নাঈম শেখ-ইমরুলের ব্যাটে রান

প্রথম ইনিংসে মোহাম্মদ নাঈম শেখ ও ইমরুল কায়েসের ব্যাটিং ছিল খুব ম্রিয়মান। রান তাড়ায় অবশ্য দারুণ খেললেন দুজনই। ইমরুল আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে করলেন ফিফটি। আরেক বাঁহাতি নাঈমও পেলেন রানের দেখা। সৌম্য সরকার এবার আর ভালো করতে পারলেন না।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 3 July 2022, 01:37 PM
Updated : 3 July 2022, 01:37 PM

রাজশাহীতে চার দিনের প্রস্তুতি ম্যাচে হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) দলের বিপক্ষে ৯ উইকেটে জিতেছে বাংলাদেশ টাইগার্স। রোববার শেষ দিন ১২৭ রানের লক্ষ্য নাঈম ও ইমরুলের দৃঢ়তায় সহজেই পেরিয়ে যায় তারা।

সীমিত ওভারের ক্রিকেটে নাঈমের মন্থর ব্যাটিং নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা হয় নিত্যই। জাতীয় দল থেকে বাদ পড়া তরুণ এই ব্যাটসম্যান এবার বড় দৈর্ঘ্যের ম্যাচে কিছুটা আগ্রাসী খেলেন। ৫৫ বলে ৬ চার ও এক ছক্কায় করেন অপরাজিত ৪৭ রান। প্রথম ইনিংসে তিনি করেছিলেন ৯।

প্রথম ইনিংসে ২৪ রান করা ইমরুল এবার খেলেন ৬৯ বলে অপরাজিত ৬৮ রানের ইনিংস। অনেক দিন ধরে জাতীয় দলের বাইরে থাকা অভিজ্ঞ বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের ইনিংসটি গড়া ৯টি চার ও ৩টি ছক্কায়।

শহীদ কামরুজ্জামান স্টেডিয়ামে ৪ উইকেটে ১২৩ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শুরু করে এইচপির দ্বিতীয় ইনিংস থামে ২১৭ রানে। প্রথম ইনিংসে ৯১ রানে এগিয়ে থাকায় বাংলাদেশ টাইগার্সের লক্ষ্য দাঁড়ায় ১২৭।

আগের দিন ৩০ রানে অপরাজিত শাহাদাত হোসেন থামেন ৪০ রানে। ১৫৮ রানে ৮ উইকেট হারানো এইচপির স্কোর দুইশ ছাড়ায় মূলত নবম উইকেটে রিশাদ হোসেন ও এনামুল হকের ৫৯ রানের জুটিতে।

লেগ স্পিনার রিশাদ ৩৪ বলে ৫ চারে করেন ৩১ রান। ৪৯ বলে ২ ছক্কা ও একটি চারে ২৩ রান করেন এনামুল।

আগের দিন ৩ উইকেট নেওয়া তানভির ইসলাম এদিন নেন আরও একটি। ২১.৫ ওভারে ৩৫ রানে বাঁহাতি এই স্পিনারের প্রাপ্তি ৪ উইকেট।

৩৫ রানে ৩ উইকেট নেন পেসার আবু হায়দার। প্রথম ইনিংসে ৫ উইকেট নেওয়া অফ স্পিনার নাঈম হাসান এবার পান একটি। 

রান তাড়ায় সৌম্য ৯ রান করে ক্যাচ তুলে নেন মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরির বলে। জাতীয় দলে জায়গা হারানো বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান প্রথম ইনিংসে করেছিলেন ৮১।

এরপর অবিচ্ছিন্ন ১২১ রানের জুটিতে বাকিটা সারেন নাঈম ও ইমরুল।

চোটের কারণে, ফর্ম হারিয়ে কিংবা কেবল এক সংস্করণে খেলা ক্রিকেটাররা যখন জাতীয় দলের বাইরে থাকেন তখন তাদের দেখভালের জন্য বাংলাদেশ টাইগার্স নামের ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম এই বছরের শুরুতে চালু করে বিসিবি। সেটির অংশ হিসেবেই এইচপি দলের সঙ্গে হলো এই ম্যাচ।

বাংলাদেশ টাইগার্সের হয়ে প্রথম ইনিংসে ৮৯ রানের দারুণ ইনিংস খেলেন ফজলে মাহমুদ রাব্বি। হাসান মাহমুদ নেন ৩ উইকেট। জাতীয় দলের বাইরে থাকা আরেক পেসার আবু জায়েদ দুই ইনিংস মিলিয়ে উইকেট নিতে পারেন মাত্র একটি।  

এইচপির হয়ে ফিফটি করতে পারেননি কেউ। প্রথম ইনিংসে সর্বোচ্চ ৪৭ রান করেন গত যুব বিশ্বকাপে খেলা মাহফিজুল ইসলাম। পেসার মৃত্যুঞ্জয় ভালো বোলিং করেন। দুই ইনিংস মিলিয়ে তিনি নেন ৪ উইকেট। 

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

এইচপি ১ম ইনিংস: ২২৭

বাংলাদেশ টাইগার্স ১ম ইনিংস: ৩১৮/৯

এইচপি ২য় ইনিংস: ৭৪.৫ ওভারে ২১৭ (আগের দিন ১২৩/৪) (শাহাদাত ৪০, আইচ ১৫, আকবর ১৩, মৃত্যুঞ্জয় ০, রিশাদ ৩১, এনামুল ২৩, রিপন ০*; আবু জায়েদ ৮-০-২১-০, আবু হায়দার ১২-৪-৩৫-৩, হালিম ৯-০-৩৫-০, হাসান মাহমুদ ৬-০-১৭-১, নাঈম হাসান ১০-২-৪০-১, তানভির ২১.৫-৯-৩৫-৪, সৌম্য ৫-১-৬-০)

বাংলাদেশ টাইগার্স ২য় ইনিংস: (লক্ষ্য ১২৭) ২২.৩ ওভারে ১৩১/১ (নাঈম শেখ ৪৭*, সৌম্য ৯, ইমরুল ৬৮*; এনামুল ৩-০-১১-০, মুশফিক ৩-০-২০-০, মুরাদ ৬-১-২৪-০, মৃত্যুঞ্জয় ৪-০-৩৪-১, রিপন ৬-১-৩৫-০, শাহাদাত ০.৩-০-৬-০)

ফল: বাংলাদেশ টাইগার্স ৯ উইকেটে জয়ী

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক