সাকিবের আলোতেও বিবর্ণ বাংলাদেশ

বোলিং ধারহীন। ফিল্ডিং হতশ্রী। তাতে ব্যাটসম্যানদের লক্ষ্যটা এমন চূড়ায় উঠল যেখানে কখনোই পা রাখেনি বাংলাদেশ। তবু চেষ্টার কমতি রাখলেন না সাকিব আল হাসান, কিন্তু এমন দুর্গম পথ কী আর একা পাড়ি দেওয়া যায়! পারল না বাকিরা, তাই পারল না বাংলাদেশ। রেকর্ড রান তুলে ইংল্যান্ড জিতল বড় ব্যবধানে।

আরিফুল ইসলাম রনিআরিফুল ইসলাম রনিকার্ডিফ থেকে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 8 June 2019, 01:52 PM
Updated : 8 June 2019, 08:58 PM

বিশ্বকাপে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে ইংল্যান্ডের কাছে ১০৬ রানে হেরেছে বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচে জয়ের পর বাংলাদেশের এটি টানা দ্বিতীয় হার। ইংল্যান্ড জিতল তিন ম্যাচে দুটি।

কার্ডিফে শনিবার জেসন রয়ের ১৫৩ রানের ইনিংস ইংল্যান্ডকে এনে দেয় ৩৮৬ রানের পুঁজি। ২০১১ বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে করা ৩৩৮ ছাড়িয়ে এটিই বিশ্বকাপে ইংলিশদের সর্বোচ্চ স্কোর।

রান তাড়ায় বাংলাদেশ সেভাবে চাপে ফেলতেই পারেনি ইংল্যান্ডকে। ১১৯ বলে সাকিবের ১২১ রানের ইনিংসের পরও গুটিয়ে গেছে ২৮০ রানে।

হারার আয়োজন ম্যাচের প্রথমে ভাগেই করে ফেলেছিল বাংলাদেশ। দলের বোলিং সীমিত সামর্থ্যের, তবে নিজেদের কাজটুকু করতে পারেননি বোলাররা। ইনিংস জুড়ে ফিল্ডিং ছিল ভীষণ হতাশার। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৪৮১ করে যে দল, পাকিস্তানের বিপক্ষে করে ৪৪৪, সাড়ে তিনশকে যারা স্বাভাবিক স্কোর বানিয়ে ফেলেছে, বাংলোদেশের কাছ থেকে পাওয়া উপহার তাদের কাজে না লাগানোর কারণ নেই।

দুই ম্যাচ হারার পর এবার টস জিতেছিলেন মাশরাফি মুর্তজা। তবে আগে বোলিংয়ের কাঙ্ক্ষিত সুযোগটি কাজে লাগাতে পারেনি দল।

ইংল্যান্ডের শুরুটা ছিল সাবধানী। রয় স্পিনে একটু নড়বড়ে মনে করে আগের দুই ম্যাচের ম্যাচের প্রতিপক্ষ শুরু করেছিল স্পিন দিয়ে। বাংলাদেশও হেঁটেছে সেই পথে। প্রথম ওভার করেছেন সাকিব আল হাসান।

রয়কে খানিকটা অস্বস্তিতেও ফেলেছেন সাকিব। আরেক পাশে মাশরাফিও শুরু করেছিলেন ভালো। দুজনের বোলিংয়ে কয়েকবার বল লেগেছে ব্যাটসম্যানদের ব্যাটের কানায়, বার দুয়েক হাওয়ায় ভেসে বল ফিল্ডারের কাছে যায়নি অল্পের জন্য।

রয় ও বেয়ারস্টোর কৃতিত্ব, এই সময়ে তাড়াহুড়ো না করে কাটিয়ে দিয়েছেন। তাতে পরের সময়টা নিজেদের করে নেওয়ার সুযোগ পেয়েছেন। তাদের দারুণ ব্যাটিংয়ে ১৫ ওভারে ইংল্যান্ড পেরিয়ে যায় একশ।

১৯ ওভারে ১২৮ রান তুলে ফেলা জুটি ভাঙেন দ্বিতীয় স্পেলে ফেরা মাশরাফি। তার বাড়তি বাউন্সে আউট হন ৫১ বলে ৫০ রান করা বেয়ারস্টো, শর্ট কাভারে দারুণ ক্যাচ নেন মেহেদী হাসান মিরাজ।

ততক্ষণে রয়ের ব্যাট অপ্রতিরোধ্য হতে শুরু করেছে। জো রুটকে নিয়ে জুটিতে দলকে এগিয়ে নেন অনায়াসেই। ৭৭ রানের দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে রুটের অবদান ছিল ২১।

৯২ বলে রয় স্পর্শ করেন তিন অঙ্ক, ৭৯ ওয়ানডেতে তার নবম সেঞ্চুরি। মাইলফলকের পর বিধ্বংসী হয়ে ওঠেন আরও। সাকিবকে টানা তিন বলে মারেন দুই চার এক ছক্কা; মিরাজকে টানা তিন ছক্কায় দেড়শ পেরিয়ে যান ১২০ বলে।

টানা চতুর্থ ছক্কার চেষ্টায় শেষ পর্যন্ত মিরাজকেই উইকেট দিয়ে আসেন রয়। তবে ইংল্যান্ডের রানের গতি ধরে রাখেন বাটলার। ব্যাটিং অর্ডারে চারে প্রমোশন পেয়ে তোলেন ঝড়। চতুর্থ উইকেটে বাটলার ও ওয়েন মর্গ্যান জুটিতে ৯৫ রান আসে ৬৫ বলে।

৪৪ বলে ৬৪ করে বাটলার সাইফ উদ্দিনের বলে সীমানায় ধরা পড়েছেন সৌম্য সরকারের হাতে। মিরাজের বলে সৌম্যই নিয়েছেন ৩৩ বলে ৩৫ করা মর্গ্যানের ক্যাচ।

এই দুজনের বিদায়ে একটু ভাটার টান এসেছিল রানের গতিতে। শেষ দিকে আবার তাণ্ডব চালান ক্রিস ওকস ও লিয়াম প্লাঙ্কেট। মাত্র ১৭ বলে ৪৫ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়েন দুজন। ৯ বলে ২৭ রানে অপরাজিত থাকেন প্লাঙ্কেট, ৮ বলে ১৮ ওকস।

সম্ভাব্য লক্ষ্যটা সাড়ে তিনশর আশেপাশে থেকে আরও বেড়ে যায় শেষের ওই ঝড়েই। ম্যাচ জমিয়ে তুলতে প্রয়োজন ছিল সৌম্য সরকারের ব্যাটে উড়ন্ত শুরু। কিন্তু জফরা আর্চারের ৯০ মাইল গতির গোলায় সৌম্য শেষ ২ রানেই।

তামিম ইকবাল ও সাকিব চেষ্টা করেছেন দলকে থিতু করে এগোতে। কিন্তু ২৯ বলে ১৯ করে তামিম ফিরেছেন আগ্রাসী শট খেলতে গিয়েই। পরের জুটিতে একই চেষ্টা করে গেছেন সাকিব ও মুশফিকুর রহিম।

বাংলাদেশের সফলতম জুটি এই ম্যাচেও যোগ করেন ১০৬ রান। ওয়ানডেতে দুজনের যেটি ষষ্ঠ শতরানের জুটি, বাংলাদেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি সেঞ্চুরি জুটির রেকর্ড।

আগের দুই ম্যাচের ধারাবাহিকতায় সাকিব পেয়ে যান টানা তৃতীয় ফিফটি। সেটিকেই পরে রূপ দেন বিশ্বকাপে নিজের প্রথম সেঞ্চুরিতে। ৯৫ বলে স্পর্শ করেন অষ্টম ওয়ানডে সেঞ্চুরি। প্রয়োজনীয় রান রেট তখন বাড়ছেই। প্রয়োজন ছিল এই জুটির আরও অনেক দূর এগিয়ে যাওয়া। কিন্তু লিয়াম প্লাঙ্কেটের বল লেগের দিকে ঘোরাতে গিয়ে ৪৪ রানে কাটা পড়লেন মুশফিক। পরের ওভারেই মোহাম্মদ মিঠুনের বিদায় শূন্য রানে। সামান্য যে সম্ভাবনাটুকও ছিল, শেষ ওখানেই।

সেঞ্চুরির পর ক্রিস ওকসকে চার বলের মধ্যে তিনটি বাউন্ডারি মেরেছেন সাকিব। দুর্দান্ত ইয়র্কারে তার লড়াই থামিয়েছেন বেন স্টোকস।

আগের ম্যাচের মতো এ দিনও বিস্ময়কর রকম নিষ্প্রভ ছিলেন মাহমুদউল্লাহ। ১৬ বলে ২৬ রানের ইনিংসে মোসাদ্দেক হোসেন চেষ্টা করেছেন কিছুটা। লোয়ার অর্ডার থেকে আসেনি তেমন কোনো অবদান। তাই ৫০ ওভারের আগেই শেষ বাংলাদেশ।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বড় হার হয়তো খুব অপ্রত্যাশিত নয়। তবে সাকিবের সঙ্গে এই ম্যাচেও তেমন কোনো পারফর্মার পেল না বাংলাদেশ, সামনে তাকিয়ে মূল দুর্ভাবনা হয়তো সেখানেই।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ইংল্যান্ড: ৫০ ওভারে ৩৮৬/৬ (রয় ১৫৩, বেয়ারস্টো ৫১, রুট ২১, বাটলার ৬৪, মর্গ্যান ৩৫, স্টোকস ৬, ওকস ১৮*, প্লানকেট ২৭*; সাকিব ১০-০-৭১-০, মাশরাফি ১০-০-৬৮-১, সাইফ ৯-০-৭৮-২, মুস্তাফিজ ৯-০-৭৫-১, মিরাজ ১০-০-৬৭-২,  মোসাদ্দেক ২-০-২৪-০)।

বাংলাদেশ: ৪৮.৫ ওভারে ২৮০ (তামিম ১৯, সৌম্য ২, সাকিব ১২১, মুশফিক ৪৪, মিঠুন ০, মাহমুদউল্লাহ ২৮, মোসাদ্দেক ২৬, সাইফ ৫, মিরাজ ১২, মাশরাফি ৪*, মুস্তাফিজ ০*; ওকস ৮-০-৬৭-০, আর্চার ৮.৫-২-২৯-৩, প্লানকেট ৮-০-৩৬-১, উড ৮-০-৬২-২, রশিদ ১০-০-৬৪-১, স্টোকস ৬-১-২৩-৩)।

ফল: ইংল্যান্ড ১০৬ রানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: জেসন রয়

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক