ইংলিশ বোর্ডের কাছে ‘পরিষ্কার জবাব’ চান লামিছানে

ভিসা জটিলতায় খেলা হচ্ছে না দা হানড্রেডে। এ নিয়ে হতাশা প্রকাশ করে ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) কাছে ‘পরিষ্কার জবাব’ চেয়েছেন নেপালের লেগ স্পিনার সন্দিপ লামিছানে। 

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 21 July 2021, 06:03 PM
Updated : 21 July 2021, 06:03 PM

একই কারণে এর আগে ভাইটালিটি ব্লাস্টেও খেলতে না পারা এই ক্রিকেটার মঙ্গলবার ফেসবুকে হতাশা ঝেড়েছেন। বলেছেন, ইসিবি তাকে যে নিয়মগুলো অনুসরণ করতে বলেছিল, সেগুলো সব মেনেই খেলতে এসেছিলেন।

“আমি যখন টায়ার-৫ ভিসার জন্য আবেদন করেছিলাম তখন আমাকে বলা হয়েছিল ভাইটালিটি ব্লাস্ট ও দা হানড্রেডের জন্য একটি সার্টিফিকেট অব স্পন্সরশিপই (সিওএস) যথেষ্ট হবে। কোভিড-১৯ পরিস্থিতির জন্য আমার ভিসায় দেরি হয় এবং উস্টারশায়ার আমাকে বাদ দেয়; তবে এরপর আবারও আমার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয় এবং বলা হয় ১০ জুলাইয়ের আগে আমি যুক্তরাজ্যে আসতে পারব, সিওএস কার্যকর থাকায় সমস্যা হবে না।”

“আমি ৯ জুলাই যুক্তরাজ্যে আসি। ইমিগ্রেশনে কোনো সমস্যা হয়নি এবং আমি আমার কোয়ারেন্টিন সম্পন্ন করতে সরকার নির্ধারিত জায়গায় চলে যাই। কোয়ারেন্টিন শেষ হওয়ার দুই দিন আগে, ১৮ জুলাই ইসিবির পক্ষ থেকে বলা হলো আমার ভিসা অবৈধ এবং আমাকে যত দ্রুত সম্ভব দেশ ছাড়তে হবে। আমি জানতে চেয়েছিলাম সমস্যাটা কোথায় কিন্তু ইসিবির কেউই সঠিক উত্তর দেয়নি।”

“বুঝতে পারছি, ব্যাপারটা যে কোনো সময় খারাপের দিকে যেতে পারে। যাই হোক আমি অন্তত পরিষ্কার একটা জবাবের দাবি করতেই পারি-কেন আমার বৈধ ভিসা আর বৈধ নয়। আমি চাইব, ইসিবি এই বিষয়গুলো দেখবে, যাতে আর কাউকে আমার মতো এই পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যেতে না হয়।”

ইসিবির এক মুখপাত্র ইএসপিএনক্রিকইনফোকে বলেন, “আমরা খুবই হতাশ যে ভিসা জটিলতার কারণে সন্দিপ দা হানড্রেডের প্রথম আসরে খেলতে পারবে না। আশা করি, ক্রিকেট সমর্থকরা ভবিষ্যতে তাকে এই প্রতিযোগিতায় দেখতে পাবে।”

ইএসপিএনক্রিকইনফোর সোমবারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, ওভাল ইনভিনসিবলের সঙ্গে ৬০ হাজার পাউন্ডের চুক্তি করেছিলেন লামিছানে। টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়ার জন্য নেপাল থেকে লন্ডনে পৌঁছে দশ দিনের কোয়ারেন্টিনে ছিলেন। ইসিবি বুধবার তার পরিবর্তে টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ বোলার দক্ষিণ আফ্রিকান স্পিনার তাবরাইজ শামসিকে দলে নেওয়ার ঘোষণা দেয়।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক