ম্যাক্সওয়েলের অসাধারণ ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার রোমাঞ্চকর জয়

ব্যাটিংয়ে ঝড়ো ইনিংস খেলার পর বল হাতেও আলো ছড়ালেন ভানিন্দু হাসারাঙ্গা। জাগালেন জয়ের আশা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পেরে উঠল না শ্রীলঙ্কা। খুনে ব্যাটিংয়ে অস্ট্রেলিয়াকে দারুণ জয় এনে দিলেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 June 2022, 06:35 PM
Updated : 14 June 2022, 08:03 PM

পাল্লেকেলেতে মঙ্গলবার পাঁচ ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে ডাকওয়ার্থ-লুইস-স্টার্ন পদ্ধতিতে ২ উইকেটে জিতেছে অ্যারন ফিঞ্চের দল।

টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যানের ফিফটি ও হাসারাঙ্গার ক্যামিওতে ৫০ ওভারে শ্রীলঙ্কা ৭ উইকেটে করে ৩০০ রান।

অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসের ত্রয়োদশ ওভারে বৃষ্টি নামলে তাদের নতুন লক্ষ্য দাঁড়ায় ৪৪ ওভারে ২৮২। ৯ বল বাকি থাকতে সেটি পেরিয়ে যায় সফরকারীরা।

হাসারাঙ্গা তিন বলের মধ্যে যখন ফিরিয়ে দেন অ্যালেক্স কেয়ারি ও প্যাট কামিন্সকে, অস্ট্রেলিয়ার দরকার ৫১ বলে ৫৪। হাতে উইকেট কেবল ৩টি। তবে বিপদ হতে দেননি ম্যাক্সওয়েল। তার ৫১ বলে ৬টি করে চার-ছক্কায় অপরাজিত ৮০ রানের চমৎকার ইনিংসে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় অস্ট্রেলিয়া। স্টিভেন স্মিথের ব্যাট থেকে আসে ৫৩ রান।

বিফলে গেছে হাসারাঙ্গার অলরাউন্ড পারফরম্যান্স। ব্যাটিংয়ে ১৯ বলে ৩৭ রানের পর ৪ উইকেট নেন এই লেগ স্পিনিং অলরাউন্ডার।

শ্রীলঙ্কার হয়ে ৮৭ বলে সর্বোচ্চ ৮৬ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন কুসল মেন্ডিস। দুই ওপেনার দানুশকা গুনাথিলাকা ৫৩ বলে ৫৫ ও পাথুম নিসানকা ৬৮ বলে করেন ৫৬ রান।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে পাওয়ার প্লেতে এই দুজনে তোলেন ৫৬ রান। অষ্টাদশ ওভারে স্পর্শ করে জুটির শতরান। ফিফটি ছোঁয়ার পর দুজনই অবশ্য বিদায় নেন ৩ রানের মধ্যে।

গুনাথিলাকার রান আউটে ভাঙে ১১৫ রানের শুরুর জুটি। তার ৫৫ রানের ইনিংস গড়া ৭টি চারে। অ্যাশটন অ্যাগারকে রিভার্স সুইপ করে ক্যাচ দেন ৬ চার ও এক ছক্কায় ৫৬ রান করে নিসানকা।

টিকতে পারেননি ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। চতুর্থ উইকেটে মেন্ডিসের সঙ্গে ৭৭ রানের জুটিতে দলকে এগিয়ে নেন চারিথ আসালাঙ্কা। তিনি ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ৪২ বলে ৩৭ রান করে।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের শেষ টি-টোয়েন্টিতে খুনে ব্যাটিংয়ে শ্রীলঙ্কাকে জেতানো দাসুন শানাকা এবার প্রত্যাশিত ঝড় তুলতে পারেননি। কিছু করে দেখাতে পারেননি চামিকা করুনারত্নেও।

৪৯তম ওভারে টানা পাঁচটি চার মারেন ভানিন্দু হাসারাঙ্গা। ছবি: আইসিসি

অষ্টম উইকেটে ২৫ বলে ৪২ রানের জুটিতে দলকে তিনশর ঠিকানায় নিয়ে যান মেন্ডিস ও হাসারাঙ্গা। শেষের আগের ওভারে জাই রিচার্ডসনের প্রথম ৫ বলে পাঁচটি চার মারা হাসারাঙ্গা শেষ বলে নেন ডাবল। ইনিংসের শেষ বলে তিনি আউট হন ৬টি চারে ৩৭ রানের ইনিংসটি খেলে।

ওয়ানডেতে প্রথম উইকেট পাওয়ার দিনে মার্নাস লাবুশেনের প্রাপ্তি ২টি। অ্যাগারও ২ উইকেট নেন ৪৯ রান দিয়ে।

রান তাড়ায় অস্ট্রেলিয়ার শুরুটা ভালো ছিল না। ডেভিড ওয়ার্নার শূন্য রানে বিদায় নেন মাহিশ থিকশানার বলে এলবিডব্লিউ হয়ে।

ধাক্কা সামাল দিয়ে দ্বিতীয় উইকেটে ৬৮ বলে ৬৭ রানের জুটিতে দলকে এগিয়ে নেন অধিয়ায়ক ফিঞ্চ ও স্মিথ। হাসারাঙ্গার বলে ফিঞ্চ ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ৪১ বলে ৪৪ রান করে। এর পরপরই বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ থাকে এক ঘণ্টা।

চারে নেমে লাবুশেন বিদায় নেন ৩১ বলে ২৪ রান করে। ফিফটি করার পরই স্মিথের ইনিংস থামে অভিষিক্ত স্পিনার দুনিথ ওয়াল্লালাগের বলে বোল্ড হয়ে। ৬০ বলে ৫ চারে গড়া তার ৫৩ রানের ইনিংস।

পঞ্চম উইকেটে ৪৮ রানের জুটিতে দলকে লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে নেন মার্কাস স্টয়নিস ও কেয়ারি। ৩১ বলে ৪টি চার ও ২টি ছক্কায় ৪৪ রান করা স্টয়নিসকে বোল্ড করে জুটি ভাঙেন হাসারাঙ্গা।

এরপর ম্যাক্সওয়েল যখন ব্যাটিংয়ে নামেন, ৮৪ বলে অস্ট্রেলিয়ার দরকার ৯৩ রান। হাতে ৫ উইকেট। প্রথম ১৫ বলে তার রান ছিল ১২। এরপর হাসারাঙ্গাকে পরপর ছক্কা-চারে ডানা মেলেন তিনি।

হাসারাঙ্গা পরের ওভারেই কেয়ারি (২১) ও কামিন্সকে ফিরিয়ে শ্রীলঙ্কাকে ম্যাচে ফেরান। খানিকটা হলেও চাপে পড়ে যায় অস্ট্রেলিয়া।

ম্যাক্সওয়েল অবশ্য চালিয়ে যান তাণ্ডব। অ্যাগার যখন অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে ফেরেন তখনও অস্ট্রেলিয়ার দরকার ছিল ২৮ রান। জাই রিচার্ডসনকে নিয়ে ঠান্ডা মাথায় কাজ শেষ করে আসেন ম্যাক্সওয়েল। দুশমন্থ চামিরাকে পরপর দুই ছক্কায় ম্যাচের ইতি টেনে দেন তিনি।

১৮ বলে অবিচ্ছিন্ন ২৮ রানের জুটিতে ম্যাক্সওয়েলই ১৫ বলে করেন ২৭। এই মাঠ এমনিতে তার জন্য পয়মন্ত। ২০১৬ সালে এখানেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে তিনি সেঞ্চুরি করেছিলেন স্রেফ ৪৯ বলে। এবার দারুণ ইনিংস খেলে জেতালেন দলকে। ম্যাচ সেরার পুরস্কার ওঠে তার হাতেই।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা: ৫০ ওভারে ৩০০/৭ (গুনাথিলাকা ৫৫, নিসানকা ৫৬, মেন্ডিস ৮৬*, ধনাঞ্জয়া ৭, আসালাঙ্কা ৩৭, শানাকা ৬, করুনারত্নে ৭, হাসারাঙ্কা ৩৭; হেইজেলউড ১০-০-৫৪-১, ম্যাক্সওয়েল ১০-০-৬০-০, কামিন্স ৮-১-৪৮-০, রিচার্ডসন ৮-০-৬৪-১, অ্যাগার ১০-০-৪৯-২, স্টয়নিস ১-০-৩-০, লাবুশেন ৩-০-১৯-২) 

অস্ট্রেলিয়া: (লক্ষ্য ৪৪ ওভারে ২৮২) ৪২.৩ ওভারে ২৮২/৮ (ওয়ার্নার ০, ফিঞ্চ ৪৪, স্মিথ ৫৩, লাবুশেন ২৪, স্টয়নিস ৪৪, কেয়ারি ২১, ম্যাক্সওয়েল ৮০*, কামিন্স ০, অ্যাগার ৩, রিচার্ডসন ১*; চামিরা ৭.৩-০-৬০-০, থিকশানা ৮-০-৫১-১, করুনারত্নে ৪-০-১৬-০, হাসারাঙ্গা ৯-০-৫৮-৪, ওয়াল্লালাগে ৭-০-৪৯-২, ধনাঞ্জয়া ৩-০-১৪-০, শানাকা ৪-০-২৭-১)  

ফল: ডাকওয়ার্থ-লুইস-স্টার্ন পদ্ধতিতে ২ উইকেটে জয়ী অস্ট্রেলিয়া

সিরিজ: পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ১-০ তে অস্ট্রেলিয়া এগিয়ে

ম্যান অব দা ম্যাচ: গ্লেন ম্যাক্সওয়েল

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক