• তাইজুলের ২ উইকেটের পর বাবরের দৃঢ়তা
    টস জিতেছেন বাবর আজম-ধারাভাষ্যকার আতহার আলি বলা মাত্র পাকিস্তান অধিনায়কের মুখ থেকে বেরিয়ে এলো, ‘থ্যাঙ্কস গড।’ উইকেট দেখেই তিনি বুঝে গিয়েছিলেন, এখানে চতুর্থ ইনিংসে ব্যাটিং কতটা কঠিন হতে পারে। টস হারায় সেই কাজটা করতে হতে পারে বাংলাদেশের। স্বাভাবিকভাবেই তারা যত দ্রুত সম্ভব সফরকারীদের থামিয়ে দিতে চান। তাইজুল ইসলাম দ্রুত দুটি উইকেট নিলেও আজহার আলিকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়েছেন বাবর।
  • ৮ উইকেটে হারল বাংলাদেশ
    অভাবনীয় কিছুর আশা নিয়ে নামলেও তেমন কিছু করতে পারেনি বাংলাদেশ। পঞ্চম ও শেষ দিনের প্রথম সেশনেই ম‍্যাচ শেষ করে দিয়েছে পাকিস্তান। ২০২ রানের লক্ষ‍্য কেবল দুই ওপেরকে হারিয়েই ছুঁয়ে ফেলেছে বাবর আজমের দল।
  • নিভতে বসেছে বাংলাদেশের আশার প্রদীপ
    লাঞ্চের পর ব‍্যাটিংয়ে দিক হারানো বাংলাদেশ বোলিংয়েও ভালো করতে পারেনি। ৩৩ ওভারে ভাঙতে পারেনি পাকিস্তানের শুরুর জুটি। অর্ধেকর বেশি কাজ সেরে ফেলেছেন আবিদ আলি ও আব্দুল্লাহ শফিক। দুই ব‍্যাটসম‍্যানই অপরাজিত পঞ্চাশ ছুঁয়ে। পঞ্চম দিনে অভাবনীয় কিছু ছাড়া বাংলাদেশের জয় প্রায় অসাধ‍্য।
  • তাইজুলের ৭ উইকেটের পর মুশফিক-ইয়াসিরের কাঁধে বাংলাদেশ
    তাইজুল ইসলামের দারুণ বোলিংয়ে পাওয়া ৪৪ রানের লিডের সুবিধা হারাতে বসেছে বাংলাদেশ। দ্রুত ৪ উইকেট হারানো দলকে টানছেন মুশফিকুর রহিম ও ইয়াসির আলি চৌধুরি। পাকিস্তানকে চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্যে দিতে এই দুই জনের সঙ্গে লিটন দাস ও মেহদী হাসান মিরাজের দিকে তাকিয়ে বাংলাদেশ।
  • ব‍্যাটিংয়ের পর বোলিংয়েও বাংলাদেশের হতাশার দিন
    আগের দিন স্বপ্নের মতো দুটি সেশন কাটনো বাংলাদেশের জন্য ভীষণ হতাশার হয়ে থাকল দ্বিতীয় দিন। ব্যাটিংয়ে প্রথম সেশনেই হারাল শেষ ৬ উইকেট। বোলিংয়ে দুই সেশন মিলিয়েও নেওয়া গেল না একটি উইকেট। স্বাগতিকদের হতাশায় ডুবিয়ে দিনটা নিজেদের করে নিল পাকিস্তান।
  • লিটন-মুশফিকের ব‍্যাটে বাংলাদেশের দারুণ দিন
    টি-টোয়েন্টিতে টানা ব‍্যর্থতায় অস্বস্তিকর এক পরিস্থিতির মধ‍্য দিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। চট্টগ্রাম টেস্ট ব‍্যাটিংয়ে নেমে দ্রুত ৪ উইকেট হারিয়ে মনে হচ্ছিল সংস্করণ বদলালেও ব‍্যর্থতার চক্রেই বন্দি তারা। তবে দুইশ রানের অসাধারণ জুটিতে পাকিস্তানের বিপক্ষ প্রথম ইনিংসে পথ দেখালেন লিটন দাস ও মুশফিকুর রহিম। ক‍্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি ছুঁয়ে সামনের দিকে তাকিয়ে লিটন। সেঞ্চুরি থেক বেশি দূরে নেই বাংলাদেশের অসংখ‍্য বিপদের ত্রাতা মুশফিক। দারুণ ব‍্যাটে টানা দুটি উইকেটশূন‍্য সেশনে স্বাগতিকরা কাটাল দারুণ দিন।
  • শেষ বলে হেরে গেল বাংলাদেশ
    একজন ওপেনার টিকে থাকলেন ১৯তম ওভার পর্যন্ত। না তিনি নিজে পেলেন বড় রান। না তাকে ঘিরে ইনিংস গড়ে তুলতে পারল দল। সামর্থ্য নিয়ে সংশয় জাগানো ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ কোনোমতে ছাড়াতে পারল ১২০। এই পুঁজি নিয়েও দারুণ লড়াই করলেন বোলাররা। কিন্তু তাতে কাজ হলো না। টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশকে হোয়াইটওয়াশ করেই ছাড়ল পাকিস্তান।
  • বাংলাদেশকে ৮ উইকেটে হারিয়ে সিরিজ পাকিস্তানের
    সংক্ষিপ্ত স্কোর: পাকিস্তান ১৮.১ ওভারে ১০৯/২ (বাংলাদেশ ২০ ওভারে ১০৮/৭)
  • লড়াই করেও পারল না বাংলাদেশ
    ১২৭ রানের পুঁজি নিয়েও এক সময়ে জয়ের আশা জাগিয়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু শেষ রক্ষা করতে পারেনি মাহমুদউল্লাহর দল। শেষ দিকে ছোট্ট কিন্তু কার্যকর দুটি ইনিংসে ব্যবধান গড়ে দিলেন শাদাব খান ও মোহাম্মদ নওয়াজ। তাদের ব্যাটে জয় দিয়ে টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু করল পাকিস্তান।
  • হতাশার বিশ্বকাপ শেষ জঘন্য ব্যাটিং প্রদর্শনীতে
    ৮ উইকেটের বিব্রতকর হারে বিশ্বকাপ অভিযান শেষ হলো বাংলাদেশের।
  • ব্যাটিং ব্যর্থতায় বাংলাদেশের বড় হার
    টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে মুখোমুখি বাংলাদেশ ও দক্ষিণ আফ্রিকা।
  • শেষ বলের ফয়সালায় হেরে গেল বাংলাদেশ
    সুপার টুয়েলভে টানা তিন ম্যাচে হারল বাংলাদেশ।
  • ক্যাচ ছাড়ার খেসারত দিল বাংলাদেশ
    টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে নিজেদের প্রথম ম্যাচে লড়ছে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা।
  • পিএনজিকে উড়িয়ে সুপার টুয়েলভে বাংলাদেশ
    ঠিক বাঁচা-মরার ম্যাচ না হলেও সুপার টুয়েলভের ভাগ্য নিজেদের হাতে রাখতে জয়ের বিকল্প ছিল না। এমন ম্যাচে অলরাউন্ড নৈপুণ্যে আলো ছড়ালেন সাকিব আল হাসান। ঝড়ো ব্যাটিংয়ে আসরের দ্রুততম ফিফটি করলেন মাহমুদউল্লাহ। বোলারদের প্রায় সবাই রাখলেন অবদান। পাপুয়া নিউ গিনিকে উড়িয়ে পরের ধাপ নিশ্চিত করল বাংলাদেশ।
  • ওমানকে হারিয়ে টিকে থাকল বাংলাদেশ
    রান তাড়ায় শুরুর বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশকে ভাবনায় ফেলে দিয়েছিল ওমান। কিন্তু মেহেদি হাসান ও মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন আঁটসাঁট বোলিংয়ে দেখালেন পথ। শুরুর এলোমেলো বোলিং ভুলে ছন্দে ফিরলেন অন্য বোলাররাও। সবার মিলিত অবদানে শঙ্কা পেছনে ফেলে শেষ পর্যন্ত বড় জয়ই পেল বাংলাদেশ। ওমানকে হারিয়ে বাঁচিয়ে রাখল সুপার টুয়েলভের আশা।
  • হার দিয়ে শুরু বাংলাদেশের বিশ্বকাপ
    বল হাতে শুরুটা কি দারুণই না ছিল। কিন্তু সেটা ধরে রাখতে পারল না বাংলাদেশ। শেষের এলোমেলো বোলিং আর ক্রিস গ্রিভসের বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ে স্কটল্যান্ড পেল চ্যালেঞ্জিং স্কোর। রান তাড়ায় পেরে উঠল না বাংলাদেশ। প্রশ্নবিদ্ধ ব্যাটিংয়ে হার দিয়ে শুরু করল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ।
  • নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষেও সিরিজ জিতল বাংলাদেশ
    নাসুম আহমেদের ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ের পর মুস্তাফিজুর রহমানের নৈপুণ্যে লক্ষ্যটা ছিল একশর নিচে। এক সময়ে সেটাও কঠিন হয়ে যেতে বসেছিল। তবে মাহমুদউল্লাহর অধিনায়কোচিত ইনিংসে শেষ পর্যন্ত জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ল বাংলাদেশ। একই সঙ্গে নিজেদের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টিতে তিনটি সিরিজ জিতল তারা।
  • ব্যাটিং ব্যর্থতায় বাংলাদেশের বড় হার
    ভালো শুরুর পর বোলাররা পারেননি বাকিটা দ্রুত শেষ করতে। ষষ্ঠ উইকেটে পঞ্চাশ ছোঁয়া এক জুটিতে চ্যালেঞ্জিং এক লক্ষ্য দেয় নিউ জিল্যান্ড। প্রথম তিন ওভারে পাঁচ বাউন্ডারির পর দিক হারায় বাংলাদেশ। পরে আর কক্ষপথে ফিরতে পারেনি স্বাগতিকরা। নিজেদের সর্বনিম্ন রান কোনোমতে এড়াতে পারলেও শেষ পর্যন্ত বড় ব্যবধানেই হেরেছে বাংলাদেশ। তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে ৫২ রানে জিতে ব্যবধান কমিয়েছে নিউ জিল্যান্ড।
  • ল্যাথামের লড়াইয়ের পরও বাংলাদেশের জয়
    লিটন দাস ও মোহাম্মদ নাঈম শেখ এনে দিলেন ভালো শুরু। শেষটায় রানের গতিতে দম দিলেন মাহমুদউল্লাহ। তাতে লড়াইয়ের পুঁজি পেল বাংলাদেশ। টম ল্যাথামের দারুণ ব্যাটিংয়ে সেই রান তাড়ার আশা জাগাল নিউ জিল্যান্ড। বোলিং-ফিল্ডিংয়ে শেষ দিকে তালগোল পাকালেও শেষ পর্যন্ত জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ল বাংলাদেশ।
  • নিউ জিল্যান্ডকে হারিয়ে বাংলাদেশের 'প্রথম'
    সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ ১৫ ওভারে ৬২/৩ (নিউ জিল্যান্ড ১৬.৫ ওভারে ৬০)
  • অস্ট্রেলিয়াকে গুঁড়িয়ে জিতল বাংলাদেশ
    মিলিত চেষ্টায় লড়াই করার মতো একটা সংগ্রহ এনে দিয়েছিলেন ব্যাটসম্যানরা। সেটাকে যথেষ্টর বেশি প্রমাণ করলেন বোলাররা। নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের সামনে দাঁড়াতেই পারল না অস্ট্রেলিয়া। নিজেদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন রানে গুটিয়ে গিয়ে বড় ব্যবধানে হেরেছে সফরকারীরা। ব্যাট-বলে-ফিল্ডিংয়ে নিজেদের মেলে ধরে ৪-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতেছে বাংলাদেশ।
  • হ্যাটট্রিক জয়ে সিরিজ বাংলাদেশের
    সংক্ষিপ্ত স্কোর: অস্ট্রেলিয়া ২০ ওভারে ১১৭/৪ (বাংলাদেশ ২০ ওভারে ১২৭/৯)
  • অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের দুইয়ে দুই
    বোলাররা লক্ষ্যটা রেখেছিলেন নাগালেই। কিন্তু ১ রানের মধ্যে সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহর বিদায়ে পথ হারাতে বসেছিল বাংলাদেশ। আফিফ হোসেন ও নুরুল হাসান সোহান চাপের মধ্যে পথ দেখালেন দলকে। রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে দিল বাংলাদেশ।
  • রেকর্ড গড়া জয়ে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ
    জিততে রেকর্ড গড়তে হত বাংলাদেশের। নিজেদের সর্বনিম্ন রান ডিফেন্ডের এই চ্যালেঞ্জে দল জিতেছে অনায়াসে। হাতে ধরা দিয়েছে দারুণ এক অর্জন, টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম জয়। সেখানে অলরাউন্ড নৈপুণ্যে উজ্জ্বল সাকিব আল হাসান। দারুণ বোলিংয়ে নায়ক নাসুম আহমেদ।
  • ব্যাটিং ব্যর্থতায় বাংলাদেশের হার
    ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে লক্ষ্যটা খুব কঠিন ছিল না। জিম্বাবুয়ের বোলিংও অসাধারণ কিছু হয়নি। পরিকল্পনাহীন ব্যাটিংয়ে বিপদ ডেকে আনেন বাংলাদেশের টপ ও মিডল অর্ডারের ব্যাটসম্যানরাই। পরের দিকে একটু লড়াই করলেও শেষ রক্ষা করতে পারেনি সফরকারীরা। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে জিতে সিরিজে সমতা ফিরিয়েছে জিম্বাবুয়ে।
  • নাঈম-সৌম্যর ফিফটিতে জয়ে শুরু বাংলাদেশের
    প্রত্যাশিত জয় দিয়ে টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু করল বাংলাদেশ। বোলাররা লক্ষ্যটা নাগালে রাখার পর রেকর্ড গড়া জুটিতে ম্যাচ নিজেদের দিকে নিয়ে এলেন মোহাম্মদ নাঈম শেখ ও সৌম্য সরকার। তাদের ফিফটিতে নিজেদের শততম টি-টোয়েন্টিতে ৮ উইকেটে জিতল বাংলাদেশ।
  • ৩-০ জয়ে বাংলাদেশের ৩০
    সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ ৪৮ ওভারে ৩০২/৫ (জিম্বাবুয়ে ৪৯.৩ ওভারে ২৯৮)
  • সাকিবের অসাধারণ ইনিংসে সিরিজ বাংলাদেশের
    মাঝারি রান তাড়ায় ভালো শুরুর পর হঠাৎ দিক হারাল বাংলাদেশ। ব্যাটসম্যানরা যেন যোগ দিলেন উইকেট ছুড়ে আসার মিছিলে। অন্য প্রান্তে দাঁড়িয়ে দেখলেন সাকিব আল হাসান। বুঝে নিলেন বাঁহাতি এই অলরাউন্ডার, আজ তার দিন। দলকে জয়ের বন্দরে টেনে নিতে হবে তাকেই। অসাধারণ এক ইনিংসে ঠিক তা-ই করলেন সাকিব। তার নৈপুণ্যে রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে তিন উইকেটে জিতে সিরিজ জিতে নিল বাংলাদেশ।
  • লিটন-সাকিবের নৈপুণ্যে বাংলাদেশের বড় জয়
    পরিণত ব্যাটিংয়ে চমৎকার এক সেঞ্চুরি করলেন লিটন দাস। ব্যাটিংয়ে অবদান রাখলেন আফিফ হোসেন, মাহমুদউল্লাহ। তাদের দৃঢ়তায় লড়াইয়ের পুঁজি পাওয়া বাংলাদেশ দাঁড়াতেই দিল না জিম্বাবুয়েকে। সামনে থেকে নেতৃত্ব দিলেন সাকিব আল হাসান। বাঁহাতি এই স্পিনারের পাঁচ উইকেটে তামিম ইকবালের দল জিতল অনায়াসে।
  • মুশফিকের অসাধারণ সেঞ্চুরিতে সিরিজ বাংলাদেশের
    দ্বিতীয় ওয়ানডেতে জিতে বাংলাদেশের দুটি লক্ষ্যই পূরণ হলো। অসাধারণ সেঞ্চুরিতে লড়াইয়ের পুঁজি এনে দিলেন মুশফিকুর রহিম। পরে মিলিত চেষ্টায় বোলাররা এনে দিলেন বড় জয়। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথমবারের মতো ওয়ানডে সিরিজ জিতল বাংলাদেশ। উঠল আইসিসি ওয়ানডে সুপার লিগের চূড়ায়।
  • শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে চারে বাংলাদেশ
    মুশফিকুর রহিম, তামিম ইকবাল ও মাহমুদউল্লাহ লড়াইয়ের পুঁজি এনে দেওয়ার পর মেহেদী হাসান মিরাজের হাত ধরে বোলিংয়ে শুরু হয় দারুণ। পাল্টা আক্রমণে খুনে ইনিংসে শ্রীলঙ্কাকে ম্যাচে ফেরান ভানিন্দু হাসারাঙ্গা। তবে শেষ রক্ষা করতে পারেননি এই অলরাউন্ডার। মিলিত চেষ্টায় লঙ্কানদের ৩৩ রানে হারিয়ে সিরিজে এগিয়ে গেছে বাংলাদেশ।
  • লড়াই জমাতেই পারল না বাংলাদেশ
    সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ ২০ ওভারে ১৪২/৮ (নিউ জিল্যান্ড ২১০/৩)
  • ক্যারিবিয়ানদের ‘হোয়াইটওয়াশ’ করেই ছাড়ল বাংলাদেশ
    চার অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান এনে দিলেন লড়াইয়ের পুঁজি। মিলিত চেষ্টায় বোলাররা সারলেন বাকিটা। প্রায় তিনশ রানের লক্ষ্যকে সেভাবে চ্যালেঞ্জই জানাতে না পারা ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দ্বিতীয়বারের মতো হোয়াইটওয়াশ করল বাংলাদেশ। 
  • বোলারদের দাপটে জিতল বাংলাদেশ
    ফেরার ম্যাচ রাঙিয়ে রাখলেন সাকিব আল হাসান। দারুণ বোলিংয়ে নিলেন ৪ উইকেট। অভিষেকে ৩ উইকেট পেলেন হাসান মাহমুদ। বোলারদের দাপটে ছোট লক্ষ্য পেল বাংলাদেশ। ছোট পুঁজি নিয়েও দারুণ লড়াই করল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তবে প্রত্যাশিত জয় দিয়েই সিরিজি শুরু করল তামিম ইকবালের দল।
  • সব জিতে সিরিজ শেষ বাংলাদেশের
    বোলাররা লক্ষ্য রেখেছিলেন নাগালে। বাকিটা সহজেই সারলেন ব্যাটসম্যানরা। লিটন দাস পেলেন টানা দ্বিতীয় ফিফটি। একপেশে লড়াইয়ে বাংলাদেশ জিতল ৯ উইকেটে। প্রথমবারের মতো কোনো সিরিজে জয়ী হলো তিন সংস্করণেই।
  • জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সবচেয়ে বড় জয়ে শুরু
    শুরুর ঝড়ো ব্যাটিংয়ে মঞ্চ তৈরি করে দিলেন লিটন দাস। ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসে দলকে রানের পাহাড়ে নিয়ে গেলেন সৌম্য সরকার। মিলিত অবদানে বাকিটুকু সারলেন বোলাররা। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ পেল নিজেদের সবচেয়ে বড় জয়। সিরিজের প্রথম ম্যাচে জিতল ৪৮ রানে।
  • রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে জিতে সিরিজ বাংলাদেশের
    ক্যারিয়ার সেরা ব্যাটিংয়ে দলকে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে রেকর্ড গড়া সংগ্রহ এনে দিলেন তামিম ইকবাল। লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তায় সেই রানকে চ্যালেঞ্জ জানিয়েছিল জিম্বাবুয়ে। তবে শেষ বলে ছক্কার সমীকরণ মেলাতে না পেরে হেরে গেছে তারা। রুদ্ধশ্বাস উত্তেজনার ম্যাচে ৪ রানে জিতে সিরিজ নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ।
  • ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় জয়
    ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসে লিটন দাস গড়ে দিলেন মঞ্চ। পরের দিকের ব্যাটসম্যানরা রাখলেন অবদান। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে নিজেদের সর্বোচ্চ রানের নতুন রেকর্ড গড়ল বাংলাদেশ। পরে বোলিংও ছিল দুর্দান্ত। স্বাগতিকদের সামনে দাঁড়াতেই পারল না জিম্বাবুয়ে। বাংলাদেশ পেল ১৬৯ রানের জয়। ওয়ানডেতে নিজেদের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় জয়।
  • ইনিংস ব্যবধানেই জিতল বাংলাদেশ
    আবার যে ব্যাট করতে হবে না আগের দিনই অনুমান করতে পেরেছিলেন মুশফিকুর রহিম। তার অনুমান সত্যি হলো নাঈম হাসান ও তাইজুল ইসলামের স্পিনে। ইনিংস ব্যবধানে জিতে ব্যর্থতার বলয় ভাঙল বাংলাদেশ। চতুর্থ দিন জিম্বাবুয়ের দ্বিতীয় ইনিংস টিকল কেবল দুই সেশন।
  • প্রাপ্তির দিনে জয়ের পথে এগিয়ে বাংলাদেশ
    ক্যারিয়ারে তৃতীয় ডাবল সেঞ্চুরি করলেন মুশফিকুর রহিম। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে টেস্টে সর্বোচ্চ রানের তালিকায় ছাড়িয়ে গেলেন তামিম ইকবালকে। অধিনায়ক হিসেবে নিজের প্রথম সেঞ্চুরি করলেন মুমিনুল হক। স্পর্শ করলেন বাংলাদেশের হয়ে তামিমের সর্বোচ্চ সেঞ্চুরির রেকর্ড। শেষ বেলায় জোড়া আঘাতে জিম্বাবুয়েকে নাড়িয়ে দিলেন নাঈম হাসান। মিরপুর টেস্টে জয়ের পথে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ।
  • মুমিনুল-মুশফিকের ব্যাটে বড় লিডের পথে বাংলাদেশ
    জিম্বাবুয়েকে দ্রুত গুটিয়ে দিয়ে কাজ এগিয়ে রেখেছিলেন আবু জায়েদ চৌধুরী ও তাইজুল ইসলাম। নাজমুল হোসেন শান্ত ও মুমিনুল হকের ফিফটি এবং তিনটি পঞ্চাশ ছোঁয়া জুটিতে বড় লিডের পথে এগিয়ে গেছে বাংলাদেশ।
  • আরভিনের সেঞ্চুরি, নাঈমের ৪ উইকেট
    প্রথম দিনের শেষের আগের ওভারে ক্রেইগ আরভিনকে ফিরিয়ে দিলেন নাঈম হাসান। জমজমাট লড়াইয়ের পর মিরপুর টেস্টের প্রথম দিনে বাংলাদেশকে এগিয়ে রাখলেন তরুণ অফ স্পিনার। ভারপ্রাপ্ত অধিনায়কের সেঞ্চুরির পরও খুব বেশি রান করতে পারেনি জিম্বাবুয়ে।
  • ইনিংস ব্যবধানেই হারল বাংলাদেশ
    রাওয়ালপিন্ডি টেস্ট ইনিংস ও ৪৪ রানে হেরেছে বাংলাদেশ। চতুর্থ দিন সকালে দেড় ঘণ্টারও কম সময় টিকেছে সফরকারীদের দ্বিতীয় ইনিংস।
  • খাদের কিনারা থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে চ্যাম্পিয়ন যুবারা
    রবি বিষ্ণুইয়ের লেগ স্পিনে দিশা হারিয়ে ফেলেছিল বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। ক্র্যাম্পের জন্য মাঝপথে মাঠ ছাড়া পারভেজ হোসেন ফিরে খেললেন বীরত্বপূর্ণ এক ইনিংস। অধিনায়কোচিত ইনিংসে দলকে টানলেন আকবর আলী। খাদের কিনারা থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে ভারত অনূর্ধ্ব-১৯ দলকে হারিয়ে দিল বাংলাদেশ। জিতল যুব বিশ্বকাপ।
  • শেষ বিকেলের ব্যাটিং ধসে বিপর্যস্ত বাংলাদেশ
    ইনিংস হার এড়াতে আরও ৮৬ রান করতে হবে বাংলাদেশকে। পাকিস্তানের চাই ৪ উইকেট।
  • রানের পাহাড়ে চাপা পড়ছে বাংলাদেশ
    সুযোগ এসেছিল বাংলাদেশের সামনে। ২ রানেই ফেরানো যেত বাবর আজমকে। সেঞ্চুরির আগে থামানো যেত শান মাসুদকে। পারেনি মুমিনুল হকের দল। দুই ব্যাটসম্যানই ছুঁয়েছেন তিন অঙ্ক। প্রথম টেস্টে রান পাহাড়ে চাপা পড়ার শঙ্কায় পড়েছে বাংলাদেশ।
  • রাওয়ালপিন্ডিতে ব্যাটসম্যানদের সুযোগ হাতছাড়ার মহড়া
    টস হেরে পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম টেস্টের প্রথম দিন ব্যাট করছে বাংলাদেশ। চলছে তৃতীয় সেশনের খেলা।
  • বৃষ্টিতে ভেসে গেল বাংলাদেশের তৃতীয় টি-টোয়েন্টি
    সিরিজ হারানোর পর স্কোয়াডের অন্য খেলোয়াড়দের সুযোগ দিতে চেয়েছিলেন রাসেল ডমিঙ্গো। বাংলাদেশ কোচের আশা পূরণ হয়নি। বৃষ্টিতে ভেসে গেছে পাকিস্তানের বিপক্ষে তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি।
  • মালিকের সঙ্গে পেরে উঠল না বাংলাদেশ
    বাংলাদেশকে ৫ উইকেটে হারিয়ে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে গেল পাকিস্তান।
  • ৪৭ মিনিটেই শেষ বাংলাদেশের লড়াই
    ম্যাচের ভাগ্য নিয়ে কৌতূহলের বাকি ছিল না মোটেও। দেখার ছিল কেবল বাংলাদেশ ইনিংস পরাজয় এড়াতে পারে কিনা। পারেনি তারা। কলকাতা টেস্টের তৃতীয় দিনে সকালে ৪৭ মিনিটেই গুটিয়ে গেছে দলটি। হেরেছে ইনিংস ও ৪৬ রানে।
  • কলকাতায় প্রথম দিনেই নাকাল বাংলাদেশ
    উৎসবের আবহে শুরু হলো কলকাতা টেস্ট। ভারতের মাটিতে প্রথম দিবা-রাত্রির টেস্ট, কৃত্রিম আলোয় প্রথমবার টেস্ট খেলছে বাংলাদেশও।
  • ভারতীয় ব্যাটিংয়ে পিষ্ট বাংলাদেশের বোলিং
    ইন্দোর টেস্টের প্রথম দিনে বল হাতে বাংলাদেশকে গুঁড়িয়ে দেওয়ার পর দ্বিতীয় দিনে ব্যাটিংয়ে ভারত নিয়েছে বিশাল লিড।
  • বাংলাদেশকে গুঁড়িয়ে প্রথম দিনেই নিয়ন্ত্রণে ভারত
    আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ম্যাচে ইন্দোরে ভারতীয় বোলিংয়ের সামনে নাকাল হয়েছে বাংলাদেশের ব্যাটিং। পরে বাংলাদেশের বোলাররাও পারেননি ভালো শুরু করতে।
  • সম্ভাবনা জাগিয়েও পারল না বাংলাদেশ
    বাংলাদেশকে তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে ৩০ রানে হারিয়ে সিরিজ ২-১ এ জিতল ভারত।
  • বাংলাদেশকে গুঁড়িয়ে সমতায় ভারত
    বাংলাদেশকে ৮ উইকেটে হারিয়ে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে সমতা টেনেছে ভারত।
  • যুগ্ম চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ-আফগানিস্তান
    প্রাথমিক পর্বে দুই দলের লড়াইয়ে ছিল সমতা। ঢাকায় জিতেছিল আফগানিস্তান। চট্টগ্রামে শোধ নিয়েছিল বাংলাদেশ। ফাইনালে ছিল রোমাঞ্চের হাতছানি। তাতে জল ঢেলে দিল বৃষ্টি। পরিত্যক্ত হয়ে গেল ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের ফাইনাল। বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের মধ্যে কোনো টি-টোয়েন্টি এই প্রথম পরিত্যক্ত হল।
  • সাকিব মাস্টারক্লাসে ভাঙল হারের বৃত্ত
    ঘুরে দাঁড়িয়ে বোলাররা লক্ষ্যটা রেখেছিলেন হাতের নাগালে। দুই ওপেনারের দ্রুত বিদায়ের পর দলকে কক্ষপথে ফেরান সাকিব আল হাসান। ফ্লাড লাইট বিভ্রাটের পর টানা তিন ওভারে উইকেট হারিয়ে কঠিন হয়ে পড়েছিল সমীকরণ। তবে অধিনায়কের অসাধারণ ইনিংসে জয়ের হাসিতে মাঠ ছেড়েছে বাংলাদেশ।
  • জিম্বাবুয়েকে উড়িয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ
    মাহমুদউল্লাহর দারুণ ফিফটিতে লড়াইয়ের পুঁজি পাওয়া বাংলাদেশ দাঁড়াতেই দেয়নি জিম্বাবুয়েকে। সম্মিলিত চেষ্টায় হ্যামিল্টন মাসাকাদজার দলকে গুঁড়িয়ে দিয়ে দলকে ফাইনালে নিয়ে গেলেন স্বাগতিক বোলাররা। নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে সাকিব আল হাসানের দল জিতেছে ৩৯ রানে।
  • ব্যাটিং ব্যর্থতায় বাংলাদেশের হার
    মোহাম্মদ নবির ঝড়ো ইনিংসের পরও লক্ষ্যটা নাগালেই ছিল। তবে মুজিব উর রহমানের দারুণ বোলিং আর ব্যাটসম্যানদের বাজে ব্যাটিংয়ের জন্য পেরে উঠলো না বাংলাদেশ। ত্রিদেশীয় সিরিজে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ২৫ রানে হারল সাকিব আল হাসানের দল।
  • আফিফ-মোসাদ্দেকের ব্যাটে বাংলাদেশের রোমাঞ্চকর জয়
    আট নম্বরে নেমে ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দিলেন আফিফ হোসেন। বোলিংয়ে ভালো করার পর ব্যাটিংয়েও অবদান রাখলেন মোসাদ্দেক হোসেন। দুই তরুণের দৃঢ়তায় রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে জিম্বাবুয়েকে ৩ উইকেটে হারিয়ে ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজে শুভ সূচনা করেছে বাংলাদেশ।
  • বৃষ্টি ও বাংলাদেশকে হারিয়ে আফগানদের স্মরণীয় জয়
    বৃষ্টিমুখর শেষ দিনে জয়ের জন্য কেবল ৭০ মিনিট সময় পেয়েছিল আফগানিস্তান। অধিনায়ক রশিদ খানের দুর্দান্ত বোলিংয়ে সেটুকু সময়ই যথেষ্ট হলো। বাংলাদেশ পেল বিব্রতকর এক হারের তেতো স্বাদ। 
  • বাংলাদেশকে হতাশ করে চারশর পথে আফগানদের লিড
    প্রথম ইনিংসের বড় লিড দ্বিতীয় ইনিংসে আরও অনেক বাড়িয়ে নিয়েছে আফগানিস্তান। তৃতীয় দিন শেষে তাদের লিড ৩৭৪ রানের।
  • হতশ্রী ব্যাটিংয়ে বিবর্ণ বাংলাদেশ
    আফগানদের দুর্দান্ত বোলিংয়ের সঙ্গে যোগ হলো বাংলাদেশের বাজে ব্যাটিং। চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ইনিংসে তাই বড় লিডের পথে আফগানিস্তান।
  • রহমত-আসগরের ব্যাটে আফগানদের দিন
    বাংলাদেশের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিনটি নিজেদের করে নিয়েছে আফগানিস্তান।
  • শ্রীলঙ্কায় হোয়াইটওয়াশড বাংলাদেশ
    হোয়াইটওয়াশ এড়ানোর ম্যাচে লড়াই করতেও পারল না বাংলাদেশ। প্রথম দুই ম্যাচের মতো শেষ ম্যাচেও বাংলাদেশকে উড়িয়ে শ্রীলঙ্কা পেল ৩-০ ব্যবধানে জয়ের স্বাদ।
  • দুই ম্যাচেই সিরিজ হারল বাংলাদেশ
    প্রথম ওয়ানডের মতো দ্বিতীয়টিতেও সেভাবে লড়াই করতে পারল না বাংলাদেশ। প্রথম দুই ম্যাচই জিতে শ্রীলঙ্কা জিতে নিল সিরিজ। ৪৪ মাস পর দেশের মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ জয়ের স্বাদ পেল লঙ্কানরা।
  • শেষ ম্যাচে বাংলাদেশের বড় হার
    বড় রান তাড়ায় লড়াই করলেন কেবল সাকিব আল হাসান। বাঁহাতি এই অলরাউন্ডারকে ঘিরে ইনিংস গড়ে তুলতে পারেনি বাংলাদেশ। এর মাশুল দিতে হলো পাকিস্তানের কাছে ৯৪ রানে হেরে।
  • ভারতের কাছে হেরে শেষ বাংলাদেশের সেমির স্বপ্ন
    মুস্তাফিজুর রহমান ও সাকিব আল হাসানের দারুণ বোলিংয়ে লক্ষ্যটা ছিল নাগালে। তবে রান তাড়ায় সম্ভাবনাময় কোনো জুটি হলো না খুব একটা বড়। আশা জাগিয়েও তাই পেরে উঠলো না বাংলাদেশ। মাশরাফি বিন মুর্তজার দলকে ২৮ রানে হারিয়ে দ্বিতীয় দল হিসেবে সেমি-ফাইনাল নিশ্চিত করল ভারত।
  • সাকিবের নৈপুণ্যে শেষ চারের লড়াইয়ে থাকল বাংলাদেশ
    আফগানিস্তান চেয়েছিল অনুজ্জ্বল সাকিব আল হাসানকে। হলো উল্টো। ব্যাটে-বলে নিজেকে মেলে ধরলেন তিনি। তার অলরাউন্ড নৈপুণ্যে আফগানিস্তানকে ৬২ রানে হারিয়ে জয়ে ফিরলো বাংলাদেশ।
  • বোলিং ব্যর্থতায় বাংলাদেশের হার
    বোলারদের ব্যর্থতায় রানের পাহাড় গড়লো অস্ট্রেলিয়া। রান তাড়ায় লড়াকু এক সেঞ্চুরি করলেন মুশফিকুর রহিম। সঙ্গে তামিম ইকবাল দায়িত্বশীল ব্যাটিং ও মাহমুদউল্লাহর ঝড়ো ফিফটিতে ওয়ানডেতে নিজেদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ সংগ্রহ গড়লো বাংলাদেশ। তবুও শেষ পর্যন্ত বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের কাছে ৪৮ রানে হেরে গেল মাশরাফি বিন মুর্তজার দল।
  • সাকিবের সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের রেকর্ড গড়া জয়
    খুব গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ছুড়ে দিয়েছিল বড় রানের চ্যালেঞ্জ। সাকিব আল হাসানের দাপুটে সেঞ্চুরি আর লিটন দাসের দুর্দান্ত ফিফটিতে সহজেই সেই রান ছাড়িয়ে গেল বাংলাদেশ। ওয়ানডেতে নিজেদের ইতিহাসের সর্বোচ্চ রানের লক্ষ্য তাড়া করে জিতল ৭ উইকেটে।
  • বৃষ্টিতে ভেসে গেল বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ
    আবহাওয়ার পূর্বাভাস দেখে যে শঙ্কা জেগেছিল, সেটাই সত্যি হলো। বৃষ্টিতে ভেসে গেল বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার লড়াই। ব্রিস্টলে বিশ্বকাপের এই ম্যাচে টসই হতে পারেনি।
  • সাকিবের সেঞ্চুরির পরও বাংলাদেশের বড় হার
    ইংল্যান্ডের রানের পাহাড় তাড়ায় লড়াই করলেন কেবল সাকিব আল হাসান। বিশ্বকাপে তার প্রথম সেঞ্চুরির পরও বড় হার এড়াতে পারেনি বাংলাদেশ। একপেশে ম্যাচে ১০৬ রানে হেরেছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল।
  • শেষ পর্যন্ত লড়াই করে হারল বাংলাদেশ
    সাকিব আল হাসানের ফিফটিতে এক সময়ে বড় সংগ্রহের আশা জাগিয়েছিল বাংলাদেশ। তবে শেষের ব্যাটিং ব্যর্থতায় গুটিয়ে যায় আড়াইশ রানের আগেই। মাঝারি পুঁজি নিয়ে লড়াই করলেন বোলাররা। তবে শেষ রক্ষা হয়নি। রোমাঞ্চকর ম্যাচে রস টেইলরের ফিফটিতে ২ উইকেটের জয় তুলে নিয়েছে নিউ জিল্যান্ড।
  • দুর্দান্ত জয়ে বিশ্বকাপ শুরু বাংলাদেশের
    সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম করলেন ফিফটি, উপহার দিলেন বিশ্বকাপে রেকর্ড জুটি। শেষটায় ঝড় তুললেন মাহমুদউল্লাহ, বাংলাদেশ পেল ওয়ানডেতে নিজেদের সর্বোচ্চ সংগ্রহ। বোলাররাও রাখলেন সম্মিলিত অবদান। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দারুণ জয় দিয়ে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করল বাংলাদেশ।
  • সৌম্য-মোসাদ্দেক ঝড়ে স্বপ্নের শিরোপা
    লক্ষ্যটা ছিল কঠিন। তবে ঝড় তুলে উড়ন্ত সূচনা এনে দিয়েছিলেন সৌম্য সরকার। দুইবার কাছাকাছি সময়ে জোড়া উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ। সমীকরণ হয়ে গিয়েছিল কঠিন। বিধ্বংসী ইনিংসে সেই সমীকরণ মেলালেন মোসাদ্দেক হোসেন। কাটালেন ফাইনালের গেরো। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে প্রথম শিরোপা জিতল বাংলাদেশ।
  • বড় রান তাড়ায় বাংলাদেশের অনায়াস জয়
    আবু জায়েদ চৌধুরী পাঁচ উইকেট নিলেও পল স্টার্লিংয়ের সেঞ্চুরিতে লড়াই করার মতো রান তুলেছিল আয়ারল্যান্ড। চ্যালেঞ্জিং রান তাড়ায় সামনে থেকে পথ দেখাল উদ্বোধনী জুটি। লিটন দাস ও তামিম ইকবাল করলেন ফিফটি। সাকিব আল হাসানও খেললেন পঞ্চাশ ছোঁয়া ইনিংস। টপ অর্ডারের দৃঢ়তায় অনায়াসেই জিতল বাংলাদেশ।
  • উইন্ডিজকে আবার হারিয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ
    দারুণ বোলিংয়ে লক্ষ্যটা নাগালে রেখেছিলেন মুস্তাফিজুর রহমান-মাশরাফি বিন মুর্তজারা। ভালো শুরুর পরও তিন বলের মধ্যে সাকিব আল হাসান ও সৌম্য সরকারকে হারিয়ে চাপে পড়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ। মোহাম্মদ মিঠুন ও মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে দলকে পথ দেখালেন মুশফিকুর রহিম। দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে দলকে জিতিয়ে নিয়ে গেলেন ফাইনালে।
  • ব্যাটে-বলে উজ্জ্বল বাংলাদেশের সহজ জয়
    শেই হোপের সেঞ্চুরিতে বড় রানের আশা জাগিয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। মাশরাফি বিন মুর্তজার নেতৃত্বে শেষ দিকে ঘুরে দাঁড়িয়ে লক্ষ্যটা নাগালেই রাখে বাংলাদেশ। রান তাড়ায় শতরানের জুটিতে ভিত গড়ে দেন তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার। বাকিটা সারেন সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম। ব্যাটে-বলে নিজেদের মেলে ধরে জয় দিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ শুরু করেছে বাংলাদেশ।
  • ব্যাটিং ব্যর্থতায় সিরিজ হারাল বাংলাদেশ
    এভিন লুইসের টর্নেডো ইনিংসে উড়ন্ত সূচনা পাওয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দুইশ রানের নিচে থামিয়ে আশা জাগিয়েছিলেন বোলাররা। লিটন দাসের ব্যাটে বাংলাদেশের শুরুটা ছিল দারুণ। কিন্তু কিমো পলের ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে পথ হারানো বাংলাদেশ পেরে ওঠেনি শেষ পর্যন্ত। হেরে গেছে সিরিজ নির্ধারণী তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে।
  • সাকিবময় জয়ে সমতায় বাংলাদেশ
    দুর্দান্ত অলরাউন্ড নৈপুণ্যে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিলেন সাকিব আল হাসান। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে সমতায় ফিরল বাংলাদেশ।
  • কটরেল-হোপ উড়িয়ে দিলেন বাংলাদেশকে
    দারুণ বোলিংয়ে বাংলাদেশকে অল্পতে বেঁধে রাখলেন শেলডন কটরেল। ব্যাটিং ঝড়ে বাংলাদেশের বোলিং গুঁড়িয়ে দিলেন শেই হোপ। উড়ন্ত জয়ে টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু করল ওয়েস্ট ইন্ডিজ।
  • উইন্ডিজকে গুঁড়িয়ে বাংলাদেশের সিরিজ জয়
    বোলাররা বেঁধে দিয়েছিলেন সুর। সেই তাল মিলিয়েই ব্যাটসম্যানরা গাইলেন জয়গান। দাপুটে বোলিং ও ব্যাটিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে উড়িয়ে বাংলাদেশ জিতে নিল সিরিজ।
  • হোপের অসাধারণ সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের হার
    জয়ের লক্ষ্যে চোখ রেখে শুরু, প্রায় একাই দলকে সেই লক্ষ্যে নিয়ে শেষ। অসাধারণ এক ইনিংস খেলে শেই হোপ বলতে গেলে একাই হারিয়ে দিলেন বাংলাদেশকে। ৪ উইকেটের জয়ে সিরিজে সমতা ফেরাল ওয়েস্ট ইন্ডিজ।
  • সহজ জয়ে সিরিজে এগিয়ে বাংলাদেশ
    প্রথম ওয়ানডেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৫ উইকেটে হারিয়েছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল।
  • মিরাজের স্পিনে বাংলাদেশের রেকর্ড জয়
    দুর্দান্ত বোলিংয়ে মেহেদী হাসান মিরাজ দুই ইনিংসেই তুলে নিলেন পাঁচ উইকেট। স্পিন জাদুতে প্রথমবারের মতো প্রতিপক্ষকে ফলো অন করিয়ে বাংলাদেশ পেল টেস্টে নিজেদের সবচেয়ে বড় জয়। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করে নিল ক্যারিবিয়ান সফরে নাকাল হওয়ার বদলা।
  • বড় সংগ্রহের পথে বাংলাদেশ
    থিতু হয়েও বড় ইনিংস খেলার সুযোগ হাতছাড়া করলেন সৌম্য সরকার, মুমিনুল হক ও মোহাম্মদ মিঠুন। তবে অভিষেকে দারুণ দৃঢ়তা দেখালেন সাদমান ইসলাম। দায়িত্বশীল ব্যাটিং করলেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান, যোগ্য সঙ্গ পেলেন ডেপুটি মাহমুদউল্লাহর। তাদের ব্যাটে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ঢাকা টেস্টে বড় সংগ্রহের ভিত পেয়ে গেছে বাংলাদেশ।
  • স্পিন জাদুতে বাংলাদেশের দাপুটে জয়
    যন্ত্রণা ফিরিয়ে দেওয়ার সিরিজের শুরুটা হল দারুণ। ওয়েস্ট ইন্ডিজে দুই টেস্টই তিন দিনে হেরে আসা বাংলাদেশ চট্টগ্রাম টেস্ট জিতে নিয়েছে তিন দিনেই। ২০৪ রানের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য পাওয়া সফরকারীদের ৬৪ রানে হারিয়েছে সাকিব আল হাসানের দল।
  • নাঈমের কীর্তির পর বাংলাদেশের তালগোল পাকানো ব্যাটিং
    অভিষেকে সবচেয়ে কম বয়সে পাঁচ উইকেট নিয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন নাঈম হাসান। তরুণ অফ স্পিনারকে দারুণ সঙ্গ দিলেন সাকিব আল হাসান। তাদের নৈপুণ্যে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ পেল ৭৮ রানের লিড। সেই খুশি মিলিয়ে যেতে বসেছে দ্বিতীয় ইনিংসের তালগোল পাকানো ব্যাটিংয়ে।
  • মুমিনুলের সেঞ্চুরির পর তাইজুল-নাঈমের প্রতিরোধ
    প্রথম ওভারে ক্রিজে যাওয়া মুমিনুল হক দাপুটে ব্যাটিং দলকে দেখালেন পথ। ক্যারিয়ারের অষ্টম সেঞ্চুরিতে দলকে দাঁড় করালেন দৃঢ় ভিতের পর। তার বিদায় দিয়েই নামল ধস। শ্যানন গ্যাব্রিয়েলের ছোবলে ১৩ রানে চার উইকেট হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়লো দল। লড়াকু ব্যাটিংয়ে দলকে পথ দেখালেন তাইজুল ইসলাম ও নাঈম হাসান। তাতে প্রথম দিনে তিনশ রান পার করেছে বাংলাদেশ।
  • স্বস্তির জয়ে সমতায় বাংলাদেশ
    অপরাজিত সেঞ্চুরিতে জিম্বাবুয়ের হয়ে লড়াই করলেন ব্রেন্ডন টেইলর। অন্যদের কাছ থেকে পেলেন না খুব একটা সহায়তা। দুই স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ ও তাইজুল ইসলামের নৈপুণ্যে পঞ্চম ও শেষ দিন দুই সেশনে কাজ সেরে ফেলল বাংলাদেশ। ২১৮ রানের জয়ে সমতায় সিরিজ শেষ করল স্বাগতিকরা।
  • শেষ বেলায় কাজ এগিয়ে রাখল বাংলাদেশ
    ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটি করলেন মোহাম্মদ মিঠুন। সাড়ে আট বছর পর টেস্টে সেঞ্চুরি পেলেন মাহমুদউল্লাহ। জিম্বাবুয়েকে ফলো অন না করিয়ে নড়বড়ে শুরুর পর সফরকারীদের তাই প্রায় অসম্ভব লক্ষ্য দিতে পেরেছে বাংলাদেশ। শুরুতে দুটি সুযোগ হাতছাড়া করা স্বাগতিকরা শেষ বেলায় দুই ওপেনারকে ফিরিয়ে এগিয়ে রেখেছে কাজ।
  • তাইজুল-মিরাজের স্পিনে বাংলাদেশের বড় লিড
    উইকেটে বোলারদের জন্য ছিল না খুব একটা সাহায্য। বেশ কয়েকটি সহজ-কঠিন সুযোগ হাতছাড়া করে তাদের কাজটা কঠিন করে তুলেছিলেন ফিল্ডাররা। দায়িত্বশীল এক ইনিংসে বাধার প্রাচীর হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন ব্রেন্ডন টেইলর। দলের খুব প্রয়োজনের সময় নিজেদের মেলে করলেন তাইজুল ইসলাম ও মেহেদী হাসান মিরাজ। স্পিন ভেল্কিতে প্রথম ইনিংসে দলকে এনে দিলেন বড় লিড।
  • মুশফিকের ইতিহাস গড়ার দিনে বাংলাদেশের রানের পাহাড়
    লড়াইয়ের জন্য চাওয়া ছিল চারশ রান। মুশফিকুর রহিমের রেকর্ডময় এক ইনিংসে বাংলাদেশ সেই রান ছাড়িয়ে গেল বহু দূর। দারুণ সঙ্গ দিলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে নিজেদের সর্বোচ্চ রানের ইনিংসে মিরপুর টেস্টে নিয়ন্ত্রণ আরও দৃঢ় হলো বাংলাদেশের। শেষ বেলায় হ্যামিল্টন মাসাকাদজার উইকেট তুলে নিয়ে কাজ এগিয়ে রাখলেন তাইজুল ইসলাম।
  • তিনশ রানের স্বস্তিতে দিন শেষ বাংলাদেশের
    প্রথম ঘণ্টায় তিন উইকেট হারিয়ে চাপে পড়া বাংলাদেশকে রেকর্ড গড়া জুটিতে পথ দেখালেন মুমিনুল হক ও মুশফিকুর রহিম। ক্যারিয়ারের সপ্তম সেঞ্চুরি করে ফিরে গেছেন মুমিনুল। ষষ্ঠ সেঞ্চুরিতে দলকে বড় সংগ্রহের পথে রেখেছেন মুশফিকুর রহিম। দারুণ ব্যাটিংয়ে তিনশ রানের স্বস্তিতে প্রথম দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ।
  • ব্যাটিং ব্যর্থতায় বিব্রতকর হার
    জিম্বাবুয়ের স্পিনের সামনে দাঁড়াতে পারল না বাংলাদেশ। চতুর্থ দিনের সকালে সিকান্দার রাজা স্বাগতিকদের টপ অর্ডারকে কাঁপিয়ে দেওয়ার পর বাকিটা সারলেন দুই অভিষিক্ত ব্র্যান্ডন মাভুটা ও ওয়েলিংটন মাসাকাদজা। সিলেটের অভিষেক টেস্ট সফরকারীরা জিতল ১৫১ রনে।
  • রেকর্ড গড়ে জিততে হবে বাংলাদেশকে
    সিলেট টেস্ট জিততে নিজেদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জেতার রেকর্ড গড়তে হবে বাংলাদেশকে। সেই লক্ষ্যে দলকে সতর্ক শুরু এনে দিয়েছেন দুই ওপেনার ইমরুল কায়েস ও লিটন দাস।
  • বাংলাদেশকে গুঁড়িয়ে দিয়ে জিম্বাবুয়ের বড় লিড
    প্রথম দিন শেষে দুই দল ছিল প্রায় সমতায়। দ্বিতীয় দিন প্রথম সেশনে দ্রুত জিম্বাবুয়ের ৫ উইকেট তুলে নিয়ে এগিয়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ। তবে শেষ দুই সেশনে স্বাগতিকদের ১৪৩ রানে গুঁড়িয়ে দিয়ে সিলেট টেস্টে চালকের আসনে বসেছে জিম্বাবুয়ে।
  • সিলেটে ব্যাটে-বলে দারুণ লড়াই
    সিলেট টেস্টের প্রথম দিন দেখা গেল ব্যাটে-বলের দারুণ লড়াই। শন উইলিয়ামস ও হ্যামিল্টন মাসাকাদজার ফিফটিতে প্রথম দিনে আড়াইশ রানের কাছে গেছে জিম্বাবুয়ে। পাঁচ উইকেট তুলে ম্যাচ নিয়ন্ত্রণের বাইরে যেতে দেয়নি বাংলাদেশ। প্রথম দিন শেষে দুই দল প্রায় সমানে-সমান।
  • ইমরুল-সৌম্যর সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের দুর্দান্ত জয়
    শন উইলিয়ামসের সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশকে বড় লক্ষ্য দিয়েছিল জিম্বাবুয়ে। কিন্তু ইমরুল কায়েস ও সৌম্য সরকারের জোড়া সেঞ্চুরিতে সহজ জয়ে অতিথিদের হোয়াইটওয়াশ করল বাংলাদেশ।