আজহারের ১৮৫, পাকিস্তানের আরেকটি দারুণ দিন

আগের দিন প্রথম সেঞ্চুরির স্বাদ পাওয়া ইমাম-উল-হক থামলেন দেড়শ পার করে। আজহার আলি এগিয়ে গেলেন আরও অনেকটা। জাগালেন দ্বিশতকের সম্ভাবনাও, শেষ পর্যন্ত অবশ্য পারেননি। তিনি সুযোগ হাতছাড়া করলেও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে রাওয়ালপিন্ডি টেস্টে আরেকটি দারুণ দিন কাটাল পাকিস্তান।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 5 March 2022, 02:43 PM
Updated : 5 March 2022, 03:02 PM

ঐতিহাসিক এই সিরিজের প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিন ৪ উইকেটে ৪৭৬ রান নিয়ে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেছে বাবর আজমের দল।

দিনের শেষ বেলায় ব্যাটিংয়ে নেমে আলোক স্বল্পতায় কেবল এক ওভার খেলতে পারে অস্ট্রেলিয়া। কোনো বিপদ ছাড়াই ৫ রান তুলে শেষ করেন ওয়ার্নার ও উসমান খাওয়াজা।

রাওয়ালপিন্ডি ক্রিকেট স্টেডিয়ামের ব্যাটিং স্বর্গে দারুণ ব্যাটিং উপহার দেন ইমাম ও আজহার। রানের গতি যদিও আশানুরূপ হয়নি।

স্বাগতিকদের বিশাল পুঁজি গড়ে দেওয়ার নায়ক তারা দুজনই। দ্বিতীয় উইকেটে গড়েন ২০৮ রানের জুটি, যা অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এই উইকেটে পাকিস্তানের তৃতীয় সর্বোচ্চ জুটি।

৩৫৮ বলে ১৬ চার ও ২ ছক্কায় ইমাম খেলেন ১৫৭ রানের ইনিংস। কিছুটা আক্ষেপ হয়তো থাকার কথা আজহারের। ক্যারিয়ারের তৃতীয় ডাবল সেঞ্চুরির কাছে গিয়ে থামেন তিনি ১৮৫ রানে। তার ৩৬১ বলের ইনিংসটি গড়া ৩ ছক্কা ও ১৫ চারে।

শেন ওয়ার্নের মৃত্যু ও পেশাওয়ারের এক মসজিদে আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহতদের সম্মানে দিনের খেলা শুরুর আগে দুই দলের ক্রিকেটাররা নীরবতা পালন করেন।

এক উইকেটে ২৪৫ রান নিয়ে খেলতে নেমে প্রথম দিনের মতোই সাবধানী ব্যাটিংয়ের পথ বেছে নেন আজহার ও ইমাম। প্রথম সেশনে ২৫ ওভারে খেলে কেবল ৫৭ রান তোলেন দুই ব্যাটসম্যান।

আগের দিন ১৩২ রান করা ইমাম প্রথম সেশনে দেড়শ স্পর্শ করেন ৩২৯ বলে। আর লাঞ্চ বিরতির পর পঞ্চম ওভারে ক্যারিয়ারের উনবিংশ সেঞ্চুরি স্পর্শ করেন আজহার। ৯৭ রান থেকে ন্যাথান লায়নকে উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে এসে চার মেরে ২৫৭ বলে পা রাখেন কাঙ্ক্ষিত তিন অঙ্কে।

পরের ওভারেই ইমামকে ফিরিয়ে দেন প্যাট কামিন্স। অস্ট্রেলিয়া অধিনায়কের সুইং করে ভেতরে ঢোকা বল লেগ সাইডে খেলার চেষ্টায় ব্যাটে লাগাতে পারেননি পাকিস্তান ওপেনার। এলবিডব্লিউর আবেদনে আম্পায়ার আঙ্গুল তুলে দেন, রিভিউ নিয়েও বাঁচতে পারেননি ইমাম। থামে তার ৫২৯ মিনিট স্থায়ী ইনিংস।

বাবরও টিকতে পারেননি। মিডউইকেট থেকে মার্নাস লাবুশেনের সরাসরি থ্রোয়ে রান আউট হয়ে ফেরেন পাকিস্তান অধিনায়ক। আরেক প্রান্তে আজহার খেলতে থাকেন নিজের মতো। নিজের জোনে বল পেলেই পাঠাচ্ছিলেন বাউন্ডারিতে। ১৫০ রানে তিনি পৌঁছে যান ৩১৭ বলে।

উইকেট, কন্ডিশন, সবই ছিল সহায়ক। ব্যাট হাতে আজহারও দারুণ ছন্দে। এক সময় মনে হচ্ছিল তার দ্বিশতক কেবল সময়ের ব্যাপার। কিন্তু লাবুশেনকে রিভার্স সুইপ করে হাওয়ায় তুলে দিয়ে ধরা পড়েন তিনি শর্ট থার্ডম্যানে। শেষ হয় তার চোয়ালবদ্ধ দৃঢ়তার ঝকঝকে এক ইনিংস।

মোহাম্মদ রিজওয়ান ও ইফতিখার আহমেদ কয়েক ওভার ব্যাটিং করার পর ইনিংস ঘোষণা করে দেন পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

পাকিস্তান ১ম ইনিংস: ১৬২ ওভারে ৪৭৬/৪ ডিক্লে. (ইমাম ১৫৭, আজহার ১৮৫, বাবর ৩৬, রিজওয়ান ২৯*, ইফতিখার ১৩*; স্টার্ক ২৪-৫-৭১-০, হেইজেলউড ২৬-৬-৫৩-০, লায়ন ৫২-৫-১৬১-১, কামিন্স ২৮-৫-৬২-১, হেড ৩-০-১৩-০, গ্রিন ১৫-৩-৪৭-০, লাবুশেন ১৩-০-৫৩-১, স্মিথ ২-০-৫-০)

অস্ট্রেলিয়া ১ম ইনিংস: ১ ওভারে ৫/০ (খাওয়াজা ৫*, ওয়ার্নার ০*; সাজিদ ১-০-৫-০)

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক