ব্যাটিং ঝলকের পর বল হাতেও বিধ্বংসী বুমরাহ, চাপে ইংল্যান্ড

বৃষ্টির বাধায় বারবার বন্ধ হলো খেলা। তার আগে-পরে এজবাস্টন দেখল জাসপ্রিত বুমরাহ ‘শো।’ নেতৃত্বের অভিষেক ম্যাচে প্রথমে তিনি ব্যাট হাতে ক্যামিও ইনিংসের পথে গড়লেন বিশ্ব রেকর্ড। পরে বল হাতে বিধ্বস্ত করলেন ইংল্যান্ডের টপ অর্ডার। শেষ বেলায় উইকেট প্রাপ্তির আনন্দে মাতলেন মোহাম্মদ সিরাজ ও মোহাম্মদ শামি। ভারতের দাপুটে দিনে খুব চাপে ইংলিশরা।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 2 July 2022, 07:21 PM
Updated : 2 July 2022, 07:29 PM

বৃষ্টিবিঘ্নিত টেস্টের দ্বিতীয় দিন শনিবার খেলা হতে পারে কেবল ৩৮.১ ওভার। রবীন্দ্র জাদেজার সেঞ্চুরিতে ভারতের প্রথম ইনিংস থামে ৪১৬ রানে।

দিন শেষে ইংল্যান্ডের রান ৫ উইকেটে ৮৪। এখনও তারা পিছিয়ে আছে ৩৩২ রানে।

এমন ধ্বংসস্তূপ থেকেই ভারত পায় বড় সংগ্রহ। ৯৮ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর ২২২ রানের জুটিতে দলকে উদ্ধার করেন রিশাভ পান্ত ও জাদেজা। কিপার-ব্যাটসম্যান পান্ত প্রথম দিন ১১১ বলে খেলেন ১৪৬ রানের দুর্দান্ত ইনিংস।

ভারত দ্বিতীয় দিন শুরু করে ৭ উইকেটে ৩৩৮ রান নিয়ে। এ দিন ১১.৫ ওভারেই তারা যোগ করে আরও ৭৮ রান।

আগের দিন ৮৩ রানে অপরাজিত জাদেজা ৯২ থেকে ম্যাথু পটসকে পরপর দুই চার মেরে তিন অঙ্কে পা রাখেন ১৮৩ বলে।

৬০ টেস্টের ক্যারিয়ারে বাঁহাতি এই স্পিনিং অলরাউন্ডারের এটি তৃতীয় সেঞ্চুরি। সবশেষ চার ইনিংসেই হলো ২টি।

পরের ওভারে শামিকে ফিরিয়ে ৫৫০তম টেস্ট উইকেট তুলে নেন স্টুয়ার্ট ব্রড। একটু পরই তিনি গড়েন অনাকাঙ্ক্ষিত এক রেকর্ড।

১৯৪ বলে ১৩ চারে ১০৪ রান করা জাদেজাকে বোল্ড করে থামান অ্যান্ডারসন। ব্রডের পরের ওভারে বুমরাহ চালান তাণ্ডব।

ব্রড টেস্টের এক ওভারে সবচেয়ে বেশি রান দেওয়ার রেকর্ড গড়েন ৩৫ রান দিয়ে। আগের রেকর্ড যৌথভাবে ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার রবিন পিটারসন, ইংল্যান্ডের অ্যান্ডারসন ও জো রুটের; তিন জনই দিয়েছিলেন ২৮ রান।

ওই ওভারে ৪টি চার, ২টি ছক্কা ও একটি সিঙ্গেলে বুমরাহ ব্যাট থেকেই আসে ২৯ রান। এক ওভারে কোনো ব্যাটসম্যানের এটি সর্বোচ্চ। রেকর্ডটি এতদিন ছিল যৌথভাবে ব্রায়ান লারা ও জর্জ বেইলির। দুই জনই নিয়েছিলেন ২৮ রান করে।

পরের ওভারে সিরাজকে ফিরিয়ে ভারতের ইনিংস গুটিয়ে দেন অ্যান্ডারসন। টেস্ট ইতিহাসের সফলতম এই পেসার একই সঙ্গে ৩২তম বারের মতো পূর্ণ করেন ৫ উইকেট।

১৬ বলে ৪টি চার ও ২টি ছক্কায় অপরাজিত ৩১ রানের পর বুমরাহ বল হাতে শুরুতেই আঘাত হানেন। ইংল্যান্ডের প্রথম তিন ব্যাটসম্যানই তার শিকার।

তার দ্বিতীয় ওভারেই ব্যাট ও প্যাডের ফাঁক গলে বোল্ড হন অ্যালেক্স লিস। বৃষ্টিতে প্রথম দফা খেলা বন্ধ হয়ে যায় সেখানে। আবার খেলা শুরু হলে নিজের পরের ওভারে প্রথম বলে জ্যাক ক্রলিকে ফিরিয়ে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগান বুমরাহ।

হ্যাটট্রিক ডেলিভারিতে অল্পের জন্য রুটের ব্যাটের কানা নেয়নি বল। বুমরাহর পরের ওভারের মাঝেই আবার বৃষ্টির হানা।

বিরতির পর তিনি তৃতীয় শিকার ধরেন অলিভার পোপকে ফিরিয়ে। অফ স্টাম্পের অনেক বাইরের বল তাড়া করে স্লিপে ক্যাচ দেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান।

তখন ৪৪ রানে ৩ উইকেট নেই ইংল্যান্ডের। এরপর চার ওভার খেলা হতেই আবার বৃষ্টি নামে এজবাস্টনে।

লম্বা সময় পর খেলা শুরু হলে প্রতিরোধের চেষ্টা করেন রুট ও জনি বেয়ারস্টো। দুই জনে দিনের খেলা শেষ করে দেবেন বলেই মনে হচ্ছিল। কিন্তু সিরাজের বলে শেষ মুহূর্তে আপার কাটের মতো খেলার চেষ্টায় কট বিহাইন্ড হয়ে ফেরেন রুট (৬৭ বলে ৩১)।

‘নাইটওয়াচম্যান’ হিসেবে লিচ জীবন পান স্লিপে বিরাট কোহলি ক্যাচ নিতে না পারায়। শামি নিজের পরের ওভারে অবশ্য ঠিকই তুলে নেন লিচের উইকেটটি। ক্যাচ নেন এবার কিপার পান্ত।

দিন শেষে বেয়ারস্টো ৪৭ বলে ১২ ও অধিনায়ক বেন স্টোকস শূন্য রানে অপরাজিত আছেন। তৃতীয় দিনে তাদের দিকেই তাকিয়ে থাকবে দল।

গত বছর স্থগিত হওয়া সিরিজের পঞ্চম টেস্ট ম্যাচটিই নতুন সূচিতে হচ্ছে এজবাস্টনে। ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে থাকা ভারত এখানে ড্র করলেই জিতে নেবে সিরিজ।      

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ভারত ১ম ইনিংস: ৮৪.৫ ওভারে ৪১৬ (আগের দিন ৩৩৮/৭) (জাদেজা ১০৪, শামি ১৬, বুমরাহ ৩১*, সিরাজ ২; অ্যান্ডারসন ২১.৫-৪-৬০-৫, ব্রড ১৮-৩-৮৯-১, পটস ২০-১-১০৫-২, লিচ ৯-০-৭১-০, স্টোকস ১৩-০-৪৭-১, রুট ৩-০-২৩-১)

ইংল্যান্ড ১ম ইনিংস: ২৭ ওভারে ৮৪/৫ (লিস ৬, ক্রলি ৯, পোপ ১০, রুট ৩১, বেয়ারস্টো ১২, লিচ ০, স্টোকস ০*; বুমরাহ ১১-১-৩৫-৩, শামি ১৩-৩-৩৩-১, সিরাজ ৩-২-৫-১)

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক