• ব্যাটিং-বোলিং ব্যর্থতায় বাংলাদেশের বড় হার
    প্রবল শক্তিশালী ইংল্যান্ডের কাছে পাত্তাই পেল না বাংলাদেশ। না ভালো হলো ব্যাটিং, না বোলিং। ফিল্ডিংয়ে খুব বেশি কিছু করার সুযোগ মিলল না। এর মধ্যেও হাতছাড়া হলো কঠিন সুযোগ। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে আরেকটি হতাশায় মোড়ানো দিনে যেন অসহায় আত্মসমর্পণ করল মাহমুদউল্লাহর দল।
  • ক্যাচ ছেড়ে ম্যাচ হারল বাংলাদেশ
    মোহাম্মদ নাঈম শেখের ব্যাটে আবার ফিফটি। দুঃসময় কাটিয়ে মুশফিকুর রহিমের ঝকঝকে ইনিংস। বিশ্বকাপ অভিষেকে শুরুতেই নাসুম আহমেদের উইকেট। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বল হাতে সাকিব আল হাসানের নতুন রেকর্ড। এত সব ব্যক্তিগত অর্জনের ম্যাচটিকে দল হয়ে রাঙাতে পারল না বাংলাদেশ। এলোমেলো বোলিং আর বাজে ফিল্ডিংয়ের খেসারত দিল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে হেরে।
  • আয়ারল্যান্ডকে উড়িয়ে সুপার টুয়েলভে শ্রীলঙ্কা
    দিনের শুরুটা কী অসাধারণই না ছিল আয়ারল্যান্ডের। স্রেফ ৮ রানে তুলে নেয় ৩ উইকেট। পরে সেই ধারা ধরে রাখতে পারেনি তারা। ভানিন্দু হাসারাঙ্গার বিস্ফোরক ব্যাটিং ও তার সঙ্গে পাথুম নিসানকার শতরানের জুটিতে ঘুরে দাঁড়ায় শ্রীলঙ্কা। আর দারুণ বোলিংয়ে আইরিশদের গুটিয়ে দিয়ে সুপার টুয়েলভের টিকেট নিশ্চিত করে দলটি।  
  • সহজ জয়ে শুরু শ্রীলঙ্কার বিশ্বকাপ
    বোলারদের সবাই রাখলেন অবদান। নামিবিয়াকে একশর নিচে থামিয়ে গড়ে দিলেন ভিত। তবুও টপ অর্ডারের ব্যর্থতায় শুরুতে একটু চাপেই পড়ে গিয়েছিল শ্রীলঙ্কা। তবে আভিশকা ফার্নান্দো ও ভানুকা রাজাপাকসের ব্যাটে শেষ পর্যন্ত সহজ জয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শিরোপা পুনরুদ্ধারের অভিযান শুরু করেছে দলটি। 
  • নেদারল্যান্ডসকে উড়িয়ে আয়ারল্যান্ডের শুরু
    টি-টোয়েন্টিতে নেদারল্যান্ডস যেন আয়ারল্যান্ডের প্রবল প্রতিপক্ষ। কিন্তু বিশ্বকাপে চিত্রটা পাল্টে দিলেন কার্টিস ক্যাম্পার। দুর্দান্ত বোলিংয়ে তিনি ডাচদের বেঁধে রাখলেন কম রানে। বাকিটা সারলেন ব্যাটসম্যানরা। অনায়াস জয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করল অ্যান্ডি বালবার্নির দল।
  • দ.আফ্রিকার রেকর্ড গড়া জয়ে হোয়াইটওয়াশড শ্রীলঙ্কা
    নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে সম্মিলিত চেষ্টায় শ্রীলঙ্কাকে অল্পতে আটকে রাখলেন বোলাররা। বলের সমান রান তাড়ায় দৃঢ় ব্যাটিংয়ে দলকে ঠিকানায় পৌঁছে দিলেন কুইন্টন ডি কক ও রিজা হেনড্রিকস। তাদের অবিচ্ছিন্ন উদ্বোধনী জুটিতে রেকর্ড গড়ে জিতল দক্ষিণ আফ্রিকা।
  • টেইলরের বিদায়ী ম্যাচে বিবর্ণ জিম্বাবুয়ে
    ক্যারিয়ারের শেষটা স্মরণীয় করে রাখতে পারলেন না ব্রেন্ডন টেইলর। সতীর্থের বিদায়ী ম্যাচে দারুণ কিছু করে দেখাতে পারলেন না জিম্বাবুয়ের অন্যরাও। আইরিশদের বোলিংয়ের সামনে মুখ থুবড়ে পড়ল তাদের ব্যাটিং। বারবার বৃষ্টির বাধায় পড়া ম্যাচে ব্যাটে-বলে দাপুটে পারফরম্যান্সে জয় নিয়ে ফিরল আয়ার‌ল্যান্ড।
  • শ্রীলঙ্কাকে উড়িয়ে সিরিজ দক্ষিণ আফ্রিকার
    হারলেই হাতছাড়া হয়ে যাবে সিরিজ, এমন সমীকরণে খেলতে নামা শ্রীলঙ্কার ব্যাটিং লাইনআপ মুখ থুবড়ে পড়ল। এইডেন মারক্রাম ও তাবরাইজ শামসির স্পিনে স্বাগতিকরা গুটিয়ে গেল একশ পার হতেই। ছোট লক্ষ্য তাড়ায় কুইন্টন ডি ককের ব্যাটে রেকর্ড গড়া জয় নিয়ে সিরিজ ঘরে তুলল দক্ষিণ আফ্রিকা।
  • শেষের হারে ম্লান সিরিজ জয়ের স্বস্তি
    মূল বোলারদের চারজন বাইরে, মাঠে নতুন চেহারার বোলিং লাইনআপ। উইকেটও তরতাজা। তারপরও বোলিংটা খারাপ হলো না বাংলাদেশের। দলে পরিবর্তন এলেও ব্যাটিংয়ে শক্তি কমেনি খুব একটা। কিন্তু এই বিভাগেই ভুগতে হলো সবচেয়ে বেশি। স্বাগতিকদের ব্যাটিং দেখে বোঝার উপায় ছিল না যে খেলা হচ্ছে তুলনামূলক ভালো উইকেটে। বাজে শটের মহড়ায় নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে বড় ব্যবধানেই হারল মাহমুদউল্লাহর দল।
  • ৪১ রানে ৭ উইকেট নিয়ে জিম্বাবুয়ের দারুণ জয়
    ক্রেইগ আরভিন ও সিকান্দার রাজার ফিফটিতে জিম্বাবুয়ে পেল লড়ার মতো পুঁজি। উইলিয়াম পোর্টারফিল্ড ও হ্যারি টেক্টরের ব্যাটে লক্ষ্যে ভালোভাবেই এগোচ্ছিল আয়ারল্যান্ড। কিন্তু মাঝপথে পথ হারায় তারা। দারুণ বোলিংয়ে ৪১ রানে ৭ উইকেট তুলে নিয়ে জয়ের হাসিতে মাঠ ছাড়ে জিম্বাবুয়ে।
  • ‘নতুন মেন্ডিসের’ রেকর্ড গড়া বোলিংয়ে শ্রীলঙ্কার জয়
    বোলিংয়ের ধরনে এতটাই মিল যে পার্থক্য করাই কঠিন। হঠাৎ দেখায় মনে হতে পারে, কলম্বোতে যেন আবার শ্রীলঙ্কার জার্সি পরে নেমে গেছেন এক সময়ের রহস্য স্পিনার অজন্তা মেন্ডিস। কিন্তু না তিনি নন, নিজের প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে নেমেছিলেন মাহিশ থিকশানা। নতুন এই রহস্য স্পিনার প্রথম বলেই নিয়েছেন উইকেট। অভিষেকে গড়েছেন সেরা বোলিংয়ের রেকর্ড। তার হাত ধরেই দক্ষিণ আফ্রিকাকে গুঁড়িয়ে সিরিজ জিতে নিয়েছে শ্রীলঙ্কা।
  • ৫০ বছর পর ওভালে ভারতের জয়
    আগের ম্যাচেই ইনিংস ব্যবধানে হার। ওভাল টেস্টেও প্রথম ইনিংস শেষে পিছিয়ে ছিল ভারত। এরপর যেন বদলে গেল পুরো দল। ব্যাটিং-বোলিংয়ে ঘুরে দাঁড়াল প্রবল দাপটে। ইংল্যান্ডকে রান তাড়ার রেকর্ড গড়ার চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে ৫০ বছর পর এই মাঠে জয়ের স্বাদ পেল সফরকারীরা।
  • ভারতের রান পাহাড়ের চ্যালেঞ্জে লড়ছে ইংল্যান্ড
    দুই ইনিংসে যেন ভিন্ন দুই ভারতকে দেখা গেল। প্রথম ইনিংসে দুইশর আগে গুটিয়ে যাওয়া দলটির ব্যাটসম্যানরা দ্বিতীয়ভাগে ঘুরে দাঁড়ালেন দারুণভাবে। তাতে ইংল্যান্ডকে দিল তারা সাড়ে তিনশ ছাড়ানো লক্ষ্য। সফরকারীদের রান পাহাড়ের চ্যালেঞ্জের বিপক্ষে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে ইংলিশরাও।
  • মালানের সেঞ্চুরি ও শামসির ৫ উইকেটে সমতায় দ. আফ্রিকা
    দেয়ালে ঠেকে গেছে পিঠ, হারলেই ফসকে যাবে সিরিজ। এমন সমীকরণের সামনে থাকা দলকে ব্যাটিংয়ে পথ দেখালেন ইয়ানেমান মালান। দারুণ এক সেঞ্চুরিতে এনে দিলেন বড় পুঁজি। পরে বল হাতে আলো ছড়ালেন তাবরাইজ শামসি। ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে শ্রীলঙ্কাকে গুঁড়িয়ে দলকে ফেরালেন সমতায়।
  • রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে আইরিশদের হারাল জিম্বাবুয়ে
    সিরিজের নিষ্পত্তি হয়ে গেছে আগেই। পঞ্চম টি-টোয়েন্টি স্রেফ নিয়মরক্ষার হলেও তাতে উত্তাপের কমতি থাকল না এতটুকু। বারবার দিক পাল্টানো ম্যাচে আয়ারল্যান্ডকে হারিয়ে জয় দিয়ে সিরিজ শেষ করল জিম্বাবুয়ে।
  • রোহিতের সেঞ্চুরির পর বাড়ছে ভারতের লিড
    আট বছরের টেস্ট ক্যারিয়ারে প্রথম সাত সেঞ্চুরির সবগুলোই ঘরের মাটিতে। দেশের বাইরে কোনোভাবেই তিন অঙ্ক ছুঁতে পারছিলেন না রোহিত শর্মা। অনেক প্রহর পেরিয়ে অবশেষে পেলেন সেই অনির্বচনীয় স্বাদ। এই ওপেনারের দারুণ ইনিংসের পর ইংল্যান্ডকে চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য দেওয়ার পথে ছুটছে ভারত।
  • পোপ-ওকসের ব্যাটে ইংল্যান্ডের লিড
    জস বাটলার ছুটিতে না গেলে হয়তো এই টেস্টে খেলাই হতো না অলি পোপের। একাদশে জায়গা পেয়ে সুযোগটা দারুণভাবে কাজে লাগালেন তিনি। দলের বিপদের সময়ে ব্যাটিংয়ে নেমে খেললেন দুর্দান্ত এক ইনিংস। সঙ্গে ক্রিস ওকসের মারমুখী ব্যাটিংয়ে ইংল্যান্ড পেল প্রায় একশ রানের লিড।
  • প্রথম দিনেই শেষ ভারত, স্বস্তিতে নেই ইংল্যান্ডও
    সারাদিনই সিম মুভমেন্ট পেলেন পেসাররা। তাতে কঠিন পরীক্ষাতেই পড়তে হলো দুই দলের ব্যাটসম্যানদের। আগে ব্যাটিং করে ভারত থমকে গেল দুইশ রানের নিচে। শেষ বেলায় জো রুটসহ তিন উইকেট হারিয়ে স্বস্তিতে নেই ইংল্যান্ডও।
  • হ্যাটট্রিক জয়ে সিরিজ আয়ারল্যান্ডের
    প্রথম ম্যাচে রোমাঞ্চকর জয়ের পর থেকে যেন নিজেদের হারিয়ে খুঁজছে জিম্বাবুয়ে। আরও একবার লড়াইটা হলো একপেশে। ব্যাটসম্যানদের মিলিত চেষ্টায় আয়ারল্যান্ড পেল বড় পুঁজি। রান তাড়ায় ন্যূনতম লড়াইটুকুও করতে পারল না জিম্বাবুয়ে। এক ম্যাচ বাকি থাকতেই টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতে নিল আইরিশরা।
  • আভিশকার সেঞ্চুরিতে শ্রীলঙ্কার জয়
    দারুণ সেঞ্চুরিতে আলো ছড়ালেন আভিশকা ফার্নান্দো। দলকে এনে দিলেন লড়াইয়ের পুঁজি। জয়-পরাজয়ের হিসেবে অবশ্য দুই দলের স্লগ ওভারের পারফরম্যান্স রাখল বড় ভূমিকা। শ্রীলঙ্কা শেষ ১০ ওভারে তুলেছিল ৯০। দক্ষিণ আফ্রিকার শেষ ১০ ওভারে প্রয়োজন ছিল ৯১। এর আগেই তাদের থামিয়ে সিরিজে এগিয়ে গেল শ্রীলঙ্কা।
  • স্টার্লিংয়ের ঝড়ো সেঞ্চুরিতে এগিয়ে গেল আয়ারল্যান্ড
    ছক্কায় খুললেন রানের খাতা। মাঝে ছিলেন কিছুটা মন্থর। ফিফটি পেরিয়ে ঝড় তুলে পল স্টার্লিং খেললেন ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস। দলকে এনে দিলেন বড় পুঁজি। পরে বোলারদের নৈপুণ্যে জিম্বাবুয়েকে অল্পতে আটকে দারুণ জয় তুলে নিল আয়ারল্যান্ড।
  • ও’ব্রায়েন ঝড়ে সমতায় ফিরল আয়ারল্যান্ড
    ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়া দলকে টানলেন মিল্টন শুম্বা ও রায়ান বার্ল। জিম্বাবুয়ে পেল দেড়শ ছাড়ানো সংগ্রহ। কিন্তু বোলিং ও ফিল্ডিংয়ের ব্যর্থতায় লড়াই করতে পারল না তারা। জীবন পেয়ে প্রতিপক্ষকে ভোগালেন কেভিন ও’ব্রায়েন। অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যানের ঝড়ো ফিফটিতে দারুণ এক জয় তুলে নিল আয়ারল্যান্ড।
  • ভারতকে গুঁড়িয়ে সমতায় ইংল্যান্ড
    আগের দিন লড়াইয়ের আভাস দেওয়া ভারত পরদিন টিকতে পারল না এক সেশনও। অলিভার রবিনসনের দুর্দান্ত বোলিংয়ে ৮ উইকেট যেন তারা হারিয়ে ফেলল চোখের পলকে। ধরা দিল ইংল্যান্ডের প্রত্যাশিত ইনিংস ব্যবধানে জয়।
  • রুটের টানা তৃতীয় সেঞ্চুরিতে চাপে ভারত
    সেঞ্চুরি করা যেন কত সহজ! অন্তত জো রুটকে দেখলে এখন এমনটাই মনে হয়। মাঠে নামলেই ইংল্যান্ড অধিনায়ক করে ফেলছেন সেঞ্চুরি। ভারতের বিপক্ষে প্রথম দুই টেস্টে ছিল দুটি শতরান, এবার যোগ হলো আরেকটি। তার দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি ও টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যানের ফিফটিতে ভারতকে রান পাহাড়ে চাপা দেওয়ার আয়োজন সেরে ফেলল ইংল্যান্ড।
  • শেষ দিনে রোমাঞ্চের অপেক্ষায় উইন্ডিজ-পাকিস্তান টেস্ট
    বৃষ্টি, ভেজা মাঠ, আলোকসল্পতার বাধায় এমনিতেই নষ্ট হয়েছে ম্যাচের অনেক সময়। সমতায় সিরিজ শেষ করতে বাকি সময়টুকু কাজে লাগিয়ে ম্যাচে ফল বের করে আনার চ্যালেঞ্জ নিয়েছে পাকিস্তান। তাতে দারুণ জমে উঠেছে দ্বিতীয় টেস্ট। শেষ দিনের আগে পরিস্থিতি এমন যেখানে, চারটি ফলই সম্ভব।
  • ফাওয়াদের সেঞ্চুরির পর শেষ বেলায় উইকেট হারিয়ে চাপে উইন্ডিজ
    দুই রানে তিন উইকেট হারানো দল শেষ পর্যন্ত করল ইনিংস ঘোষণা। দুঃস্বপ্নের শুরুর পর পাকিস্তান এমন অবস্থানে যেতে পারল ফাওয়াদ আলমের লড়াকু সেঞ্চুরিতে। তৃতীয় দিন শেষ বেলায় ব্যাটিংয়ে নেমে স্বস্তিতে নেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ।
  • লর্ডস টেস্টে রোমাঞ্চকর শেষের হাতছানি
    দলের বাজে শুরুর পর প্রতিরোধ গড়লেন চেতেশ্বর পুজারা ও অজিঙ্কা রাহানে। চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞায় টানলেন দলকে। তাদের দারুণ লড়াইয়ের পরও দ্বিতীয় টেস্টে একটু এগিয়েই ইংল্যান্ড।
  • ভারত ঘুরে দাঁড়ালেও রুটের ব্যাটে ইংল্যান্ডের লিড
    একটা সময় মনে হচ্ছিল অনেক বড় লিড নেবে ইংল্যান্ড। তবে তৃতীয় সেশনে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে উল্টো এগিয়ে থাকার আশা জাগায় ভারত। তা সম্ভব হয়নি জো রু্টের জন্য। রেকর্ড গড়ার দিনে আবারও স্বাগতিকদের ত্রাতা অধিনায়ক। তার চমৎকার সেঞ্চুরিতে লর্ডস টেস্টে লিড নিয়েছে ইংল্যান্ড।
  • লর্ডসে রাহুলের দারুণ সেঞ্চুরি
    দীর্ঘ দুই বছর ছিলেন টেস্ট দলের বাইরে। নিয়মিত ওপেনাররা থাকলে ইংল্যান্ডের এই সফরেও হয়ত একাদশে মিলত না জায়গা। তবে সুযোগ দুই হাতে লুফে নিচ্ছেন লোকেশ রাহুল। ট্রেন্ট ব্রিজে ফেরার ম্যাচে ফিফটির পর লর্ডসে করছেন দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি। তার ব্যাটে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টে বড় সংগ্রহের ভিত পেয়ে গেছে ভারত।
  • অস্ট্রেলিয়াকে গুঁড়িয়ে জিতল বাংলাদেশ
    মিলিত চেষ্টায় লড়াই করার মতো একটা সংগ্রহ এনে দিয়েছিলেন ব্যাটসম্যানরা। সেটাকে যথেষ্টর বেশি প্রমাণ করলেন বোলাররা। নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের সামনে দাঁড়াতেই পারল না অস্ট্রেলিয়া। নিজেদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন রানে গুটিয়ে গিয়ে বড় ব্যবধানে হেরেছে সফরকারীরা। ব্যাট-বলে-ফিল্ডিংয়ে নিজেদের মেলে ধরে ৪-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতেছে বাংলাদেশ।
  • বৃষ্টিতে ভেসে গেল ইংল্যান্ড-ভারত টেস্টের শেষ দিন
    জো রুটের সেঞ্চুরি ও জাসপ্রিত বুমরাহর পাঁচ উইকেটে দারুণ জমে উঠেছিল ম্যাচ। শেষ দিনের রোমাঞ্চের জন্য ছিল অধীর অপেক্ষা। কিন্তু দিন জুড়েই রাজত্ব করল বৃষ্টি। ভাসিয়ে নিল প্রথম টেস্টের শেষ দিনের খেলা।
  • জয়ের ছবি আঁকছে ভারত, লড়ছে ইংল্যান্ড
    আবারও ইংল্যান্ডকে ভোগালেন জাসপ্রিত বুমরাহ। তার ছোবলে এলোমেলো দলকে এবার দারুণ সেঞ্চুরিতে টানলেন জো রুট। তার অসাধারণ ইনিংসের সৌজন্যে ভারতকে দুইশ ছাড়ানো লক্ষ্য দিয়ে লড়াইয়ে টিকে আছে ইংলিশরা। তবে জয়ের ছবি আঁকছে সফরকারীরা।
  • দারুণ লড়াই করেও পারল না বাংলাদেশ
    ব্যাটিং ব্যর্থতায় পুঁজি কেবল ১০৪ রানের। এর মধ্যেও সাকিব আল হাসান রান বিলিয়ে গেলেন অকাতরে। তবুও সহজে হার মানেনি বাংলাদেশ। লড়াই করে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হেরেছে মাহমুদউল্লাহর দল।
  • ভারতের লিডের পর বৃষ্টির দাপট
    ক্যারিয়ারের দুই প্রান্তে থাকা দুই পেসার দারুণ লড়াই করলেন। তবে অলিভার রবিনসন ও জেমস অ্যান্ডারসনের ছোবল এড়িয়ে দলকে টানলেন লোকেশ রাহুল ও রবীন্দ্র জাদেজা। লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানরাও রাখলেন অবদান। প্রথম টেস্টে বড় লিড নিল ভারত।
  • রোমাঞ্চকর জয়ে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের ‘প্রথম’
    চার ওভারে নেই কোনো উইকেট। তবুও তিনিই নায়ক, মুস্তাফিজুর রহমান। তার অসাধারণ ওভারগুলোই গড়ে দিল ব্যবধান। পেন্ডুলামের মতো দুলতে থাকা ম্যাচের কাঁটা ঘুরিয়ে দিলেন বাংলাদেশের দিকে। নখকামড়ানো উত্তেজনার ম্যাচে জিতে দল পেল অনির্বচনীয় স্বাদ। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম সিরিজ জয়!
  • কোহলি শূন্য, রাহুলের ব্যাটে লড়ছে ভারত
    শুরুর কঠিন পথ চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞা ও ইস্পাত কঠিন দৃঢ়তায় পাড়ি দিয়ে বড় রানের মঞ্চ গড়ে দেন রোহিত শর্মা ও লোকেশ রাহুল। কিন্তু তা কাজে লাগাতে পারেননি বিরাট কোহলি, চেতেশ্বর পুজারা ও অজিঙ্কা রাহানে। ভারতীয় অধিনায়ক পেয়েছেন গোল্ডেন ডাকের তেতো স্বাদ! তবে রাহুলের ব্যাটে এখনও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লড়াই করছে ভারত।
  • এক জয়েই সিরিজ পাকিস্তানের
    সিরিজ হার এড়াতে জিততেই হতো ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। সেই পথে দারুণ শুরুও পেয়েছিল তারা। কিন্তু তাদেরকে শেষ চেষ্টাই করতে দিল না বৃষ্টি। ভাসিয়ে নিয়ে গেল চতুর্থ টি-টোয়েন্টিও।
  • ৮ বলেই শেষ উইন্ডিজ-পাকিস্তান ম্যাচ
    দীর্ঘ অপেক্ষার পর থেমে গিয়েছিল বৃষ্টি। একটু একটু করে জাগছিল আশা। কিন্তু পিচ দেখে মোটেও সন্তুষ্ট হতে পারেননি আম্পায়াররা। মাঠ দেখেও তাদের মনে হয়নি, কাট অফ সময়ের আগে নিরাপদে ম্যাচ শুরু সম্ভব। তাই পরিত্যক্ত হয়ে গেল ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও পাকিস্তানের তৃতীয় টি-টোয়েন্টি।
  • পুরান-ঝড়েও পারল না উইন্ডিজ, এগিয়ে গেল পাকিস্তান
    ভীষণ কঠিন হয়ে যাওয়া সমীকরণ খুনে ব্যাটিংয়ে মেলানোর আশা জাগিয়েছিলেন নিকোলাস পুরান। কিন্তু দলের শুরুর মন্থর ব্যাটিংয়ে নাগালের বাইরে চলে যাওয়া ম্যাচ আর মুঠোয় পুরতে পারেননি বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। তার বিস্ফোরক ইনিংসের পরও দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে দিয়েছে পাকিস্তান।
  • হাসারাঙ্গার রেকর্ড গড়া বোলিংয়ে ভারতকে হারাল শ্রীলঙ্কা
    সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচ, এক রকম ফাইনাল। জন্মদিনে এমন মঞ্চে বল হাতে আলো ছড়ালেন ভানিন্দু হাসারাঙ্গা। এই লেগ স্পিনারের রেকর্ড গড়া বোলিংয়ে ভারত করতে পারল না একশও। অল্প রানের লক্ষ্যে বাকি কাজ সারলেন ব্যাটসম্যানরা। শ্রীলঙ্কা পেল অনির্বচনীয় স্বাদ, ভারতের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টিতে সিরিজ জয়।
  • রোমাঞ্চকর ম্যাচ জিতে সিরিজে ফিরল শ্রীলঙ্কা
    মন্থর উইকেটে রানের জন্য ভুগলেন দুই দলের ব্যাটসম্যানরাই। তাতে বড় ইনিংসের দেখা মিলল না। কিন্তু লড়াই জমল বেশ, ম্যাচ গড়াল শেষ ওভারে। ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার হার না মানা ইনিংসে রোমাঞ্চ ছড়ানো ম্যাচ জিতে সিরিজে ফিরল স্বাগতিকরা।
  • ১৫ রানে ৬ উইকেট নিয়ে ভারতের দারুণ জয়
    ম্যাচের প্রথম বলে উইকেট হারানো ভারতের শেষটা হলো দুর্দান্ত। শিখর ধাওয়ান ও সূর্যকুমার যাদবের ব্যাটে লড়াকু পুঁজি গড়ার পর সম্মিলিত পারফরম্যান্সে বাকিটা সারেন বোলাররা। লড়াইয়ে থাকা শ্রীলঙ্কার শেষ ছয় উইকেট দ্রুত তুলে জয় নিশ্চিত করে সফরকারীরা।
  • রেকর্ড গড়া জয়ে সিরিজ বাংলাদেশের
    সিরিজ জিততে রেকর্ড গড়ার চ্যালেঞ্জ দিয়েছিল জিম্বাবুয়ে। সম্মিলিত ব্যাটিংয়ে সেই বড় রান টপকে গেল বাংলাদেশ। ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসে শুরুতে পথ দেখালেন সৌম্য সরকার, শেষটায় বিস্ফোরক ইনিংসে বাকিটা সারলেন শামীম হোসেন। সফরে তৃতীয় ট্রফি পেল বাংলাদেশ।
  • বাভুমা-হেনড্রিকসের ব্যাটে হোয়াইটওয়াশড আয়ারল্যান্ড
    নিয়মিত বোলারদের প্রায় সবাই বিশ্রামে। তাই হয়তো ব্যাটসম্যানরা দায়িত্ব একটু বেশিই নিলেন। শতরানের উদ্বোধনী জুটি উপহার দিলেন টেম্বা বাভুমা ও রিজা হেনড্রিকস। শেষটায় ঝড় তুললেন ডেভিড মিলার। দুইশ রানের কাছাকাছি সংগ্রহ গড়ে সহজেই জিতল দক্ষিণ আফ্রিকা। টানা তিন হারে হোয়াইটওয়াশড হলো আয়ারল্যান্ড।
  • অবশেষে ভারতকে হারাতে পারল শ্রীলঙ্কা
    ঘরের মাঠে ভারতের বিপক্ষে জিততে যেন ভুলেই গিয়েছিল শ্রীলঙ্কা। আভিশকা ফার্নান্দো ও ভানুকা রাজাপাকসের দারুণ ফিফটিতে অবশেষে সেই স্বাদ পেল তারা। ৯ বছর ও ১০ ম্যাচ পর ভারতকে নিজেদের মাটিতে হারাল লঙ্কানরা।
  • রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে জিতে সিরিজ ইংল্যান্ডের
    ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে আদিল রশিদ লক্ষ্যটা রাখলেন নাগালে। বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ে জেসন রয় জাগালেন সহজ জয়ের আশা। তাকে বিদায় করে ম্যাচ জমিয়ে তুলল পাকিস্তান। কিন্তু শেষরক্ষা করতে পারেনি সফরকারীরা। নখ কামড়ানো উত্তেজনার ম্যাচে জিতে সিরিজ ঘরে তুলেছে ইংল্যান্ড।
  • পেসার চাহারের ব্যাটিং নৈপুণ্যে ভারতের দুর্দান্ত জয়
    ১৯৩ রানে নেই ৭ উইকেট। লক্ষ্য তখনও ৮৩ রান দূরে। নেই বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যানদের কেউ। বল-প্রতি রান তাড়ার কঠিন চ্যালেঞ্জে চমক দেখালেন দিপক চাহার। অসাধারণ ব্যাটিংয়ে আরেক পেসার ভুবনেশ্বর কুমারকে নিয়ে দলকে নিলেন জয়ের বন্দরে।
  • তামিমের সেঞ্চুরিতে শেষটাও রাঙাল বাংলাদেশ
    শেষ ম্যাচে বোলিং তেমন ভালো হলো না, দায়িত্ব নিলেন ব্যাটসম্যানরা। সামনে থেকে নেতৃত্ব দিলেন তামিম ইকবাল। অধিনায়কোচিত ব্যাটিংয়ে করলেন সেঞ্চুরি। ফেরার ম্যাচে কার্যকর এক ইনিংস খেললেন নুরুল হাসান সোহান। দল পেল এক অনির্বচনীয় স্বাদ। প্রথমবার জিম্বাবুয়েকে তাদের মাটিতে হোয়াইটওয়াশ করল বাংলাদেশ।
  • শামসির স্পিনে দ. আফ্রিকার অনায়াস জয়
    শুরুতে আশা জাগানো আয়ারল্যান্ডের শেষটায় সঙ্গী কেবল হতাশা। প্রতিপক্ষকে অল্পতে গুটিয়ে দেওয়ার যে সম্ভাবনা জাগিয়েছিল তারা, পরে তা সফল হয়নি। ব্যাটসম্যানরাও পারেননি ভালো কিছু করতে। তাবরাইজ শামসির দারুণ বোলিংয়ে সহজ জয় পেয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা।
  • ইংল্যান্ডের স্পিনে পাকিস্তানের হার
    ছোট মাঠ, ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে ব্যবধান গড়ে দিলেন ইংল্যান্ডের তিন স্পিনার। ম্যাট পার্কিনসন, আদিল রশিদ ও মইন আলির স্পিনের সামনে দুইশ ছাড়ানো লক্ষ্য তাড়ার চ্যালেঞ্জে জিততে পারল না পাকিস্তান। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে তাদের হারিয়ে সিরিজ বাঁচিয়ে রাখল ইংল্যান্ড।
  • শ্রীলঙ্কাকে গুঁড়িয়ে এগিয়ে গেল ভারত
    লক্ষ্যটা আড়াইশর একটু বেশি। পৃথ্বী শ ও ইশান কিষানের মারমুখী ব্যাটিংয়ে সেটা হয়ে উঠল মামুলি। সঙ্গে অধিনায়ক শিখর ধাওয়ানের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে শ্রীলঙ্কাকে উড়িয়ে দিল ভারত।
  • লিভিংস্টোনের জোড়া রেকর্ডের ম্যাচেও পারল না ইংল্যান্ড
    ছোট মাঠে ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে রান উৎসবে মাতলেন দুই দলের ব্যাটসম্যানরা। প্রাপ্তির দিক থেকে সবার চেয়ে এগিয়ে থাকলেন লিয়াম লিভিংস্টোন। ২ রানে জীবন পেয়ে খুনে ইনিংসে গড়লেন দেশের হয়ে দ্রুততম ফিফটি ও সেঞ্চুরির রেকর্ড। তবুও পাকিস্তানের বিপক্ষে পেরে উঠল না ইংল্যান্ড।
  • রেকর্ড গড়ে পাকিস্তানকে হোয়াইটওয়াশ করল ইংল্যান্ড
    ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসে দলকে টানলেন বাবর আজম। দুই মেজাজের দুই ফিফটিতে অধিনায়ককে সঙ্গ দিলেন ইমাম-উল-হক ও মোহাম্মদ রিজওয়ান। ইংল্যান্ডকে রেকর্ড গড়ার চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিল পাকিস্তান। জেমস ভিন্সের প্রথম আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি ও লুইস গ্রেগরির ফিফটিতে সেই চ্যালেঞ্জে জিতে সফরকারীদের হোয়াইটওয়াশ করে ছাড়ল ইংল্যান্ড।
  • দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে আয়ারল্যান্ডের ইতিহাস
    ব্যাট হাতে সামনে থেকে দলকে পথ দেখালেন অ্যান্ডি বালবার্নি। অধিনায়কের দারুণ সেঞ্চুরি ও হ্যারি টেক্টরের কার্যকর ফিফটিতে তিনশ রানের কাছে গেল আয়ারল্যান্ড। পরে দুর্দান্ত বোলিংয়ে দক্ষিণ আফ্রিকাকে আড়াইশর নিচে থামিয়ে ইতিহাস গড়ল স্বাগতিকরা। দলটির বিপক্ষে প্রথমবার পেল আন্তর্জাতিক ম্যাচ জেতার অনির্বচনীয় স্বাদ।
  • বৃষ্টিতে ভেসে গেল আয়ারল্যান্ড-দ. আফ্রিকার প্রথম ওয়ানডে
    ম্যাচ শুরুর আগে থেকেই বৃষ্টি করছিল রাজত্ব। বৃষ্টির বিরতিতে খেলা হলো চল্লিশ ওভার। ফিফটিতে আয়ারল্যান্ডকে টানলেন উইলিয়াম পোর্টারফিল্ড ও অ্যান্ডি বালবার্নি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত দক্ষিণ আফ্রিকাকে লক্ষ্য তাড়ার সুযোগই দিলো না প্রকৃতি। 
  • টেইলরের ঝড় থামিয়ে জয়ের আশায় বাংলাদেশ
    প্রথম ইনিংসের ব্যাটিং যদি হয় ওয়ানডের গতিতে, দ্বিতীয় ইনিংস যেন টি-টোয়েন্টির গতিতে! লক্ষ্য পবর্তসম, কিন্তু ব্রেন্ডন টেইলর ছুটলেন ভয়ডরহীন পদক্ষেপে। তবে অতি রোমাঞ্চের নেশাই কাল হলো তার। জিম্বাবুয়ের অধিনায়ককে থামিয়ে জয়ের আশা বাড়াল বাংলাদেশ।
  • পাকিস্তানকে উড়িয়ে দিল ‘দ্বিতীয় সারির’ ইংল্যান্ড
    টসের সময় বেন স্টোকস বলেছিলেন, ‘আগের ম্যাচের দল থেকে আমরা ১১ পরিবর্তন নিয়ে নামছি।’ যেখানে ওয়ানডে অভিষেকই হলো ৫ জনের। সেই দলের বিপক্ষেই উড়ে গেল অভিজ্ঞ পাকিস্তান। প্রতিপক্ষকে দেড়শর নিচে গুটিয়ে দিয়ে দাভিদ মালান ও জ্যাক ক্রলির ফিফটিতে সহজেই জয় মুঠোবন্দী করল ইংল্যান্ড।
  • ব্যাটিং তৃপ্তির পর বোলিংয়ে বাংলাদেশের হতাশার সেশন
    তাসকিনের আহমেদের বল ব্রেন্ডন টেইলরের ব্যাটের কানায় লেগে স্লিপের পাশ দিয়ে গেল বাউন্ডারিতে। অল্পের জন্য হলো না ক্যাচ। দিনের সেটি শেষ ওভার। কিন্তু আগের ৪০ ওভারে ওরকম মুহূর্ত এলো কমই। সুযোগ সৃষ্টি করা কিংবা জিম্বাবুয়ের ব্যাটসম্যানদের সেভাবে বিপাকেই ফেলতে পারল না বাংলাদেশের বোলাররা। লম্বা সেশনে প্রাপ্তি মোটে একটি উইকেট।
  • শ্রীলঙ্কাকে উড়িয়ে ওয়ানডে সিরিজও ইংল্যান্ডের
    চমৎকার বোলিংয়ে শ্রীলঙ্কার টপ অর্ডার গুঁড়িয়ে দিলেন স্যাম কারান। মিডল অর্ডারে বিপজ্জনক হয়ে ওঠা দুই ব্যাটসম্যানকে থামালেন ডেভিড উইলি। তাদের দারুণ বোলিংয়ে মাঝারি লক্ষ্য পাওয়া ইংল্যান্ড জিতল সহজেই। টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয়ের পর এক ম্যাচ হাতে রেখে জিতে নিল ওয়ানডে সিরিজও।
  • রুট ও বোলারদের নৈপুণ্যে জিতল ইংল্যান্ড
    জৈব-সুরক্ষা বলয় ভাঙা ত্রয়ীকে হারানোর সঙ্গে যোগ হয়েছে চোট সমস্যা। সব মিলিয়ে শ্রীলঙ্কার ভারসাম্যপূর্ণ একাদশ সাজানোই কঠিন। স্রেফ তিন জন বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যান নিয়ে খেলতে নামা সফরকারীদের দারুণ ভোগালেন ক্রিস ওকস ও ডেভিড উইলি। তাদের চমৎকার বোলিংয়ে দুইশর নিচে লক্ষ্য পাওয়া ইংল্যান্ড জিতল জো রুটের দায়িত্বশীল ইনিংসে।
  • বড় হারে ইংল্যান্ডে হোয়াইটওয়াশড শ্রীলঙ্কা
    চোটের জন্য দলে নেই দুই নিয়মিত ওপেনার। তবুও ইংল্যান্ডের শুরুটা হলো দুর্দান্ত। একটু মন্থর উইকেটে ঝকঝকে এক ইনিংস খেললেন টি-টোয়েন্টির সেরা ব্যাটসম্যান দাভিদ মালান। তার সঙ্গে শতরানের উদ্বোধনী জুটি উপহার দেওয়া জনি বেয়ারস্টো করলেন ফিফটি। পরে দুর্দান্ত বোলিংয়ে শ্রীলঙ্কাকে একশ রানের নিচে গুঁড়িযে দিল ইংলিশ বোলাররা।
  • ফাইনালের চতুর্থ দিনও ভেসে গেল বৃষ্টিতে
    টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে বৃষ্টির দাপট চলছেই। প্রথম দিনের পর ভারত ও নিউ জিল্যান্ডের এই ম্যাচের চতুর্থ দিনও ভেসে গেল বৃষ্টিতে।
  • ২২ বছর পর ইংল্যান্ডে সিরিজ জিতল নিউ জিল্যান্ড
    জয়ের মঞ্চ তৈরি হয়ে গিয়েছিল আগের দিনই। নতুন দিনের প্রথম বলেই ইংল্যান্ডের শেষ উইকেট তুলে নিয়ে সে পথে আরেকটু এগিয়ে যায় নিউ জিল্যান্ড। পরে ছোট্ট লক্ষ্য পেরিয়ে ইংল্যান্ডে ২২ বছর পর টেস্ট সিরিজ জয়ের স্বাদ পেল দলটি।
  • নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে হারের দুয়ারে ইংল্যান্ড
    প্রতিপক্ষকে চারশর আগে থামিয়ে দিয়ে কিছুটা স্বস্তিতে ছিল ইংল্যান্ড। কিন্তু ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় তা মিইয়ে গেল খুব দ্রুতই। ম্যাট হেনরি, নিল ওয়্যাগনারদের দুর্দান্ত বোলিংয়ের জবাব যেন জানা নেই ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের। ব্যাটে-বলে নিজেদের মেলে ধরে বড় জয়ের সামনে দাঁড়িয়ে নিউ জিল্যান্ড।
  • উইন্ডিজকে ইনিংস ব্যবধানেই হারাল দ.আফ্রিকা
    দ্বিতীয় দিন যে সম্ভাবনা উঁকি দিয়েছিল পরদিন সেটাকেই বাস্তবের রূপ দিলেন কাগিসো রাবাদা-আনরিক নরকিয়ারা। তাদের দারুণ বোলিংয়ের সামনে দাঁড়াতে পারলেন না ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটসম্যানরা। বোলিং সহায়ক উইকেটে দক্ষিণ আফ্রিকা জিতল ইনিংস ব্যবধানে।
  • ডি ককের ছক্কার রেকর্ড, চাপে উইন্ডিজ
    নেতৃত্ব ছাড়ার পর নির্ভার কুইন্টন ডি কক খেললেন দুর্দান্ত এক ইনিংস। লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানদের নিয়ে বোলিং সহায়ক উইকেটে এনে দিলেন তিনশ ছাড়ানো সংগ্রহ। দক্ষিণ আফ্রিকার পেসে দ্বিতীয় ইনিংসেও ধুঁকতে থাকা ওয়েস্ট ইন্ডিজের সামনে এখন ইনিংস ব্যবধানে হার এড়ানোর চ্যালেঞ্জ।
  • কনওয়ের ২০ রানের আক্ষেপ, ইয়াংয়ের ১৮
    অভিষেকে ডাবল সেঞ্চুরির পর ডেভন কনওয়েকে হাতছানি দিচ্ছিল আরেকটি কীর্তি। সেই পথে তিনি এগিয়েও যাচ্ছিলেন। কিন্তু থমকে গেলেন ২০ রান দূরে। উইল ইয়াংয়ের সামনে কোনো রেকর্ড ছিল না। তাকে ডাকছিল দারুণ এক ব্যক্তিগত অর্জন। শেষ বেলায় তিনিও আটকে গেলেন ১৮ রান দূরে।
  • আয়ারল্যান্ডকে হারিয়ে ওয়ানডে সিরিজ নেদারল্যান্ডসের
    নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে লক্ষ্যটা থাকল নাগালে। দারুণ ব্যাটিংয়ে দলকে পথ দেখালেন স্টেফান মাইবার্গ। অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যানের ফিফটিতে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জিতল নেদারল্যান্ডস।
  • নিউ জিল্যান্ডের চ্যালেঞ্জে সাড়া দিল না ইংল্যান্ড
    শেষ দিনে রোমাঞ্চের ডাক দিয়েছিল নিউ জিল্যান্ড। কিন্তু ইংল্যান্ড সাড়া দিল না সেই আহবানে। চ্যালেঞ্জিং রান তাড়ায় টিম সাউদি, নিল ওয়্যাগনারদের দারুণ বোলিংয়ের সামনে ইংলিশরা বেছে নিল নিরাপদ পথ। ব্যাট-বলের লড়াই তাই জমল না খুব একটা, আভাস দিয়েও ছড়াল না তেমন উত্তাপ। ড্রয়ে শেষ হলো লর্ডস টেস্ট।
  • চোয়ালবদ্ধ লড়াইয়ে বার্নসের সেঞ্চুরি, সাউদির ৬ উইকেট
    দিনের প্রথম বলেই উইকেট! সেই পথ ধরে সতীর্থদের আসা-যাওয়ার মিছিলেই লড়াই করে গেলেন ররি বার্নস। অসাধারণ দৃঢ়তায় ইংল্যান্ডের ওপেনার করলেন সেঞ্চুরি। তবে দারুণ বোলিংয়ে ছয় উইকেট নিয়ে নিউ জিল্যান্ডকে শতরানের লিড এনে দিলেন টিম সাউদি।
  • বৃষ্টিতে ভেসে গেল লর্ডস টেস্টের তৃতীয় দিন
    অপেক্ষার পালা শেষ পর্যন্ত ফুরালোই না। মাঠে গড়াল না একটি বলও। ইংল্যান্ড-নিউ জিল্যান্ডের মধ্যকার লর্ডস টেস্টের তৃতীয় দিন পুরোটাই ভেসে গেল বৃষ্টিতে।
  • ক্রিকেট-তীর্থে কনওয়ের রেকর্ড রাঙা অভিষেক
    টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে ক্যারিয়ারের শুরুটা তার হয়েছে আলো ঝলমলে। এবার টেস্টের আঙিনায় পা রেখেও মুগ্ধতা উপহার দিলেন ডেভন কনওয়ে। সাদা পোশাকে অভিষেক রাঙালেন ইতিহাস গড়া সেঞ্চুরিতে। তার দুর্দান্ত অপরাজিত ইনিংসে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লর্ডস টেস্টে শক্ত ভিত পেল নিউ জিল্যান্ড।
  • শেষটায় মলিন বাংলাদেশ
    সিরিজে নিখুঁত ম্যাচ আর খেলা হলো না বাংলাদেশের। উল্টো আগের দুই ম্যাচের চেয়ে খারাপ করল তিন বিভাগেই। এর মাশুল দিতে হলো বড় ব্যবধানে হেরে। কুসল পেরেরার সেঞ্চুরি ও দুশমন্থ চামিরার পাঁচ উইকেটে জয় দিয়ে সিরিজ শেষ করল শ্রীলঙ্কা।
  • পাকিস্তানকে অপেক্ষায় রাখল জিম্বাবুয়ের শেষ জুটি
    তৃতীয় দিনেও নেই বোলারদের জন্য বাড়তি তেমন কোনো সুবিধা। কিন্তু হাসান আলি, শাহিন শাহ আফ্রিদিদের বোলিং আর জিম্বাবুয়ের ব্যাটিং দেখে সেটা বোঝার কোনো উপায় নেই। ব্যাটসম্যানরা যেন গেলেন আর এলেন।  তাদের ব্যর্থতায় টানা দ্বিতীয় টেস্টে ইনিংস ব্যবধানে হারের দুয়ারে স্বাগতিকরা।
  • আবিদের দ্বিশতক, নুমানের ৩ রানের আক্ষেপ
    দ্বিতীয় দিনের শুরুতে দারুণ লড়াই করল জিম্বাবুয়ে। এক প্রান্ত আগলে রাখা আবিদ আলি এদিনও পথ দেখালেন পাকিস্তানকে। লড়াকু ব্যাটিংয়ে করলেন ক্যারিয়ারের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি। নয়ে নেমে সেঞ্চুরির আশা জাগিয়ে আক্ষেপ নিয়ে ফিরলেন নুমান আলি। তাদের ব্যাটে পাঁচশ ছাড়ানো সংগ্রহ নিয়ে ইনিংস ঘোষণার পর জিম্বাবুয়েকে চেপে ধরেছে পাকিস্তান।
  • আজহার-আবিদের সেঞ্চুরি, আবার ব্যর্থ বাবর
    শুরুর কঠিন সময়টুকু দাঁতে দাঁত চেপে পার করলেন আবিদ আলি ও আজহার আলি। পরে দুজনই উপহার দিলেন দারুণ সেঞ্চুরি। তাদের আলো ঝলমলে দিনে ব্যর্থ পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজম। শেষ বেলায় দ্রুত তিন উইকেট নিয়ে ঘুরে দাঁড়াল জিম্বাবুয়ে।
  • হাসানের তোপে তিন দিনেই জিতল পাকিস্তান
    প্রথম ইনিংসে দুর্দান্ত বোলিংয়ের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও আলো ছড়ালেন হাসান আলি। ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে জিম্বাবুয়েকে গুঁড়িয়ে দিলেন দেড়শর নিচে। ফাওয়াদ আলমের দারুণ ব্যাটিংয়ে আড়াইশ রানের লিড পাওয়া পাকিস্তান ম্যাচ জিতে নিল তিন দিনেই।
  • ৩৭ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে গুটিয়ে গেল বাংলাদেশ
    শ্রীলঙ্কার চতুর্থ পছন্দের স্পিনার ছিলেন প্রাভিন জয়াবিক্রমা। স্কোয়াডে সুযোগ পান অন্য তিন স্পিনারের ফিটনেস সমস্যায়। সেই জয়াবিক্রমাই অভিষেক টেস্টে উপহার দিলেন রেকর্ড বোলিং। দারুণ শুরুর পর শেষ দিকে একের পর এক উইকেট দ্রুত হারিয়ে হুড়মুড় করে ভেঙে পড়ল বাংলাদেশের ইনিংস।
  • ফাওয়াদের সেঞ্চুরি, বাবরের গোল্ডেন ডাক
    ফিফটি পার হলেই সেঞ্চুরি! টেস্টে ফাওয়াদ আলমের জন্য এটা যেন রীতিমত অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে তিন অঙ্ক ছুঁয়ে পাকিস্তানকে এনে দিয়েছেন বড় লিড। তার চমৎকার ব্যাটিংয়ের দিনে টেস্টে প্রথম গোল্ডেন ডাকের স্বাদ পেয়েছেন বাবর আজম। মাত্র ৯ রানের জন্য সেঞ্চুরি না পাওয়ার আক্ষেপ নিয়ে ফিরেছেন ইমরান বাট।
  • হাসান-আফ্রিদির তোপে বিধ্বস্ত জিম্বাবুয়ের ব্যাটিং
    ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে আগে ব্যাট করার সুবিধা কাজে লাগাতে পারলেন না জিম্বাবুয়ের ব্যাটসম্যানরা। হাসান আলি ও শাহিন শাহ আফ্রিদির বোলিং তোপে স্বাগতিকরা গুটিয়ে গেল দুই সেশনেই। পরে আবিদ আলি ও ইমরান বাটের ব্যাটে দৃঢ় ভিত পেল পাকিস্তান।
  • করুনারত্নে-ধনাঞ্জয়ার রেকর্ড জুটি, সারাদিনে উইকেট নেই বাংলাদেশের
    টেস্টের চতুর্থ দিনেও উইকেটের আচরণে নেই কোনো পরিবর্তন। ব্যাটিং স্বর্গে বাংলাদেশের সাদামাটা বোলিং কাজে লাগিয়ে দুই লঙ্কান ব্যাটসম্যান রাঙালেন নানা মাইলফলক আর অর্জনে। দিমুথ করুনারত্নে পেলেন প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির স্বাদ। দেড়শ ছুঁয়ে অপরাজিত ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। দুজনের রেকর্ড গড়া জুটিতে গোটা দিনে উইকেটের দেখা পেল না বাংলাদেশ।
  • ৯৯ রানেই শেষ পাকিস্তান, জিম্বাবুয়ের অবিশ্বাস্য জয়
    আগের ম্যাচে কোনো রকমে পার পেয়ে গিয়েছিল পাকিস্তান। এবার আর পারল না। ব্যাটিং খুব একটা ভালো না হলেও বোলিং ও ফিল্ডিংয়ে দুর্দান্ত ছিল জিম্বাবুয়ে। তাই ছোট পুঁজি নিয়েও দলটি পেল অনির্বচনীয় স্বাদ। টি-টোয়েন্টিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম জয়।
  • রিজওয়ান ও বোলারদের নৈপুণ্যে জিতল পাকিস্তান
    বাকি ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতার দিনে একাই লড়াই করলেন মোহাম্মদ রিজওয়ান। দারুণ এক ফিফটিতে এই ওপেনার পাকিস্তানকে এনে দিলেন লড়াই করার পুঁজি। পরে বোলারদের মিলিত চেষ্টায় প্রথম টি-টোয়েন্টিতে দারুণ এক জয় পেয়েছে বাবর আজমের দল।
  • শান্ত-তামিম-মুমিনুলের ব্যাটে স্বপ্নময় দিন
    দুঃসময়ের সঙ্গে আড়ি তাহলে কাটল! বয়সভিত্তিক ক্রিকেটের রাজা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এসে রাজ্যপাটের দিশাই পাচ্ছিলেন না। অবশেষে সেই পথে প্রথম পদক্ষেপ নিতে পারলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। তাকে নিয়ে ভবিষ্যৎ আশার ছবিটা উজ্জ্বল করে তুলতে পারলেন আবার। শান্তর সেঞ্চুরির দিনে দারুণ খেলেও কাছে গিয়ে না পাওয়ার হতাশায় পুড়লেন তামিম ইকবাল। তবে এই দুজনের সৌজন্যে বাংলাদেশের দিনটি কাটল দারুণ।
  • রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে জিতে সিরিজ পাকিস্তানের
    বারবার দিক পাল্টানো ম্যাচের শেষটায় ব্যবধান গড়ে দিলেন মোহাম্মদ নওয়াজ। দুই ছক্কায় পাকিস্তানকে নিয়ে গেলেন জয়ের বন্দরে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ওয়ানডের পর টি-টোয়েন্টি সিরিজও জিতল বাবর আজমের দল।
  • বাবরের সেঞ্চুরিতে পাকিস্তানের রেকর্ড গড়া জয়
    ওয়ানডে ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে ওঠার দিনে টি-টোয়েন্টিতে ঝড় তুললেন বাবর আজম। করলেন দুর্দান্ত সেঞ্চুরি। কার্যকর ইনিংস খেললেন মোহাম্মদ রিজওয়ান। তাদের ব্যাটে রেকর্ড গড়া জয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজে এগিয়ে গেল পাকিস্তান।
  • পাকিস্তানকে উড়িয়ে সমতায় দ. আফ্রিকা
    নতুন বলে সুর বেঁধে দিলেন জর্জ লিন্ডে। সেই সুরের দোলায় মেতে উঠলেন সতীর্থ বোলাররাও। তাদের সামনে লড়াই করলেন কেবল বাবর আজম। পাকিস্তানকে অল্প রানে গুটিয়ে বাকি কাজ সারলেন দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটসম্যানরা। অনায়াস জয়ে সিরিজে সমতা ফেরাল স্বাগতিকরা।
  • রিজওয়ানের ব্যাটে পাকিস্তানের রেকর্ড গড়া জয়
    শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আস্থার সঙ্গে খেললেন মোহাম্মদ রিজওয়ান। এই কিপার ব্যাটসম্যানের দারুণ ফিফটিতে কঠিন চ্যালেঞ্জ পাড়ি দিল পাকিস্তান। রেকর্ড গড়া জয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে এগিয়ে গেল বাবর আজমের দল।
  • বাবর-ফখরের ব্যাটে সিরিজ জিতল পাকিস্তান
    টানা দ্বিতীয় ম্যাচে সেঞ্চুরি করলেন ফখর জামান। দৃঢ় ভিতের উপর দাঁড়িয়ে শেষটায় ঝড় তুললেন বাবর আজম। সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে পাকিস্তান পেল বড় সংগ্রহ। নিয়মিত খেলোয়াড়দের অনেককে ছাড়া খেলতে নামা দক্ষিণ আফ্রিকা দারুণ লড়াই করলেও শেষরক্ষা করতে পারল না। বোলারদের মিলিত চেষ্টায় সিরিজ জিতে নিল পাকিস্তান।
  • সহজ ম্যাচ কঠিন করে জিতল পাকিস্তান
    ৩০ বলে প্রয়োজন ৩০ রান, হাতে পাঁচ উইকেট, ক্রিজে দুই থিতু ব্যাটসম্যান। এমন সমীকরণের ম্যাচ গড়ালো শেষ বল পর্যন্ত, ছড়াল রোমাঞ্চ। বাবর আজমের সেঞ্চুরি ও ইমাম-উল হকের ফিফটিতে গড়া দৃঢ় ভিতে দাঁড়িয়েও সহজ ম্যাচ কঠিন করে জিতল পাকিস্তান।
  • হতাশার সফর শেষ বিব্রতকর হারে
    পুরো সফরের সারমর্ম যেন উঠে এলো শেষ ম্যাচে। ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে নিউ জিল্যান্ড মাতল রান উৎসবে। সঙ্গে থাকল বাংলাদেশের সুযোগ হাতছাড়ার মিছিল। পরে বড় রান তাড়ায় ব্যাটিংয়ে ভোগান্তি। ভুলে যাওয়ার মতো একটি সফর শেষ হলো বিব্রতকর এক হার দিয়ে।
  • নিউ জিল্যান্ডে হারের চক্রেই বাংলাদেশ
    ফিনিশিং একদমই ভালো হলো না। না বোলিংয়ে, না ব্যাটিংয়ে। মাঝে একটু ঝলক দেখালেন সৌম্য সরকার। বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যানের ঝড়ো ফিফটিতে কিছুটা সময় ছড়াল উত্তেজনা। তবে জয়-পরাজয়ের হিসেবে তা খুব একটা প্রভাব ফেলতে পারল না। বাংলাদেশও পারল না ব্যর্থতার চক্র থেকে বের হতে। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিও অনায়াসে জিতে সিরিজ জয় নিশ্চিত করল নিউ জিল্যান্ড।
  • কারানের বীরত্বেও পারল না ইংল্যান্ড
    লক্ষ্য থেকে দল ১৬২ রান দূরে থাকতে আট নম্বরে নেমে স্যাম কারান লড়াই করলেন শেষ পর্যন্ত। রেকর্ড ইনিংসের পথে আশা জাগালেন জয়ের। কিন্তু হার এড়াতে পারল না ইংল্যান্ড। রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে জিতে সিরিজ ঘরে তুলল ভারত।
  • বেয়ারস্টো-স্টোকসের নৈপুণ্যে রেকর্ড রান তাড়া করল ইংল্যান্ড
    প্রথম ওয়ানডেতে আশা জাগিয়েও সেঞ্চুরি পাননি জনি বেয়ারস্টো। দলও পেয়েছিল হারের তেতো স্বাদ। এবার আর কোনো হতাশা নয়। তার দারুণ সেঞ্চুরি, সঙ্গে বেন স্টোকসের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ভারতের বিপক্ষে রেকর্ড রান তাড়া করে সিরিজে সমতা এনেছে ইংল্যান্ড।
  • বড় হারে ‘হোয়াইটওয়াশড’ বাংলাদেশ
    ভালো শুরুর পর বোলিংয়ে থাকল না ধারাবাহিকতা। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ভোগালো ফিল্ডিং। বড় রান তাড়ায় প্রায় সবাই ছুড়ে এলেন উইকেট। তিন বিভাগেই ব্যর্থ বাংলাদেশ হারল বড় ব্যবধানে।
  • কনওয়ে-মিচেলের সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের সামনে বড় লক্ষ্য
    শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ভুগিয়েছে ফিল্ডিং। হাতছাড়া হয়েছে ক্যাচ আর রান আউটের অনেক সুযোগ। তবুও রুবেল হোসেন ও তাসকিন আহমেদের হাত ধরে শুরুটা ভালো হয়েছিল। কিন্তু সেটা ধরে রাখা যায়নি। সুযোগ দুই হাতে কাজে লাগিয়েছেন ডেভন কনওয়ে ও ড্যারিল মিচেল। তাদের দুর্দান্ত দুই সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশকে বড় লক্ষ্য দিয়েছে নিউ জিল্যান্ড।
  • রেকর্ড গড়ে ভারতের সিরিজ জয়
    ম্যাচটা এক অর্থে পরিণত হয়েছিল ‘ফাইনালে’। যেখানে ব্যাট হাতে ঝড় তুললেন রোহিত শর্মা। সঙ্গে বিরাট কোহলির কার্যকর ইনিংসে ভারত পেল রেকর্ড সংগ্রহ। রান তাড়ায় জস বাটলার ও দাভিদ মালানের ব্যাটে অনেকটা সময় ইংল্যান্ড লড়াই চালিয়ে গেলেও শেষ পর্যন্ত বড় জয়েই সিরিজ মুঠোয় ভরেছে স্বাগতিকরা।
  • জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ করল আফগানিস্তান
    সিরিজের শেষ ম্যাচের গল্পটাও প্রায় একইরকম; আফগানিস্তানের বড় ইনিংসের জবাবে ব্যাট হাতে ব্যর্থ জিম্বাবুয়ে। ওভারপ্রতি ৯-এর বেশি রান তাড়ায় প্রতিপক্ষকে সেভাবে কখনোই চ্যালেঞ্জ জানাতে পারেনি তারা। নাজিবউল্লাহ জাদরানের ঝড়ো ইনিংসের পর বোলারদের নৈপুণ্যে জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ করল আসগর আফগানের দল।
  • নিউ জিল্যান্ডের কাছে পাত্তাই পেল না বাংলাদেশ
    ছোট মাঠ, উইকেটও ব্যাটসম্যানদের জন্য নয় ভয়ঙ্কর কিছু। কিন্তু বাংলাদেশের ব্যাটিং তো আত্মঘাতী, এই দলকে রক্ষা করবে কে! রান প্রসবা মাঠেই রানের জন্য হাপিত্যেশ করলেন ব্যাটসম্যানরা। বোলিংও তথৈবচ। সব মিলিয়ে নিউ জিল্যান্ডের সামনে দাঁড়াতেই পারল না বাংলাদেশ।
  • নবির অলরাউন্ড নৈপুণ্যে সিরিজ আফগানিস্তানের
    বিস্ফোরক ইনিংস খেলার পর বল হাতেও আলো ছড়ালেন মোহাম্মদ নবি। তার অলরাউন্ড পারফরম্যান্সে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আরেকটি অনায়াস জয় পেল আফগানিস্তান। এক ম্যাচ বাকি থাকতেই টি-টোয়েন্টি সিরিজ নিশ্চিত করল আসগর আফগানের দল।