• কাপালীকে টপকে রেকর্ড বইয়ে নাসিম
    বাংলাদেশি লেগ স্পিনার অলক কাপালীকে টপকে টেস্টে সবচেয়ে কম বয়সে হ্যাটট্রিকের রেকর্ড গড়েছেন পাকিস্তানি পেসার নাসিম শাহ।
  • আধ ঘণ্টার নাটকীয়তায় ইনিংস হারের মুখে বাংলাদেশ
    দিনের শুরুটা হয়েছিল বেশ ভালো। দ্বিতীয় ওভারেই উইকেট। ধারাবাহিকতা ধরে রেখে পাকিস্তানের প্রথম ইনিংস সাড়ে চারশর আগে থামিয়ে দেন বোলাররা। কিন্তু শেষ বিকেলের নাটকীয় ব্যাটিং ধসে বাংলাদেশ পড়েছে ইনিংস হারের শঙ্কায়।
  • যুব বিশ্বকাপ নয়, বাংলাদেশের অপেক্ষায় নাসিম শাহ
    অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের দল থেকে নাসিম শাহের নাম সরিয়ে নিয়েছে পাকিস্তান। এরই মধ্যে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখা গতিময় এই পেসারকে বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজে খেলানোর পরিকল্পনা আছে দেশটির ক্রিকেট বোর্ডের।
  • সেই নাসিমের পর রেকর্ডে এই নাসিম
    দারুণ সম্ভাবনা থাকলেও শেষ পর্যন্ত খুব সমৃদ্ধ হয়নি টেস্ট ক্যারিয়ার। নাসিম-উল-গনি তবু টেস্ট ইতিহাসে আলাদা জায়গা নিয়ে আছেন একটি জায়গায়। সবচেয়ে কম বয়সে ৫ উইকেট নেওয়ার রেকর্ডটি গত ৬ দশক ধরেই পাকিস্তানের সাবেক এই স্পিনারের। এবার রেকর্ড বইয়ে তার পরেই জায়গা করে নিলেন আরেক নাসিম। পাকিস্তানের এই সময়ের সেনসেশন নাসিম শাহ।
  • পাকিস্তানের ঘরে ফেরার জয়ে নাসিমের রেকর্ড
    দশ বছর পর ঘরের মাঠে টেস্ট ফেরার উপলক্ষ্য বড় জয় দিয়ে রাঙানোর দুয়ারেই ছিল পাকিস্তান। শেষ দিনে অবশিষ্ট তিন উইকেটে শ্রীলঙ্কা যোগ করতে পারল না কোনো রান। আনুষ্ঠানিকতা সারতে স্বাগতিকদের লাগল মাত্র ষোলো বল। সবচেয়ে কম বয়সী পেসার হিসেবে টেস্টে ৫ উইকেট পাওয়ার রেকর্ড গড়ে দলকে দারুণ এক জয় এনে দিলেন নাসিম শাহ।
  • রূপকথাময় পথচলায় রেকর্ড বইয়ে ১৬ বছর বয়সী নাসিম
    খাইবার পাখতুনওয়া প্রদেশের ছোট এক জেলা শহর থেকে পাঁচ বছর আগে লাহোরের পথে পাড়ি জমিয়েছিল এক কিশোর। বয়স তখন সবে ১১, চোখে অবারিত স্বপ্ন। হয়ে উঠবেন ক্রিকেটার, খেলবেন পাকিস্তানের জার্সিতে! পাকিস্তানের আর দশটা পেসারের মতো গতিটা তার সহজাত। তবে নিজের বলের চেয়েও গতিময়তায় এগিয়ে গেলেন যেন স্বপ্নপূরণের পথে। ১৬ বছর বয়সেই টেস্ট ক্যাপ! ছুটে চলার চমকপ্রদ আখ্যান রচনা করে নাসিম শাহ নাম লেখালেন রেকর্ড বইয়ে।
  • অস্ট্রেলিয়ায় গতির ঝড় তুলতে উন্মুখ মুসা-নাসিম
    পাকিস্তানের আনকোরা দুই পেসার গতি দিয়ে চমকে দিতে চান ক্রিকেট বিশ্বকে। অস্ট্রেলিয়ায় সুযোগ এলে নিজেদের উজাড় করে দিতে প্রস্তুত মুসা খান ও নাসিম শাহ।