• ইরফানের ৮৫, বিপদে এইচপি
    সেঞ্চুরির আশা জাগিয়েও পারেননি ইরফান শুক্কুর। তবে তার ব্যাটে প্রথম চার দিনের ম্যাচে বড় সংগ্রহই পেয়েছে বাংলাদেশ ‘এ’ দল। শেষ বেলায় ব্যাটিংয়ে নেমে দৃঢ়তা দেখাতে পারেনি এইচপি দল। তিন উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে গেছে তারা। 
  • এইচপিতে নিজেকে শাণিত করতে চান সুমন
    প্রেসিডেন্ট’স কাপের ফাইনালে দুর্দান্ত বোলিংয়ের পর থেকেই বেশ আলোচনায় আছেন সুমন খান। ঘরোয়া ক্রিকেটের শীর্ষ পর্যায়ে তার পদচারণা দুই বছরের। এতটা আলো তার ওপর পড়েনি আগে। তাতে অবশ্য চোখ ধাঁধিয়ে যাচ্ছে না তরুণ পেসারের। লক্ষ্য তিনি ঠিকই দেখতে পাচ্ছেন। সেই পথে এগিয়ে যেতে নিজেকে আরও ঘষামাজা করতে চান হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) স্কোয়াডের ক্যাম্পে।
  • সেরা ব্যাটসম্যান ইরফান, সেরা বোলার রুবেল
    টুর্নামেন্ট শুরুর আগে সেরা ব্যাটসম্যানের সম্ভাব্য তালিকা করলে সেখানে ইরফান শুক্কুরের নাম রাখতেন না হয়তো কেউই। নিজেকে নতুন করে চিনিয়ে সেই ইরফানই পেয়েছেন প্রেসিডেন্ট’স কাপের সেরা ব্যাটসম্যানের স্বীকৃতি। রুবেল হোসেনের জন্য এটি ছিল নিজেকে ফিরে পাওয়ার আসর। দারুণ বোলিংয়ের ধারাবাহিকতায় টুর্নামেন্টের সেরা বোলার মনোনীত হয়েছেন এই পেসার। ট্রফির পাশাপাশি দুজনেরই প্রাপ্তি ১ লাখ টাকা করে।
  • দলে ছিলেন না যিনি, সেই সুমনই ফাইনালের সেরা
    প্রেসিডেন্ট’স কাপে খেলার কথা ছিল না সুমন খানের। টুর্নামেন্টের কোনো দলের মূল স্কোয়াডে যে তার জায়গাই হয়নি শুরুতে! তাকে রাখা হয়েছিল শান্ত একাদশের স্ট্যান্ড বাই তালিকায়। ঘটনাক্রমে ফাইনালে সেই শান্ত একাদশকেই গুঁড়িয়ে মাহমুদউল্লাহ একাদশের জয়ের নায়ক ২০ বছর বয়সী এই পেসার।
  • দাপুটে জয়ে চ্যাম্পিয়ন মাহমুদউল্লাহর দল
    সুমন খানের দুর্দান্ত বোলিংয়ে গড়ে দেওয়া মঞ্চে নান্দনিক সব শটের মালা সাজালেন লিটন দাস। কোনোরকমে ফাইনালে ওঠা দলটিই শেষ পর্যন্ত গেয়ে উঠল বিজয় সঙ্গীত। দাপুটে জয়ে প্রেসিডেন্ট’স কাপের শিরোপা জিতে নিল মাহমুদউল্লাহ একাদশ।