রুটদের ‘স্পোর্টসম্যানশিপ’, দলের হার ও বিতর্ক

রান নিতে গিয়ে উইকেটে পড়ে গেলেন ব্যাটসম্যান। কাতরাতে থাকলেন ব্যথায়। রান আউট করার সুযোগ পেয়েও করল না ফিল্ডিং দল। একটু পর সেই ব্যাটসম্যানই অপরাজিত ইনিংস খেলে জিতিয়ে দিল ব্যাটিং দলকে। ইংল্যান্ডের ভাইটালিটি টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টের এই ঘটনা নিয়ে চলছে বিতর্ক।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 18 July 2021, 05:43 AM
Updated : 18 July 2021, 05:52 AM

ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে শনিবার ল্যাঙ্কাশায়ারের মুখোমুখি হয়েছিল জো রুটের ইয়র্কশায়ার। ২০ ওভারে রুটরা করতে পারেন ১২৮ রান। সেই রান তাড়ায় ৬৪ রানে ৫ উইকেট হারায় ল্যাঙ্কাশায়ার। এরপর স্টিভেন ক্রফট ও লুক ওয়েলসের জুটি ল্যাঙ্কাশায়ারকে এগিয়ে নেয় জয়ের পথে।

তাদের প্রয়োজন যখন ১৫ রান, জুটি ভাঙার বড় সুযোগ পায় ইয়র্কশায়ার। স্ট্রাইকে তখন ওয়েলস, মিড অফে বল ঠেলেই দ্রুত সিঙ্গেল নিতে ছোটেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। নন-স্ট্রাইক থেকে ক্রফট দৌড় শুরু করে একটু ছুটে আবার থামার মতো ভঙ্গি করেন, তখনই পা মচকানোর মতো হয়ে পিছলে পড়ে যান উইকেটে।

মিড অফ ফিল্ডার সরাসরি থ্রোয়ে ওয়েলসকে রান আউট করার চেষ্টা করলেও বল লাগাতে পারেননি স্টাম্পে। ওয়েলস নিরাপদেই পৌঁছে যান। কিন্তু ক্রফট তখনও মাটিতে পড়ে কাতরাচ্ছেন। ধারাভাষ্যকাররা বলছিলেন, হ্যামস্ট্রিংয়ের চোট হতে পারে বা ক্র্যাম্প কিংবা অন্য কিছুও।

বল ততক্ষণে কিপারের হাতে। রান আউট করার অফুরন্ত সময়। কিন্তু ক্রফটকে গুরুতর আহত মনে করে তারা রান আউট করেনি স্পোর্টসম্যানশিপ দেখিয়ে। পরে দেখা যায়, ওটা স্রেফ ক্র্যাম্পই ছিল। ক্রফট একটু পরই দাঁড়িয়ে যান, অপরাজিত ২৬ রান করে দলের জয় সঙ্গে নিয়ে ফেরেন।

এই ধরনের ক্র্যাম্প ক্রিকেটে প্রায়ই দেখা যায়। রান আউট না করে ইয়র্কশায়ার ভুল করেছে নাকি ঠিক, সেটি নিয়ে চলছে বিতর্ক।

ইংল্যান্ডের সাবেক ব্যাটসম্যান ও ধারাভাষ্যকার মার্ক বুচার মানতেই পারছেন না ইয়র্কশায়ারের এমন মহানুভবতা।

“সত্যি বলতে, পেশাদার ক্রীড়াবিদ হিসেবে, বিশ্বাস করতে পারছি না যা দেখলাম। হতবাক হয়ে গেছি, সত্যিই হয়েছি। দৌড়ে মাঝামাঝি গিয়ে ক্রফট ভাবনা বদলে ফেলে (রান নেবে কিনা), সেই কারণেই সে পড়ে যায়।”

“এটা তো ইয়র্কশায়ারের দেখার ব্যাপার না যে ক্রফটের কী সমস্যা হয়েছে বা তার পা ভেঙে গেছে নাকি পিছলে গেছে। আগে তাকে রান আউট করে দাও, তার পর পরিস্থিতি দেখো। পুরো ব্যাপারটাই আমার কাছে পুরোপুরি অদ্ভুত ঠেকেছে।”

ইংল্যান্ডের আরেক সাবেক ব্যাটসম্যান ও ধারাভাষ্যকার রবার্ট কি অবশ্য মনে করেন, ইয়র্কশায়ার ঠিকই করেছে।

“ক্রফট যখন পড়ে গেছে, তখন কেউ জানে না এটা স্রেফ ক্র্যাম্প নাকি অন্য কিছু। শুধু দেখা যাচ্ছিল, সে মাটিতে গড়াগড়ি খাচ্ছে এবং দৌড়াতে পারছে না। সে এমনকি নিজের জায়গায় ফেরত যেতেও পারছে না।”

“এটা এমন একটা ঘটনা, যেটিতে নিজের যুক্তি ধরে কেউ একমত হবে, কেউ দ্বিমত করবে।”

ইয়র্কশায়ার অধিনায়ক ও ইংল্যান্ডের টেস্ট অধিনায়ক রুট ম্যাচ শেষে বলেন, তাদের কাছে যেটা ঠিক মনে হয়েছে, সেটাই তারা করেছেন।

“দল হিসেবে অনেক সময়ই চাপের সময় কিছু কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হয়। প্রথম দেখায় তার অবস্থা খুব গুরুতর মনে হচ্ছিল। শেষ পর্যন্ত যে চোট গুরুতর নয়, এটা অনেক দিক থেকেই স্বস্তির।”

“আমি নিশ্চিত, এটা নিয়ে অনেকের অনেক মত থাকবে। অনেকেই হয়তো এই ঘটনা অন্যভাবে সামলাতে পারত। আমরা আমাদের মতোই করেছি।”

ক্রফট ম্যাচ শেষে ধন্যবাদ জানান ইয়র্কশায়ারকে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক