কোহলির শততম টেস্টে থাকছে দর্শক

কয়েকদিনের ব্যবধানে নিজেদের সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে বিসিসিআই। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আসছে টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচে স্টেডিয়ামে দর্শক প্রবেশের অনুমতি দিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। ফলে সাবেক অধিনায়ক বিরাট কোহলির শততম টেস্টের উপলক্ষ উদযাপনের সুযোগ পেতে যাচ্ছেন ভক্তরা। 

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 2 March 2022, 01:33 PM
Updated : 2 March 2022, 01:33 PM

বিসিসিআই সচিব জয় শাহ মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে নিশ্চিত করেন বিষয়টি। আগামী শুক্রবার মোহালিতে শুরু হতে যাওয়া ম্যাচে ধারণক্ষমতার অর্ধেক দর্শক রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

গত শনিবার পাঞ্জাব ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন (পিসিএ) সিনিয়র কোষাধ্যক্ষ আরপি সিংলা বলেছিলেন, মোহালিতে সাম্প্রতিক সময়ে করোনাভাইরাস পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে দর্শকশূন্য মাঠে প্রথম টেস্ট আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা।

তবে ম্যাচ শুরুর তিন দিন আগে বিসিসিআইয়ের বিবৃতিতে জয় শাহ বলেছেন, ভারতের অন্যান্য অংশ ও পাঞ্জাবে করোনাভাইরাসের থাবা কমে আসায় দর্শক রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

“মোহালির পাঞ্জাব ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ভারত ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে প্রথম টেস্টটি দর্শকশূন্যভাবে হবে না। মাঠে দর্শকদের প্রবেশের অনুমতি দেওয়ার সিদ্ধান্তটি রাজ্য ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনগুলো বর্তমান পরিস্থিতির বিভিন্ন দিক বিবেচনা করে নিয়ে থাকে। আমি পিসিএর কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছি এবং তারা নিশ্চিত করেছে যে ক্রিকেট ভক্তরা বিরাট কোহলির ১০০তম টেস্ট ম্যাচ খেলার ঐতিহাসিক মুহূর্তটি (মাঠে বসে) দেখতে পারবেন।”

২০১১ সালে কিংস্টনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে অভিষেকের পর থেকে ৯৯ টেস্ট খেলে ৫০.৩৯ গড়ে সাত হাজার ৯৬২ রান করেছেন কোহলি। সেঞ্চুরি ২৭টি, ফিফটির সংখ্যা ২৮।

ভারতে গত জানুয়ারিতে প্রাণঘাতী রোগটি ভয়ঙ্কর রুপ ধারণ করেছিল। ফলে ফেব্রুয়ারির শুরুতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আহমেদাবাদে হওয়া তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ হয়েছিল দর্শকশূন্য মাঠে। টি-টোয়েন্টি সিরিজটি অবশ্য হয়েছিল দর্শকদের উপস্থিতিতেই। সবগুলো ম্যাচই হয়েছিল কলকাতায়।

এরপর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে লক্ষ্ণৌতে হওয়া টি-টোয়েন্টি সিরিজের দ্বিতীয় ও তৃতীয় ম্যাচটি হয় দর্শকসহ। উত্তর প্রদেশে রাজ্য নির্বাচনের কারণে প্রথম ম্যাচটি হয়েছিল দর্শকশূন্য মাঠে।

ভারত-শ্রীলঙ্কা দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের দ্বিতীয়টি হবে ব্যাঙ্গালুরুতে, ১২ মার্চ থেকে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক