মনে হচ্ছিল ঢাকা-চট্টগ্রামে খেলছি: টেইলর

ওভালের জনসমুদ্রে যথারীতি ছিল লাল-সবুজের ঢেউ। ক্ষণে ক্ষণে গর্জন উঠেছে বাংলাদেশের নামে। নিরপেক্ষ ভেন্যুতে এমন দর্শক সমর্থন দেখে বিস্মিত ও মুগ্ধ রস টেইলর। নিউ জিল্যান্ডের জয়ের নায়কের কখনও কখনও মনে হচ্ছিল, যেন খেলছেন ঢাকা কিংবা চট্টগ্রামে!

ক্রীড়া প্রতিবেদক লন্ডন থেকেবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 June 2019, 01:13 AM
Updated : 6 June 2019, 01:13 AM

বাংলাদেশের ২৪৪ রান তাড়ায় নিউ জিল্যান্ডকে জয়ের পথে এগিয়ে নিয়েছে টেইলরের ৮২ রানের ইনিংস। কেন উইলিয়ামসনের সঙ্গে তার জুটির সময় এক পর্যায়ে মনে হচ্ছিল, অনায়াসেই জিতে যাবে কিউইরা। পরে বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়ায় দারুণভাবে। উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে শেষ পর্যন্ত কিউইরা জিতেছে ২ উইকেটে।

ম্যাচ জমিয়ে তোলার কৃতিত্ব বাংলাদেশকেই দিলেন টেইলর। তার মতে, দর্শক সমর্থন ছিল বাংলাদেশের বড় শক্তি।

“ম্যাচটি আরও আগে জিততে পারলে অবশ্যই ভালো লাগত আমাদের। তবে বাংলাদেশকে কৃতিত্ব দিতেই হবে। তারা একদমই হাল ছাড়েনি। শেষ পর্যন্ত লড়ে গেছে। আর দর্শক যেভাবে ভূমিকা রেখেছে, যখন আমরা মাঠে ছিলাম, কখনও কখনও মনে হচ্ছিল যেন ঢাকা বা চট্টগ্রামে আছি। এই অভিজ্ঞতা ছিল দারুণ। আর এরকম উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচ টুর্নামেন্টের জন্যই ভালো।”

টুর্নামেন্টে নিজেদের প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়েছিল নিউ জিল্যান্ড। লঙ্কানদের ১৩৬ রানে গুটিয়ে তারা ম্যাচ জিতেছিল ১০ উইকেটে। বাংলাদেশের বিপক্ষে সেখানে লড়াই হয়েছে তুমুল। শেষ পর্যন্ত জয়টি এসেছে কোনোরকমে, তবে সামনের পথচলার কথা ভেবে এটির ইতিবাচক দিকও দেখছেন টেইলর।

“প্রথম ম্যাচে আমরা সহজেই জিতেছিলাম, আজকে চাপে পড়তে হয়েছে। আমার মনে হয়, আমরা দারুণ বোলিং করে লক্ষ্যের মধ্যে ওদের আটকে রাখতে পেরেছিলাম। রান তাড়ায় আমরা জানতাম যে ৫০ ওভার ব্যাট করলেই জয়ের সম্ভাবনা বাড়বে। কিন্ত গুরুত্বপূর্ণ সময়ে উইকেট হারিয়েছি আমরা।”

“আরেকটু নিখুঁত হতে পারলে অবশ্যই ভালো লাগত। তবে আমাদের চাপে ফেলা হয়েছিল, আমরা নানাভাবে সাড়া দিয়েছি। আর প্রথম ম্যাচে একদমই ব্যাটিং না পাওয়ার পর আজকে সবাই ব্যাটিং পেয়েছে, এটিও ইতিবাচক দিক।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক