আড়াই দিনেই হেরে ভারতে হোয়াইটওয়াশড লঙ্কানরা

পাহাড়সম রান তাড়ার কঠিন চ্যালেঞ্জে একাই লড়াই করলেন দিমুথ করুনারত্নে। দুরূহ উইকেটে উপহার দিলেন দারুণ এক সেঞ্চুরি। কিন্তু কুসল মেন্ডিস ছাড়া অধিনায়ককে সঙ্গ দিতে পারলেন না আর কেউ। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম দিবা-রাত্রির টেস্টে ব্যাটিং-বোলিংয়ে দাপুটে পারফরম্যান্সে আড়াই দিনেই জয় তুলে নিল ভারত।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 March 2022, 12:34 PM
Updated : 14 March 2022, 02:15 PM

বেঙ্গালুরুতে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে ২৩৮ রানে জিতেছে ভারত। ৪৪৭ রানের লক্ষ্য দিয়ে তৃতীয় দিনের দ্বিতীয় সেশনেই প্রতিপক্ষকে ২০৮ রানে গুটিয়ে দিয়েছে তারা।

প্রথম ইনিংসে ২৫২ রান করা স্বাগতিকরা শ্রীলঙ্কাকে থামিয়ে দেয় স্রেফ ১০৯ রানে। বড় লিড নেওয়ার পর দ্বিতীয় ইনিংসে ৩০৩ রান করে প্রতিপক্ষের সামনে সাড়ে চারশর বিশাল লক্ষ্য দেয় ভারত।

ভারতের বিপক্ষে এর আগে চারশ রানও তাড়া করার রেকর্ড নেই কোনো দলের। শ্রীলঙ্কা যেতে পারল না ধারেকাছেও।

মোহালিতে প্রথম টেস্টে সফরকারীরা হেরেছিল ইনিংস ও ২২২ রানে।

করুনারত্নে ক্যারিয়ারের চতুর্দশ সেঞ্চুরিতে খেলেন ১০৭ রানের ইনিংস। দ্বিতীয় উইকেটে তার সঙ্গে ৯৭ রানের জুটি গড়া মেন্ডিসের ব্যাট থেকে আসে ৫৪ রান।

স্পিনাররা যে উইকেটে ছড়ি ঘোরালেন, সেখানেই দুর্দান্ত বোলিং উপহার দেন জাসপ্রিত বুমরাহ। প্রথম ইনিংসে ৫ উইকেটের পর এবার নেন তিনটি। দ্বিতীয় ইনিংসে রবিচন্দ্রন অশ্বিনের শিকার ৪ উইকেট।

১ উইকেটে ২৮ রান নিয়ে সোমবার দিন শুরু করা শ্রীলঙ্কা চতুর্থ বলেই হারাতে পারত উইকেট। রবীন্দ্র জাদেজার বলে স্লিপে করুনারত্নের কঠিন ক্যাচ ধরতে পারেননি বিরাট কোহলি।

১৪ রানে জীবন পেয়ে সতর্ক হয়ে ওঠেন করুনারত্নে। আগের দিনের আরেক অপরাজিত ব্যাটসম্যান মেন্ডিস দ্রুত রান তোলার পথ বেছে নেন। এক বছর পর টেস্ট খেলতে নামা এই খেলোয়াড় ক্যারিয়ারের দ্বাদশ ফিফটিতে পা রাখেন ৫৭ বলে।

এই দুইজনের প্রতিরোধ ভাঙে ৮ চারে ৫৪ রান করা মেন্ডিসের বিদায়ে। উইকেট ছেড়ে অনেকটা বেরিয়ে এসে অশ্বিনের বল ডিফেন্ড করতে চেয়েছিলেন লঙ্কান টপ অর্ডার। কিন্তু ব্যাটে-বলে করতে পারেননি তিনি। সহজ স্টাম্পিং করেন রিশাভ পান্ত।

পরের ওভারেই জাদেজার সোজা বলে বোল্ড হয়ে যান প্রথম ইনিংসে লঙ্কানদের হয়ে সর্বোচ্চ রান করা অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস। টিকতে পারেননি ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাও। অশ্বিনের বল ব্যাটের পর প্যাডে লেগে শূন্যে উঠে যায়, বাঁ দিকে ঝাঁপিয়ে মুঠোয় জমান শর্ট লেগে থাকা হনুমা বিহারি।

এরই সঙ্গে টেস্টে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির তালিকায় ডেল স্টেইনের ৪৩৯ উইকেট ছাড়িয়ে অষ্টম স্থানে ওঠেন অশ্বিন। পরে আরও দুই উইকেট নেওয়া এই স্পিনারের এখন ৪৪২ উইকেট।

৯২ বলে ফিফটি করা করুনারত্নেকে কিছুক্ষণ সঙ্গ দেন নিরোশান ডিকভেলা। তাদের জুটিতে আসে ৫৫ রান, যেখানে অগ্রণী ছিলেন করুনারত্নে। মেন্ডিসের মতো প্রায় একইভাবে স্টাম্পড হয়ে সাজঘরে ফেরেন শ্রীলঙ্কার কিপার-ব্যাটসম্যান ডিকভেলা।

ব্যক্তিগত ৮৯ রানে আরও একবার জীবন পান করুনারত্নে। এবারও বোলার জাদেজা, শর্ট মিডকেটে রোহিত শর্মা ধরতে পারেননি ক্যাচ।

১৬৬ বলে সেঞ্চুরি স্পর্শ করেন করুনারত্নে। বুমরাহর দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে বোল্ড হয়ে শেষ হয় তার ১৫ চারে ১৭৪ বল স্থায়ী ইনিংস।

এরপর দ্রুতই গুটিয়ে যায় শ্রীলঙ্কার ইনিংস। শেষ ৪ উইকেট তারা হারায় স্রেফ ৪ রানে।

কঠিন উইকেটে দুই ইনিংসেই ফিফটি করে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন শ্রেয়াস আইয়ার। আর পান্তের হাতে ওঠে সিরিজ সেরার পুরস্কার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ভারত ১ম ইনিংস: ২৫২

শ্রীলঙ্কা ১ম ইনিংস: ১০৯

ভারত ২য় ইনিংস: ৩০৩/৯ ডিক্লে.

শ্রীলঙ্কা ২য় ইনিংস: (লক্ষ্য ৪৪৭) ৫৯.৩ ওভারে ২০৮ (আগের দিন ২৮/১) (করুনারত্নে ১০৭, মেন্ডিস ৫৪, ম্যাথিউস ১, ধনাঞ্জয়া ৪, ডিকভেলা ১২, আসালাঙ্কা ৫, এম্বুলদেনিয়া ২, লাকমল ১, ফার্নান্দো ২, জয়াবিক্রমা ০*; বুমরাহ ৯-৪-২৩-৩, শামি ৬-০-২৬-০, অশ্বিন ১৯.৩-৩-৫৫-৪, জাদেজা ১৪-২-৪৮-১, আকসার ১১-১-৩৭-২)

ফল: ভারত ২৩৮ রানে জয়ী

সিরিজ: ২ ম্যাচের সিরিজ ২-০ ব্যবধানে জিতেছে ভারত

ম্যান অব দা ম্যাচ: শ্রেয়াস আইয়ার

ম্যান অব দা সিরিজ: রিশাভ পান্ত

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক