প্রথমবার হ্যাডলি মেডেল সাউদির

বল হাতে দারুণ একটি মৌসুম কাটানোর স্বীকৃতি পেলেন টিম সাউদি। প্রথমবারের মতো নিউ জিল্যান্ডের বর্ষসেরা ক্রিকেটারের পুরস্কার ‘স্যার রিচার্ড হ্যাডলি মেডেল’ জিতলেন অভিজ্ঞ এই ফাস্ট বোলার।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 April 2022, 01:08 PM
Updated : 14 April 2022, 01:08 PM

তিন দিন ব্যাপী ২০২২ নিউ জিল্যান্ড ক্রিকেট অ্যাওয়ার্ডসের শেষ দিন বৃহস্পতিবার ঘোষণা করা হয় বর্ষসেরা ক্রিকেটারের নাম।  

২০২১-২২ মৌসুমে টেস্ট ক্রিকেটে ২৩.৮৮ গড়ে সাউদি উইকেট নেন ৩৬টি। সাউথ্যাম্পটনে আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে পাঁচ উইকেট নিয়ে দলের শিরোপা জয়ে রাখেন বড় ভূমিকা। এই সময়ে তার সেরা বোলিং ছিল লর্ডসে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৪৩ রানে ৬ উইকেট।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে হওয়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে ওঠা নিউ জিল্যান্ড দলের অংশ ছিলেন তিনি। এই সংস্করণে ভারতে সফরে নিয়মিত অধিয়ানায়ক কেন উইলিয়ামসনের অনুপস্থিতিতে দলকে তিনি নেতৃত্বও দেন।

এক যুগের বেশি সময়ের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার সাউদির। প্রথমবার নিউ জিল্যান্ডের বর্ষসেরা ক্রিকেটার হয়ে গর্বিত অনুভব করছেন ৩৩ বছর বয়সী পেসার।    

“বেশিরভাগ ক্রিকেটার যেভাবে বেড়ে ওঠে, সেভাবে আমিও স্যার রিচার্ডের কৃতিত্ব সম্পর্কে সবই জানতাম এবং এই বছর তার পুরস্কার জিততে পারাটা অবশ্যই খুবই সম্মানজনক। আমি মনে করি, আমরা যেভাবে একটি দল হিসেবে একসঙ্গে কাজ করেছি এবং দীর্ঘ সময় ধরে ক্রিকেট খেলেছি তার প্রতিফলন পড়েছে এখানে।”

যার সম্মানে বর্ষসেরা পদকের নামকরণ, সেই কিংবদন্তি অলরাউন্ডার রিচার্ড হ্যাডলি শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সাউদিকে। ৪৩১ উইকেট নিয়ে টেস্টে নিউ জিল্যান্ডের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি হ্যাডলি। সাউদির উইকেট এখন ৩৩৮টি।

হ্যাডলি বলছেন, তার উইকেট সংখ্যা সাউদি ছাড়িয়ে গেলে খুশিই হবেন তিনি। 

“কোনো সন্দেহ নেই যে ৪০০ টেস্ট উইকেট তার দৃষ্টি সীমানায় এবং সম্ভবত সেই ম্যাজিক নম্বর ৪৩১ তোমার মনে কোথাও লুকিয়ে রয়েছে। তাই এই লক্ষটা ছুঁতে পারো কি-না, তা দেখার জন্য আমি অপেক্ষায় থাকব। আমি এখানে বসে বলতে প্রস্তুত, ‘আমার এখন এটা (রেকর্ডটা) ছেড়ে দেওয়ার সময় এসেছে।’ তুমি যা অর্জন করেছো তার জন্য টিম তোমাকে অভিনন্দন জানাই। কোনো সন্দেহ নেই নিউ জিল্যান্ড ক্রিকেট এবং খেলাটিকে দেওয়ার জন্য তোমার সামনে আরও কয়েক বছর আছে।” 

প্রথম শ্রেণির বোলিংয়ের পুরস্কার উইনসর কাপও জিতেছেন সাউদি।

বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটার হয়েছেন ডেভন কনওয়ে। গত বছর টেস্ট অভিষেকেই তিনি ডাবল সেঞ্চুরি করেন ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। মৌসুমে ৬৩.৯১ গড়ে তার রান ৭৬৭।

গত মৌসুমে নিউ জিল্যান্ড ওয়ানডে খেলেছে কেবল ৬টি। এর মধ্যে স্রেফ তিনটি খেলেই এই সংস্করণের বর্ষসেরা হয়েছেন উইল ইয়াং। নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে এই তিন ম্যাচের দুটিতেই তিনি করেন সেঞ্চুরি। জেতেন সিরিজ সেরার পুরস্কার।

মেয়েদের বর্ষসেরা ওয়ানডে ক্রিকেটার এমিলিয়া কার। ২০২১ সালে ছয় ম্যাচে ব্যাট হাতে ১৭১ রানের পাশাপাশি বোলিংয়ে তিনি নেন ৬ উইকেট। সম্প্রতি শেষ হওয়া ওয়ানডে বিশ্বকাপে সাত ম্যাচে করেন ২০১ রান। উইকেট নেন ৯টি। 

অ্যাওয়ার্ডস অনুষ্ঠানের প্রথম দিন টি-টোয়েন্টির বর্ষসেরা হন যথাক্রমে ট্রেন্ট বোল্ট ও সোফি ডিভাইন।

ক্রিকেটে অসাধারণ অবদানের জন্য এবারের ‘বার্ট সাটক্লিফ মেডেল’ জয়ী সাবেক নারী ক্রিকেটার পেনি কিনসেলা।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক