বোলারদের ক্ষুধা তৃপ্তি দিচ্ছে অধিনায়ককে

উইকেট বোলিং সহায়ক। প্রতিপক্ষের ব্যাটিং লাইন আপ এই কন্ডিশনে একদমই নড়বড়ে। সবকিছুই বাংলাদেশের পক্ষে। পারিপার্শ্বিকতা সহায়ক হলেও মূল কাজটা তো নিজেদেরই করতে হয়! বাংলাদেশের বোলাররা তা করতে পেরেছেন দেখে উচ্ছ্বসিত মাহমুদউল্লাহ। বাংলাদেশ অধিনায়ক বেশি খুশি, ম্যাচের পর ম্যাচ বোলাররা এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারায়।

ক্রীড়া প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 2 Sept 2021, 05:32 AM
Updated : 2 Sept 2021, 08:59 AM

গত মাসের অস্ট্রেলিয়া সিরিজ থেকেই মিরপুরে স্পিন সহায়ক উইকেটে খেলে আসছে বাংলাদেশ। কন্ডিশন ও উইকেটের কারণে বোলারদের ওপর প্রত্যাশা বেশি। সেই প্রত্যাশার চাপে ভেঙে না পড়ে বোলাররা ম্যাচের পর ম্যাচ দলকে জেতানোয় রাখছেন বড় ভূমিকা।

অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যানদের নাকানি-চুবানি খাওয়ানোর পর এবার নিউ জিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরাও প্রথম ম্যাচে টের পেয়েছেন এই উইকেটে বাংলাদেশের বোলিংয়ের ধার। প্রথম ম্যাচে কিউইরা গুটিয়ে গেছে স্রেফ ৬০ রানেই।

প্রতিটি ম্যাচেই নিজেদের ছাড়িয়ে যাওয়ার যে তাড়না, এটিই বেশি তৃপ্তি দিচ্ছে মাহমুদউল্লাহকে।

“সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল আমাদের বোলারদের ক্ষুধা এবং নিজেদের স্কিল মেলে ধরায় শৃঙ্খলা ধরে রাখা। (উইকেট সহায়ক দেখে) তারা বাড়তি কিছু করার চেষ্টা করেনি, অনেক কিছু করতে যায়নি। পরিস্থিতির দাবি মিটিয়ে নিজেদের সেরাটা দিয়েছে। এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।”

এই জয়ে বাংলাদেশের সফলতম টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক হয়ে গেছেন মাহমুদউল্লাহ। বাংলাদেশের নেতৃত্বে মাশরাফি বিন মুর্তজার ১০ জয় ছাপিয়ে তার জয় এখন ১১টি।

সবশেষ সিরিজে অস্ট্রেলিয়াকে ৪-১ ব্যবধানে হারানোর পর এই সিরিজও শুরু হলো বড় জয় দিয়ে। নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে এই সংস্করণে ১১ ম্যাচ খেলে বাংলাদেশের যা প্রথম জয়। সিরিজে কাঙ্ক্ষিত শুরু পেয়ে স্বস্তির অবকাশ পাচ্ছেন অধিনায়ক।

“ওদের বিপক্ষে টানা কিছু হারের পর অবশেষে জিততে পেরে ভালো লাগছে। সিরিজের প্রথম ম্যাচে জয়টা সবসময়ই গুরুত্বপূর্ণ। তবে এটি কেবলই শুরু। আমাদের আবার মাঠে নেমে এই পারফরম্যান্স ধরে রাখতে হবে।”

সেই পারফরম্যান্স ধরে রাখার দ্বিতীয় লড়াই শুক্রবার। মিরপুরে যথারীতি বিকেল চারটায় শুরু ম্যাচ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক