ব্যাটিং ব্যর্থতায় ভারতে হোয়াইটওয়াশড উইন্ডিজ

বোলিংয়ে ভালো শুরুর পর ওয়েস্ট ইন্ডিজ ধরে রাখতে পারল না ছন্দ। গুরুত্বপূর্ণ দুটি জুটি ভারতকে এনে দিল আড়াইশ ছাড়ানো পুঁজি। পরে আরও একবার মুখ থুবড়ে পড়ল ক্যারিবিয়ান ব্যাটিং, আবারও ব্যর্থ হলো পুরো পঞ্চাশ ওভার খেলতে, গুটিয়ে গেল দুইশর নিচে। প্রথমবারের মতো ওয়ানডে সিরিজে তাদের হোয়াইটওয়াশ করল ভারত।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 11 Feb 2022, 03:28 PM
Updated : 11 Feb 2022, 06:14 PM

সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে শুক্রবার স্বাগতিকদের জয় ৯৬ রানে। ২৬৫ রান তাড়া করতে নেমে ৭ উইকেটে ৮২ রানের বিপর্যয় থেকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অলআউট হয় ১৬৯ রানে, ৩৭.১ ওভারে।

ভারতকে লড়াইয়ের পুঁজি এনে দিতে অগ্রণী ভূমিকা রাখেন শ্রেয়াস আইয়ার। সিরিজে প্রথমবার সুযোগ পেয়ে ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান ১১১ বলে করেন ৮০ রান, যা সিরিজে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ।

শ্রেয়াসের সঙ্গে চতুর্থ উইকেটে ১১০ রানের জুটি গড়ার পথে কিপার-ব্যাটসম্যান রিশাভ পান্ত করেন ৫৬ রান। কার্যকর দুটি ইনিংস খেলেন ওয়াশিংটন সুন্দর ও দিপক চাহার।

বোলিংয়ে ভারতের হয়ে অবদান রাখেন প্রায় সবাই। প্রসিধ কৃষ্ণা ও মোহাম্মদ সিরাজ নেন ৩টি করে উইকেট। দিপক চাহার ও কুলদিপ যাদবের প্রাপ্তি ২টি করে।

আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে প্রথম দুই ম্যাচের মতোই উইকেটে বাউন্স ছিল অসমান। পেস সহায়ক উইকেটে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ৪২ রানের মধ্যে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে ভারত।

চতুর্থ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ জোড়া সাফল্য পায় আলজারি জোসেফের হাত ধরে। ১৩ রান করে অধিনায়ক রোহিত শর্মা বিদায় নেন আলগা শটে বোল্ড হয়ে। সাবেক অধিনায়ক বিরাট কোহলি খুলতে পারেননি রানের খাতা, ধরা পড়েন কিপারের গ্লাভসে।

সিরিজে তিন ম্যাচে কোহলির রান কেবল ২৬। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে মাত্র দ্বিতীয়বার তিন ম্যাচের সিরিজে তার ব্যাটিং গড় থাকল ১০ এর নিচে। ২০১২-১৩ মৌসুমে পাকিস্তানের বিপক্ষে গড় ছিল ৪.৩, এবার ৮.৬।

সিরিজে প্রথমবার সুযোগ পাওয়া শিখর ধাওয়ান একটি ছক্কায় ১০ রান করেন ২৬ বল খেলে। ওডেন স্মিথের বাড়তি বাউন্সে বাঁহাতি ব্যাটসম্যান ক্যাচ দেন স্লিপে।

১০ ওভারের মধ্যে প্রথম তিন ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে ফেলে ভারত। এরপরই শুরু শ্রেয়াস ও পান্তের লড়াই। শুরুতে সময় নেন দুই জনই। পরে বাড়ান রানের গতি।

শ্রেয়াস ফিফটি পূর্ণ করেন ৭৪ বলে। পান্তের লাগে ৪৭ বল। পরের ওভারেই তিনি বিদায় নেন হেইডেন ওয়ালশের বলে কিপারকে ক্যাচ দিয়ে। ৫৪ বলে ৬ চার ও একটি ছক্কায় গড়া তার ৫৬ রানের ইনিংস।

প্রথম দুই ম্যাচে অপরাজিত ৩৪ ও ৬৪ রান করা সূর্যকুমার যাদব এবার যেতে পারেননি দুই অঙ্কে। শ্রেয়াসের সেঞ্চুরির সম্ভাবনা থামিয়ে দেন ওয়ালশ। ছক্কায় চেষ্টায় লং অফে ধরা পড়েন ৯টি চারে ৮০ রান করা ব্যাটসম্যান।

১৮৭ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে তখন আবার কিছুটা চাপে ভারত। এরপর সপ্তম উইকেটে ৫১ বলে ৫৩ রানের জুটি উপহার দেন ওয়াশিংটন ও দিপক। ৩৪ বলে ২ চার ও একটি ছক্কায় ৩৩ রান করেন ওয়াশিংটন। ৩৮ বলে ৪টি চার ও ২টি ছক্কায় ৩৮ রান দিপকের।

শেষ বলে অলআউট হওয়া ভারত ২৫ রানের মধ্যে হারায় শেষ ৪ উইকেট। সবগুলোই নেন জেসন হোল্ডার।

রান তাড়ায় তিন ওভারে ১৯ রান তুলে ভালো কিছুর ইঙ্গিত দিয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সেই রানেই উদ্বোধনী জুটি ভাঙার পর পথ হারায় তারা।

শেই হোপকে এলবিডব্লিউ করে ভারতকে প্রথম সাফল্য এনে দেন সিরাজ। যদিও রিপ্লেতে দেখা যায়, বল স্টাম্প মিস করত। রিভিউ নেননি ব্যাটসম্যান।

পরের ওভারে দারুণ দুটি আউট-সুইঙ্গারে ব্রান্ডন কিং ও শামার ব্রুকসকে বিদায় করেন দিপক। বিনা উইকেটে ১৯ থেকে ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্কোর তখন ৩ উইকেটে ২৫।

চতুর্থ উইকেটে ৪৩ রানের জুটিতে প্রতিরোধের চেষ্টা করেন ড্যারেন ব্রাভো ও নিকোলাস পুরান। প্রসিধের শরীর থেকে বাইরের বলে ড্রাইভ করে স্লিপে ক্যাচ দেন ব্রাভো (১৯)। এই পেসারের পরের ওভারে স্লিপেই ক্যাচ দেন হোল্ডার।

ফ্যাবিয়ান অ্যালেনকে টিকতে দেননি কুলদিপ। প্রায় সাত মাস পর ওয়ানডে খেলতে নামা এই রিস্ট স্পিনার পরের ওভারে থামান পুরানের ৩৪ রানের ইনিংস।

তখন একশর আগেই গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কায় ক্যারিবিয়ানরা। স্মিথের ১৮ বলে ৩টি করে চার-ছক্কায় খেলা সর্বোচ্চ ৩৬ ও আরেক বোলার জোফেসের ২৯ রানের ইনিংসে পরাজয়ের ব্যবধানই কমে শুধু।

ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন শ্রেয়াস। তিন ম্যাচে সর্বোচ্চ ৯ উইকেট নিয়ে সিরিজ সেরা প্রসিধ।

আগামী বুধবার কলকাতার ইডেন গার্ডেন্সে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে মুখোমুখি হবে দুই দল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ভারত: ৫০ ওভারে ২৬৫ (রোহিত ১৩, ধাওয়ান ১০, কোহলি ০, শ্রেয়াস ৮০, পান্ত ৫৬, সূর্যকুমার ৬, ওয়াশিংটন ৩৩, দিপক ৩৮, কুলদিপ ৫, সিরাজ ৪, প্রসিধ ০*; রোচ ৭-০-৩৯-০, জোসেফ ১০-১-৫৪-২, স্মিথ ৭-০-৩৬-১, হোল্ডার ৮-১-৩৪-৪, অ্যালেন ৮-০-৪২-১, ওয়ালশ ১০-০-৫৯-২)

ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ৩৭.১ ওভারে ১৬৯ (হোপ ৫, কিং ১৪, ব্রাভো ১৯, ব্রুকস ০, পুরান ৩৪, হোল্ডার ৬, অ্যালেন ০, জোসেফ ২৯, স্মিথ ৩৬, ওয়ালশ ১৩, রোচ ০*; দিপক ৮-১-৪১-২, সিরাজ ৯-১-২৯-৩, প্রসিধ ৮.১-১-২৭-৩, কুলদিপ ৮-০-৫১-২, ওয়াশিংটন ৪-০-১৭-০)

ফল: ৯৬ রানে জয়ী ভারত

সিরিজ: তিন ম্যাচের সিরিজে ৩-০ তে জয়ী ভারত

ম্যান অব দা ম্যাচ: শ্রেয়াস আইয়ার

ম্যান অব দা সিরিজ: প্রসিধ কৃষ্ণা

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক