ঋণ পরিশোধ: ‘বাড়াতে হবে কর-জিডিপি অনুপাত’

ঋণ পরিশোধের সক্ষমতা বাড়ানো এবং দেশের সামষ্টিক অর্থনীতিকে ভালো অবস্থায় নিয়ে যেতে রাজস্ব আহরণ ব্যবস্থাকে আরও শক্তিশালী করার পরামর্শ এসেছে অর্থনীতিবিদদের কাছ থেকে।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 4 June 2022, 03:50 PM
Updated : 4 June 2022, 03:50 PM

শনিবার দেশের সামষ্টিক অর্থনীতি নিয়ে এক আলোচনা সভায় তারা এ বিষয়ে সরকারকে আরও গুরুত্ব দেওয়ার তাগিদ দিয়ে দেশে কর ও জিডিপি অনুপাত বাড়ানোর কথা বলেন।

ইন্সটিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএবি) ও ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরাম (ইআরএফ) যৌথভাবে এ সভার আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পলিসি রিসার্চ ইন্সটিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ও ব্র্যাক ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. আহসান এইচ মনসুর বলেন, দেশের সামষ্টিক অর্থনীতিকে শক্তিশালী অবস্থায় রাখতে হলে সবার আগে সরকারের রাজস্ব আয় শক্তিশালী অবস্থায় রাখতে হবে।

“একটা দেশের বাজেটের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হচ্ছে- ঋণ পরিশোধ, সরকারি কর্মচারীদের বেতন পরিশোধ ও পেনশন।“

তিনি বলেন, যে দেশ রাজস্ব আহরণ যত শক্তিশালী অবস্থানে নিয়ে যেতে পারে, সেই দেশের ঋণ পরিশোধের সক্ষমতা ততই বাড়ে।

“কিন্তু আমাদের দেশে এখনও রাজস্ব আহরণ মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) মাত্র ৮ শতাংশ। অথচ প্রতিবেশী ভারতে এ হার ১৮ শতাংশ এমনকি নেপালেও প্রায় ২০ শতাংশ। আর উন্নত দেশগুলোতে এই হার আরও বেশি।”

চার বছর পর স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে বের হলে কম সুদের ঋণসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা কমবে জানিয়ে তিনি বলেন, “তখন আমাদের রাজস্ব আদায়ের এই হার নিয়ে বিপদে পড়ে যাব।“

চলতি অর্থবছরের বাজেটে সরকার ৩ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নিলেও ১০ মাসে আদায় হয়েছে ২ লাখ ২৭ হাজার কোটি টাকা, যা জিডিপির প্রায় ৮ শতাংশ।

আইএমএফ এর সাবেক অর্থনীতিবিদ আহসান এইচ মনসুর ডলারের বাজার অস্থিতিশীল হওয়ার পেছনে ‘লেনদেনের স্বাভাবিক প্রবণতা বাঁধাগ্রস্ত করে টাকার মান ধরে রাখার চেষ্টাকে’ দায়ী করেন।

তিনি বলেন, ডলারের বিপরীতে স্বাভাবিক ও বাজারের চাহিদার প্রেক্ষিতে যে দিকে যাবে সেদিকেই যেতে দেওয়া উচিত। কিন্তু বিগত ১০ বছর ধরে আমরা সেটা করতে দেয় নাই। একটি নির্দিষ্ট জায়গায় স্থির করে রেখেছি। অথচ ডলারের বিপরীতে টাকার মান আরও কমার মত অবস্থায় ছিল। কিন্তু সেটা আমরা সম্পূর্ণভাবে এড়িয়ে গেছি। সেটার একটা কস্টতো আছেই।

“এই পুঞ্জিভুত চাপ আজকে টাকার ওপরে পড়েছে।”

এরপরও বর্তমানে বাংলাদেশের সামষ্টিক অর্থনীতি একটা স্থিতিশীল অবস্থায় রয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, সরকারের কৃতিত্বেই এ সফলতা অর্জিত হয়েছে বলে আমরা মনে করি।

আরেক বিশেষ অতিথি সিপিডির সম্মানীয় ফেলো অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, “দেশের অর্থনীতি চাপের মধ্যে আছে। তারপরও আমাদের বড় শক্তির জায়গা ছিল দুটো একটি হচ্ছে মূল্যস্ফীতির হার কম ছিল, আর একটি হচ্ছে প্রবৃদ্ধির হার বেশি ছিল।

“এটা অস্বীকার করার জায়গা নেই আন্তর্জাতিক এবং দেশীয় বিভিন্ন কারণে আমরা এই জায়গাটাতে একটি ধাক্কা খেয়েছি।”

এসময় তিনি রেকর্ড বাণিজ্য ঘাটতিতে দেশ পড়তে যাচ্ছে জানিয়ে আমদানি-রপ্তানির সাম্প্রতিক প্রবণতা ও তথ্য উপাত্ত তুলে ধরে বলেন, মূলত আমাদের আমদানি বাড়ছে দাম বেড়ে যাওয়ার কারণে।

অর্থনীতির এই অধ্যাপক প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতার অভাবকেই আমাদের অর্থনীতির সবচেয়ে বড় দুর্বলতা চিহ্নিত করে বলেন, “আমরা প্রতিষ্ঠানগুলোতে বিনিয়োগ করি নাই। প্রতিষ্ঠানিক দুর্বলতা বাংলাদেশের সামনে এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে বড় বাঁধা।”

সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় কর ও জিডিপির অনুপাত ১৪ শতাংশে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনার তথ্য তুলে ধরে তিনি বলেন, সেই অনুযায়ী আজকে এ হার যদি ৯ শতাংশ না হয়ে ১৪ শতাংশ হত, তাহলে তো আজকে বাজেট ঘাটতি নিয়ে আলোচনা করতে হত না।

তিনি বলেন, প্রবৃদ্ধি ঠিক আছে। আমাদের মাথাপিছু আয় বাড়ছে। কিন্তু কর জিডিপির হার এখনও ৯ শতাংশ।

তিনি রাজস্ব আহরণ বাড়াতে সরকারের বিনিয়োগ বাড়ানোর পরামর্শ দেন।

বাংলাদেশের অর্থনীতি ক্রমেই শিল্প নির্ভর হয়ে উঠলেও রাষ্ট্রায়ত্ত গবেষণা প্রতিষ্ঠান বিআইডিএসের মহাপরিচালক বিনায়ক সেন খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য কৃষি ভর্তুকিতে কোনও রকম ছাড় না দেওয়ার পরামর্শ দেন।

পলিসি এক্সচেঞ্জ বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক মাশরুর রিয়াজ বলেন, স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে বের হওয়ার প্রেক্ষাপটে মুক্ত বাণিজ্য ও অগ্রাধিকার বাণিজ্য চুক্তির মাধ্যমে রপ্তানি বাজার টিকিয়ে রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

উদাহরণ হিসেবে তিনি ভিয়েতনামের ৬৮টি দেশের সঙ্গে আলোচনা এবং ২৮টি দেশের সঙ্গে চুক্তি করার কথা তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে জিএসপি প্লাস সুবিধা নিয়ে আলোচনা চললেও চূড়ান্ত কিছুই করতে পারিনি আমরা।

এজন্য সরকারকে জরুরিভাবে এলডিসি পরবর্তী রপ্তানি বাজার নিশ্চিত করতে কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদারের ওপর গুরুত্ব দেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

তিনি পাইপলাইনে থাকা ৫০ বিলিয়ন ডলারের বিদেশি অর্থায়ন ছাড় করতে জোরালো পদক্ষেপ নেওয়ার তাগিদ দেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিকল্পনামন্ত্রী মান্নান বলেন, দেশের সামষ্টিক অর্থনীতির ভারসাম্য রক্ষায় বৈদেশিক সহায়তা নেই এমন আমদানিনির্ভর প্রকল্প বাস্তবায়ন থেকে পিছিয়ে আসার পরিকল্পনা নিয়ে ইতোমধ্যে সরকার কাজ শুরু করেছে। এজন্য তালিকা করা হচ্ছে। এসব প্রকল্প কিছুটা ধীর গতিতে পরিচালনা করা হবে।

ধীরে ধীরে কৃষি খাতের ভর্তুকি থেকে সরে আসা উচিত বলে তার মতামত তুলে ধরেন।

সভায় আইসিএবি সভাপতি মো. শাহাদাৎ হোসেন ও ইআরএফ সভাপতি শারমিন রিনভি স্বাগত বক্তব্য রাখেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক