ৩৩ (বিডিএসটি)

৫ রাজ্যের সর্বশেষ

 

ব্যাটলগ্রাউন্ড পাঁচ রাজ্যের ভোট গণনা এখনও চলছে। জর্জিয়া, নর্থ ক্যারোলাইনা, পেনসিলভেইনিয়া ও নেভাডা ও অ্যারিজোনা- এই পাঁচ রাজ্যের মধ্যে দুটির গণনায় এগিয়ে আছেন ট্রাম্প, দুটিতে বাইডেন। একটি রাজ্যে দুজনের অবস্থান প্রায় সমান। এসব রাজ্যেই আটকে আছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভাগ্য।

পেনসিলভেইনিয়া: ট্রাম্প এখনও এগিয়ে থাকলেও ব্যবধান কমিয়েছেন বাইডেন। ৯৫ শতাংশ ভোট গণনা শেষে ট্রাম্প পেয়েছেন ৪৯ দশমিক ৬ শতাংশ, বাইডেন ৪৯ দশমিক ২ শতাংশ। ২০ ইলেকটোরাল ভোটের এ রাজ্যে ডাকযোগে আসা বিপুল পরিমাণ ভোট গণনা এখনও বাকি।

জর্জিয়া: গণনা প্রায় শেষের পথে। ৯৯ শতাংশ ভোট গণনা করা হয়েছে। তাতে ট্রাম্প মাত্র ১ হাজার ৭৭৫ ভোটে এগিয়ে আছেন। দুই প্রার্থীই ৪৯ দশমিক ৪ শতাংশ করে ভোট পেয়েছেন। ১৬ ইলেকটোরাল ভোটের এ রাজ্য এগিয়ে যাচ্ছে রোমাঞ্চকর নাটকীয়তার দিকে।  

নর্থ ক্যারোলাইনা: ৯৫ শতাংশ ভোট গণনা হয়েছে। এর মধ্যে ট্রাম্প পেয়েছেন ৫০ শতাংশ ভোট, বাইডেন ৪৮ দশমিক ৬ শতাংশ। মঙ্গলবার ভোটের দিন যেসব পোস্টাল ব্যালট পাঠানো হয়েছে, সেগুলো শুক্রবার পর্যন্ত নেওয়া হবে এবং সবই গণনা করা হবে। ফলে ১৫ ইলেকটোরাল ভোটের এ রাজ্যের চূড়ান্ত ফল পেতে আরও দেরি।

অ্যারিজোনা: ৯০ শতাংশ ভোট গণনা হয়েছে। বাইডেন পেয়েছেন ৫০ দশমিক ১ শতাংশ, ট্রাম্প ব্য্যবধান সামান্য কমিয়ে এনে ৪৮ দশমিক ৫ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। এ রাজ্যে ইলেকটোরাল ভোট আছে ১১টি।  

নেভাডা: ৮৭ শতাংশ ভোট গণনা শেষ হয়েছে। এরমধ্যে বাইডেন পেয়েছেন ৪৯ দশমিক ৫ শতাংশ, ট্রাম্প ৪৮ দশমিক ৫ শতাংশ। এ রাজ্যে ইলেকটোরাল ভোট আছে ৬টি।  

***

শুক্রবার সকাল ৮টা ১০ (বিডিএসটি)

নির্বাচন প্রক্রিয়া নিয়ে ফের প্রশ্ন ট্রাম্পের

হোয়াইট হাউসে এক সংবাদ সম্মেলনে এসে আবারও কোনো প্রমাণ ছাড়াই  নির্বাচন প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

তিনি বলেছেন “আপনারা যদি বৈধ ভোট গোণেন, আমি তো সহজেই জিতে যাই।”

ট্রাম্পের মূল আপত্তি পোস্টাল ব্যালট নিয়ে। সেসব ব্যালট গোণা এখনও শেষ হয়নি এবং এর একটি বড় অংশ ডেমোক্র্যাট ভোট বলে ধারণা করা হচ্ছে।  

রিপাবলিকান প্রার্থী ট্রাম্প বলছেন, কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যে তিনি এগিয়ে ছিলেন। কিন্তু পরে ‘রহস্যজনকভাবে’ অনেক নতুন ভোট গণনা শুরু হয়।

নির্বাচন শেষ হওয়ার পরও অনেক জায়গায় ডাকযোগে ভোট পাঠানো হয়েছে এবং বেআইনিভাবে ভোট গ্রহণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ট্রাম্প, যদিও কোনো প্রমাণ তিনি দেখাননি।

***

বৃহস্পতিবার রাত ২টা ২১ (বিডিএসটি)

ভোট গণনা: কে কোথায় দাঁড়িয়ে

পাঁচ রাজ্যের ভোট গণনা এখনও শেষ হয়নি, এসব রাজ্যেই আটকে আছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভাগ্য।

জর্জিয়া, নর্থ ক্যারোলাইনা, পেনসিলভেইনিয়া ও নেভাডা ও অ্যারিজোনা- এই পাঁচ রাজ্যের মধ্যে তিনটির গণনায় এগিয়ে আছেন ট্রাম্প আর দুটিতে বাইডেন।

কয়েকটি রাজ্যে দুই প্রার্থীর ব্যবধান সামান্য হওয়ায় এবং তুলনায় বেশি ভোট গণনা বাকি থাকায়, সব ভোট গণনা শেষে পরিস্থিতি বদলেও যেতে পারে।

পেনসিলভেইনিয়া: ৯২ শতাংশ ভোট গণনা শেষ হয়েছে। ট্রাম্প পেয়েছেন ৫০ দশমিক ৩ শতাংশ, বাইডেন ৪৮ দশমিক ৪ শতাংশ। ডাকযোগে আসা বিপুল পরিমাণ ভোট গণনা এখনও বাকি। ২০ ইলেকটোরাল ভোটের এ রাজ্য গতবার ট্রাম্পকেই জয়ী করেছিল।

জর্জিয়া: ৯৮ শতাংশ ভোট গণনা করা হয়েছে। ট্রাম্প পেয়েছেন ৪৯ দশমিক ৫ শতাংশ, বাইডেন ৪৯ দশমিক ২ শতাংশ। ১৬ ইলেকটোরাল ভোটের এ রাজ্যে গতবার ট্রাম্পই জয় পেয়েছিলেন।

নর্থ ক্যারোলাইনা: ৯৫ শতাংশ ভোট গণনা হয়েছে। এর মধ্যে ট্রাম্প পেয়েছেন ৫০ শতাংশ ভোট, বাইডেন ৪৮ দশমিক ৬ শতাংশ। ১৫ ইলেকটোরাল ভোটের এ রাজ্যে গতবার ট্রাম্পই জয় পেয়েছিলেন।

অ্যারিজোনা: ৮৬ শতাংশ ভোট গণনা হয়েছে। বাইডেন পেয়েছেন ৫০ দশমিক ৫ শতাংশ, ট্রাম্প ৪৮ দশমিক ১ শতাংশ। এ রাজ্যে ইলেকটোরাল ভোট আছে ১১টি।  

নেভাডা: ৮৭ শতাংশ ভোট গণনা শেষ হয়েছে। এরমধ্যে বাইডেন পেয়েছেন ৪৯ দশমিক ৫ শতাংশ, ট্রাম্প ৪৮ দশমিক ৫ শতাংশ। এ রাজ্যে ইলেকটোরাল ভোট আছে ৬টি। 

রয়টার্স

শুক্রবার রাত ১টা ৪৫ (বিডিএসটি)

মিশিগানের আদালতে ট্রাম্পের আবেদন খারিজ

মিশিগান রাজ্যে পোস্টাল ব্যালট গণনা স্থগিত চেয়ে ট্রাম্পের প্রচার শিবির থেকে করা আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন একজন বিচারক।

রাজ্যের ফার্স্ট ডিস্ট্রিক্ট আপিল কোর্টের বিচারক সিনথিয়া স্টিভেন্স বলছেন, আবেদনটি করা হয়েছে অনেক দেরিতে, যখন গণনা প্রায় শেষ হওয়ার পথে। আর সেখানে বিবাদী করা হয়েছে ভুল লোককে, যার এই নির্বাচনী প্রক্রিয়ার ওপর কোনো নিয়ন্ত্রণই নেই।

বিবিসি

***

শুক্রবার রাত ১টা ৩১ (বিডিএসটি)

কোন রাজ্যের ফল কখন পাওয়া যবে?

 

খাওয়া-ঘুম মাথায় তুলে ক্লান্তিহীন অপেক্ষা চলছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের চূড়ান্ত ফলের জন্য। সবার নজর এখন গণনা শেষ না হওয়া রাজ্যগুলোর দিকে। কখন কোথায় হালনাগাদ তথ্য পাওয়া যাবে, তার কিছু ইংগিত কর্মকর্তারা দিয়েছেন। তবে অনিশ্চিত এই সময়ে সবকিছুই বদলে যেতে পারে। 

জর্জিয়া: নির্বাচনী কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন, স্থানীয় সময় বেলা ১২টার (বাংলাদেশ সময় রাত ১১টা) দিকে ভোট গণনা শেষ হতে পারে, তবে তা হয়নি।

নেভাডা: রাজ্যের সবচেয়ে জনবহুল এলাকা ক্লার্ক কাউন্টির একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, স্থানীয় সময় শুক্রবার দুপুর ১টায় (বাংলাদেশ  সময় শুক্রবার রাত ১১টা) ভোট গণনার নতুন তথ্য জানানো যাবে। সেখানে ৬৩ হাজারের বেশি ভোট গণনা বাকি।

অ্যারিজোনা: স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার রাত ৯টার ( বাংলাদেশ সময় শুক্রবার সকাল ৮টা) আগে ভোট গণনার নতুন কোনো তথ্য আসার সম্ভাবনা নেই। সর্বশেষ পাওয়া তথ্যে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাইডেন সেখানে এগিয়ে আছেন।

পেনসিলভেইনিয়া: রিপাবলিকান নিয়ন্ত্রিত রাজ্যের আইনসভা নির্বাচনের আগে আগাম ব্যালট গণনায় নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল। ফলে এ রাজ্যের চূড়ান্ত ফলাফল পেতে কয়েক দিনও লেগে যেতে পারে। তবে বেশিরভাগ ভোট শুক্রবারের মধ্যে গণনা হয়ে যাবে বলে নির্বাচনী কর্মকর্তারা আশা করছেন।

নর্থ ক্যারোলাইনা: শুক্রবারের আগে ভোট গণনার চূড়ান্ত ফল পাওয়ার আশা কম। মঙ্গলবার ভোটের দিন যেসব পোস্টাল ব্যালট পাঠানো হয়েছে, সেগুলো শুক্রবার পর্যন্ত নেওয়া হবে এবং সবই গণনা করা হবে।

বিবিসি, নিউ ইয়র্ক টাইমস, রয়টার্স

***

বৃহস্পতিবার রাত ৯টা ৪৮ (বিডিএসটি)

গণনা বন্ধ করুন: ট্রাম্পের টুইট

যুক্তরাষ্ট্রে পেনসিলভেইনিয়ার মত গুরুত্বপূর্ণ ‘ব্যাটলগ্রাউন্ড’ রাজ্যে এগিয়ে থাকা প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে ব্যবধান কমছে জো বাইডেনের। বলা হচ্ছে, বাইডেন ডাকযোগের ভোট বেশি পাচ্ছেন। আরও কিছু রাজ্যেও একই অবস্থা। যা নিয়ে ক্ষুব্ধ ট্রাম্প এক টুইটে ভোট গণনা বন্ধ করতে বলেছেন।

 

আরেক ব্যাটলগ্রাউন্ড জর্জিয়ার একটি এলাকায় ভোট গণনা স্থগিতের দাবিতে মামলা করেছে ট্রাম্পের প্রচার শিবির। তাদের অভিযোগ, সেখানে নির্ধারিত সময়ের পর পৌঁছানো পোস্টাল ভোটও বিবেচনায় নেওয়া হচ্ছে।

***

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টা ৩২ (বিডিএসটি)

গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যগুলোর সর্বশেষ পরিস্থিতি

 

যুক্তরাষ্ট্রে নির্বাচনের চূড়ান্ত ফল নির্ধারণের জন্য আর হাতে গোনা কয়েকটি রাজ্যের ফল বাকি। রাজ্যগুলো হচ্ছে- অ্যারিজোনা, জর্জিয়া, নেভাডা, পেনসিলভেইনিয়া, নর্থ ক্যারোলাইনা এবং উইসকনসিন।

ট্রাম্পকে ২৭০টি ইলেকটোরাল ভোট পেতে হলে উইসকনসিনে (১০ ভোট) হারলেও জর্জিয়া (১৬টি ভোট), নর্থ ক্যারোলাইনা (১৫ ভোট), পেনসিলভেইনিয়া (২০ ভোট) এবং অ্যারিজোনা (১১ ভোট) বা নেভাডায় (৬ ভোট) জয় পেতে হবে।

পেনসিলভেইনিয়ায় হারলেও জয় পেতে পারেন বাইডেন। তবে সেজন্য তাকে অ্যারিজোনা, জর্জিয়া ও নেভাডায় জিততে হবে।

জর্জিয়ায় ট্রাম্পের এগিয়ে থাকার ব্যবধান কমে সবশেষ ২৪ হাজার ভোটে এসে ঠেকেছে।

নেভাডায় বাইডেন ৮ হাজারের কম ভোটে এগিয়ে আছেন।

পেনসিলভেইনিয়ায় ট্রাম্পের ব্যবধান আরও কমেছে। বুধবার ভোর ৫টা ৪৫ জিএমটি পর্যন্ত ৯০ শতাংশ ভোট গোনা শেষ হয়েছে। তাতে ট্রাম্প ১ লাখ ৬৪ হাজার ৪১৪ ভোটে এগিয়ে ছিলেন।

অ্যারিজোনায় বাইডেন প্রায় ৮০ হাজার ভোটে এগিয়ে আছেন।

নর্থ ক্যারোলাইনায় ৭৭ হাজার ভোট নিয়ে অল্প ব্যবধানে এগিয়ে আছেন ট্রাম্প। 

উইসকনসিনে বাইডেনের ভোটের ব্যবধান ২০ হাজারের বেশি। তবে কিছু সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, সেখানে বাইডেন জিতেছেন। 

বিবিসি

***

বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টা ৫১ (বিডিএসটি)

ভিত্তিহীন অভিযোগে 'কলঙ্কিত'

‘আইনি লড়াইয়ের অনিশ্চয়তা এবং জনগণের আস্থা ক্ষুণন্ করার নজিরবিহীন চেষ্টায়’ যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন ‘কলঙ্কিত হয়েছে’ বলে মত দিয়েছে আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক মিশন দ্য অর্গানাইজেশন ফর সিকিউরিটি অ্যন্ড কো-অপারেশন ইন ইউরোপ (ওএসসিই)।

এ সংস্থা বলছে, কোভিড-১৯ এর সঙ্কটময় এই সময়েও আমেরিকার নির্বাচন ‘স্বতঃস্ফূর্তভাবেই প্রতিযোগিতামূলক’ ছিল এবং তা ‘ভালোভাবেই’ পরিচালিত হয়েছে।
 
প্রাথমিকভাবে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ওএসসিই মিশন এক বিবৃতিতে বলেছে, “পদ্ধতিগত ত্রুটি নিয়ে ভিত্তিহীন অভিযোগ, বিশেষ করে নির্বাচনের রাতে বর্তমান প্রেসিডেন্টের তোলা কারচুপির অভিযোগ গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান নিয়ে জনগণের আস্থার জন্য ক্ষতিকর।”
 
নির্বাচনের রাতে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প তার বক্তব্যে এ নির্বাচনে ভোট চুরির অভিযোগ করে ‘আমেরিকান জনগণের সঙ্গে প্রতারণা’ হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন।

বিবিসি

***

বৃহস্পতিবার বিকাল ৪টা ৫৫ (বিডিএসটি)

উদ্বেগ, সন্দেহ

 

যুক্তরাষ্ট্রে সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচনের ফল জানতে নির্ঘুম রাত কাটানো রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাট সমর্থকরা ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার একদিন পরও কে জয়ী তা জানতে না পারায় উদ্বেগ নিয়ে সময় কাটাচ্ছেন।

বাইডেন সমর্থকদের আশঙ্কা, হেরে গেলে ট্রাম্প নির্বাচনের ফল নাও মেনে নিতে পারেন। আবার রিপাবলিকান ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত এলাকাগুলোর অনেক ভোটার প্রেসিডেন্টের মতই নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপি হচ্ছে বলে প্রমাণ ছাড়াই অভিযোগ তুলেছেন।

করোনাভাইরাস সংক্রমণে দেওয়া বিধিনিষেধের কারণে একটি কক্ষের ভেতর যতজন থাকতে পারে, তা পূরণ হয়ে যাওয়ায় মিশিগানের ডেট্রোয়ইটে একটি নির্বাচনী কেন্দ্রের কর্মকর্তারা প্রায় ৩০ জন পর্যবেক্ষককে ভোট গণনার কক্ষে প্রবেশে বাধা দিয়েছেন। ওই পর্যবেক্ষকদের অধিকাংশই ছিলেন রিপাবলিকান।

পর্যবেক্ষকরা এরপরও ভোট গণনা কক্ষে প্রবেশ করতে চাইলে পরে পুলিশ এনে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করেন নির্বাচনী কর্মকর্তারা।

পরে ওই পর্যবেক্ষক দলের অনেক সদস্য ভোট গণনা কক্ষের বাইরে দাঁড়িয়ে বিক্ষোভ দেখান এবং ‘গড ব্লেস আমেরিকা’ গাইতে থাকেন। রিপাবলিকান পর্যবেক্ষকদের অন্য একটি দলও ওই কেন্দ্রে ঢুকতে বাধা পাওয়ার পর কাছাকাছি এলাকায় চক্রাকারে প্রার্থনা সভা করে এবং চিৎকার করে ‘ভোট বন্ধ কর’, ‘গণনা বন্ধ কর’ স্লোগান দেন। 

নির্বাচনের পরের দিন দুই দলের সমর্থকদের অনেকেই উত্তেজনার এই চাপ নিতে পারছিলেন না। অনেকেই ক্যাফেইনের উপর ভর করে সজাগ থাকার চেষ্টা করেছেন; কেউ কেউ টুকিটাকি নানান কাজে নিজেকে ব্যস্ত রেখে উত্তেজনা ভুলতে চেয়েছেন।

ওকল্যান্ড, ক্যালিফোর্নিয়া, আটলান্টা, ডেট্রোয়ইট ও নিউ ইয়র্ক সিটির মতো বেশ কয়েকটি শহরে ভোট গণনা অব্যাহত রাখার দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ করেছেন বাইডেন সমর্থকরা।

যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা বলছেন, তারা বিভিন্ন এলাকার ডানপন্থি মিলিশিয়া সদস্যদের উপরও নজর রাখছেন। ভোটে কারচুপি নিয়ে ট্রাম্প যে অভিযোগ করেছেন তার কারণে এ ধরনের সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলো রাস্তায় নেমে যেতে পারে বলেও অনেকের আশঙ্কা।

বৃহস্পতিবার দুপুর ২টা ২১ (বিডিএসটি)

ভোট গণনা নিয়ে উত্তেজনা, বিক্ষোভ

 

যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাটলগ্রাউন্ড রাজ্যগুলোতে ভোট গণনা নিয়ে উত্তেজনার মধ্যে বেশ কয়েকটি শহরে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে।

ওরেগন রাজ্যের পোর্টল্যান্ডে ট্রাম্পবিরোধী বিক্ষোভ থেকে দোকান ভাংচুর হয়েছে। ন্যাশনাল গার্ডের সদস্যরা সেখানে ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে, পটকা, হাতুড়ি ও রাইফেল জব্দ করেছে।

ট্রাম্প ভোট গণনা বন্ধ করার আহ্বান জানানোয় মিনেসোটা রাজ্যের মিনিয়াপোলিসে বিক্ষোভ করেছে দুই শতাধিক মানুষ। তারা প্রধান সড়ক অবরোধ করলে পুলিশ বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

শিকাগো, ফিলাডেলফিয়া ও নিউ ইয়র্কেও একই ধরনের বিক্ষোভ হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

নিউ ইয়র্ক পুলিশ বিভাগ জানিয়েছে, বুধবার গভীর রাতে শহরজুড়ে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ার পর তারা প্রায় ৫০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

ডেট্রোয়ইটে ট্রাম্পের সমর্থকরা একটি ভোট কেন্দ্রের সামনে গিয়ে গণনা বন্ধ করার দাবিতে বিক্ষোভ করে। গণনা বন্ধ করার দাবিতে অ্যারিজোনার ফিনিক্সেও কিছু লোক বিক্ষোভ করেছে।

***

বৃহস্পতিবার দুপুর ১টা ২৯ (বিডিএসটি)

পেনসিলভেইনিয়ায় ট্রাম্প-বাইডেন ব্যবধান কমল

গুরুত্বপূর্ণ ব্যাটলগ্রাউন্ড রাজ্য পেনসিলভেইনিয়ায় জো বাইডেনের চেয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের এগিয়ে থাকার ব্যবধান কমেছে।

স্থানীয় সময় বুধবার রাত সাড়ে ১১টার মধ্যে ৯০ শতাংশ ভোট গণনার পর ট্রাম্প তার ডেমোক্র্যাটিক প্রতিদ্বন্দ্বী বাইডেনের চেয়ে এক লাখ ৬৪ হাজার ৪১৪ ভোটে এগিয়ে ছিলেন সেখানে।

এর আগে বিকালে ট্রাম্প তিন লাখ ৭৯ হাজার ৬৩৯ ভোটে বাইডেনের চেয়ে এগিয়ে ছিলেন।

সিবিএস নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সেখানে বিপুল পরিমাণ পোস্টাল ভোট গণনা বাকি আছে এবং সেগুলোর বড় অংশ বাইডেনের পক্ষে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। 

২০টি ইলেকটোরাল কলেজে ভোট নিয়ে পেনসিলভেইনিয়া এই নির্বাচনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ রাজ্য হয়ে আছে।

২০১৬ সালে ট্রাম্পের দিকে ঝুঁকে পড়ার আগে টানা ছয়টি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এই রাজ্যটি ডেমোক্র্যাট প্রার্থীদের ভোট দিয়েছিল।

***

বৃহস্পতিবার বেলা ১২টা ৪৭ (বিডিএসটি)

ভোট গণনা: ৫ রাজ্যের সর্বশেষ

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভাগ্য আটকে আছে পাঁচটি রাজ্যে। এই পাঁচ রাজ্যে ভোট গণনা এখনও শেষ হয়নি।

জর্জিয়া, নর্থ ক্যারোলাইনা, পেনসিলভেইনিয়া, নেভাডা ও আলাস্কা- এই পাঁচ রাজ্যের মধ্যে চারটির গণনায় এগিয়ে আছেন ট্রাম্প আর একটিতে বাইডেন।

কয়েকটি রাজ্যে দুই প্রার্থীর ব্যবধান সামান্য হওয়ায় এবং তুলনায় বেশি ভোট গণনা বাকি থাকায়, সব ভোট গণনা শেষে পরিস্থিতি বদলেও যেতে পারে।

জর্জিয়া: ৯৮ শতাংশ ভোট গণনা করা হয়েছে। ট্রাম্প পেয়েছেন ৪৯ দশমিক ৭ শতাংশ, বাইডেন ৪৯ শতাংশ এখনও সেখানে প্রায় দুই লাখ ভোট গণনা বাকি।

নর্থ ক্যারোলাইনা: ৯৫ শতাংশ ভোট গণনা হয়েছে। এর মধ্যে ট্রাম্প পেয়েছেন ৪৯ দশমিক ৬ শতাংশ ভোট, বাইডেন ৪৯ দশমিক ১ শতাংশ। এখনও তিন লাখ ৪৮ হাজার ভোট গণনা বাকি 

পেনসিলভেইনিয়া: ৮৯ শতাংশ ভোট গণনা শেষ হয়েছে। ট্রাম্প পেয়েছেন ৫০ দশমিক ৭ শতাংশ, বাইডেন ৪৮ দশমিক ১ শতাংশ। ডাকযোগে আসা বিপুল পরিমাণ ভোট গণনা এখনও বাকি। সব গুণতে সারারাত লেগে যেতে পারে, তাই চূড়ান্ত ফল ঘোষণা করতে দেরি হবে।

নেভাডা: ৮৬ শতাংশ ভোট গণনা শেষ হয়েছে। এরমধ্যে বাইডেন পেয়েছেন ৪৯ দশমিক ৩ শতাংশ, ট্রাম্প ৪৮ দশমিক ৭ শতাংশ। বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার রাতে ফলাফল মিলতে পারে।

আলাস্কা: ৫৬ শতাংশ ভোট গণনা হয়েছে। ট্রাম্প পেয়েছেন ৬২ দশমিক ৯ শতাংশ, বাইডেন ৩৩ দশমিক ৫ শতাংশ।

***

বৃহস্পতিবার বেলা ১২টা ২১ (বিডিএসটি)

ভোট বনাম করোনাভাইরাস

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পরদিন রেকর্ড কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। রয়টার্সের টালি বলছে, বুধবার সব মিলিয়ে ১ লাখ ২ হাজার ৫১৯ জনের দেহে নতুন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে, যা যা মহামারি শুরুর পর এক দিনের সর্বোচ্চ।

বেশ কয়েকটি রাজ্যে হাসপাতালগুলোতে কোভিড-১৯ রোগীর উপচে পড়া ভিড় দেখা যাচ্ছে বলে জানানো হয়েছে রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে।

জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের হালনাগাদ তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৯৪ লাখ ৮০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৩৩ হাজারের বেশি মানুষের।

শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ও মৃত্যু- দুদিক দিয়েই বিশ্বে অন্য সব দেশের চেয়ে অনেক এগিয়ে যুক্তরাষ্ট্র।

মঙ্গলবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন ঘিরে উত্তেজনায় করোনাভাইরাস সঙ্কট গত কিছুদিন ধরে অনেকটা আড়ালে পড়ে গিয়েছিল। তবে ভোটের জমায়েত যে এ রোগের বিস্তার আরও বাড়িয়ে দিতে পারে, সে আশঙ্কা আগে থেকেই ছিল।

***

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা ৩১ (বিডিএসটি)

সেনেট থাকছে রিপাবলিকানদের হাতেই

প্রেসিডেন্ট কে হচ্ছেন, তা এখনো চূড়ান্ত না হলেও যুক্তরাষ্ট্রের সেনেট ও প্রতিনিধি পরিষদের নির্বাচনে অধিকাংশ আসনের ফলাফল এসে গেছে। রিপাবলিকানদের হাত থেকে সেনেটের নিয়ন্ত্রণ নিতে ডেমোক্র্যাটদের চেষ্টা এবারও ব্যর্থ হয়েছে।

মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পাশাপাশি সেনেটের ৩৫টি এবং প্রতিনিধি পরিষদের ৪৩৫টি আসনে নির্বাচন হয়।

মঙ্গলবারের আগ পর্যন্ত রিপাবলিকানরা সেনেটে ৫৩-৪৭ ব্যবধানে সংখ্যাগরিষ্ঠ ছিল। তাদের কাছ থেকে অন্তত চারটি আসন জিতে সেনেটের নিয়ন্ত্রণ ফিরে পাওয়ার আশায় ছিল ডেমোক্র্যাটরা। তাতে দুটো আসনে তারা সফল হলেও অন্য এক আসনে উল্টো হেরে গেছে।

তবে প্রতিনিধি পরিষদ আগের মতই ডেমোক্র্যাটদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত সেখানে ২০৫টি আসনে ডেমোক্র্যাট এবং ১৯০টি আসনে রিপাবলিকানরা এগিয়ে আছে বলে জানিয়েছে নিউ ইয়র্ক টাইমস।

কংগ্রেসের নিম্নকক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের জন্য একটি দলকে প্রতিনিধি পরিষদের ৪৩৫টি আসনের মধ্যে ন্যূনতম ২১৮টি জিততে হয়।

শেষ পর্যন্ত বাইডেন যদি জিতেই যান, তাকে দেশ শাসন করতে হবে বিভক্ত কংগ্রেস নিয়ে। তার অনেক উদ্যোগ প্রতিনিধি পরিষদের ছাড়পত্র পেলেও রিপাবলিকানদের নিয়ন্ত্রণে থাকা সেনেটে আটকে যেতে পারে।

***

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা ০২ (বিডিএসটি)

ট্রানজিশন ওয়েবসাইট খুলেছেন বাইডেন

 

গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি রাজ্যের ফল আসতে এখনও বাকি, তাই যুক্তরাষ্ট্র এখনও চূড়ান্ত ঘোষণার অপেক্ষায়। তবে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন বলেছেন, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তিনিই জয় পাচ্ছেন, এটা ‘স্পষ্ট’। আর সেজন্য তিনি প্রস্তুতিও নিতে শুরু করেছেন।

ইতোমধ্যে জো বাইডেনের ট্রানজিশন ওয়েবসাইট চালু করা হয়েছে, যার নাম দেওয়া হয়েছে ‘বিল্ড ব্যাক বেটার’। সেখানে বলা হয়েছে, মহামারী থেকে অর্থনৈতিক মন্দা, জলবায়ু পরিবর্তন থেকে জাতিগত বৈষম্য- মারাত্মক সঙ্কটের মধ্যে দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে যেতে হচ্ছে।

“আমাদের ট্রানজিশন টিম পূর্ণোদ্যমে প্রস্তুতি নেবে, যাতে বাইডেন-হ্যারিস প্রশাসন দায়িত্ব নেওয়ার প্রথম দিন থেকেই সক্রিয় থাকতে পারে।”

ভোটের ফল যার পক্ষেই যাক, তার মেয়াদ শুরু হবে আগামী জানুয়ারি মাসে। রেওয়াজ অনুযায়ী, একজন প্রার্থী যখন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী হন, আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব নেওয়ার প্রস্তুতির জন্য তিনি একটি ট্রানজিশন টিম তৈরি করেন।

এবারের নির্বাচনে চূড়ান্তভাবে বিজীয় হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ২৭০ ইলেকটোরাল ভোট এখনও পর্যন্ত কেউ পাননি। তবে বাইডেন ও বর্তমান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প দুজনই দাবি করছেন, তারা জয় পাচ্ছেন।

বিবিসি

***

বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা ২১ (বিডিএসটি)

ট্রাম্পের প্রচার শিবির থেকে মামলা

জর্জিয়ার একটি এলাকায় ভোট গণনা স্থগিতের দাবিতে মামলা করেছে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রচার শিবির। এই রাজ্যগুলো বিবেচিত হয়ে আসছে ব্যাটলগ্রাউন্ড হিসেবে।

ট্রাম্পের প্রচার শিবিরের অভিযোগ, জর্জিয়ায় ভোটের দিন সন্ধ্যা ৭টার আগে যেসব পোস্টাল ভোট পৌঁছাবে, সেগুলোই গণনা করার নিয়ম। কিন্তু চ্যাথম কাউন্টিতে নির্ধারিত সময়ের চেয়ে দেরিতে আসা পোস্টাল ব্যালটও গণনার জন্য নেওয়া হয়েছে।  

জর্জিয়ায় ইতোমধ্যে ৯৫ শতাংশ ভোট গণনা শেষ হয়েছে এবং তাতে খুবই সংকীর্ণ ব্যবধানে বাইডেনের চেয়ে এগিয়ে আছেন ট্রাম্প।

এর আগে পেনসিলভেইনিয়া, উইসকনসিন ও মিশিগান রাজ্যের একই ধরনের মামলা হয়েছে ট্রাম্পের প্রচার শিবির থেকে।  

এর মধ্যে উইসকনসিন ও মিশিগানে ইতোমধ্যে বাইডেনের জয়ের পূর্বাভাস এসেছে।

আর পেনসিলভেইনিয়ায় ভোটের তিন দিন পরে আসা পোস্টাল ব্যালট গণনার সরকারি সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল করেছে রিপাবলিকানরা। সেখানে এখনো লাখ লাখ ভোট গণনা বাকি।

বিবিসি

 

***

বৃহস্পতিবার সকাল ৭টা ৫০ (বিডিএসটি)

বিজয় ‘স্পষ্ট’: বাইডেন

কয়েকটি রাজ্যে ভোট গণনা এখনো চলতে থাকায় জয়ের ঘোষণা না দিলেও ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন বলেছেন, তিনি প্রেসিডেন্ট হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় রাজ্যগুলোতে জয় পাচ্ছেন, এটা ‘স্পষ্ট’।

“আমি বিজয়ের ঘোষণা দিতে আসিনি। আমি বলতে এসেছি, আমরা বিশ্বাস করি, গণনা যখন শেষ হবে, তখন আমরাই নিজেদের বিজয়ী হিসেবে দেখতে পাব।”

ভাইস প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী কমালা হ্যারিসকে সঙ্গে নিয়ে দেওয়া এই ভাষণে বাইডেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে তারা সবচেয়ে বেশি ভোট পাওয়ার পথে আছেন।

বিবিসি

***

বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা (বিডিএসটি)

মিশিগানে বাইডেনের জয়

বাইডেন মিশিগানে জিতে রাজ্যটির ১৬টি ইলেকটোরাল ভোট পেতে যাচ্ছেন বলে পূর্বাভাস দিয়েছে সিএনএন, এতে জো বাইডেন ২৭০টি ইলেকটোরাল ভোটের খুব কাছে পৌঁছে যাচ্ছেন আর ট্রাম্পের হোয়াইট হাউসে ফেরার পথ আরও সংকীর্ণ হয়ে পড়ছে, বলছে গার্ডিয়ান।

***

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক