• উইন্ডিজের কেন্দ্রীয় চুক্তিতে সিলস-ম‍্যাককয়-স্মিথ
    এক ধরনের পালা বদলের মধ‍্য দিয়ে যাওয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজ বেশ পরিবর্তন এনেছে কেন্দ্রীয় চুক্তিতে। প্রথমবারের মতো জায়গা পেয়েছেন দুই পেসার জেডেন সিলস ও ওবেড ম‍্যাককয় এবং পেস বোলিং অলরাউন্ডার ওডিন স্মিথ। বাদ পড়েছেন ফ‍্যাবিয়ান অ‍্যালেন, ড‍্যারেন ব্রাভো, এভিন লুইস, রাকিম কর্নওয়াল ও শ‍্যানন গ‍্যাব্রিয়েল।
  • ইতিহাস গড়ে উইন্ডিজ দলে কার্টি
    প্রথমবারের মতো ডাক পেলেন জাতীয় দলে। স্বাভাবিকভাবেই অনেক বড় প্রাপ্তি কেসি কার্টির জন্য। সেই সঙ্গে আরেকটি অর্জনও ধরা দিল তার হাতে, যেটা নিয়ে গর্ব করতে পারেন অনায়াসেই। সেন্ট মার্টিনের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে যে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলে জায়গা করে নিলেন তিনি।
  • স্মরণীয় জয়ের পর ভাষা খুঁজে পাচ্ছেন না সিলস
    রেকর্ড গড়ে ৫ উইকেট নিয়ে যখন গর্বিত পদক্ষেপে মাঠ ছাড়লেন জেডেন সিলস, তখন কি ভেবেছিলেন, ব্যাট হাতেও তাকে প্রয়োজন হবে দলের! ১৯ বছর বয়সী পেসার দলের সেই চাওয়াও মেটালেন দারুণভাবে। ক্যারিয়ারের তৃতীয় টেস্টেই রোমাঞ্চের এমন উথাল-পাথাল ঢেউ, শ্বাসরুদ্ধকর শেষ সময়ে উইকেটে কাটিয়ে অবিস্মরণীয় জয়ের স্বাক্ষী, সব মিলিয়ে ম্যাচের পর প্রতিক্রিয়া জানানোর উপযুক্ত ভাষা খুঁজে হয়রান হচ্ছিলেন সিলস।
  • ৩০ রানের ইনিংস যখন ‘সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ’
    ৩০ রানের চেয়ে বড় ইনিংস কেমার রোচের ক্যারিয়ারে আরও সাতটি আছে। কিন্তু বড় মানেই তো সেরা নয়! জ্যামাইকায় ৩০ রানের অপরাজিত ইনিংসটিই তাই কেমার রোচের কাছে ক্যারিয়ারের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস। পরাজয়ের দুয়ার থেকে দলকে স্মরণীয় এক জয় এনে দিয়ে যে এই ইনিংসটিই।
  • নাটকীয় শেষ জুটিতে উইন্ডিজের রুদ্ধশ্বাস জয়
    হাসান আলির বলে কেমার রোচের ড্রাইভে বল ছুটল কাভার দিয়ে। দুই রান নেওয়ার পথেই উদযাপন শুরু করলেন রোচ ও জেডেন সিলস। ড্রেসিংরুমে তাদের সতীর্থরাও তখন লাফাচ্ছেন। গ্যালারির গুটিকয় দর্শকের আনন্দ চিৎকারে প্রকম্পিত চারপাশ। ধারাভাষ্যকক্ষে গলা ফাটাচ্ছেন ইয়ান বিশপ, “ওয়েস্ট ইন্ডিজ জিতে গেছে… অবিস্মরণীয় টেস্ট জয়। রোচ ও সিলসকে কুর্নিশ…১ উইকেটের জয়, স্রেফ ১ উইকেটের…।” পাকিস্তানিরা তখন হতাশায় নুইয়ে পড়েছে প্রায়।
  • ৭১ বছরের রেকর্ড ভাঙলেন সিলস
    রেকর্ডের পাতায় নাম লেখাতে খুব বেশি সময় নিলেন না জেডেন সিলস। ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে দারুণ এক কীর্তি গড়লেন এই পেসার। পাকিস্তানের বিপক্ষে দুর্দান্ত বোলিংয়ে ৫ উইকেট নিয়ে তিনি ভাঙলেন ৭১ বছরের পুরনো রেকর্ড।
  • তরুণ সিলসকে আইসিসির তিরস্কার
    আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পথচলা শুরু হলো সবে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে খেলছেন কেবল তৃতীয় ম্যাচ। এরই মধ্যে আইসিসির আচরণবিধি ভেঙে শাস্তি পেয়েছেন জেডেন সিলস। আনুষ্ঠানিকভাবে তিরস্কার করা হয়েছে ডানহাতি এই পেসারকে।
  • পাকিস্তানকে গুটিয়ে দিয়ে স্বস্তিতে নেই উইন্ডিজও
    সহায়ক কন্ডিশনে টস জিতে বোলিংয়ে নামা আর পাকিস্তানকে অলআউট করে দেওয়া, দিনটি হওয়ার কথা ওয়েস্ট ইন্ডিজের। কিন্তু গড়বড় হয়ে গেল শেষ বিকেলের চারটি ওভারে। দ্রুত দুই উইকেট হারিয়ে ক্যারিবিয়ানরাও দিন শেষ করল দুর্ভাবনাকে সঙ্গী করে।
  • ১৪ উইকেটের দিনে ৯৭ রানেই শেষ উইন্ডিজ
    উইকেটে হালকা সবুজের ছোঁয়া আর কিছুটা বাড়তি বাউন্স। এতটুকু কাজে লাগিয়েই উইকেট শিকারের উৎসব করলেন দুই দলের ফাস্ট বোলাররা। লুঙ্গি এনগিদি ও আনরিক নরকিয়ার বোলিং তোপে পুড়ল ক্যারিবিয়ান ব্যাটিং। অভিষিক্ত জেডেন সিলসের দারুণ বোলিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজই দিল জবাব। ১৪ উইকেটের ঘটনাবহুল দিনের শেষে অবশ্য এগিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকাই।
  • প্রথম শ্রেণিতে এক ম্যাচ খেলেই টেস্ট দলে সিলস
    পেশাদার ক্রিকেটের অভিজ্ঞতা ১০ ম্যাচের। সেখানে প্রথম শ্রেণির ম্যাচ কেবল একটি। পারফরম্যান্সও আহামরি কিছু নয়। জেডেন সিলস তবুও জায়গা করে নিয়েছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট দলে! দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথম টেস্টের দলে আছেন ১৯ বছর বয়সী এই পেসার।