স্টান্স বদল আর পরিশ্রমের মিশেলে লিটনের সেঞ্চুরি

ব্যাটিং কোচ অ্যাশওয়েল প্রিন্স বলেছিলেন স্টান্সে একটু বদল আনার কথা। লিটন দাস সেটি উল্লেখ করে কৃতিত্ব দিলেন বিকেএসপির কোচদেরও। তবে মাঠে কাজটা তো স্বয়ং লিটনকেই করতে হয়েছে! পাকিস্তানের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টের দুর্দান্ত সেঞ্চুরির পর এই ব্যাটসম্যান বললেন, অনেক ঘাম ও শ্রমের ফসল এই ইনিংস।

ক্রীড়া প্রতিবেদকচট্টগ্রাম থেকে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 27 Nov 2021, 02:11 PM
Updated : 27 Nov 2021, 04:16 PM

সেঞ্চুরিটি লিটন করেন শুক্রবার, টেস্টের প্রথম দিনে মাঠ ছাড়েন ১১৩ রানে অপরাজিত থেকে। দ্বিতীয় দিনে সেই ইনিংস আর বড় করতে পারেননি। আউট হয়ে যান ১১৪ রানে। ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হন তিনি।

প্রথম দিনের পর দলের ব্যাটিং কোচ প্রিন্স বলেছিলেন, টেস্টের আগে অনুশীলনে লিটনের স্টান্সে একটু বদল এনে এমনভাবে দাঁড় করিয়েছিলেন, যেন বলের লাইনে ভালোভাবে যেতে পারেন তিনি। লিটন সেই পরিবর্তনের সঙ্গে যোগ করলেন আরও কিছু।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে ফিরে জাতীয় লিগের একটি ম্যাচ খেলেছিলেন লিটন। সেই সময় কাজ করেন তিনি বিকেএসপির কোচদের সঙ্গে। সেটি জানিয়ে লিটন বললেন নিজের ঘাম ঝরানোর কথাও।

“ব্যাটিংয়ের জিনিসগুলো আসলে ছোট ছোট খুবই। অনেক সময় স্টান্সে ছোট্ট একটা বদল আনলে অনেক কিছু হয়। কিংবা ব্যাক লিফট বদল করলেই খেলার ধরন বদলে যায়। এসব নতুন কিছু না। যখন আমি বিকেএসপিতে ছিলাম জাতীয় লিগের ম্যাচে, তখন ফাহিম স্যার (বিকেএসপির ক্রিকেট পরামর্শক নাজমুল আবেদীন) ও মন্টু স্যারের সঙ্গে আলাপ করেছিলাম যে আমার সমস্যা হচ্ছিল।”

“সেখান থেকে আসার পর চট্টগ্রামে আমাদের যে দুটো অনুশীলন সেশন করেছি, আমি ওভাবেই চেষ্টা করেছি। তার (প্রিন্স) কাছেও মনে হচ্ছিল যে ছোট্ট একটা জায়গায় সমস্যা হচ্ছে। সেজন্য কোনো একটা জায়গায় বদল এনেছেন। তবে আমি বলব না যে স্টান্স বদল করার কারণেই ভালো খেলেছি। কারণ আমার কষ্ট ছিল, পরিশ্রম ছিল প্রচুর।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক