তানজিদের প্রথম সেঞ্চুরিতে রাজশাহীর লিড

আট ম্যাচের প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারে আগের সর্বোচ্চ ছিল ৮২। এবার দারুণ একটি সেঞ্চুরি উপহার দিলেন তানজিদ হাসান। তরুণ এই ব্যাটসম্যানের ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসে ঢাকা মেট্রোর বিপক্ষে বড় লিডের পথে ছুটছে রাজশাহী বিভাগ।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 9 Nov 2021, 01:43 PM
Updated : 9 Nov 2021, 01:43 PM

বিকেএসপির ৪ নম্বর মাঠে জাতীয় লিগে দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচে মঙ্গলবার মেট্রোকে ৩৯৮ রানে থামিয়ে দিয়ে ব্যাট করছে রাজশাহী। ৪ উইকেটে ২৪১ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শেষ করেছে তারা।

প্রথম ইনিংসে ২৩২ রান করা রাজশাহী এগিয়ে আছে ৭৫ রানে।

দ্বিতীয় ইনিংসে রাজশাহীকে বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে দেন তানজিদ। ওপেনিংয়ে নেমে ২০ বছর বয়সী বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান করেন ১৪৫ রান। তার ১৭১ বলের ইনিংসটি সাজানো ১৫ চার ও ২ ছক্কায়।

৫৯ রান নিয়ে উইকেটে আছেন জুনায়েদ সিদ্দিক। তার ব্যাটেই বড় সংগ্রহের দিকে তাকিয়ে রাজশাহী।

৬ উইকেটে ৩৫৩ রান নিয়ে দিন শুরু করা মেট্রোর ইনিংস ১১ ওভারের মধ্যেই গুটিয়ে দেয় রাজশাহী। এই সময়ে দলটির খাতায় যোগ হয় আর ৪৫ রান।

৫ চার ও ২ ছক্কায় ৫৯ রান করা আবু হায়দার রনি দিনের চতুর্থ ওভারে সানজামুল ইসলামের বলে ক্যাচ দেন লং-অফে। বাঁহাতি এই স্পিনারের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে দ্রুত ফিরে যান শহিদুল ইসলাম।

৬৫ রান নিয়ে দিন শুরু করা আমিনুল ইসলাম এগিয়ে যাচ্ছিলেন ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরির দিকে। কিন্তু তাকে তিন অঙ্কে পা রাখতে দেননি মুক্তার আলি। লং-অনে ক্যাচ দিয়ে শেষ হয় আমিনুলের ৬ চার ও এক ছক্কায় ৮২ রানের ইনিংস। একেএস স্বাধীনের ফিরতি ক্যাচ নিয়ে মুক্তারই শেষ করে দেন মেট্রোর ইনিংস।

রাজশাহীর হয়ে ১২৪ রান দিয়ে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নেন সানজামুল। দুটি করে প্রাপ্তি ফরহাদ রেজা ও মুক্তারের।

১৬৬ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে খেলতে নামা রাজশাহীর দ্রুত হারায় অভিষেক মিত্রকে। শুরুর সেই ধাক্কা দারুণ দৃঢ়তায় সামাল দেন তানজিদ ও জুনায়েদ।

এক প্রান্তে বলের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে রান তুলতে থাকেন তানজিদ। তার ফিফটি আসে ৬৩ বলে। অন্য প্রান্তে জুনায়েদ মনোযোগ দেন উইকেট ধরে রাখায়। জমে ওঠে এই দুইজনের জুটি।

দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে সেঞ্চুরির দিকে এগিয়ে যেতে থাকেন তানজিদ। ১৩৩ বলে কাঙ্ক্ষিত তিন অঙ্কে পা রাখেন এই তরুণ। ততক্ষণে জুনায়েদের সঙ্গে তার জুটির রানও পেরিয়ে যায় একশ।

উইকেটের খোঁজে থাকা মেট্রোকে শেষ পর্যন্ত সাফল্য এনে দেন আমিনুল। এই লেগ স্পিনার ভাঙেন ১৬২ রানের জুটির প্রতিরোধ। ১৪৫ রান করা তানজিদ তার বলে ধরা পড়েন লং-অনে।

এরপর দ্রুত আরও দুই উইকেট হারায় রাজশাহী। মিজানুর রহমানকে টিকতে দেননি আবু হায়দার।  শহিদুলের বলে এলবিডব্লিউ হন ফরহাদ হোসেন।

১৮১ বলে ফিফটি করে এক প্রান্ত আগলে রাখেন জুনায়েদ। প্রিতম কুমারকে নিয়ে শেষের সময়টুকু কাটিয়ে দেন তিনি নিরাপদে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

রাজশাহী বিভাগ ১ম ইনিংস: ২৩২

ঢাকা মেট্রো ১ম ইনিংস: (আগের দিন ৩৫৩/৬) ১১৩.৫ ওভারে ৩৯৮ (আমিনুল ৮২, আবু হায়দার ৫৯, শহিদুল ৭, স্বাধীন ১০, রকিবুল ৮*; ফরহাদ রেজা ১৫-১-৬১-২, নাহিদ ১৬-১-৫৩-১, মুক্তার ২২.৫-২-৮৪-২, সানজামুল ৩৭-৫-১২৪-৪, সাকলাইন ১৯-৩-৫৭-০, ফরহাদ ৪-১-১৫-১)।

রাজশাহী বিভাগ ২য় ইনিংস: ৭২ ওভারে ২৪১/৪ (তানজিদ ১৪৫, অভিষেক ১১, জুনায়েদ ৫৯*, মিজানুর ১৫, ফরহাদ ০, প্রিতম ২*; আবু হায়দার ১২-১-৩১-১, শহিদুল ১২-১-৪৬-১, স্বাধীন ৭-১-২৮-১, শরিফুল্লাহ ২৪-৭-৫৯-০, রকিবুল ৮-২-১৮-০, আমিনুল ৯-১-৫১-১)।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক