সীতাকুণ্ডের বিএম ডিপোতে আরও দেহাবশেষ

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে অগ্নিকাণ্ডড ও বিস্ফোরণের এক মাস পর আরও একজনের দেহাবশেষ পাওয়ার কথা জানিয়েছে পুলিশ।

চট্টগ্রাম ব্যুরোবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 July 2022, 09:42 AM
Updated : 6 July 2022, 09:42 AM

বুধবার ডিপো শেড সংস্কারের জন্য ধ্বংসস্তূপ পরিষ্কার করার সময় আগুনে পোড়া মাথার খুলি ও হাড় পাওয়া গেছে বলে চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সীতাকুণ্ড সার্কেল) আশরাফুল করিম জানান। 

এর আগে সোমবার বিকালে আরও একজনের দেহাবশেষ উদ্ধার করা হয়েছিল ওই ডিপো থেকে।  

আশরাফুল করিম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ডিপো শ্রমিকরা শেড পরিষ্কার করার সময় হাড়গোড় দেখে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ সেগুলো উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

সেখান থেকে নমুনা সংগ্রহের পর সিআইডির ফরেনসিক ল্যাবে ডিএনএ প্রোফাইল করার জন্য পাঠানো হবে বলে জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশরাফুল।

গত ৪ জুন রাতে সীতাকুণ্ডের সোনাইছড়ি ইউনিয়নের কেশবপুর গ্রামে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে আগুন লাগার পর একের পর এক বিস্ফোরণে তা ছড়িয়ে পড়ে। ডিপোতে থাকা রাসায়নিকের কারণে ছড়িয়ে পড়া ওই আগুন ৮৬ ঘণ্টা পর বিভিন্ন বাহিনীর চেষ্টায় নেভানো হয়।

ভয়াবহ ওই অগ্নিকাণ্ড ও বিস্ফোরণে প্রথমে ৪১ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এরপর ৭ জুন দুর্ঘটনাস্থল থেকে আরও দুজনের দেহাবশেষ উদ্ধার করা হয়।

পরদিন সকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান একজন। সেদিন সন্ধ্যায় ডিপোর ভেতরে আরও দুজনের দেহাবশেষ পাওয়া যায়।

সর্বশেষ ১২ জুন  ঢাকার শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান ফায়ার সার্ভিসকর্মী গাউসুল আজম। আর চট্টগ্রামের বেসরকারি পার্ক ভিউ হাসপাতালে মারা যান কন্টেইনার ডিপোর আরেক কর্মী নুরুল কাদের।

এছাড়া ১৩ জুন ও ৪ জুলাই আরও দুইটি দেহাবশেষ উদ্ধার করার কথা জানায় পুলিশ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক