কামিন্স-স্টার্কের তোপে পুড়ল পাকিস্তানের ব্যাটিং

দিনের দ্বিতীয় সেশন শেষে পাকিস্তানের স্কোর ৩ উইকেটে ২২৭। বড় সংগ্রহের শক্ত ভিত। শেষ সেশনে প্যাট কামিন্স ও মিচেল স্টার্কের আগুনঝরা বোলিংয়ে পাল্টে গেল সব। ২০ রানে শেষ ৭ উইকেট হারিয়ে আড়াইশ পার হতেই গুটিয়ে গেল বাবর আজমের দল।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 23 March 2022, 03:04 PM
Updated : 23 March 2022, 03:04 PM

লাহোরে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টেস্টে বুধবার পাকিস্তানকে ২৬৮ রানে আটকে দিয়ে ১২৩ রানের লিড নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। পরে ব্যাটিংয়ে নেমে বিনা উইকেটে ১১ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শেষ করেছে তারা। সফরকারীরা এগিয়ে মোট ১৩৪ রানে।

অস্ট্রেলিয়ার সফলতম বোলার কামিন্স ৫৬ রান দিয়ে নেন ৫ উইকেট। টেস্টে যা তার সপ্তম ও পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম পাঁচ উইকেট।

প্রতিপক্ষের মিডল অর্ডার ধসিয়ে দেওয়া স্টার্ক ৩৩ রানে নেন চারটি।

পাকিস্তানের হয়ে সর্বোচ্চ ৮১ রান করেন আবদুল্লাহ শফিক। অভিজ্ঞ আজহার আলির ব্যাট থেকে আসে ৭৮ রান। অধিনায়ক বাবর খেলেন ৬৭ রানের ইনিংস।

এদিনও উইকেটে ছিল পেসারদের জন্য সহায়তা। টার্ন পেয়েছেন স্পিনাররাও। ১ উইকেটে ৯০ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে নেমে দিনের শুরুটা ভালোই হয় পাকিস্তানের। আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান শফিক ও আজহারের দৃঢ়তায় প্রথম সেশনে কোনো উইকেট হারায়নি দলটি।

৪৫ রান নিয়ে খেলতে নামা শফিক ক্যারিয়ারের চতুর্থ ফিফটিতে পা রাখেন ১৩৭ বলে। ৩০ রানে দিন শুরু করা আজহার পঞ্চাশ স্পর্শ করেন ১০৩ বলে।

লাঞ্চ বিরতির ঠিক আগের ওভারে অস্ট্রেলিয়ার সামনে এসেছিল জুটি ভাঙার সুযোগ। কিন্তু মিচেল সোয়েপসনের লেগ স্পিনে ৬২ রানে থাকা আজহারের ক্যাচ ধরতে পারেননি স্লিপে থাকা স্টিভেন স্মিথ।

আজহার-শফিকের ১৫০ রানের জুটি ভাঙেন ন্যাথান লায়ন। কট বিহাইন্ডের আবেদনে আম্পায়ার সাড়া না দিলে রিভিউ নিয়ে শফিককে ফেরায় অস্ট্রেলিয়া। ২২৮ বল স্থায়ী ইনিংসটি ১১ চারে সাজান এই ওপেনার।

জমে উঠেছিল বাবরের সঙ্গে আজহারের জুটিও। কিন্তু কামিন্সের দুর্দান্ত ফিরতি ক্যাচে ফিরে যান আজহার। ৭ চার ও এক ছক্কায় ৭৮ রান করেন তিনি।

দলের হাল ধরতে পারেননি ফাওয়াদ আলম। অনেকটা সময় উইকেটে কাটিয়ে স্টার্কের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান।

বাকি ব্যাটসম্যানদের এরপর কেবল আসা-যাওয়ার পালা। দারুণ এক ডেলিভারিতে আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান মোহাম্মদ রিজওয়ানের স্টাম্প এলোমেলো করে দেন স্টার্ক।

কামিন্সের রিভার্স সুইংয়ে বোল্ড হন সাজিদ খান। এই পেসার নিজের পরের ওভারে জোড়া শিকার ধরে পূর্ণ করেন পাঁচ উইকেট।

সতীর্থদের সাজঘরে ফেরার মিছিলের মাঝে এক প্রান্তে লড়াই চালিয়ে যান বাবর। করাচি টেস্টে ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলা এই ব্যাটসম্যান ফিফটিতে পা রাখেন ৯১ বলে।

এক ওভারেই বাবর ও নাসিম শাহকে ফিরিয়ে পাকিস্তানের ইনিংস গুটিয়ে দেন স্টার্ক। ৬ চার ও এক ছক্কায় ৬৭ রান করে বাবর হন এলবিডব্লিউ। রিভিউ নিয়েও বাঁচতে পারেননি তিনি।

১০ ওভারের মধ্যে শেষ ৭ উইকেট হারানো পাকিস্তান শেষ ৪ উইকেটই হারায় ২৬৮ রানে থেকে।

শেষ বেলায় ব্যাটিংয়ে নেমে ৩ ওভার নিরাপদে কাটিয়ে দেন উসমান খাওয়াজা ও ডেভিড ওয়ার্নার। ৭ রান নিয়ে খেলছেন খাওয়াজা, ৪ রানে ওয়ার্নার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

অস্ট্রেলিয়া ১ম ইনিংস: ৩৯১

পাকিস্তান ১ম ইনিংস: ১১৬.৪ ওভারে ২৬৮ (আগের দিন ৯০/১) (শফিক ৮১, আজহার ৭৮, বাবর ৬৭, ফাওয়াদ ১৩, রিজওয়ান ১, সাজিদ ৬, নুমান ০, হাসান ০, আফ্রিদি ০*, নাসিম ০; স্টার্ক ২০.৪-৬-৩৩-৪, কামিন্স ২৪-৮-৫৬-৫, গ্রিন ১৪-৪-৩৭-০, লায়ন ৪০-১০-৯৫-১, সোয়েপসন ১৮-২-৪২-০)

অস্ট্রেলিয়া ২য় ইনিংস: ৩ ওভারে ১১/০ (খাওয়াজা ৭*, ওয়ার্নার ৪*; আফ্রিদি ২-০-১১-০, নাসিম ১-১-০-০)

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক