নেতৃত্ব হারানোর কথা জেনে কোহলির প্রতিক্রিয়া, 'ওকে, ফাইন'

টি-টোয়েন্টির অধিনায়কত্ব ছাড়লেও টেস্ট ও ওয়ানডের নেতৃত্বে থাকতে চেয়েছিলেন বিরাট কোহলি। কিন্তু ওয়ানডেতে তার জায়গায় নতুন অধিনায়ক হিসেবে রোহিত শর্মার নাম ঘোষণা করে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড- বিসিসিআই। কোহলি জানালেন, এ নিয়ে তার সঙ্গে কোনো আলোচনাই করেনি বোর্ড। তবে সাদা বলের ক্রিকেটে নেতৃত্বে না থাকাকে স্বাভাবিকভাবেই নিয়েছেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 15 Dec 2021, 01:45 PM
Updated : 15 Dec 2021, 01:45 PM

কোহলি এখন কেবল টেস্ট অধিনায়ক। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলের নেতৃত্ব পেয়েছেন রোহিত।

কোহলি জানান, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট দল নির্বাচন নিয়ে সভায় বসার দেড় ঘণ্টা আগে প্রধান নির্বাচক চেতন শর্মা তাকে ওয়ানডে দলের অধিনায়ক পরিবর্তনের বিষয়ে জানান। সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে বুধবার কোহলি তুলে ধরেন পুরো ঘটনা।

“৮ ডিসেম্বর টেস্ট সিরিজের দল নির্বাচনের জন্য হওয়া মিটিংয়ের দেড় ঘণ্টা আগে আমার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছিল। টি-টোয়েন্টি অধিনায়কত্বের সিদ্ধান্ত যখন ঘোষণা করি তখন থেকে ৮ (ডিসেম্বর) পর্যন্ত আমার সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করা হয়নি। দল বাছাইয়ের সভার আগে আমি একটি ফোন কল পাই।”

“প্রধান নির্বাচক (চেতন শর্মা) টেস্ট দল নিয়ে আমার সঙ্গে আলাপ করেন, যেটা নিয়ে আমরা দুইজনই সম্মত ছিলাম। কল রাখার আগে আমাকে বলা হয়, পাঁচ নির্বাচক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যে, আমাকে ওয়ানডে অধিনায়ক রাখা হবে না। এরপর আমার উত্তর ছিল, ‘ওকে, ফাইন।’ দল নির্বাচনের পর আমরা এটা নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করেছি। এটাই ঘটেছে। এর আগে কোনো ধরনের যোগাযোগই হয়নি (বোর্ডের সঙ্গে আমার)।”

কদিন আগে বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি জানান, টি-টোয়েন্টির অধিনায়কত্ব না ছাড়তে কোহলিকে অনুরোধ করেছিল বোর্ড। কিন্তু কোহলি শোনালেন ভিন্ন কথা।

“যখন আমি টি-টোয়েন্টির নেতৃত্ব ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিই ও বিসিসিআইয়ের কাছে যাই, তারা এটাকে ভালোভাবেই গ্রহণ করেছিল। কোন বিরাগ বা দ্বিধা ছিল না, আমাকে এটা পুনর্বিবেচনা করতে বলা হয়নি। ভালোভাবে গ্রহণ করা হয়েছিল; আমাকে বলা হয়েছিল, এটি ইতিবাচক এবং সঠিক পথেই একটি পদক্ষেপ।”

“আমি তাদেরকে বলেছিলাম, টেস্ট ও ওয়ানডেতে (নেতৃত্ব) চালিয়ে যেতে চাই, যদি ঊর্ধ্বতন কর্তা ও নির্বাচকদের অন্য কোনো ভাবনা না থাকে। আমি যা করতে চেয়েছিলাম, সেটা নিয়ে আমার বার্তা একদম পরিষ্কার ছিল। আমি তাদেরকে বিকল্প দিয়েছিলাম, যদি তারা মনে করে, আমার টেস্ট কিংবা ওয়ানডের নেতৃত্বে থাকা উচিত হবে না, সিদ্ধান্ত তাদের হাতে।”

সম্প্রতি ভারতীয় গণমাধ্যমে খবর ছড়ায়, পরিবারের সঙ্গে ছুটি কাটাতে ওয়ানডে সিরিজ থেকে ছুটি চেয়েছেন কোহলি। যা নিয়ে তৈরি হয় নানা গুঞ্জন। ভারতের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন তো বলেই বসেন, রোহিতের সঙ্গে সম্পর্কের ফাটলের ইঙ্গিত দিচ্ছে কোহলির এই সিদ্ধান্ত।

তবে পুরো সংবাদটিকেই মিথ্যা বললেন কোহলি। দক্ষিণ আফ্রিকার সফরের ওয়ানডে সিরিজের জন্য প্রস্তুত থাকার কথা পরিষ্কার করেছেন তিনি।

“দলের বিবেচনায় আমি ছিলাম এবং আছি। আমাকে এই প্রশ্ন করা উচিত নয়, সত্যি কথা বলতে এই প্রশ্নটি ওই লোকদের ও তাদের সোর্সদের জিজ্ঞেস করা উচিত, যারা এসব লিখছেন। কারণ আমি যতটুকু জানি, আমি সবসময়ই খেলার জন্য প্রস্তুত।”

“বিশ্রাম চাওয়া নিয়ে বিসিসিআইয়ের সঙ্গে আমার কোনো কথা হয়নি। এমন অনেক কথা আগেও বেরিয়েছে, যেখানে বলা হয়েছিল যে, আমি কোনো একটি অনুষ্ঠানে ছিলাম…এসব একেবারেই সত্যি ছিল না। যারা এসব কিছু লিখছে এবং তাদের উৎসগুলো আমার কাছে একেবারেই বিশ্বাসযোগ্য নয়।”

তিনটি করে টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি খেলতে দক্ষিণ আফ্রিকা যাচ্ছে ভারত। আগামী ২৬ ডিসেম্বর সেঞ্চুরিয়নে শুরু হবে দুই দলের প্রথম টেস্ট। পরেরটি শুরু ৩ জানুয়ারি, জোহানেসবার্গে। তৃতীয় ও শেষ টেস্ট কেপ টাউনে ১১ জানুয়ারি। ১৯ জানুয়ারি পার্লে শুরু হবে ওয়ানডে সিরিজ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক