চট্টগ্রামে কাউন্সিলরের বাড়ি থেকে পুত্রবধূর লাশ উদ্ধার

চট্গ্রাম নগরীর এক ওয়ার্ড কাউন্সিলরের বাড়ি থেকে তার পুত্রবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

চট্টগ্রাম ব্যুরোবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 2 July 2022, 04:02 PM
Updated : 2 July 2022, 04:24 PM

শনিবার সকালে পাহাড়তলী থানার ১২ নম্বর সরাইপাড়া ওয়ার্ডের পদ্মা পুকুরের পশ্চিম পাড়ে কাউন্সিলর নুরুল আমিন কালুর বাড়ি থেকে তার ছেলের বৌ রেহনুমা ফেরদৌস মিতুলের লাশ (২৫) উদ্ধার করা হয়।

মিতুল ৩১ নম্বর আলকরণ ওয়ার্ডের প্রয়াত কাউন্সিলর তারেক সোলেমান সেলিমের বড়ভাই তারেক ইমতিয়াজ ইনতুর মেয়ে।

পাহাড়তলী থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমরা খবর পেয়ে ওয়ার্ড কাউন্সিলরের বাসার একটি কক্ষে শোয়ানো অবস্থায় ওই মেয়ের লাশ উদ্ধার করি।”

ময়নাতদন্তের জন্য তার মৃতদেহ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, “প্রতিবেদন পাবার পর জানা যাবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা।”

চার বছর আগে সরকার দলীয় কাউন্সিলর নুরুল আমিনের ছেলে নওশাদ আমিনের সঙ্গে মিতুলের বিয়ে হয়। তাদের দুই বছর আটমাস বয়েসী একটি মেয়ে রয়েছে। নওশাদ একটি বেসরকারি ব্যাংকে কর্মরত আছেন। 

মিতুলের বাবা তারেক ইমতিয়াজ ইনতু দাবি করছেন, তার মেয়েকে আগে থেকেই বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মানসিকভাবে নির্যাতন করা হচ্ছিল।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “অনেকদিন ধরেই আমার মেয়েকে শ্বশুরপক্ষের লোকজন বিভিন্ন বিষয় নিয়ে খোটা দিয়ে মানসিকভাবে নির্যাতন করছিল। গত রোজার ঈদের আগে তিনমাস আমাদের বাড়িতেই ছিল।”

পরে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিনের মধ্যস্থতায় মেয়েকে ঈদের পর শ্বশুর বাড়িতে পাঠানো হয় বলে জানান তারেক ইমতিয়াজ ইনতু। 

এটি আত্মহত্যা নয় দাবি করে তিনি বলেন, “আমরা ওই বাড়িতে গিয়ে মিতুলকে শোয়ানো অবস্থায় পেয়েছি। তার লাশ ঝোলানো ছিল বলে আমাদের মনে হয়েছে।”

এ ঘটনায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানিয়ে ইনতু বলেন, “কয়েক মাস মিতুলের স্বামী তার সঙ্গে একই কক্ষে থাকত না।”

এ বিষয়ে জানতে কাউন্সিলর নুরুল আমিনের মোবাইল ফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক