৬ ওভারের সেই স্পেল চেয়ে নিয়েছিলেন বুমরাহ

৬-৩-৬-২, ওভাল টেস্টের শেষ দিনে লাঞ্চের পর জাসপ্রিত বুমরাহর দুর্দান্ত এক স্পেল। ভারতের জয় অনেকটা নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল ওই সময়ই। অধিনায়ক বিরাট কোহলি জানালেন, ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দেওয়া স্পেলটি নিজেই চেয়ে নিয়েছিলেন এই পেসার।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 Sept 2021, 10:12 AM
Updated : 7 Sept 2021, 10:12 AM

পঞ্চম দিনের উইকেটে ছিল না পেসারদের জন্য তেমন কিছুই। কিন্তু গতি, আগ্রাসন, সুইং, রিভার্স সুইং, ইয়র্কারের প্রদর্শনী মেলে ধরেন বুমরাহ। লাঞ্চের পর নতুন স্পেলে বোলিংয়ে এসে পরপর দুই ওভারে তিনি ফিরিয়ে দেন অলি পোপ ও জনি বেয়ারস্টোকে।

প্রথম ইনিংসে পোপের ৮১ রানের ইনিংসেই ৯৯ রানের লিড পেয়েছিল ইংল্যান্ড। ৩৬৮ রানের লক্ষ্য তাড়ায় মিডল অর্ডার এই ব্যাটসম্যানকে ২ রানেই থামিয়ে দেন বুমরাহ। ভেতরে ঢোকা দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে এলোমেলো হয়ে যায় পোপের স্টাম্প। এরই সঙ্গে বুমরাহ গড়ে ফেলেন ভারতীয় পেসারদের মধ্যে সবচেয়ে কম টেস্টে একশ উইকেট নেওয়ার কীর্তি।

বেয়ারস্টোকে তো রানের খাতাই খুলতে দেননি বুমরাহ। দারুণ এক ইয়র্কারে ইংলিশ কিপার-ব্যাটসম্যানকে করে দেন বোল্ড। সেখানেই ভেঙে যায় স্বাগতিকদের মেরুদণ্ড। সব মিলিয়ে ম্যাচের চতুর্থ ইনিংসে ২২ ওভার বোলিং করেন এই পেসার। কেবল ২৭ রান দিয়ে তার শিকার মূল্যবান ওই দুই উইকেট।

এরপর আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি ইংল্যান্ড। হেরে যায় ১৫৭ রানে। ১৯৭১ সালের পর ওভালে টেস্ট জয়ের স্বাদ পায় সফরকারীরা। সিরিজে এগিয়ে তারা ২-১ ব্যবধানে।

ম্যাচ শেষে সোমবার কোহলি প্রশংসায় ভাসান বুমরাহকে। বলেন, তার ওই অসাধারণ স্পেলই দলের জয়ের পথ তৈরি করে দিয়েছে।

“নিশ্চিতভাবে অবিশ্বাস্য স্পেল। এই পিচে যদি ২২ ওভার করে কেউ ২৭ রান দেয়, টেস্টের শেষ ইনিংসে এটা দারুণ প্রচেষ্টা। উইকেটে বোলারদের জন্য তেমন সহায়তা ছিল না, কিন্তু যখনই বল কিছুটা রিভার্স করা শুরু করল, জাসপ্রিত বলেছিল, ‘আমাকে বোলিং দাও।’ আর সে ওই ৬ ওভারের স্পেলটা করল এবং দুটি উইকেট এনে দিল; যেটা ম্যাচের মোড় পুরোপুরি আমাদের দিকে ঘুরিয়ে দিল। ওই সময়ই আমরা বুঝতে পেরেছিলাম, ইংল্যান্ড আর কোনো ভুল করলেই ম্যাচ আমাদের।”

রান তাড়ায় শুরুটা খারাপ হয়নি ইংল্যান্ডের। ররি বার্নস ও হাসিব হামিদের উদ্বোধনী জুটিতে আসে ১০০ রান। এরপরই ধস নামে। ঘুরে দাঁড়ানো হয়ত সম্ভব ছিল তখনও। ইংলিশ অধিনায়ক জো রুটের মতে, তাদের সেই পথ বন্ধ হয়ে যায় বুমরাহর সেই স্পেলেই।

“আমাদের উদ্বোধনী জুটি ছিল অসাধারণ। কিন্তু কৃতিত্ব ভারতের, তারা বল রিভার্স সুইং করাতে পেরেছে এবং সেটাকে দারুণভাবে কাজে লাগিয়েছে। বুমরাহর সেই স্পেলটা ছিল দুর্দান্ত এবং সেটাই মূলত ম্যাচের গতি পাল্টে দেওয়া মুহূর্ত।”

আগামী শুক্রবার সিরিজের পঞ্চম ও শেষ টেস্ট শুরু হবে ম্যানচেস্টারে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক