মিরপুর টেস্টের দলে সাকিব-তাসকিনের সঙ্গী নাঈম শেখ

চট্টগ্রাম টেস্ট হারার দিনে পরের টেস্টের জন্য সুখবর পেল বাংলাদেশ দল। চোট কাটিয়ে পাকিস্তানের বিপক্ষে মিরপুর টেস্টে দলে ফিরলেন সাকিব আল হাসান ও তাসকিন আহমেদ। এই সংস্করণে দলে প্রথমবার ডাক পেলেন টি-টোয়েন্টি দলের নিয়মিত ওপেনার মোহাম্মদ নাঈম শেখ।

ক্রীড়া প্রতিবেদকচট্টগ্রাম থেকে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 30 Nov 2021, 12:27 PM
Updated : 30 Nov 2021, 01:05 PM

প্রথম টেস্টের স্কোয়াড থেকে বাদ দেওয়া হয়নি কাউকেই। সাকিব-তাসকিন-নাঈমকে নিয়ে তাই শেষ টেস্টের জন্য বাংলাদেশ দলে ২০ জনের বিশাল বহর।

চট্টগ্রামে ব্যাটিংয়ের সময় হেলমেটে বল লাগার পর টেস্ট থেকে ছিটকে যাওয়া ইয়াসির আলি চৌধুরিও আছেন। চোটের পর ২৫ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যানের সিটি স্ক্যান করিয়ে ধরা পড়েনি কোনো সমস্যা। ২৪ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণে রাখা হয় তাকে।

তাসকিন চোট পান গত ২২ নভেম্বর পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের শেষ টি-টোয়েন্টিতে। নিজের বলে ফিল্ডিং করতে গিয়ে হাত ফেটে যাওয়ার পর চারটি সেলাই পড়ে তার হাতে। খেলতে পারেননি তাই প্রথম টেস্টে।

সাকিবের ফেরার প্রতীক্ষাই বেশি ছিল দলের। শুধু অভিজ্ঞ ও দলের সেরা ক্রিকেটার বলেই নয়, একাদশের ভারাসাম্যের জন্যও তাকে জরুরি। হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে গত মাসে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মাঝপথে তিনি ছিটকে পড়েন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচের পর। ওই চোটের কারণেই খেলতে পারেননি এবার পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ ও প্রথম টেস্টে।

সাকিব ও তাসকিন দুজনই এখন ফিট বলে বিবৃতিতে জানায় বিসিবি।

নাঈম শেখ

মোহাম্মদ নাঈম শেখের দলে ডাক পাওয়া অনেকটা চমকই বলা যায়। তার টি-টোয়েন্টি সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন থাকলেও টি-টোয়েন্টি দলে এখন তিনি দলের প্রথম পছন্দের ওপেনার। ওয়ানডে স্কোয়াডে তাকে রাখা হয়। তবে টেস্ট দলে ডাক পাওয়াটা খানিকটা অভাবনীয়ই।

প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট খুব বেশি খেলার অভিজ্ঞতা নেই নাঈমের। ৬টি ম্যাচ খেলেছেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান, গড় মোটে ১৬.৬৩। ফিফটি কেবল একটি। গত ২১ মাসে তিনি কোনো প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলেনি।

সবশেষ প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলার পর এই লম্বা সময়ে দুটি বড় দৈর্ঘ্যের ম্যাচ তিনি খেলেছেন। একটি গত বছর সফরকারী জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ, যেটিতে আউট হন ১১ রানে। এরপর এই বছরের শুরুতে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ। সেটিতে প্রথম ইনিংসে করেন ৪৫, পরেরটিতে শূন্য।

প্রথম টেস্টের স্কোয়াডে দলে ওপেনার ছিলেন দুজন, সাদমান ইসলাম ও সাইফ হাসান। টেস্ট শুরুর আগের দিন অধিনায়ক মুমিনুল হক জানিয়েছিলেন, প্রথমবার সুযোগ পাওয়া তরুণ ব্যাটসম্যান মাহমুদুল হাসান জয়কে তারা বিকল্প ওপেনার হিসেবেই ভাবছেন। যদিও ঘরোয়া ক্রিকেটে মাহমুদুল সাধারণত ওপেন করেন না। সাদমান ও সাইফ চট্টগ্রাম টেস্টে ভালো করতে পারেননি। তবে মিরপুর টেস্টের স্কোয়াডে টিকে আছেন তিনজনই, সঙ্গে যোগ করা হলো নাঈমকে।

আগামী শনিবার মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে শুরু হবে দ্বিতীয় টেস্ট। প্রথম টেস্টে ৮ উইকেটের জয়ে সিরিজে এগিয়ে পাকিস্তান।

বাংলাদেশ টেস্ট দল: মুমিনুল হক (অধিনায়ক), সাদমান ইসলাম, সাইফ হাসান, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, লিটন কুমার দাস, ইয়াসির আলি চৌধুরি, নুরুল হাসান সোহান, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ, ইবাদত হোসেন চৌধুরি, আবু জায়েদ চৌধুরি, নাঈম হাসান, মাহমুদুল হাসান জয়, রেজাউর রহমান রাজা, সৈয়দ খালেদ আহমেদ, শহিদুল ইসলাম, মোহাম্মদ নাঈম শেখ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক