• ছবিতে বিপিএল: চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স-কুমিল্লা ওয়ারিয়র্স
    ইমরুল কায়েস ও চাডউইক ওয়ালটনের ঝড়ো ফিফটিতে আসরের সর্বোচ্চ রান তোলে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। শুরুতে হোঁচট খাওয়া কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সকে লড়াইয়ে রাখেন ডেভিড মালান। রান-বন্যার ম্যাচে তাকেও থামিয়ে শেষ পর্যন্ত ব্যবধান গড়ে দেন তরুণ বাঁহাতি পেসার মেহেদি হাসান রানা। আসরের পঞ্চম জয়ে শীর্ষস্থান সুসংহত করে চট্টগ্রাম। ছবি: সুমন বাবু ও বিসিবি
  • রুহেলের রেকর্ড, দুই দিনেই জিতে প্রথম স্তরে উঠল সিলেট
    প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও বল হাতে আগুন ঝরালেন রুহেল মিয়া। গড়লেন ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে কোনো পেসারের এক ম্যাচে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারের রেকর্ড। তার তোপে চট্টগ্রামকে দুই দিনেই হারিয়ে দিল সিলেট। দ্বিতীয় স্তরে চ্যাম্পিয়ন হয়ে উঠে গেল প্রথম স্তরে।
  • রুহেলের তোপে প্রথম দিনেই লিড সিলেটের
    প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে মাত্র তৃতীয় ম্যাচ খেলতে নামা রুহেল মিয়া করলেন আগুনে বোলিং। চট্টগ্রামের ব্যাটিং গুঁড়িয়ে দিয়ে গড়লেন ইতিহাস। তার এমন কীর্তি গড়া ম্যাচে প্রথম দিনেই দলকে লিড এনে দিয়েছেন সিলেটের ব্যাটসম্যানরা।
  • ৮ উইকেট নিয়ে রুহেলের রেকর্ড
    শুরুর ধাক্কা সামলাতে চট্টগ্রামের ভরসা হয়ে ছিলেন অভিজ্ঞ তাসামুল হক। কিন্তু সিলেটের অনভিজ্ঞ পেসার রুহেল মিয়া যে এত ভয়ঙ্কর হয়ে উঠবেন কে জানতো! প্রথম স্পেলে দুই উইকেট নেয়ার পর দ্বিতীয় স্পেলে এসে তাসামুলসহ চট্টগ্রামের শেষ ৬ ব্যাটসম্যানকে ফিরিয়েছেন তরুণ এই পেসার। গড়েছেন দেশের প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে কোনো পেসারের সেরা বোলিংয়ের রেকর্ড।
  • শহিদুলের ছোবলে চট্টগ্রামের ইনিংস হার
    প্রথম ইনিংসে একশর আগে অলআউট হয়ে ফলো-অনে পড়ার পর থেকেই বড় হার চোখ রাঙাচ্ছিল চট্টগ্রামকে। দ্বিতীয় ইনিংসে লড়াই করলেন পিনাক ঘোষ ও অধিনায়ক ইয়াসির আলি। তবে ইনিংস পরাজয় এড়াতে যথেষ্ট হলো না সেই রান। পেসার শহিদুল ইসলামের দারুণ বোলিংয়ে জাতীয় লিগের দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচে ইনিংস ব্যবধানে জিতল ঢাকা মেট্রো।
  • তাসকিন-শরিফুল্লাহর দাপটে বড় হারের শঙ্কায় চট্টগ্রাম
    তাসকিন আহমেদ ও শরিফুল্লাহর দুরন্ত বোলিংয়ে প্রথম ইনিংসে গুটিয়ে গেল একশর আগেই। ফলো-অনে পড়েও ব্যর্থ চট্টগ্রামের টপ-অর্ডার। ঢাকা মেট্রোর বিপক্ষে জাতীয় লিগের দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচে ইনিংস পরাজয় এড়াতে লড়ছে দলটি।
  • ভারত সফরের আগে দেড়শ ছাড়িয়ে সাদমান
    ভারত সফরের দলে যোগ দেওয়ার আগে আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে নিতে প্রস্তুতিটা দারুণ হলো সাদমান ইসলামের। রানের দেখা পেলেন টপ ও মিডল অর্ডারের আরও তিন জন। সবার মিলিত অবদানে চট্টগ্রামের বিপক্ষে বড় সংগ্রহের পথে এগিয়ে গেছে ঢাকা মেট্রো।
  • মেহেদী হাসান রানার ৫ উইকেটে চট্টগ্রামের নাটকীয় জয়
    ম্যাচের প্রথম দুই দিন ভেসে গেল বৃষ্টিতে। তৃতীয় দিনে ইফরান হোসেনের ছয় উইকেটে প্রথম ইনিংসে সিলেটকে অল্প রানে গুটিয়ে দেওয়ার পর পিনাক ঘোষের সেঞ্চুরিতে লিড নিল চট্টগ্রাম। শেষ দিনে আরেক পেসার মেহেদী হাসান রানার ৫ উইকেটে দ্বিতীয় ইনিংসেও ধসে গেল সিলেট। দুই দিনের লড়াইয়ে জয় তুলে নিল মুমিনুল হকের দল।
  • দ্বিতীয় ইনিংসেও উজ্জ্বল নাঈম হাসান
    প্রথম ইনিংসের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও ৪ উইকেট পেলেন চট্টগ্রামের তরুণ অফস্পিনার নাঈম হাসান। শেষ সেশনে দ্রুত উইকেট হারিয়ে হারের শঙ্কায় পড়া বরিশালকে ম্যাচে রাখলেন মোসাদ্দেক হোসেন ও শামসুল ইসলাম। রোমাঞ্চকর লড়াইয়ের পর ড্র হলো দুই দলের ম্যাচ।
  • আবারও ব্যর্থ মোসাদ্দেক, নাঈমের ৪ উইকেট
    আগের ম্যাচে ৫ রান করা মোসাদ্দেক এবার করলেন ৪। জাতীয় দলের এই ব্যাটসম্যানের ব্যর্থতার দিনে চার উইকেট নিয়েছেন চোট কাটিয়ে ফেরা অফ স্পিনার নাঈম হাসান। শেষ দিকে নুরুজ্জামান প্রতিরোধ গড়লেও পরে তাকে ফিরিয়ে বরিশালের বিপক্ষে বড় লিড পেয়েছে চট্টগ্রাম।
  • সুযোগ হারালেন ইয়াসির, মাহিদুলের ৯ রানের আক্ষেপ
    ফিটনেস পরীক্ষায় উতরাতে না পারায় আগের ম্যাচে একাদশের বাইরে থাকা ইয়াসির আলী চৌধুরীর সামনে সুযোগ ছিল বড় ইনিংস খেলার। পারেননি চট্টগ্রামের এই তরুণ। ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটিকে সেঞ্চুরিতে রূপ দেওয়ার খুব কাছে গিয়ে পারেননি মাহিদুল ইসলাম। বরিশালের বিপক্ষে মাত্র ৯ রানের জন্য সেঞ্চুরি না পাওয়ার আক্ষেপ নিয়ে ফিরেছেন এই কিপার-ব্যাটসম্যান।
  • আবারও ব্যর্থ মুমিনুল
    জাতীয় ক্রিকেট লিগে টানা তিন ইনিংসে ব্যর্থ মুমিনুল হক। ঢাকা মেট্রোর বিপক্ষে করেছিলেন ১১ ও শূন্য। দ্বিতীয় রাউন্ডের প্রথম ইনিংসেও পাননি বড় রান। বরিশালের বিপক্ষে ম্যাচের প্রথম দিন ফিরেছেন ১৫ রান করে। অধিনায়কের ব্যর্থতার দিনে তিন ফিফটিতে বড় সংগ্রহের দিকে এগোচ্ছে চট্টগ্রাম।
  • শহিদুলের ব্যাটিং বীরত্ব, জাবিদের দৃঢ়তা
    শামসুর রহমান শুভ ও মাহমুদউল্লাহর ফিফটির পরও ঢাকা মেট্রোর লিড পাওয়ার সম্ভাবনা মাঝে ফিকে হয়ে গিয়েছিল। সেখান থেকে দলকে ভালো অবস্থানে নিয়ে গেছেন জাবিদ হোসেন ও শহিদুল ইসলাম। 
  • তাসামুলের আক্ষেপ, সানির ৬ উইকেট
    লড়াইটা যেন হয়ে দাঁড়িয়েছিল তাসামুল হক বনাম আরাফাত সানি। শেষ হাসি হাসলেন অভিজ্ঞ বাঁহাতি স্পিনার। সেঞ্চুরির আগে মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানকে থামিয়ে চট্টগ্রামকে গুটিয়ে দিলেন ৩০০ রানের নিচে। বাজে শুরুর পর শামসুর রহমান ও মার্শাল আইয়ুবের দৃঢ়তায় ভালো অবস্থানে থেকে দিন শেষ করেছে ঢাকা মেট্রো।
  • ব্যর্থ তামিম-মুমিনুল, বল হাতে উজ্জ্বল মাহমুদউল্লাহ
    বৃষ্টির কবলে পড়েছে জাতীয় ক্রিকেট লিগের উদ্বোধনী দিনের খেলা। দ্বিতীয় স্তরের এক ম্যাচে বলই গড়ায়নি মাঠে। অন্য ম্যাচে প্রায় অর্ধেক দিনের খেলা ভেসে গেছে। যতটুকু খেলা হয়েছে তাতে হতাশ করেছেন তামিম ইকবাল ও মুমিনুল হক। বল হাতে আলো ছড়িয়েছেন মাহমুদউল্লাহ।
  • শেষ দিনে শামসুরের সেঞ্চুরি
    ভালো শুরু কাজে লাগাতে পারছিলেন না শামসুর রহমান। অবশেষে বড় করতে পারলেন নিজের ইনিংস। এনসিএলের শেষ দিনে সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন ঢাকা মেট্রোর এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান।
  • আবু হায়দারের ছোবল এড়িয়ে চট্টগ্রামের লিড
    সাদিকুর রহমানের সেঞ্চুরিতে দৃঢ় ভিতের ওপর দাঁড়ানো চট্টগ্রামকে এলোমেলো করে দিয়েছিলেন আবু হায়দার। বাঁহাতি এই পেসারের ছোবল এড়িয়ে ঢাকা মেট্রোর বিপক্ষে দলকে লিড এনে দেন নাঈম হাসান।
  • নাঈমের ৪ উইকেটের পর সাদিকুরের সেঞ্চুরি
    মার্শাল আইয়ুবের সেঞ্চুরিতে দৃঢ় ভিতের ওপর দাঁড়ানো ঢাকা মেট্রোকে বেশিদূর যেতে দেননি অফ স্পিনার নাঈম হাসান। এরপর অপরাজিত সেঞ্চুরিতে চট্টগ্রামকে ভালো অবস্থানে নিয়ে গেছেন সাদিকুর রহমান।
  • মার্শালের অপরাজিত সেঞ্চুরি
    জাতীয় লিগটা মোটেও ভালো কাটছিল না ঢাকা মেট্রো অধিনায়ক মার্শাল আইয়ুবের। আগের ছয় ইনিংসের চারটিতে যেতে পারেননি দুই অঙ্কে। শেষটায় ফিরলেন ছন্দে। চট্টগ্রামের বিপক্ষে তুলে নিলেন সেঞ্চুরি। 
  • টেস্টের আগে মুমিনুলের সেঞ্চুরি
    কখনও ফিরছিলেন শূন্য রানে, কখনও থিতু হয়েও খেলতে পারছিলেন না বড় ইনিংস। জিম্বাবুয়ের বিপেক্ষ টেস্ট সিরিজের আগে অবশেষে নিজের ইনিংস বড় করতে পারলেন মুমিনুল হক। তার সেঞ্চুরিতে চট্টগ্রাম সহজেই হারিয়েছে ঢাকাকে।
  • মুমিনুলের ব্যাটে জয়ের আশায় চট্টগ্রাম
    ব্যাটিং ব্যর্থতায় দ্বিতীয় ইনিংসেও গুঁড়িয়ে গেল ঢাকা। বারবার রঙ পাল্টানো ম্যাচে বাজে শুরুর পর মুমিনুল হক ও তাসামুল হকের দারুণ ব্যাটিংয়ে জয়ের আশা জাগিয়েছে চট্টগ্রাম।
  • ঢাকার বিপক্ষে আবার ব্যর্থ মুমিনুল
    ঢাকার বিপক্ষে আবার ব্যাটিংয়ে ব্যর্থ মুমিনুল হক। চট্টগ্রামের তিন মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান ইয়াসির আলী, মাহিদুল ইসলাম ও ইফতেখার সাজ্জাদ ফিরেছেন থিতু হয়ে। বোলারদের নৈপুণ্যে প্রথম ইনিংসে লিড পাওয়ার আশা জাগিয়েছে নাদিফ চৌধুরীর দল।
  • ৮ উইকেট নিয়ে ঢাকাকে গুঁড়িয়ে দিলেন নাঈম
    ঢাকা মেট্রোর বিপক্ষে আগের ম্যাচে নিয়েছিলেন ৬ উইকেট। এবার নিজেকে তুললেন নতুন উচ্চতায়। ৮ উইকেট নিয়ে প্রথম ইনিংসে ঢাকা বিভাগকে গুঁড়িয়ে দিলেন চট্টগ্রাম বিভাগের নাঈম হাসান।
  • আবারও সুযোগ হাতছাড়া মুমিনুলের
    বড় ইনিংস খেলার আরও একটি সুযোগ হাতছাড়া করলেন মুমিনুল হক। থিতু হয়েও বাঁহাতি এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান টেনে নিতে পারলেন না নিজের ইনিংস।
  • তাসামুলের সেঞ্চুরি ছাপিয়ে তাসকিনের ৫ উইকেট
    লড়াইটা হয়ে উঠেছিল যেন দুই জনের। মাইলফলক ছুঁয়েছেন দুজনই। ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে ঢাকা মেট্রোকে লিড এনে দিয়ে আপাতত জয়ী তাসকিন আহমেদ। তবে লড়াকু এক সেঞ্চুরিতে তাদের লিড খুব একটা বড় হতে দেননি চট্টগ্রামের তাসামুল হক। 
  • তাসকিনের ছোবল সামলে তাসামুলের লড়াই
    দ্বিতীয় দিন দ্রুত ঢাকা মেট্রোকে গুটিয়ে দেওয়া চট্টগ্রামকে কাঁপিয়ে দিয়েছিলেন তাসকিন আহমেদ। তার তোপ সামলে প্রথম ইনিংসে চট্টগ্রামের লিডের আশা বাঁচিয়ে রেখেছেন তাসামুল হক।  
  • জাবিদের ব্যাটে মেট্রোর লড়াই
    ৯৯ রানে চার উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকা ঢাকা মেট্রোকে পথ দেখাচ্ছেন জাবিদ হোসেন। কিপার-ব্যাটসম্যানের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে চট্টগ্রামের বিপক্ষে লড়ছে মেট্রো।
  • সাদিকুরের সেঞ্চুরির পর দিকহারা চট্টগ্রাম
    সাদিকুর রহমান ও ইয়াসির আলীর দৃঢ়তায় প্রথম দুই সেশনে রাজত্ব করে চট্টগ্রাম। বোলারদের নৈপুণ্যে শেষ সেশনে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় সিলেট। এক সময়ে অনেক বড় সংগ্রহের আশা জাগানো মুমিনুল হকের দলকে তিনশ রানের নিচে থামানোর আশা জাগিয়েছে তারা।
  • নাজমুল, শাহাদাতের নৈপুণ্যে চট্টগ্রামকে হারাল ঢাকা
    জয়ের জন্য চতুর্থ ও শেষ দিনে চট্টগ্রামের প্রয়োজন ছিল ৩৪৭ রান। ম্যাচ বাঁচাতে ৭ উইকেট নিয়ে কাটিয়ে দিতে হত পুরো একটি দিন। তার কোনোটারই ধারে কাছে যেতে পারেনি মুমিনুল হকের দল। নাজমুল ইসলাম অপু ও শাহাদাত হোসেনের দারুণ বোলিংয়ে এক সেশনেই জয় তুলে নিয়েছে ঢাকা।
  • রনির ডাবল সেঞ্চুরি, মজিদের সেঞ্চুরি
    ক্যারিয়ারের তৃতীয় ডাবল সেঞ্চুরি তুলেন রনি তালুকদার। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে টানা দ্বিতীয় ম্যাচে শতক পেলেন আব্দুল মজিদ। তাদের রেকর্ড গড়া সাড়ে তিনশ রানের উদ্বোধনী জুটির ওপর ভর করে চট্টগ্রামকে বড় লক্ষ্য দিল ঢাকা।
  • শাহাদাতের দাপটের পর রনির সেঞ্চুরি
    আগের দিন শেষ বেলায় দুই উইকেট নেওয়া শাহাদাত হোসেন ছোবল দিলেন দ্বিতীয় দিনও। সঙ্গে জ্বলে উঠলেন ঢাকার স্পিনাররা। প্রথম ইনিংসে দ্রুত গুটিয়ে গেল চট্টগ্রাম। দ্বিতীয় ইনিংসে শতরানের অবিচ্ছিন্ন উদ্বোধনী জুটিতে ঢাকাকে চালকের আসনে বসিয়েছেন রনি তালুকদার ও আব্দুল মজিদ।
  • জুবায়েরের ৫ উইকেট
    জুবায়ের হোসেনের লেগ স্পিন আর নাঈম হাসানের অফ স্পিনের সামনে টিকতে পারলেন না ঢাকার ব্যাটসম্যানরা। দুই স্পিনারের ঘূর্ণিতে বিভ্রান্ত হয়ে প্রথম ইনিংসে গুটিয়ে গেছে ২৩৮ রানে। জবাব দিতে নেমে স্বস্তিতে নেই চট্টগ্রামও।
  • রাজিনের সেঞ্চুরিতে ম্যাচ বাঁচাল সিলেট
    লড়াকু এক সেঞ্চুরিতে ম্যাচ বাঁচিয়েছেন রাজিন সালেহ। চট্টগ্রামের বিপক্ষে সিলেটের ড্রয়ে তরুণ উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান জাকের আলী রেখেছেন গুরুত্বপূর্ণ অবদান।
  • এবার ইয়াসিরের সেঞ্চুরি
    প্রথম ইনিংসের ত্রাতা ইয়াসির আলী চৌধুরী দ্বিতীয় ইনিংসে পেয়েছেন সেঞ্চুরি। তার দারুণ ব্যাটিংয়ে সিলেটকে বিশাল লক্ষ্য দেওয়া চট্টগ্রাম জাগিয়েছে জয়ের আশা।
  • সাজ্জাদের স্পিনে চট্টগ্রামের লিড
    ২১৫ রানের পুঁজি নিয়েও ৭৮ রানের লিড পেয়েছে চট্টগ্রাম। সিলেটকে মাত্র ১৩৭ রানে গুঁড়িয়ে দিয়ে দলকে সেই লিড এনে দেওয়ায় সবচেয়ে বড় অবদান ইফতেখার সাজ্জাদের। দুই ওপেনারের ফিফটিতে দ্বিতীয় ইনিংসে ভালো শুরু পাওয়া চট্টগ্রাম আছে বড় লক্ষ্য দেওয়ার পথে।
  • চট্টগ্রামের হয়ে লড়লেন কেবল ইয়াসির  
    জাতীয় লিগের সবশেষ ম্যাচে দুই ইনিংসেই নিয়েছিলেন ৫টি করে উইকেট। মাঝে ২ মাসের বিরতিতে বোলিংয়ে মরচে খুব একটা পড়েনি। আবার নেমেই এনামুল হক জুনিয়র নিলেন ৩ উইকেট। তিনটি নিলেন আবুল হাসানও। সিলেটের দারুণ বোলিংয়ের বিপক্ষে লড়লেন কেবল চট্টগ্রামের ইয়াসির আলি রাব্বি।
  • এক স্পেলে দেলোয়ারের ২ রানে ৬ উইকেট
    দিনের প্রথম ওভারটিতেই কেবল উইকেট পেলেন না। সেটি পুষিয়ে দিতেই যেন নিজের পরের ওভারে নিলেন দুটি। পরের চার ওভারে আরও চারটি। অসাধারণ এক স্পেলেই চট্টগ্রামকে গুঁড়িয়ে দিলেন দেলোয়ার হোসেন। ইনিংস ব্যবধানের জয়ে রাজশাহী নিশ্চিত করল জাতীয় লিগের প্রথম স্তরে ওঠা।
  • বড় লিড গোণার পর আরও বিপদে চট্টগ্রাম
    এমনিতেই প্রথম ইনিংসে চেপেছে বড় লিডের বোঝা। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে চট্টগ্রামের বিপদ ঘনীভূত আরও। জাতীয় লিগের দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচটির নিয়ন্ত্রণে রাজশাহী।
  • মিজানুর রহমানের টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরি
    আগের ম্যাচেই ১৪৩ রান করে ম্যাচ সেরা হয়েছিলেন মিজানুর রহমান। এই ওপেনার করলেন আরেকটি সেঞ্চুরি। জাতীয় লিগের দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচে চট্টগ্রামের বিপক্ষে লিড নেওয়ার পথে রাজশাহী।
  • সাজ্জাদুলের ৫ রানের আক্ষেপ
    বিপর্যয় থেকে দলকে টানলেন। সাঈদ সরকারের সঙ্গে গড়ে তুললেন জুটি। কিন্তু একটুর জন্য প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে নিজের প্রথম সেঞ্চুরিই করতে পারলেন না সাজ্জাদুল হক। চট্টগ্রামের এই ব্যাটসম্যান আউট হয়েছেন ৯৫ রানে।
  • শামসুর রহমানের ঝড়ো সেঞ্চুরি
    মরা ম্যাচ হঠাৎই প্রাণবন্ত শেষ দিনে। শামসুর রহমানের ঝড়ো সেঞ্চুরিতে ঢাকা মেট্রো পেল ইনিংস ঘোষণার ফুরসত। বোলারদের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে টালমাটাল চট্টগ্রামের ব্যাটিং। শেষ পর্যন্ত ইরফান শুক্কুরের দৃঢ়তায় চট্টগ্রামের রক্ষা!
  • লড়লেন কেবল সাজ্জাদুল
    রান এল মন্থর গতিতে। উইকেট পড়ল নিয়মিত। জাতীয় লিগের দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচে ঢাকা মেট্রোপলিটনের বিপক্ষে দিনজুড়েই ধুঁকল চট্টগ্রামের ব্যাটিং।
  • এবারও হলো না মেহরাবের সেঞ্চুরি
    আগের ম্যাচে আউট হয়েছিলেন ৮৯ রানে। এবার আরেকটু এগোলেন মেহরাব হোসেন জুনিয়র। তবু থাকল আরেকটুর আক্ষেপ। আউট হয়েছেন ৯৪ রানে।
  • মেহরাব-আশরাফুলের অপরাজিত অর্ধশতক
    দুই ওপেনার ফিরলেন পঞ্চাশের দোড়গোড়া থেকে। তবে সেই ভুল করেননি অন্য দুজন। অপরাজিত অর্ধশতকে দিন শেষ করলেন মেহরাব হোসেন জুনিয়র ও মোহাম্মদ আশরাফুল।
  • ড্রয়ের আগে হাসল জুনায়েদ-ফরহাদের ব্যাট
    ম্যাচের ফল ছিল একরকম অবধারিতই। ছিল কেবল ব্যক্তিগত চাওয়া-পাওয়া মেলানোর পালা। সেই হিসাব কিছুটা মেলাতে পারলেন জুনায়েদ সিদ্দিক ও ফরহাদ হোসেন। যদিও হাফ সেঞ্চুরিকে সেঞ্চুরিতে রূপ দিতে না পারার আক্ষেপ থাকতে পারে দুজনেরই।
  • বৃষ্টির আগে উজ্জ্বল জহুরুল
    চট্টগ্রামের বড় রানের জবাব দারুণভাবেই দিচ্ছিল রাজশাহী। ব্যাট হাতে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন জহুরুল ইসলাম। বাধ সাধল বৃষ্টি। থামাল জহুরুল ও রাজশাহীকে।
  • সাজ্জাদুলের ক্যারিয়ার সেরা ব্যাটিংয়ে ম্যাচ বাঁচাল চট্টগ্রাম
    দ্বিতীয় ইনিংসে ঘুরে দাঁড়িয়ে ম্যাচ বাঁচিয়েছে চট্টগ্রাম। সাজ্জাদুল হকের ক্যারিয়ার সেরা ব্যাটিং আর তাসামুল হকের দৃঢ়তায় ঢাকা মেট্রোর সঙ্গে ড্র করেছে স্বাগতিকরা।
  • মার্শাল, আসিফের অর্ধশতক
    প্রথম ইনিংসে বিশাল লিড পাওয়া ঢাকা মেট্রোকে অনেকটাই নিরাপদ অবস্থানে নিয়ে গেছেন মার্শাল আইয়ুব ও আসিফ আহমেদ। দুই জনের অর্ধশতকে চট্টগ্রামকে বড় লক্ষ্য দিয়েছে মেট্রো।
  • নিহাদের ক্যারিয়ার সেরা বোলিং
    ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে চট্টগ্রামের বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ঢাকা মেট্রোকে লিড এনে দিয়েছেন নিহাদ-উজ-জামান।
  • আশরাফুলের দারুণ সেঞ্চুরি
    নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফেরার পর প্রথম মৌসুমে বিবর্ণ ছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। দ্বিতীয় মৌসুমের শুরুতে দেখা গেল পুরানো চেহারায়। জাতীয় ক্রিকেট লিগের প্রথম দিন করেছেন সেঞ্চুরি।