ছবিতে বিপিএল: খুলনা টাইগার্স-কুমিল্লা ওয়ারিয়র্স

ছবিতে বিপিএল: খুলনা টাইগার্স-কুমিল্লা ওয়ারিয়র্স

নাজমুল হোসেন শান্ত ও মেহেদী হাসান মিরাজের ভালো শুরুর পর রাইলি রুশোর ঝড়ো ব্যাটিংয়ে বড় লক্ষ্য দিল খুলনা টাইগার্স। দলে ফিরে দারুণ ফিফটি করা সাব্বির রহমান ছাড়া রান তাড়ায় দৃঢ়তা দেখাতে পারলেন না আর কেউই। কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সকে হারিয়ে শেষ চারের আশা উজ্জ্বল করে তুলল মুশফিকুর রহিমের দল। ছবি: বিসিবি

ছবিতে বিপিএল: ঢাকা প্লাটুন-খুলনা টাইগার্স

ছবিতে বিপিএল: ঢাকা প্লাটুন-খুলনা টাইগার্স

শেষ দিকে আসিফ আলির ঝড়ো ব্যাটিংয়ে চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ল ঢাকা প্লাটুন। রান তাড়ায় একমাত্র লড়লেন মুশফিকুর রহিম। খুলনা টাইগার্স অধিনায়ককে থামিয়ে গুরুত্বপূর্ণ জয় তুলে নিল মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। ছবি: বিসিবি

ছবিতে বিপিএল: খুলনা টাইগার্স-সিলেট থান্ডার

ছবিতে বিপিএল: খুলনা টাইগার্স-সিলেট থান্ডার

আন্দ্রে ফ্লেচারের সেঞ্চুরি ও জনসন চার্লসের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ২৩২ রানের বিশাল সংগ্রহ গড়ে সিলেট থান্ডার। রান তাড়ায় খুলনা টাইগার্স থামে ১৫২ রানে। মুশফিকুর রহিমের দলকে আসরে প্রথম হারের তিক্ততা উপহার দিয়ে নিজেদের প্রথম জয় তুলে নেয় মোসাদ্দেক হোসেনের দল। ছবি: সুমন বাবু ও বিসিবি

ছবিতে বিপিএল: খুলনা টাইগার্স-রংপুর রেঞ্জার্স

ছবিতে বিপিএল: খুলনা টাইগার্স-রংপুর রেঞ্জার্স

মোহাম্মাদ আমির, শফিউল ইসলামদের দারুণ বোলিংয়ে রংপুর রেঞ্জার্সকে ১৩৭ রানে আটকে রাখে খুলনা টাইগার্স। রাইলি রুশোর অপরাজিত ঝড়ো ফিফটিতে ৪৫ বল ও ৮ উইকেট হাতে রেখে আসরে টানা তৃতীয় জয় তুলে নেয় মুশফিকুর রহিমের দল। ছবি: সুমন বাবু ও বিসিবি

ছবিতে বিপিএল: খুলনা টাইগার্স-রাজশাহী রয়্যালস

ছবিতে বিপিএল: খুলনা টাইগার্স-রাজশাহী রয়্যালস

শোয়েব মালিকের রান যখন এক অঙ্কে তখন তার ক্যাচ ছেড়েছিলেন মুশফিকুর রহিম। সেই মালিকের ব্যাটে ভর করে ১৮৯ রানের বড় সংগ্রহ গড়েছিল রাজশাহী রয়্যালস। প্রতিদানে মুশফিক খেলেন ক্যারিয়ার সেরা ৯৬ রানের ইনিংস। ৫ উইকেট হাতে রেখে বঙ্গবন্ধু বিপিএলে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নেয় তার দল খুলনা টাইগার্স। ছবি: সুমন বাবু

ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসে খুলনার জয়ের নায়ক মুশফিক

ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসে খুলনার জয়ের নায়ক মুশফিক

ঝড় তুলে রাজশাহী রয়্যালসকে আসরের সর্বোচ্চ সংগ্রহ এনে দিলেন শোয়েব মালিক। মুশফিকুর রহিমের ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসে সেই রান টপকে গেল খুলনা টাইগার্স। রান উৎসবের ম্যাচে পেল দারুণ এক জয়। 

রেকর্ড গড়ে চ্যাম্পিয়ন রাজ্জাক-সোহানের খুলনা

রেকর্ড গড়ে চ্যাম্পিয়ন রাজ্জাক-সোহানের খুলনা

শিরোপার আভাস পাওয়া গিয়েছিল আগের দিনই। বাধা হয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন রকিবুল হাসান। ঢাকা বিভাগের সেই বাধা ভেঙে জাতীয় লিগের শিরোপা পুনরুদ্ধার করেছে খুলনা বিভাগ।

সোহানের দুর্দান্ত দেড়শ, শিরোপার কাছে খুলনা

সোহানের দুর্দান্ত দেড়শ, শিরোপার কাছে খুলনা

অনেকটা একার লড়াইয়ে দলকে বড় লিড এনে দিলেন নুরুল হাসান। নিয়মিত অধিনায়ক আব্দুর রাজ্জাকের অনুপস্থিতিতে খুলনার নেতৃত্ব পাওয়া এই কিপার-ব্যাটসম্যান খেললেন অপরাজিত ১৫০ রানের দুর্দান্ত ইনিংস। এরপর জিয়াউর রহমানের দারুণ এক স্পেলে টালমাটাল ঢাকার দ্বিতীয় ইনিংস। দুইয়ে মিলে জাতীয় লিগে আবার শিরোপার সুবাস পাচ্ছে খুলনা।

অভিষেক-ফরহাদের ফিফটি, আরিফুলের ৩ উইকেট

অভিষেক-ফরহাদের ফিফটি, আরিফুলের ৩ উইকেট

শেষ বেলায় দ্রুত তিন উইকেট নিয়ে রংপুরকে কিছুটা লড়াইয়ে ফিরিয়েছেন আরিফুল হক। তবে অভিষেক মিত্র ও ফরহাদ হোসেনের ফিফটিতে প্রথম ইনিংসে লিড নেওয়ার পথেই রয়েছে রাজশাহী।

তুষার-সোহানের ব্যাটে লিডের পথে খুলনা

তুষার-সোহানের ব্যাটে লিডের পথে খুলনা

ম্যাচের প্রথম পাঁচ সেশনে লড়াই হলো সমানে-সমান। ষষ্ঠ সেশনে দুর্দান্ত জুটি গড়ে খুলনাকে এগিয়ে নিলেন তুষার ইমরান ও নুরুল হাসান সোহান। ঢাকার বোলারদের দারুণভাবে সামলে ফিফটি করে অপরাজিত রয়েছেন দুই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান।

তাইবুরের সেঞ্চুরি, হালিমের ৫ উইকেট

তাইবুরের সেঞ্চুরি, হালিমের ৫ উইকেট

জাতীয় ক্রিকেট লিগের শিরোপা নির্ধারনী ম্যাচের লড়াই জমে উঠেছে প্রথম দিনেই। ঢাকার হয়ে সেঞ্চুরি করেছেন তাইবুর রহমান। ফিফটি করেছেন আরও দুই জন। তারপরও খুলনার তরুণ পেসার আব্দুল হালিমের দারুণ বোলিংয়ে খুব বড় সংগ্রহ গড়তে পারেনি ঢাকা।

ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে রুবেলের ৭ উইকেট

ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে রুবেলের ৭ উইকেট

রঙিন পোশাকে বল হাতে যতটা উজ্জ্বল, সাদা পোশাকে ততটাই বিবর্ণ রুবেল হোসেন। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট বা টেস্ট ম্যাচ, রেকর্ড ভালো নয় কোথাও। সেই রুবেল জ্বলে উঠলেন সাদা পোশাক আর লাল বলে। জাতীয় লিগের ম্যাচে আগুন ঝরা বোলিংয়ে ৭ উইকেট নিয়েছেন ভারত সফরের দলে সুযোগ না পাওয়া পেসার।

নাজমুল-সুমনের দৃঢ়তায় হার এড়ালো ঢাকা

নাজমুল-সুমনের দৃঢ়তায় হার এড়ালো ঢাকা

প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান এনামুল হক এবার খেললেন অপরাজিত দেড়শ রানের ইনিংস। সঙ্গে নুরুল হাসান সোহানের ফিফটিতে ঢাকাকে বিশাল লক্ষ্য দিল খুলনা। মেহেদি হাসানের স্পিনে জয়ের আশাও জাগাল দলটি। তবে শেষ বিকেলে নাজমুল ইসলাম অপু ও সুমন খানের দৃঢ়তায় হার এড়িয়েছে ঢাকা।

সাইফ-রকিবুলের পর এনামুল-ইমরানের ফিফটি

সাইফ-রকিবুলের পর এনামুল-ইমরানের ফিফটি

সাইফ হাসান ও রকিবুল হাসানের ফিফটিতে ভালোই জবাব দিচ্ছিল ঢাকা। কিন্তু মেহেদি হাসান আর আব্দুর রাজ্জাকের স্পিনে ধ্বসে পড়ল সেই প্রতিরোধ। পরে এনামুল হক ও ইমরানউজ্জামানের ফিফটিতে বড় লিডের পথে রয়েছে খুলনা।

রনি-জয়রাজের ফিফটির পর সাইফ-রকিবুলের দৃঢ়তা

রনি-জয়রাজের ফিফটির পর সাইফ-রকিবুলের দৃঢ়তা

খুলনার সাড়ে তিনশ ছাড়ানো সংগ্রহের জবাব ভালোভাবেই দিচ্ছে ঢাকা। রনি তালুকদার ও জয়রাজ শেখের দুর্দান্ত শুরুর পর রাজধানীর দলকে এগিয়ে নিচ্ছেন সাইফ হাসান ও রকিবুল হাসান।

এনামুলের সেঞ্চুরি, তুষারের ফিফটি

এনামুলের সেঞ্চুরি, তুষারের ফিফটি

দারুণ ব্যাটিংয়ে সেঞ্চুরি তুলে নিলেন এনামুল হক। তুষার ইমরান পেলেন আসরের প্রথম ফিফটির দেখা। ঝড়ো ইনিংস এল মোহাম্মাদ মিঠুনের ব্যাট থেকে। তিন ব্যাটসম্যানের দৃঢ়তায় ঢাকার বোলারদের দারুণভাবে সামলে বড় সংগ্রহের পথে রয়েছে খুলনা।

খুলনার জয়ে সৌম্যর ফিফটি

খুলনার জয়ে সৌম্যর ফিফটি

সৌম্য সরকার ও মোহাম্মদ মিঠুন ব্যাটিং করলেন ওয়ানডে মেজাজে। আগের দিন জমজমাট লড়াই উপহার দেয়া ম্যাচের শেষটা তাই হয়ে গেল একপেশে। ১০৮ রান করতে শেষদিনে খুলনার হাতে ছিল পুরো ৯০ ওভার ও ৯ উইকেট। তবে টপ অর্ডারের দুই ব্যাটসম্যানের ব্যাটে প্রথম সেশনেই লক্ষ্য ছুঁয়ে ফেলে আব্দুর রাজ্জাকের দল।

১৫ উইকেটের দিনে জমজমাট লড়াই

১৫ উইকেটের দিনে জমজমাট লড়াই

অল্পের জন্য সেঞ্চুরি পাননি নুরুল হাসান। তবে তার দারুণ ইনিংসেই খুলনা পায় কাঙ্ক্ষিত লিড। বোলারদের দাপুটে বোলিং এরপর তারা খুব বেশিদূর এগোতে দেয়নি রাজশাহীকে। শেষ ইনিংসে রান তাড়ায় শুরুতেই উইকেট হারালেও দিনশেষে সুবিধাজনক অবস্থানে আছে খুলনাই।তবে শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে শনিবার দুই দল উপহার দিয়েছে জমজমাট লড়াই।

ব্যর্থ সৌম্য-মিঠুন, ইমরুলের আক্ষেপ

ব্যর্থ সৌম্য-মিঠুন, ইমরুলের আক্ষেপ

ছন্দ ফিরে পেতে মরিয়া সৌম্য সরকার খুলতেই পারলেন না খাতা। বড় ইনিংসের সন্ধানে থাকা মোহাম্মদ মিঠুন ফিরলেন দ্রুত। ব্যাটিংয়ে ভালো করতে পারলেন না অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ। তাদের ব্যর্থতার দিনে আক্ষেপ নিয়ে ফিরলেন ইমরুল কায়েস। আগের ম্যাচে ডাবল সেঞ্চুরি করা এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান মাত্র ৭ রানের জন্য পেলেন না তিন অঙ্কের দেখা। 

মুশফিক-শান্তর আক্ষেপ, মিরাজের দারুণ বোলিং

মুশফিক-শান্তর আক্ষেপ, মিরাজের দারুণ বোলিং

থিতু হয়েও ইনিংস বড় করতে পারলেন না মুশফিকুর রহিম। এবারের লিগে নিজের প্রথম ইনিংসে ব্যর্থ হলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। অন্য ব্যাটসম্যানরাও খেলতে পারলেন না বড় ইনিংস। দ্বিতীয় রাউন্ডে মেহেদী হাসান মিরাজের দারুণ বোলিংয়ে খুলনার বিপক্ষে প্রথম দিনেই গুটিয়ে গেছে রাজশাহী।

ইমরুলময় খুলনা-রংপুর ম্যাচ ড্র

ইমরুলময় খুলনা-রংপুর ম্যাচ ড্র

প্রথম দিন ভেসে যাওয়ার পর দ্বিতীয় দিনের খেলাও পড়েছিল বৃষ্টির বাধায়। ফলে রংপুর ও খুলনার মধ্যকার ম্যাচে ফল নিয়ে আসলে তেমন কোনো উন্মাদনা ছিল না। নিরুত্তাপ ড্র ম্যাচের শেষ দিনে সব আলো কেড়ে নিলেন ইমরুল কায়েস। আসরে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে তুলে নেওয়া সেঞ্চুরিকে ডাবল সেঞ্চুরিতে রূপ দিয়ে থেকে গেছেন অপরাজিত।

ইমরুলের ডাবল সেঞ্চুরি

ইমরুলের ডাবল সেঞ্চুরি

জাতীয় লিগের এবারের আসরে প্রথম সেঞ্চুরি উপহার দিয়ে থেমে যাননি ইমরুল কায়েস। সেটিকে রূপ দিয়েছেন ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুরিতে।

রবিউল-ইমরানের ব্যাটে বড় সংগ্রহের পথে খুলনা

রবিউল-ইমরানের ব্যাটে বড় সংগ্রহের পথে খুলনা

জাতীয় ক্রিকেট লিগে প্রথমবারের মতো খেলতে নেমে নিজেকে মেলে ধরলেন ইমরানউজ্জামান। রবিউল ইসলাম রবিও পেলেন ফিফটির দেখা। সেঞ্চুরি জুটিতে দুই ওপেনার দলকে দাঁড় করালেন শক্ত ভিতের উপর। প্রথম ইনিংসে রংপুরকে দ্রুত গুটিয়ে দেওয়া খুলনা রয়েছে বড় সংগ্রহের পথে।

সুযোগ হাতছাড়া নাঈমের, ব্যর্থ নাসির

সুযোগ হাতছাড়া নাঈমের, ব্যর্থ নাসির

আল আমিন হোসেন ও আব্দুর রাজ্জাকের ছোবল এড়িয়ে দলকে টানছিলেন নাঈম ইসলাম। শেষ পর্যন্ত বড় ইনিংস খেলার সুযোগ হাতছাড়া করলেন এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। ব্যর্থ হয়েছেন অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার নাসির হোসেন।

রানার্সআপ রংপুর, প্রথম স্তরেই খুলনা

রানার্সআপ রংপুর, প্রথম স্তরেই খুলনা

আগের আসরের চ্যাম্পিয়ন, রেকর্ড ৬ বারের শিরোপাজয়ী। দলে জাতীয় তারকার ছড়াছড়ি। সেই খুলনাই শেষ দিন পর্যন্ত শঙ্কায় ছিল জাতীয় লিগের প্রথম স্তর থেকে ছিটকে যাওয়ার। শেষ পর্যন্ত অবশ্য টিকে গেছে তারা। খুলনার সঙ্গে ম্যাচ ড্র করা রংপুর হয়েছে রানার্সআপ।

লিগের শেষ ইনিংসে তুষার শূন্য, সৌম্য ৮৩

লিগের শেষ ইনিংসে তুষার শূন্য, সৌম্য ৮৩

টুর্নামেন্টে আগের ম্যাচগুলো দুর্দান্ত কাটালেও শেষটা ভালো হলো না তুষার ইমরানের। জাতীয় লিগের শেষ রাউন্ডে প্রথম ইনিংসে ১৯ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে ফিরেছেন শূন্য রানেই। সৌম্য সরকার লিগ শেষ করলেন ৮৩ রানের ইনিংসে। হতাশার টুর্নামেন্ট কাটানো নুরুল হাসান সোহান লিগের প্রথম ফিফটির দেখা পেলেন শেষ ইনিংসে।

খুলনার বিপক্ষে চাপে রংপুর

খুলনার বিপক্ষে চাপে রংপুর

শেষ দুই জুটির দৃঢ়তায় আড়াইশ ছাড়ানো সংগ্রহ পেয়েছে খুলনা। রান পাওয়া সহজ নয় এমন উইকেটে দ্রুত প্রথম চার ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে চাপে পড়েছে রংপুর।  

বগুড়ায় চাপে খুলনা

বগুড়ায় চাপে খুলনা

ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় রংপুরের বিপক্ষে চাপে পড়েছে খুলনা। দুই পেসার রবিউল হক ও সাজেদুল ইসলাম গত আসরের চ্যাম্পিয়নদের কাঁপিয়ে দেওয়ার পর লেগ স্পিনে ছোবল দিয়েছেন তানবীর হায়দার।

রাজশাহীকে জেতালেন রেজা-শফিউল-মুক্তার

রাজশাহীকে জেতালেন রেজা-শফিউল-মুক্তার

তিন দিনেও দুই দলের একটি করে ইনিংস শেষ হয়নি। এমন ম্যাচে জয় আশা করাটা বেশ কঠিন। তবে সেই কাজটি সহজেই করে দেখিয়েছে রাজশাহী। ফরহাদ রেজা, শফিউল ইসলাম ও মুক্তার আলীর দারুণ বোলিংয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে খুলনাকে গুঁড়িয়ে দিয়ে দারুণ এক জয় তুলে নিয়েছে তারা।

৯৯ রানে রান আউট সাব্বির

৯৯ রানে রান আউট সাব্বির

৯২ রান থেকে আফিফ হোসেনকে ছক্কা মেরে ৯৮। পরের বলে সিঙ্গেল। কিন্তু ৯৯ রানেই আটকে থাকলেন ৯ বল। এতেই হয়তো একটু অস্থির হয়ে উঠছিলেন। বাঁহাতি স্পিনার মইনুল ইসলামকে মিড উইকেটের দিকে ঠেলেই ছুটলেন ঝুঁকিপূর্ণ রান নিতে। ফিল্ডার আফিফের থ্রো বোলার মইনুলের হাতে স্পর্শ করে সরাসরি লাগল স্টাম্পে। পড়িমড়ি করে ঝাঁপিয়েও শেষ রক্ষা হলো না। সেঞ্চুরি থেকে ১ রান দূরে রান আউট সাব্বির রহমান।

ফরহাদের ফিফটি, সুযোগ হাতছাড়া মিজান-জুনায়েদের

ফরহাদের ফিফটি, সুযোগ হাতছাড়া মিজান-জুনায়েদের

ধৈর্যের পরীক্ষা দিয়ে ফিফটি করেছেন ফরহাদ হোসেন। অল্পের জন্য হাতছাড়া করেছেন মিজানুর রহমান ও জুনায়েদ সিদ্দিক। এই দুজনের ব্যাটের সুর যদিও ছিল দুরকম। তবে তিন জনেরই দায় একটি জায়গায়, থিতু হয়েও বড় করতে পারেননি ইনিংস।

আবারও বড় ইনিংসের সুযোগ হাতছাড়া এনামুল-সৌম্যর

আবারও বড় ইনিংসের সুযোগ হাতছাড়া এনামুল-সৌম্যর

আগের রাউন্ডেই ফিফটি পেরিয়ে তিন অঙ্কে যেতে পারেননি দুজন। জাতীয় লিগে আবারও বড় ইনিংস খেলার সুযোগ হাতছাড়া করলেন জাতীয় দলের বাইরে থাকা সৌম্য সরকার ও এনামুল হক। এ দিন আরেকটি সেঞ্চুরির আশা জাগিয়ে পারেননি তুষার ইমরানও।

আরেকটি সেঞ্চুরিতে ১১ হাজার ছাড়িয়ে তুষার

আরেকটি সেঞ্চুরিতে ১১ হাজার ছাড়িয়ে তুষার

নিজেকে দিন দিন নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাচ্ছেন তুষার ইমরান। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান ও সেঞ্চুরির মালিক ছুঁলেন নতুন মাইলফলক। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে করলেন আরেকটি সেঞ্চুরি। প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে পৌঁছালেন ১১ হাজার রানে।

৫ উইকেটের পর সৌম্যর ফিফটি

৫ উইকেটের পর সৌম্যর ফিফটি

সৌম্য সরকারের দারুণ বোলিংয়ে প্রথম ইনিংসে লিডের আশা জাগিয়েছিল খুলনা। শেষ পর্যন্ত পারেনি তারা। তানবীর হায়দারের ব্যাটে লিড পেয়ে যায় রংপুর। ৫ উইকেট নিয়ে তাদের লিডটা ছোট রাখার পাশাপাশি ব্যাট হাতেও সফল সৌম্য। দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে করেছেন ফিফটি।

জিয়ার সেঞ্চুরি, অপেক্ষায় আফিফ

জিয়ার সেঞ্চুরি, অপেক্ষায় আফিফ

দুজনে যখন জুটি বেঁধেছিলেন উইকেটে, প্রতিপক্ষ তখন লিড নেওয়ার আশায়। কিন্তু দারুণ ব্যাটিংয়ে খুলনাকে শুধু উদ্ধারই করলেন না জিয়াউর রহমান ও আফিফ হোসেন, এনে দিলেন লিড। সেঞ্চুরি করে আউট হয়ে গেছেন জিয়া, তবে অপেক্ষায় আছেন আফিফ।

ব্যাট-বলের তুমুল লড়াই খুলনায়

ব্যাট-বলের তুমুল লড়াই খুলনায়

সাত জন ব্যাটসম্যান ছুঁয়েছেন বিশ। কিন্তু ফিফটি করতে পারেননি কেউ। চার জন বোলার নাম লিখিয়েছেন উইকেট শিকারে। একা সেভাবে জ্বলে উঠতে পারেননি কেউ। দিন শেষে দুই দলের একটিকে একটু এগিয়ে রাখাও কঠিন। বরিশাল ও খুলনার ম্যাচের প্রথম দিনে লড়াই জমল দারুণ।

শেষ দিনে এনামুল, সৌম্যর সেঞ্চুরি

শেষ দিনে এনামুল, সৌম্যর সেঞ্চুরি

ছন্দে ফেরার ইঙ্গিত এনামুল হক ও সৌম্য সরকারের ব্যাটে। জাতীয় ক্রিকেট লিগের প্রথম রাউন্ডের শেষ দিনে সেঞ্চুরি করেছেন খুলনার এই দুই তরুণ ব্যাটসম্যান।

তুষারের জোড়া সেঞ্চুরি, আফিফের ৭ উইকেট

তুষারের জোড়া সেঞ্চুরি, আফিফের ৭ উইকেট

ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে ৭ উইকেট নিয়েছেন খুলনার তরুণ অফ স্পিনার আফিফ হোসেন। তবে অপরাজিত সেঞ্চুরিতে ঠিকই রাজশাহীকে প্রথম ইনিংসে বড় লিড এনে দিয়েছেন জহুরুল ইসলাম। শুরুতে উইকেট হারিয়ে চাপে পড়া খুলনাকে দ্বিতীয় ইনিংসেও টানছেন জোড়া সেঞ্চুরি করা তুষার ইমরান।

মিজানুরের সেঞ্চুরি, অপেক্ষায় জহুরুল

মিজানুরের সেঞ্চুরি, অপেক্ষায় জহুরুল

দাপুটে ব্যাটিংয়ে মিজানুর রহমান তুলে নিলেন সেঞ্চুরি। তিন অঙ্ক ছোঁয়ার অপেক্ষায় জহুরুল ইসলাম। খুলনাকে রানের পাহাড়ে চাপা দেওয়ার পথে রাজশাহী।

তুষারের সেঞ্চুরি, শফিউলের ৫ উইকেট

তুষারের সেঞ্চুরি, শফিউলের ৫ উইকেট

জাতীয় ক্রিকেট লিগের নতুন আসরের প্রথম দিনটি সেঞ্চুরিতে রাঙিয়েছেন তুষার ইমরান। তবে শিরোপাধারী খুলনার আর কোনো ব্যাটসম্যান পারেননি নিজেকে মেলে ধরতে। রাজশাহীর শফিউল ইসলামের দারুণ বোলিংয়ে দুই সেশনে ২১০ রানে গুটিয়ে গেছে দলটি।

ঢাকাকে উড়িয়ে দিয়ে চ্যাম্পিয়ন খুলনা

ঢাকাকে উড়িয়ে দিয়ে চ্যাম্পিয়ন খুলনা

ইনিংস ব্যবধানে জয় দিয়ে শিরোপা উৎসব করেছে খুলনা। ম্যাচে ১০ উইকেট নিয়ে ঢাকাকে গুঁড়িয়ে দিয়েছেন তরুণ অফ স্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ।

এনামুলের আরেকটি ডাবল সেঞ্চুরি

এনামুলের আরেকটি ডাবল সেঞ্চুরি

জাতীয় ক্রিকেট লিগে এবারের আসরের আগে এনামুল হকের ডাবল সেঞ্চুরি ছিল না একটিও। তরুণ এই ওপেনার এক আসরে করে ফেললেন দুটি ডাবল সেঞ্চুরি। তার ২০২ রানের ওপর ভর করে ইনিংস ব্যবধানে জয়ের আশা জাগিয়েছে খুলনা। 

এনামুল-মেহেদির সেঞ্চুরিতে খুলনার রানের পাহাড়

এনামুল-মেহেদির সেঞ্চুরিতে খুলনার রানের পাহাড়

আগের রাউন্ডেই শিরোপা প্রায় নিশ্চিত করে ফেলা খুলনাকে প্রথম ইনিংসে বিশাল সংগ্রহের দিকে নিয়ে যাচ্ছেন এনামুল হক ও মেহেদি হাসান। টপ অর্ডারের দুই ব্যাটসম্যানের অপরাজিত সেঞ্চুরিতে ঢাকার বিরুদ্ধে বড় লিড নিচ্ছে খুলনা।

মিরাজের ৭ উইকেটে বিধ্বস্ত ঢাকা

মিরাজের ৭ উইকেটে বিধ্বস্ত ঢাকা

বিপিএল কেটেছে তার ভালো-মন্দ মিলিয়ে। তবে পছন্দের সংস্করণে ফিরতেই আপন আলোয় উদ্ভাসিত মেহেদি হাসান মিরাজ। খুলনার হয়ে লাল বলে দেখালেন অফ স্পিনের ভেল্কি। তাতে বিধ্বস্ত ঢাকা বিভাগ।

রাজ্জাক-নাহিদুলের স্পিনে ফলো অনে বরিশাল

রাজ্জাক-নাহিদুলের স্পিনে ফলো অনে বরিশাল

ব্যাটসম্যানদের রান পাহাড়ের পর দায়িত্ব ছিল বোলারদের। খুলনার বোলাররা সেটি পূরণ করেছেন ভালোমতোই। খুলনার বিপক্ষে ফলো অনে পড়েছে বরিশাল।

জিয়ার দেড়শতে রান পাহাড়ে খুলনা

জিয়ার দেড়শতে রান পাহাড়ে খুলনা

এক রাউন্ড আগেই দারুণ এক সেঞ্চুরিতে বিপর্যয় থেকে উদ্ধার করেছিলেন দলকে। এবার প্রেক্ষাপট ছিল ভিন্ন। পেয়েছিলেন শক্ত ভিত্তি। সেটিকে কাজে লাগিয়ে জিয়াউর রহমান খেললেন আরও বড় ইনিংস। দল গড়ল রানের পাহাড়।

রবির আরেকটি সেঞ্চুরি

রবির আরেকটি সেঞ্চুরি

গত ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে অন্যতম চমক ছিলেন রবিউল ইসলাম রবি। ছিলেন দারুণ ধারাবাহিক। সেই ফর্ম দেখাচ্ছেন জাতীয় লিগেও। খুলনার এই ওপেনার করলেন লিগের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি।

জাভেদের সেঞ্চুরিতে রংপুরের লিড

জাভেদের সেঞ্চুরিতে রংপুরের লিড

প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে প্রথম সেঞ্চুরির স্বাদ পেলেন জাহিদ জাভেদ। সাতে নেমে ওয়ানডের গতিতে দারুণ ইনিংস খেললেন ধীমান ঘোষ। খুলনার বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ৯৯ রানের লিড পেল রংপুর।

আরিফুল-শুভর ৪ উইকেট

আরিফুল-শুভর ৪ উইকেট

বৃষ্টির কারণে প্রথম দিনে খেলা হয়েছিল ২২.২ ওভার। দ্বিতীয় দিনে হলো ৩৬.২ ওভার। আরিফুল হক ও সোহরাওয়ার্দী শুভর বোলিংয়ে এর মধ্যেই অলআউট খুলনা।

তুষারদের ব্যাটিং দৃঢ়তায় খুলনার ড্র

তুষারদের ব্যাটিং দৃঢ়তায় খুলনার ড্র

শেষ দিনে চ্যালেঞ্জ ছিল টিকে থাকার। খুলনার ব্যাটসম্যানরা সেটি করলেন চেয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞতায়। ফলো অনে পড়লেও দৃঢ়তাপূর্ণ ব্যাটিংয়ে ড্র করলো ঢাকা বিভাগের বিপক্ষে।

জিয়ার সেঞ্চুরিতেও ফলো অনে খুলনা

জিয়ার সেঞ্চুরিতেও ফলো অনে খুলনা

বল হাতে নিলেন ২ উইকেট। পরে ব্যাট হাতে ওয়ানডের গতিতে দারুণ এক সেঞ্চুরি। কিন্তু জিয়াউর রহমানের এমন অলরাউন্ড পারফরম্যান্সের পরও বিপদে তার দল খুলনা। ঢাকা বিভাগের বিপক্ষে ফলো অনে পড়ার পর শেষ দিনে তাদের লড়াই ম্যাচ বাঁচানোর।

নাদিফের ১৬৬, সেঞ্চুরির অপেক্ষায় মোশাররফ

নাদিফের ১৬৬, সেঞ্চুরির অপেক্ষায় মোশাররফ

নেমেছিলেন সাত নম্বরে। সেখান থেকেই নাদিফ চৌধুরী খেললেন ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস। ৯৯ ম্যাচের প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারে প্রথমবার পেলেন দেড়শ রানের স্বাদ। দ্বিতীয় সেঞ্চুরি থেকে দুই রান দূরে দিন শেষ করেছেন মোশাররফ হোসেন।

রাজ্জাকের স্পিনে খুলনার বড় জয়

রাজ্জাকের স্পিনে খুলনার বড় জয়

জাতীয় দলে উপেক্ষিত অনেক দিন থেকেই। তবে ঘরোয়া ক্রিকেটে তিনি উইকেট নেন নামতা গুণে। বল হাতে আবারও তেমন পারফরম্যান্স দেখালেন আব্দুর রাজ্জাক। শেষ দিনে ৫ উইকেট নিয়ে বড় জয় এনে দিলেন খুলনাকে।

বরিশালের সামনে মাশরাফিদের চ্যালেঞ্জ

বরিশালের সামনে মাশরাফিদের চ্যালেঞ্জ

দিনের শুরুটায় ব্যাট করছিল বরিশাল। তখন লড়াই ছিল ব্যবধান কমানোর। দিনের শেষ ভাগেও ব্যাটিংয়ে বরিশাল। লড়াই এবার জয়-পরাজয়ের। মাঝের সময়টুকুতে বরিশালের সামনে খুলনা রেখেছে কঠিন চ্যালেঞ্জ।

বৃষ্টির আগে মাশরাফি-ঝলক

বৃষ্টির আগে মাশরাফি-ঝলক

একটি ইনসুইং করছে তো আরেকটি আউট সুইং। লেংথ দুর্দান্ত। মাশরাফি বিন মুর্তজা ফিরে গিয়েছিলেন যেন সাদা পোশাকে তার সেরা সময়ে। কিন্তু বাধ সাধল বেরসিক বৃষ্টি। মাশরাফির আগুনে স্পেল থামল ৪ ওভারেই। ড্র হয়েছে খুলনা-রংপুর ম্যাচ।