• রুদ্ধশ্বাস উত্তেজনার ম‍্যাচে ভারতের বিপক্ষে পারল না আয়ারল‍্যান্ড
    বারবার রং পাল্টানো ম‍্যাচের শেষ ওভারের প্রথম ৩ বল থেকে এলো ৯ রান। শেষ ৩ বলে সমীকরণ দাঁড়াল ৮ রান। মহাগুরুত্বপূর্ণ সেই সময়ে দেখা গেল অন‍্য এক উমরান মালিককে। এতক্ষণ অকাতরে রান বিলানো গতিময় পেসার মাথা খাটিয়ে বোলিং করে দিলেন কেবল ৩ রান। নখকামড়ানো উত্তেজনার ম‍্যাচে আয়ারল‍্যান্ডের জন‍্য শেষটা হলো হতাশার। অবিশ্বাস‍্য এক জয়ের আশা জাগিয়েও ভারতের বিপক্ষে পারল না তারা।
  • টেক্টর-ঝড় ছাপিয়ে ভারতের জয়
    প্রায় একার লড়াইয়ে আয়ারল‍্যান্ডকে একশ ছাড়ানো সংগ্রহ এনে দিয়েছিলেন হ‍্যারি টেক্টর। বৃষ্টির জন‍্য ছোট হয়ে আসা ম‍্যাচের জন‍্য বেশ ভালো পুঁজিই। তবে বিস্ফোরক ব‍্যাটিংয়ে সেটাকে মামুলি বানিয়ে ফেললেন দিপক হুডা, হার্দিক পান্ডিয়া, ইশান কিষানরা।মাঝে একটু সময়ের জন‍্য ছন্দ হারালেও সহজেই জিতল ভারত।
  • বাংলাদেশের হতাশার ব্যাটিংয়ের পর ব্র্যাথওয়েট-ক্যাম্পবেলের দৃঢ়তা
    ভালো শুরু পেয়েও বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা পারলেন না বড় ইনিংস খেলতে। উইকেট ছুঁড়ে আসার প্রতিযোগিতায় যেন নেমেছিলেন তারা। তাতে শক্ত ভিত পেলেও বড় সংগ্রহ গড়তে পারেনি দল। পরে সফরকারীদের হতাশ করলেন বোলাররাও। আত্মবিশ্বাসী ব্যাটিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ভালো শুরু এনে দিলেন দুই ওপেনার ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট ও জন ক্যাম্পবেল।
  • সিরিজ জিতে বাংলাদেশের আরও কাছে ইংল‍্যান্ড
    প্রথম ওয়ানডের মতো অতটা একপেশে হলো না ম‍্যাচ। লড়াইয়ের কিছুটা ছাপ রাখতে পারল নেদারল‍্যান্ডস। মাঝপথে একটু সময়ের জন‍্য ধাক্কা খেলেও শেষ পর্যন্ত সহজ জয়ই পেল ইংল‍্যান্ড। সিরিজ নিশ্চিত করার সঙ্গে বিশ্বকাপ সুপার লিগের পয়েন্ট টেবিলে বাংলাদেশের সঙ্গে ব‍্যবধান কমাল ওয়েন মর্গ্যানের দল।
  • জোসেফের ছোবল সামলে জয়-শান্তর লড়াই
    প্রথম ইনিংসে ক‍্যারিয়ার সেরা বোলিং করা আলজারি জোসেফ আলো ছড়ালেন আবারও। তবে তার ছোবল সামলে প্রতিরোধ গড়লেন মাহমুদুল হাসান জয় ও নাজমুল হোসেন শান্ত। দ্রুত ২ উইকেট হারানোর পর দ্বিতীয় দিনের শেষ বেলাটা নিরাপদে কাটিয়ে দিলেন এই দুই তরুণ।
  • বাংলাদেশের ব্যাটিং ব্যর্থতার পর ব্র্যাথওয়েটের দৃঢ়তা
    সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে সহজ হয়ে যাচ্ছে ব‍্যাটিং। তারপরও দারুণ বোলিংয়ে লড়াই করে যাচ্ছে বাংলাদেশ। তবে ভাগ‍্যকে পাশে পাওয়া ক্রেইগ ব্র‍্যাথওয়েট দেখিয়ে চলেছেন অ‍্যান্টিগার উইকেটে কীভাবে ইনিংস গড়ে তুলে হয়। অধিনায়কের দৃঢ়তায় প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে বড় লিড নেওয়ার ভিত পেয়ে গেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।
  • সাকিব ৫১, বাংলাদেশ ১০৩
    উইকেটের কোথাও ঘাস আছে, কোথাও নেই। শুরু থেকেই দেখা মিলল অসমান গতি ও বাউন্স। সঙ্গে আর্দ্রতার উপস্থিতিতে বাংলাদেশের কাজটা হলো আরও চ‍্যালেঞ্জিং। এই পরিস্থিতিতে দরকার ছিল চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞা নিয়ে ব‍্যাটিং। নিজের মতো করে চেষ্টা করলেন সাকিব আল হাসান। আর কেউ পারলেন না তেমন লড়াই করতেও। তাই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস টিকল না দুই সেশনও।
  • বেয়ারস্টোর বিধ্বংসী সেঞ্চুরিতে ইংল‍্যান্ডের অবিশ্বাস‍্য জয়
    চা-বিরতির পর ম‍্যাট হেনরিকে চার বলের মধ‍্যে তিন চার মেরে ডানা মেলে দিলেন জনি বেয়ারস্টো। টি-টোয়েন্টি ঘরানার ব‍্যাটিংয়ে এরপর চালিয়ে গেলেন তাণ্ডব। তাকে দারুণ সঙ্গ দিলেন অধিনায়ক বেন স্টোকস। তাদের খুনে জুটিতে অবিশ্বাস‍্য জয়ে এক ম‍্যাচ বাকি থাকতেই নিউ জিল‍্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ জিতে গেল ইংল‍্যান্ড।  
  • রোমাঞ্চকর বাঁকে ইংল‍্যান্ড-নিউ জিল‍্যান্ড টেস্ট
    লিড এতোটা বড় হয়নি যে, নিশ্চিত হতে পারে নিউ জিল‍্যান্ড। আবার চতুর্থ দিন শেষে ম‍্যাচ যেখানে, তাতে জয়ের নিশ্চিত ছবিও দেখছে না ইংল‍্যান্ড। নানা ধাপ পেরিয়ে শেষ দিনের আগে রোমাঞ্চকর এক বাঁকে দাঁড়িয়ে নটিংহ‍্যাম টেস্ট। শেষ দিনে হতে পারে যে কোনো ফল।
  • শানাকার খুনে ব‍্যাটিংয়ে শ্রীলঙ্কার অবিশ্বাস‍্য জয়
    শেষ বলে প্রয়োজন ১ রান। কেন রিচার্ডসন ডেলিভারি দিলেন অফ স্টাম্পের অনেক বাইরে। তাড়া করার চেষ্টা করলেন না দাসুন শানাকা। আম্পায়ার দিলেন ওয়াইড, ১ বল বাকি থাকতেই জিতে গেল শ্রীলঙ্কা। এমন নিস্তরঙ্গ শেষ দেখে বোঝার উপায় নেই, কতটা পাগলাটে ছিল স্বাগতিকদের ইনিংসের শেষ ৩ ওভার। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কতটা অবিশ্বাস‍্য জয়ে তারা এড়িয়েছে হোয়াইটওয়াশ।
  • দুই রিচার্ডসনের বোলিংয়ে সিরিজ অস্ট্রেলিয়ার
    কেন রিচার্ডসন ও জাই রিচার্ডসনের দারুণ বোলিংয়ে লক্ষ‍্যটা নাগালে ছিল অস্ট্রেলিয়ার। তবে লেগ স্পিনার ভানিন্দু হাসারাঙ্গার নৈপুণ্যে সেটাও হয়ে ওঠে কঠিন। শেষ পর্যন্ত অবশ‍্য পেরে ওঠেনি শ্রীলঙ্কা। টানা দুই জয়ে এক ম‍্যাচ বাকি থাকতেই টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতে নিল সফরকারীরা।
  • লাঞ্চের পর দিক হারিয়ে বাংলাদেশের বড় হার
    সাকিব আল হাসান ও লিটন দাসের শতরানের জুটিতে জেগেছিল আশা। দ্বিতীয় সেশন ঠিকঠাক কাটিয়ে দিতে পারলে হয়তো ম‍্যাচ বাঁচানোর পথে এগিয়ে যেতে পারতো বাংলাদেশ। আসিথা ফার্নান্দোর ক‍্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে এর ধারেকাছেও যেতে পারল না স্বাগতিকরা। তাদের হতাশায় ডুবিয়ে অনায়াসে মিরপুর টেস্ট জিতে সিরিজও জিতল শ্রীলঙ্কা।
  • তামিম শূন্য, মুমিনুল শূন্য, শেষ দিনের কঠিন পরীক্ষায় বাংলাদেশ
    প্রথম ইনিংসের ভুল থেকে যেন কিছুই শিখেননি বাংলাদেশের ব‍্যাটসম‍্যানরা। স্রেফ ১০ ওভারের মধ‍্যে দ্বিতীয় ইনিংসও পরিণত হলো ধ্বংসস্তূপে। সেখান থেকে দলকে বাঁচাতে আবার জুটি বেঁধেছেন প্রথম ইনিংসের দুই নায়ক মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাস।
  • সাকিব-ইবাদতের ছোবল সামলে এগিয়ে শ্রীলঙ্কা
    ইবাদত হোসেনের হাত ধরে দিনের দ্বিতীয় বলেই এলো উইকেট। এরপর ঝলক দেখালেন সাকিব আল হাসান। পরে চতুর্থ উইকেট জুটির প্রতিরোধও ভাঙলেন বাঁহাতি এই স্পিনার। তবে বল হাতে ভূমিকা রাখতে পারলেন না আর কেউ। বৃষ্টি বিঘ্নিত দিনে লিডের পথে অনেকটাই এগিয়ে গেল শ্রীলঙ্কা।
  • অনেক আফসোসে দিনটা ভালো হলো না বাংলাদেশের
    হাতছাড়া হলো দুটি ক‍্যাচ। ক‍্যাচের মতো উঠলেও একবার একটুর জন‍্য গেল না হাতে। লেগ স্টাম্পের বাইরে পিচ করেছে ভেবে নেওয়া হলো না একটি রিভিউ। একবার ব‍্যাটসম‍্যান বাঁচলেন আম্পায়ার্স কলে। এই সব কিছু পক্ষে এলে দিনটি আরও ভালো হতে পারতো বাংলাদেশের। তা তো হলোই না, বরং বারবার বেঁচে যাওয়া দিমুথ করুনারত্নের ফিফটিতে একটু যেন এগিয়েই রইলো শ্রীলঙ্কা।
  • মুশফিক ১৭৫*, বাংলাদেশ ৩৬৫
    আগের দিনের দুই অপরাজিত ব‍্যাটসম‍্যান মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাসের কাছে প্রথম ঘণ্টা চেয়েছিলেন বাংলাদেশ কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। তার চাওয়া পূরণ করতে পারেননি লিটন। তবে চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞায় শেষ পর্যন্ত লড়াই করে যান মুশফিক। তার দৃঢ়তায় প্রথম ইনিংসে সাড়ে তিনশ ছাড়ায় বাংলাদেশের সংগ্রহ।
  • দুঃস্বপ্নের শুরুর পর বাংলাদেশের স্বপ্নময় দিন
    সাত ওভারের মধ‍্যেই নেই ৫ উইকেট। ৪২ মিনিটের মধ‍্যে দলের অর্ধেক ব‍্যাটসম‍্যানকে হারানো বাংলাদেশের সামনে তখন এক সেশনেই গুটিয়ে যাওয়ার চোখ রাঙানি। সেখান থেকে কী দারুণভাবেই না দলকে টানলেন মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাস। সেঞ্চুরি করলেন, রেকর্ড গড়লেন আর দলকে উপহার দিলেন স্বপ্নের দিন। তাদের সৌজন‍্যেই শুরুর মলিনতা ঝেড়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মিরপুর টেস্টে বড় সংগ্রহের পথে ছুটছে বাংলাদেশ। 
  • বড় হারের শঙ্কায় বাংলাদেশ
    স্রেফ ১০ ওভার কাটিতে দিতে হতো বাংলাদেশের। দিনের শেষ বেলার এই সময়টুকুই পার করতে পারলেন না টপ অর্ডার ব‍্যাটসম‍্যানরা। একে একে ফিরে গেলেন মাহমুদুল হাসান জয়, নাজমুল হোসেন শান্ত ও তামিম ইকবাল। শুরুর ব‍্যাটিং ব‍্যর্থতায় পোর্ট এলিজাবেথ টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বড় হারের শঙ্কায় বাংলাদেশ।
  • মুশফিকের আত্মঘাতী শটের পর দিক হারা বাংলাদেশ
    দিনের শুরুটা কী দারুণ হয়েছিল। প্রথম তিন বলে তিন বাউন্ডারি মেরেছিলেন ইয়াসির আলি চৌধুরি। আস্থার সঙ্গে খেলছিলেন মুশফিকুর রহিম। ওই জুটি ভাঙার পর দেশের সফলতম টেস্ট ব্যাটসম্যানের দায়িত্ব ছিল আরও বেশি। কিন্তু তিনি বিদায় নিলেন আত্মঘাতী এক শটে। এরপর দ্রুতই গুটিয়ে গেল বাংলাদেশের ইনিংস।
  • অলিভিয়ের-মুল্ডারের ছোবলে বিপদে বাংলাদেশ
    প্রথম টেস্টে ১১০ ওভার শেষে আক্রমণে আসা ভিয়ান মুল্ডার এবার বল হাতে পেলেন আগেভাগে। প্রথম ওভারেই বিদায় করলেন বিপজ্জনক হয়ে ওঠা তামিম ইকবালকে। পরে একইরকম ডেলিভারিতে ফেরালেন দুই বাঁহাতি ব‍্যাটসম‍্যান নাজমুল হোসেন শান্ত ও মুমিনুল হককে। এর আগে-পরে দুটি উইকেট নিলেন ডুয়ানে অলিভিয়ের। এই দুই পেসারের ছোবলে পোর্ট এলিজাবেথ টেস্টে বিপদে বাংলাদেশ।
  • হতাশার মধ‍্যে আলোর রেখা তাইজুল
    আগের ম‍্যাচে ব‍্যাটে-বলে বাংলাদেশকে ভোগানো কেশভ মহারাজ এবার খেললেন ক‍্যারিয়ার সেরা ইনিংস। তার আক্রমণাত্মক ব‍্যাটিংয়ে ভেস্তে গেল দক্ষিণ আফ্রিকাকে কম রানে থামানোর আশা। সেঞ্চুরির আগে মহারাজকে থামানো তাইজুল ইসলাম পরে নিলেন আরেকটি উইকেট। বাঁহাতি এই স্পিনারের জন‍্যই আরও বড় হলো না দক্ষিণ আফ্রিকার রান।
  • বাবরকে ছাপিয়ে নায়ক ফিঞ্চ
    সব ছাপিয়ে যেন মূল লড়াই গিয়ে ঠেকেছিল দুই অধিনায়কের মধ‍্যে। বাবর আজম বিদায় নেন ইনিংসের মাঝ পথেই। তার আউটের পর দিক হারায় পাকিস্তান। তবে অস্ট্রেলিয়াকে জয়ের দুয়ারে নিয়েই ফেরেন অ‍্যারন ফিঞ্চ।
  • অসহায় আত্মসমর্পণে ৫৫ মিনিটেই শেষ বাংলাদেশ
    ডারবান টেস্টের শেষ দিনে কেশভ মহারাজ ও সাইমন হার্মারের স্পিনের বিপক্ষে ন‍্যূনতম লড়াইটুকুও করতে পারল না বাংলাদেশ। ম‍্যাচ এগিয়ে নেওয়ার চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞা দেখাতে পারলেন না কেউই। তাতে পঞ্চম ও শেষ দিনে স্রেফ ৫৫ মিনিটেই গুটিয়ে গেল বাংলাদেশের দ্বিতীয় ইনিংস।
  • খালেদের ৪ উইকেটে ৩৬৭ রানে থামল দ. আফ্রিকা
    ৩০০ থেকে ৩২০ রানের মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকাকে থামানোর লক্ষ‍্যে বাংলাদেশ দিনের শুরুটা করে দুর্দান্ত। খালেদ আহমেদের দারুণ বোলিংয়ে আশা জাগায় সেই লক্ষ্য অর্জনের। লোয়ার অর্ডারের প্রতিরোধে শেষ পর্যন্ত অবশ্য সাড়ে তিনশ ছাড়িয়ে গেছে দক্ষিণ আফ্রিকার সংগ্রহ।
  • বিবর্ণ শুরুর পর বাংলাদেশের লড়াই
    উইকেটের আর্দ্রতা কাজে লাগাতে টস জিতে মুমিনুল হক নিলেন বোলিং। অধিনায়কের চাওয়া যদিও পূরণ হলো না। তেমন বোলিংই করতে পারলেন না বাংলাদেশের বোলাররা। এলোমেলো বোলিংয়ের সুবিধা নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা শুরুর জুটিতেই পেয়ে যায় শতরান। তবে বিবর্ণ প্রথম সেশনের পর ঘুরে দাঁড়িয়ে লড়াইয়ে ফিরেছে সফরকারীরা।
  • ব্র্যাথওয়েটের ম্যারাথন ইনিংসে ড্রয়ের পথে টেস্ট
    ৭১০ মিনিট ব‍্যাট করলেন, খেললেন ৪৮৯ বল। অধিনায়ক ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েটের দেখানো পথ ধরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের অন‍্য ব‍্যাটসম‍্যানরাও চেষ্টা করলেন ক্রিজে সময় কাটানোর। তারপরও প্রায় শতরানের লিড পেল ইংল‍্যান্ড। তবে অতি নাটকীয় কিছু না হলে ড্রয়ের পথে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টও।
  • ব্র্যাথওয়েট-ব্ল্যাকউডের সেঞ্চুরিতে জবাব দিচ্ছে উইন্ডিজ
    প্রথম সেশনে দুই উইকেট হারিয়ে একটু চাপে পড়ে যাওয়া দলকে টানলেন ক্রেইগ ব্র‍্যাথওয়েট ও জার্মেইন ব্ল‍্যাকউড। তাদের দুই সেঞ্চুরিতে প্রথম ইনিংসে রান পাহাড় গড়া ইংল‍্যান্ডের সঙ্গে ব‍্যবধান কিছুটা কমাল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দিনের শেষ বেলায় ব্ল‍্যাকউড ফিরে গেলেও অপরাজিত ক‍্যারিবিয়ান অধিনায়ক।
  • নাহিদার দারুণ লড়াইয়েও বাংলাদেশের সুবর্ণ সুযোগ হাতছাড়া
    চমৎকার বোলিংয়ের পর ব‍্যাট হাতে শেষ পর্যন্ত লড়াই করলেন নাহিদা আক্তার। তবুও পেরে উঠল না বাংলাদেশ। নারী বিশ্বকাপে টানা দ্বিতীয় জয় পেতে পেতেও পাওয়া হলো না নিগার সুলতানার দলের। কম রানের রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হেরে গেল বাংলাদেশ।
  • স্টোকসের সেঞ্চুরির পর ক‍্যারিবিয়ানদের প্রতিরোধ
    জো রুটের পর তিন অঙ্কের দেখা পেয়েছেন বেন স্টোকস। সপ্তম উইকেটে চমৎকার এক জুটি উপহার দিয়েছেন বেন ফকস ও ক্রিস ওকস। তাদের ব‍্যাটে প্রথম ইনিংসে পাঁচশ ছাড়ানো সংগ্রহ পেয়েছে ইংল‍্যান্ড। জবাব দিতে নেমে দ্রুত উদ্বোধনী জুটি ভাঙলেও ক্রেইগ ব্র‍্যাথওয়েট ও শামার ব্রুকসের ব‍্যাটে লড়াই করছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।
  • জীবন পেয়ে রুটের সেঞ্চুরি, লরেন্সের আক্ষেপ
    ওয়েস্ট ইন্ডিজ রিভিউ নিলে ফিরতে পারতেন ২৩ রানে কিংবা জশুয়া দা সিলভা ক‍্যাচ গ্লাভসে নিতে পারলে থামতেন ৩৪ রানে। দুটি সুযোগ হাতছাড়া করা স্বাগতিকরা পরে আর সারা দিনে আউট করতে পারেনি জো রুটকে। টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরিতে দলকে বড় সংগ্রহের পথে রেখেছেন ইংল‍্যান্ড অধিনায়ক। সেখানে তাকে দারুণ সহায়তা দেওয়া ড‍্যান লরেন্স পুড়েছেন কেবল ৯ রানের জন‍্য সেঞ্চুরি না পাওয়ার আক্ষেপে।
  • শ্রেয়াসের ঝড়ো ব‍্যাটিংয়ে ভারতের টানা ১২
    দলের বাজে শুরুর পর প্রায় একার চেষ্টায় দেড়শ রানের কাছে সংগ্রহ নিয়ে গেলেন দাসুন শানাকা। কিন্তু উইকেটে বেশ সহায়তা থাকলেও সেই রান নিয়ে খুব একটা লড়াই করতে পারলেন না শ্রীলঙ্কার বোলাররা। আরও একবার তাদের ওপর চড়াও হয়ে ব‍্যবধান গড়ে দিলেন শ্রেয়াস আইয়ার। সিরিজে তার টানা তৃতীয় ফিফটিতে লঙ্কানদের হোয়াইটওয়াশ করে ছাড়ল ভারত।
  • বিস্ফোরক রান তাড়ায় জয়রথেই ভারত
    লঙ্কান ইনিংসের শেষ দিকে যে ঝড় তুলেছিলেন দাসুন শানাকা, ভারতের ইনিংসের শুরু থেকেই যেন সেটা ফিরিয়ে দিলেন শ্রেয়াস আইয়ার। একইরকম ব্যাটিং উপহার দিলেন রবীন্দ্র জাদেজা। শ্রীলঙ্কার বোলিংকে গুঁড়িয়ে অনায়াসেই বড় লক্ষ্য তাড়া করে ফেলল ভারত। ধরে রাখল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে চলা জয়রথ, সঙ্গে নিশ্চিত করল সিরিজও।
  • প্রথম সেশনেই নিউ জিল‍্যান্ডকে গুটিয়ে দিল বাংলাদেশ
    আগের দিন ভালো বোলিং করলেও পাননি কোনো উইকেট। দ্বিতীয় দিন দারুণ বোলিংয়ে মেহেদী হাসান মিরাজ ধরলেন তিন শিকার। অফ স্পিনারের হাত ধরে প্রথম সেশনেই নিউ জিল‍্যান্ডকে থামিয়ে দিল বাংলাদেশ।
  • সেঞ্চুরিয়ন দুর্গ জয় করে সিরিজে এগিয়ে ভারত
    ভারতের এবারের সফরকে বলা হচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকায় অধরা সিরিজ জয়ের সবচেয়ে বড় সুযোগ। প্রথম টেস্টেই সেই সম্ভাবনা আরও উজ্জ্বল করে তুলল তারা। যে মাঠকে বলা হয় দক্ষিণ আফ্রিকার দুর্গ, সেখানেই তাদেরকে হারিয়ে সিরিজ জয়ের ইতিহাস গড়ার পথে এক ধাপ এগিয়ে গেল বিরাট কোহলির দল।