ধনাঞ্জয়ার সেঞ্চুরিতে শক্ত অবস্থানে শ্রীলঙ্কা

নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে আড়াইশর আগে গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কা জেগেছিল। ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্পিনে বিপর্যয়ে পড়া শ্রীলঙ্কাকে পথ দেখালেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। উপহার দিলেন দারুণ এক সেঞ্চুরি। নবম উইকেটে লাসিথ এম্বুলদেনিয়ার যোগ্য সঙ্গ পেয়ে শতরানের জুটিতে দলকে বড় লক্ষ্যের এগিয়ে নিচ্ছেন ধনাঞ্জয়া।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 2 Dec 2021, 01:49 PM
Updated : 2 Dec 2021, 01:59 PM

গল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টের চতুর্থ দিন শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৮ উইকেটে ৩২৮ রান। প্রথম ইনিংসে পিছিয়ে পড়া দলটি এখন এগিয়ে ২৭৯ রানে।

দ্বিতীয় ইনিংসে অল্প রানে গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কা দূর করে লঙ্কানদের বড় সংগ্রহ এনে দেওয়ার নায়ক ধনাঞ্জয়া। ১১ চার ও ২ ছক্কায় ১৫৩ রান করে অপরাজিত আছেন তিনি। ১০০ বল খেলে ২৫ রান করেছেন এম্বুলদেনিয়া।

স্পিন সহায়ক উইকেটে ১০৭ রানের অবিছিন্ন জুটিতে দিন শেষ করেছেন এই দুইজন। ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে নবম উইকেটে যা শ্রীলঙ্কার সর্বোচ্চ জুটি। যেকোনো প্রতিপক্ষের হিসেবে এই উইকেট জুটিতে তাদের সর্বোচ্চ রান ১১৮, ভারতের বিপক্ষে।

দিনের শেষটা লঙ্কানদের হলেও শুরুটা ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের। ২ উইকেটে ৪৬ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামা শ্রীলঙ্কার ইনিংসে দশম ওভারে আঘাত হানেন ভিরাসামি পেরমল। বাঁহাতি এই স্পিনারের লেংথে পড়ে লাফিয়ে ওঠা বল চারিথ আসালাঙ্কার ব্যাটের কানা নিয়ে প্যাড থেকে সহজ ক্যাচ যায় শর্ট লেগ ফিল্ডারে হাতে।

এরপর দলকে এগিয়ে নেন পাথুম নিশানকা ও ধনাঞ্জয়া। ১২২ বলে ফিফটি তুলে নেন নিশানকা। ম্যাচের প্রথম ইনিংসেও লঙ্কান ওপেনার করেছিলেন ফিফটি।

এবারও তিনি ব্যর্থ ইনিংস বড় করতে। লাঞ্চ বিরতির ঠিক আগের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে যান রোস্টন চেইসের বলে। ৪ চারে ৬৬ রান করা নিশানকা বাঁচতে পারেননি রিভিউ নিয়েও।

ফিরতি ক্যাচ নিয়ে দিনেশ চান্দিমালকে দ্রুত ফেরান চেইস। প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা চালানো রমেশ মেন্ডিস ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েটের শিকার।

নতুন বল হাতে পেয়ে পরপর দুই ওভারে সুরাঙ্গা লাকমল ও অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসকে ফিরিয়ে দেন পেরমল। ২২১ রানে ৮ উইকেট হারানো দলটির ইনিংস তখন দ্রুত শেষ করে দেওয়ার ছক কষছে ক্যারিবিয়ানরা।

কিন্তু তাদের সামনে দেয়াল হয়ে দাঁড়ান ধনাঞ্জয়া ও এম্বুলদেনিয়া। অসাধারণ দৃঢ়তায় ধরেন দলের হাল। ৯৭ বলে ফিফটি করা ধনাঞ্জয়া এগিয়ে যেতে থাকেন সেঞ্চুরির দিকে। আর তাকে কেবল সঙ্গ দিয়ে যান এম্বুলদেনিয়া।

কাঙ্ক্ষিত তিন অংকে ধনাঞ্জয়া পা রাখেন ১৮৯ বলে। টেস্ট ক্যারিয়ারে যা তার অষ্টম শতক। তার সবশেষ সেঞ্চুরি এসেছিল গত এপ্রিলে, বাংলাদেশের বিপক্ষে পাল্লেকেলেতে।

সেঞ্চুরির পরপরই একবার জীবন পান ধনাঞ্জয়া। তখন ১১৬ রানে থাকা এই ব্যাটসম্যানের কঠিন ক্যাচটি ধরতে পারেননি বোলার পেরমল। দারুণ ব্যাটিংয়ে এরপর তিনি ২৫৫ বলে তুলে নেন দেড়শ।

এম্বুলদেনিয়ার সঙ্গে তার জুটি শতরান স্পর্শ করে ১৯৯ বলে। যেখানে উইকেট ধরে রাখার গুরু দায়িত্বটি পালন করে যান এম্বুলদেনিয়া।

পঞ্চম দিনে প্রতিপক্ষের লক্ষ্য আরও বাড়াবে নাকি ইনিংস ঘোষণা করে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিবে শ্রীলঙ্কা, সেটাই এখন দেখার বিষয়।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা ১ম ইনিংস: ২০৪

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১ম ইনিংস: ২৫৩

শ্রীলঙ্কা ২য় ইনিংস: (আগের দিন ৪৬/২) ১১৯ ওভারে ৩২৮/৮ (নিসানকা ৬৬, আসালাঙ্কা ১৯, ধনাঞ্জয়া ১৫৩*, চান্দিমাল ২, রমেশ ২৫, লাকমল ৭, ম্যাথিউস ১, এম্বুলদেনিয়া ২৫*; পেরমল ৩৯-৪-১০০-৩, চেইস ২৭-২-৮২-২, ওয়ারিক্যান ২৯-৫-৭৬-০, রোচ ৭-০-১৮-০, হোল্ডার ৯-১-২৪-০, ব্র্যাথওয়েট ৫-০-১১-১, বনার ৩-১-৯-০)

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক